বাংলাদেশ ১২:৪২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
রামপুর মধ্যপাড়া মরহুম হাজী নিতু মন্ডল এর বাড়ির উদ্যোগে-৪র্থ বার্ষিক ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল। রাজশাহী মহানগরীতে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই! দুই ভুয়া ডিবি গ্রেফতার পটুয়াখালী মহিপুর ইয়াবাসহ একজন গ্রেফতার। চন্দ্রকোনায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেল এক ব্যতিক্রমী চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা। আজ শেরপুর জেলার জন্মদিন অবৈধ গ্যাস সংযোগ উচ্ছেদ অভিযান শুরু মুহম্মদ ফয়সল আকন্দের ‘চন্দ্রপুর’ গ্রন্থের পাঠ উন্মোচন সভা অনুষ্ঠিত  বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য অনেক কিছু করেছে : আমু মতলব ব্রহ্মানন্দ যোগাশ্রমে শ্রী শ্রী বিশ্ব শান্তি গীতা যজ্ঞ ও সনাতন ধর্ম সম্মেলন ২৪ ফেব্রুয়ারী রাজশাহীতে লংকাবাংলা সিকিউরিটিজের ডিজিটাল বুথের উদ্বোধন রাজশাহী পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত জবিতে শুরু হচ্ছে ৬ দিন ব্যাপি সিনেশো ব্যরিস্টার শাহজাহান ওমরের বিকল্পে জামালকে মূল্যায়ন পিরোজপুরের নেছারাবাদে দুই দিনে পাগলা কুকুরের কামড়ে নারী শিশু, বৃদ্ধসহ ১৭ জন আহত নলছিটি বন্দর স্কুলের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন আমির হোসেন আমু

মুচি’ নয় এখন থেকে নতুন পরিচয় হোক ‘সু-কর্মী’

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৭:২৪:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ মার্চ ২০২২
  • ১৬৬৬ বার পড়া হয়েছে

মুচি' নয় এখন থেকে নতুন পরিচয় হোক 'সু-কর্মী'

