বাংলাদেশ ০১:৫৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
প্রতিমন্ত্রী মো. মহিববুর রহমান এমপি’র বানী রামপুর মধ্যপাড়া মরহুম হাজী নিতু মন্ডল এর বাড়ির উদ্যোগে-৪র্থ বার্ষিক ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল। রাজশাহী মহানগরীতে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই! দুই ভুয়া ডিবি গ্রেফতার পটুয়াখালী মহিপুর ইয়াবাসহ একজন গ্রেফতার। চন্দ্রকোনায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেল এক ব্যতিক্রমী চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা। আজ শেরপুর জেলার জন্মদিন অবৈধ গ্যাস সংযোগ উচ্ছেদ অভিযান শুরু মুহম্মদ ফয়সল আকন্দের ‘চন্দ্রপুর’ গ্রন্থের পাঠ উন্মোচন সভা অনুষ্ঠিত  বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য অনেক কিছু করেছে : আমু মতলব ব্রহ্মানন্দ যোগাশ্রমে শ্রী শ্রী বিশ্ব শান্তি গীতা যজ্ঞ ও সনাতন ধর্ম সম্মেলন ২৪ ফেব্রুয়ারী রাজশাহীতে লংকাবাংলা সিকিউরিটিজের ডিজিটাল বুথের উদ্বোধন রাজশাহী পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত জবিতে শুরু হচ্ছে ৬ দিন ব্যাপি সিনেশো ব্যরিস্টার শাহজাহান ওমরের বিকল্পে জামালকে মূল্যায়ন পিরোজপুরের নেছারাবাদে দুই দিনে পাগলা কুকুরের কামড়ে নারী শিশু, বৃদ্ধসহ ১৭ জন আহত

নোয়াখালীতে দরপত্র বিক্রিতে বাধা

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৫:৪৩:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩০ মার্চ ২০২২
  • ১৬৫৪ বার পড়া হয়েছে

নোয়াখালীতে দরপত্র বিক্রিতে বাধা

 নোয়াখালী প্রতিনিধি
নোয়াখালীর সুবর্ণচরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের দরপত্র বিক্রিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় সাধারণ ঠিকাদাররা সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে এ দরপত্র বাতিলের দাবি জানিয়েছেন।

বুধবার (৩০ মার্চ) সুবর্ণচর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

একাধিক ঠিকাদার অভিযোগ করে বলেন, গত (১২ মার্চ) দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা  অধিদপ্তরের অতিরিক্ত সচিব ও প্রকল্প পরিচালক দীপক রঞ্জন অধিকারী স্বাক্ষরিত ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে গ্রামীণ মাটির রাস্তা সমূহ টেকসইকরণের লক্ষ্যে হেরিং বোন বন্ড(এইচবিবি) করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের দরপত্র বিজ্ঞপ্তি পত্রিকায় প্রকাশ করেন। এতে প্রায় ৬২ লক্ষ ৪২ হাজার টাকা ব্যয়ে উপজেলার চরজুবলি ইউনিয়নের ১নম্বর ওয়ার্ডে একটি সড়কের এইচবিবি করণের দরপত্র আহ্বান করা হয়। বুধবার (৩০ মার্চ) এই দরপত্র বিক্রির শেষ দিন ছিল। কিন্তু বেশ কয়েকজন ঠিকাদার সুবর্ণচর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাউছার আহমেদ ও জেলা দুর্যোগ ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা জাহিদুর রহমানের কার্যালয়ে গিয়ে দরপত্র পায়নি। বরং দুই কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে চলে তালবাহানা। সর্বশেষ সুবর্ণচর উপজেলার চর জুবলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ খসরু ও চরবাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম রাজীব ও সংশিষ্ট কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে দরপত্র বিক্রির শেষ দিনেও দরপত্র কিনতে ব্যর্থ হন অনেক ঠিকাদার। আবার ছাত্রলীগ নামধারী একটি পক্ষ শেষ দিন দরপত্র কেনা ব্যাহত করতে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে উপস্থিত ছিলেন।

নাম প্রকাশে অইচ্ছুক এক ঠিকাদার বলেন, সুবর্ণচর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার ও জেলা দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের পরিচালক এবং দুই ইউপি চেয়ারম্যানের যোগসাজশে নিজস্ব লোক ছাড়া কারো কাছে দরপত্র বিক্রি করা হয়নি। শেষ দিন সরাসারি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে দরপত্র কেনাবেচায় বন্ধ রাখা হয়। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাউছার আহমেদ দরপত্র বিক্রির সময় সু-কৌশলে ছুঁটিতে আছেন। কিন্তু এ সময়ে তিনি কর্মস্থলে থাকার কথা।

