বাংলাদেশ ০৫:০১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

মাধবপুরে প্রকৌশলী কার্যালয়ে ১যুগ ধরে কর্মরত সার্ভেয়ার সোহেল রানা বদলীকৃত সার্ভেয়ারকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিচ্ছেনা

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০২:৫৫:০১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১ অক্টোবর ২০২৩
  • ১৬০৩ বার পড়া হয়েছে
লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি :
হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার প্রকৌশলী কার্যালয়ের সার্ভেয়ার সোহেল রানা বদলীর আদেশ প্রাপ্তির পরও এক যুগ ধরে কর্মরত কিন্তু এখন দায়িত্ব বুঝিয়ে দিচ্ছেন না সদ্য মাধবপুরে বদলীকৃত সার্ভেয়ার দেলোয়ার হোসেনকে। সার্ভেয়ার সোহেল রানার দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে টালবাহানায় বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।
জানা যায়, হবিগঞ্জ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলীর স্বারক নং ২০১২/১৩৭৪ তারিখ ১০.০৯.২০১২ বদলীর আদেশ মোতাবেক বর্তমান সার্ভেয়ার সোহেল রানা মাধবপুর উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয়ে সার্ভেয়ার হিসেবে ২০১২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর যোগদান করেন। ১১ বছর যাবৎ একই উপজেলায় কর্মরত থাকায় নানা অনিয়ম ও দূর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন সার্ভেয়ার সোহেল রানা। স্থানীয়ভাবে রাজনৈতিক দলের কতিপয় নেতা সহ প্রভাবশালীদের আশির্বাদের সুবাধে একাধিকবার বদলীর আদেশ আসলেও তা ঠেকিয়ে দেন। তার দাপটে প্রকৌশল শাখার কর্মকর্তা N কর্মচারীরা তটস্ত থাকেন। দীর্ঘদিন একই এলাকায় চাকুরীর কারনে সে মাধবপুরে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য জায়গা জমিন ক্রয় করেছে,
বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। এছাড়া কতিপয় অসাধূ ঠিকাদারের সাথে যোগসাজশে সার্ভেয়ার সোহেল রানা ঠিকাদারী ব্যাবসায়ও নিয়োজিত রয়েছেন। নিয়মিত অফিসে না আসা সহ তার বিরুদ্বে নানা অসদাচরনের অভিযোগ রয়েছে। এদিকে গত বছরের ৭ ডিসেম্বর এলজিইডির সিলেট অঞ্চলের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলেী নির্মল কুমার বিশ্বাস স্বাক্ষরতি এক অফিস আদেশে নবীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয়ের সার্ভেয়ার দেলোয়ার হোসেনকে মাধবপুরে একই পদে বদলী করেন। অফিস আদেশের প্রেক্ষিতে দেলোয়ার হোসেন নবীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলীর স্বারক নং,৪৬.০২.৩৬৭৭.০০০০.৯৯.০০২.২৩.৬০৯ তারিখ ২১.০৯.২০২৩ এর প্রেক্ষিতে গত ২৭ সেপ্টেম্বর মাধবপুর উপজেলা প্রকৌশলীর নিকট যোগদান পত্র দাখিল করেন। যোগদান পত্র দাখিল করার পরও সার্ভেয়ার সোহেল রানা দেলোয়ার হোসেনকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে সময়ক্ষেপন করছেন। দেলোয়ার হোসেনের যোগদান ঠেকাতে আবারো নানা জায়গায় দৌড়ঝাপ করছেন সোহেল রানা।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ফরিদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এটা উপজেলা প্রকৌশলীর দায়িত্ব। আমি নতুন যোগদান করায় বিষয়টি সম্পর্কে অবগত নই। খোজ খবর নিয়ে জানাচ্ছি। মাধবপুর উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ শাহ আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সার্ভেয়ার সোহেল রানা এখানে দীর্ঘদিন যাবৎ আছে এটা সত্য। কিন্তু নতুন কেউ এ পদে বদলী হয়ে আসলে অফিসের কাজে ব্যাঘাত ঘটবে। কারন হিসেবে তিনি জানান, তথ্য জানা না থাকলে কাজ করবে কিভাবে। তাহলে অফিস আদেশ মানবেননা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি নিশ্চুপ থাকেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