রাহাদ সুমন, বিশেষ প্রতিনিধি:
যারা জুতো তৈরি, সেলাই ও কালি বা রঙ করার কাজ করেন তারা আমাদের সমাজে ‘মুচি’ হিসেবে পরিচিত। দলিত সম্প্রদায়ের ক্ষুদ্র পেশার এসব হতদরিদ্র ও অবহেলিত ‘সু-কর্মী’রা আমাদের ঘুণে ধরা সমাজে অবহেলার পাত্র। এমনকি এদেরকে কেউ মানুষ বলে গণ্য করতে চান না। অথচ এরাই আমাদের চলার পথে সৌন্দর্যের সিঁড়ি তৈরি করে দেন।  এরা পথিকজনের সহায়। এখন থেকে এরা ‘মুচি’ নয়, পরিচিত হবেন ‘সু-কর্মী’ (Shoe Craftsman) হিসেবে।
এসব ‘সু-কর্মী’দের সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য ‘ভিনগোলার্ধ’ নামক সংগঠনের মাধ্যমে সামাজিক পরিবর্তনের জন্য অক্লান্ত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বরিশালের বানারীপাড়ার শেরেবাংলার পিতৃভূমি চাখারের কৃতি সন্তান, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (নোবিপ্রবি)’র সাবেক ডিন এবং বাইশারীর সৈয়দ বজলুল হক ডিগ্রি কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি প্রফেসর ডক্টর সৈয়দ আতিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল আলোর দিশারী অগ্রপথিক। ‘সু-কর্মী’র সাইনগুলো ইতোমধ্যে তারা পৌঁছে দিয়েছেন দেশ-বিদেশের বিভিন্ন এলাকার ‘সু-কর্মী’দের হাতে। কাজ চলছে আরো বিতরণের। ২০শে আগস্ট-২০২১ থেকে রাজধানী ঢাকা শহরে তারা ‘সু-কর্মী’র সাইনগুলো বিতরণ করা শুরু করেছেন।
প্রথম পর্বে সাইনগুলো পৌঁছে দিয়েছেন ক্যান্টনমেন্ট বাজারের ৫ জন ‘সু-কর্মী’র কাছে। পরের পর্বটি মিরপুরে। মিরপুর-১৩ এর  শ্রীচরণ ঋষি এ সাইনগুলো গুরুত্বের সাথে ব্যবহার করছেন। সবাই এর মতো সাইনগুলো ব্যবহারে করলে উদ্যোগতাদের উদ্দেশ্য সার্থক হবে। ঢাকার বাইরে প্রথমে বরগুনা শহরে ১৭ অক্টোবর-২০২১ তারিখে ১১ জন ‘সু-কর্মী’র কাছে সাইনগুলো দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় ‘সু-কর্মী’দের কাছে সাইনগুলো পৌঁছে দেওয়ার ব্যাপারে কাজ চলছে। এদের মধ্যে রাজশাহী, কুমিল্লা, টাঙ্গাইল, ফেনী, হাতিয়া, নোয়াখালী, সুনামগঞ্জ, ঝালকাঠি, বরিশাল, পিরোজপুর, খুলনা ও বাগেরহাটের কিছু কিছু এলাকায় ‘সু-কর্মী’র সাইনগুলো পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।
ভারতের পশ্চিম বাংলায়ও এ কাজটি করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি, বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বাইশারী সৈয়দ বজলুল হক কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ প্রয়াত সৈয়দ আমিনুল ইসলাম জাকিরের ছোট ভাই প্রফেসর ডক্টর সৈয়দ আতিকুল ইসলাম জানান, আমরা ‘মুচি’ শব্দটিকে বদলে দিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। ‘সু-কর্মী’রা সকলেই আমাদের এ সাইনগুলোকে আগ্রহ সহকারে গ্রহণ করেছে। এভাবে ধীরে ধীরে সমগ্র বাংলাদেশে কাজ করতে চাই। আমরা চাচ্ছি এদের কাজকে মানুষ সম্মানের চোখে দেখুক।
এদের সন্তানেরা গর্ব করে বাবার পরিচয় দিতে পারুক এটাই আমাদের কাম্য। এটি সম্পূর্ণরূপে একটি সামাজিক উদ্যোগ। আশা করি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে অনেকেই আমাদের সাথে কাজ করতে এগিয়ে আসবে। এ ব্যাপারে সচেতন সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করছি। আমরা চাই ‘মুচি’ সম্বোধনটি আমাদের সমাজ থেকে চিরতরে হারিয়ে যাক। সমাজে এরা নতুন মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত হোক। এখন থেকে এদের নতুন পরিচয় হোক ‘সু-কর্মী’ (Shoe Craftsman)।
জনপ্রিয় সংবাদ

রামপুর মধ্যপাড়া মরহুম হাজী নিতু মন্ডল এর বাড়ির উদ্যোগে-৪র্থ বার্ষিক ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল।

মুচি’ নয় এখন থেকে নতুন পরিচয় হোক ‘সু-কর্মী’

আপডেট সময় ০৭:২৪:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ মার্চ ২০২২
রাহাদ সুমন, বিশেষ প্রতিনিধি:
যারা জুতো তৈরি, সেলাই ও কালি বা রঙ করার কাজ করেন তারা আমাদের সমাজে ‘মুচি’ হিসেবে পরিচিত। দলিত সম্প্রদায়ের ক্ষুদ্র পেশার এসব হতদরিদ্র ও অবহেলিত ‘সু-কর্মী’রা আমাদের ঘুণে ধরা সমাজে অবহেলার পাত্র। এমনকি এদেরকে কেউ মানুষ বলে গণ্য করতে চান না। অথচ এরাই আমাদের চলার পথে সৌন্দর্যের সিঁড়ি তৈরি করে দেন।  এরা পথিকজনের সহায়। এখন থেকে এরা ‘মুচি’ নয়, পরিচিত হবেন ‘সু-কর্মী’ (Shoe Craftsman) হিসেবে।
এসব ‘সু-কর্মী’দের সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য ‘ভিনগোলার্ধ’ নামক সংগঠনের মাধ্যমে সামাজিক পরিবর্তনের জন্য অক্লান্ত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বরিশালের বানারীপাড়ার শেরেবাংলার পিতৃভূমি চাখারের কৃতি সন্তান, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (নোবিপ্রবি)’র সাবেক ডিন এবং বাইশারীর সৈয়দ বজলুল হক ডিগ্রি কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি প্রফেসর ডক্টর সৈয়দ আতিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল আলোর দিশারী অগ্রপথিক। ‘সু-কর্মী’র সাইনগুলো ইতোমধ্যে তারা পৌঁছে দিয়েছেন দেশ-বিদেশের বিভিন্ন এলাকার ‘সু-কর্মী’দের হাতে। কাজ চলছে আরো বিতরণের। ২০শে আগস্ট-২০২১ থেকে রাজধানী ঢাকা শহরে তারা ‘সু-কর্মী’র সাইনগুলো বিতরণ করা শুরু করেছেন।
প্রথম পর্বে সাইনগুলো পৌঁছে দিয়েছেন ক্যান্টনমেন্ট বাজারের ৫ জন ‘সু-কর্মী’র কাছে। পরের পর্বটি মিরপুরে। মিরপুর-১৩ এর  শ্রীচরণ ঋষি এ সাইনগুলো গুরুত্বের সাথে ব্যবহার করছেন। সবাই এর মতো সাইনগুলো ব্যবহারে করলে উদ্যোগতাদের উদ্দেশ্য সার্থক হবে। ঢাকার বাইরে প্রথমে বরগুনা শহরে ১৭ অক্টোবর-২০২১ তারিখে ১১ জন ‘সু-কর্মী’র কাছে সাইনগুলো দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় ‘সু-কর্মী’দের কাছে সাইনগুলো পৌঁছে দেওয়ার ব্যাপারে কাজ চলছে। এদের মধ্যে রাজশাহী, কুমিল্লা, টাঙ্গাইল, ফেনী, হাতিয়া, নোয়াখালী, সুনামগঞ্জ, ঝালকাঠি, বরিশাল, পিরোজপুর, খুলনা ও বাগেরহাটের কিছু কিছু এলাকায় ‘সু-কর্মী’র সাইনগুলো পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।
ভারতের পশ্চিম বাংলায়ও এ কাজটি করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি, বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বাইশারী সৈয়দ বজলুল হক কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ প্রয়াত সৈয়দ আমিনুল ইসলাম জাকিরের ছোট ভাই প্রফেসর ডক্টর সৈয়দ আতিকুল ইসলাম জানান, আমরা ‘মুচি’ শব্দটিকে বদলে দিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। ‘সু-কর্মী’রা সকলেই আমাদের এ সাইনগুলোকে আগ্রহ সহকারে গ্রহণ করেছে। এভাবে ধীরে ধীরে সমগ্র বাংলাদেশে কাজ করতে চাই। আমরা চাচ্ছি এদের কাজকে মানুষ সম্মানের চোখে দেখুক।
এদের সন্তানেরা গর্ব করে বাবার পরিচয় দিতে পারুক এটাই আমাদের কাম্য। এটি সম্পূর্ণরূপে একটি সামাজিক উদ্যোগ। আশা করি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে অনেকেই আমাদের সাথে কাজ করতে এগিয়ে আসবে। এ ব্যাপারে সচেতন সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করছি। আমরা চাই ‘মুচি’ সম্বোধনটি আমাদের সমাজ থেকে চিরতরে হারিয়ে যাক। সমাজে এরা নতুন মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত হোক। এখন থেকে এদের নতুন পরিচয় হোক ‘সু-কর্মী’ (Shoe Craftsman)।