মাধবপুরে প্রকৌশলী কার্যালয়ে ১যুগ ধরে কর্মরত সার্ভেয়ার সোহেল রানা বদলীকৃত সার্ভেয়ারকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিচ্ছেনা

আপডেট সময় ০২:৫৫:০১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১ অক্টোবর ২০২৩
লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি :
হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার প্রকৌশলী কার্যালয়ের সার্ভেয়ার সোহেল রানা বদলীর আদেশ প্রাপ্তির পরও এক যুগ ধরে কর্মরত কিন্তু এখন দায়িত্ব বুঝিয়ে দিচ্ছেন না সদ্য মাধবপুরে বদলীকৃত সার্ভেয়ার দেলোয়ার হোসেনকে। সার্ভেয়ার সোহেল রানার দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে টালবাহানায় বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।
জানা যায়, হবিগঞ্জ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলীর স্বারক নং ২০১২/১৩৭৪ তারিখ ১০.০৯.২০১২ বদলীর আদেশ মোতাবেক বর্তমান সার্ভেয়ার সোহেল রানা মাধবপুর উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয়ে সার্ভেয়ার হিসেবে ২০১২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর যোগদান করেন। ১১ বছর যাবৎ একই উপজেলায় কর্মরত থাকায় নানা অনিয়ম ও দূর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন সার্ভেয়ার সোহেল রানা। স্থানীয়ভাবে রাজনৈতিক দলের কতিপয় নেতা সহ প্রভাবশালীদের আশির্বাদের সুবাধে একাধিকবার বদলীর আদেশ আসলেও তা ঠেকিয়ে দেন। তার দাপটে প্রকৌশল শাখার কর্মকর্তা N কর্মচারীরা তটস্ত থাকেন। দীর্ঘদিন একই এলাকায় চাকুরীর কারনে সে মাধবপুরে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য জায়গা জমিন ক্রয় করেছে,
বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। এছাড়া কতিপয় অসাধূ ঠিকাদারের সাথে যোগসাজশে সার্ভেয়ার সোহেল রানা ঠিকাদারী ব্যাবসায়ও নিয়োজিত রয়েছেন। নিয়মিত অফিসে না আসা সহ তার বিরুদ্বে নানা অসদাচরনের অভিযোগ রয়েছে। এদিকে গত বছরের ৭ ডিসেম্বর এলজিইডির সিলেট অঞ্চলের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলেী নির্মল কুমার বিশ্বাস স্বাক্ষরতি এক অফিস আদেশে নবীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয়ের সার্ভেয়ার দেলোয়ার হোসেনকে মাধবপুরে একই পদে বদলী করেন। অফিস আদেশের প্রেক্ষিতে দেলোয়ার হোসেন নবীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলীর স্বারক নং,৪৬.০২.৩৬৭৭.০০০০.৯৯.০০২.২৩.৬০৯ তারিখ ২১.০৯.২০২৩ এর প্রেক্ষিতে গত ২৭ সেপ্টেম্বর মাধবপুর উপজেলা প্রকৌশলীর নিকট যোগদান পত্র দাখিল করেন। যোগদান পত্র দাখিল করার পরও সার্ভেয়ার সোহেল রানা দেলোয়ার হোসেনকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে সময়ক্ষেপন করছেন। দেলোয়ার হোসেনের যোগদান ঠেকাতে আবারো নানা জায়গায় দৌড়ঝাপ করছেন সোহেল রানা।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ফরিদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এটা উপজেলা প্রকৌশলীর দায়িত্ব। আমি নতুন যোগদান করায় বিষয়টি সম্পর্কে অবগত নই। খোজ খবর নিয়ে জানাচ্ছি। মাধবপুর উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ শাহ আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সার্ভেয়ার সোহেল রানা এখানে দীর্ঘদিন যাবৎ আছে এটা সত্য। কিন্তু নতুন কেউ এ পদে বদলী হয়ে আসলে অফিসের কাজে ব্যাঘাত ঘটবে। কারন হিসেবে তিনি জানান, তথ্য জানা না থাকলে কাজ করবে কিভাবে। তাহলে অফিস আদেশ মানবেননা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি নিশ্চুপ থাকেন।