 

অভিযোগরে বিষয়ে জানতে চাইলে চর জুবলী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ খসরু অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে বলেন তিন এ ঘটনার সাথে জড়িত নেই। চরবাটা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম রাজীবের ফোনে কল করা হলে তিনি ফোন রিসভি করেননি।

এ বিষয়ে জানতে একাধিকবার সুবর্ণচর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাউছার আহমেদের ফোনে কল করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেনি। জেলা দুর্যোগ ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান জাহিদুর রহমান অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে দাবি করেন দরপত্র বিক্রি করা হয়েছে।

 

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) চৈতী সর্ববিদ্যা বলেন, ডিসি স্যারের অনুমতি ছাড়া আমি কোন বক্তব্য দিতে পারবনা। নোয়াখালী জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমানকে বিষয়টি অবহিত করলে তিনি বলেনে খোঁজ নিয়ে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা  অধিদপ্তরের অতিরিক্ত সচিব ও প্রকল্প পরিচালক দীপক রঞ্জন অধিকারী বলেন, দরপত্র ওপেন করে দেওয়ার কথা। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা কেন সিডিউল বিক্রি করছেনা, বিষয়টি আমি দেখছি।

 

 

আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

প্রতিমন্ত্রী মো. মহিববুর রহমান এমপি’র বানী

নোয়াখালীতে দরপত্র বিক্রিতে বাধা

আপডেট সময় ০৫:৪৩:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩০ মার্চ ২০২২

 নোয়াখালী প্রতিনিধি
নোয়াখালীর সুবর্ণচরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের দরপত্র বিক্রিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় সাধারণ ঠিকাদাররা সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে এ দরপত্র বাতিলের দাবি জানিয়েছেন।

বুধবার (৩০ মার্চ) সুবর্ণচর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

একাধিক ঠিকাদার অভিযোগ করে বলেন, গত (১২ মার্চ) দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা  অধিদপ্তরের অতিরিক্ত সচিব ও প্রকল্প পরিচালক দীপক রঞ্জন অধিকারী স্বাক্ষরিত ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে গ্রামীণ মাটির রাস্তা সমূহ টেকসইকরণের লক্ষ্যে হেরিং বোন বন্ড(এইচবিবি) করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের দরপত্র বিজ্ঞপ্তি পত্রিকায় প্রকাশ করেন। এতে প্রায় ৬২ লক্ষ ৪২ হাজার টাকা ব্যয়ে উপজেলার চরজুবলি ইউনিয়নের ১নম্বর ওয়ার্ডে একটি সড়কের এইচবিবি করণের দরপত্র আহ্বান করা হয়। বুধবার (৩০ মার্চ) এই দরপত্র বিক্রির শেষ দিন ছিল। কিন্তু বেশ কয়েকজন ঠিকাদার সুবর্ণচর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাউছার আহমেদ ও জেলা দুর্যোগ ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা জাহিদুর রহমানের কার্যালয়ে গিয়ে দরপত্র পায়নি। বরং দুই কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে চলে তালবাহানা। সর্বশেষ সুবর্ণচর উপজেলার চর জুবলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ খসরু ও চরবাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম রাজীব ও সংশিষ্ট কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে দরপত্র বিক্রির শেষ দিনেও দরপত্র কিনতে ব্যর্থ হন অনেক ঠিকাদার। আবার ছাত্রলীগ নামধারী একটি পক্ষ শেষ দিন দরপত্র কেনা ব্যাহত করতে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে উপস্থিত ছিলেন।

নাম প্রকাশে অইচ্ছুক এক ঠিকাদার বলেন, সুবর্ণচর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার ও জেলা দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের পরিচালক এবং দুই ইউপি চেয়ারম্যানের যোগসাজশে নিজস্ব লোক ছাড়া কারো কাছে দরপত্র বিক্রি করা হয়নি। শেষ দিন সরাসারি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে দরপত্র কেনাবেচায় বন্ধ রাখা হয়। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাউছার আহমেদ দরপত্র বিক্রির সময় সু-কৌশলে ছুঁটিতে আছেন। কিন্তু এ সময়ে তিনি কর্মস্থলে থাকার কথা।

 

অভিযোগরে বিষয়ে জানতে চাইলে চর জুবলী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ খসরু অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে বলেন তিন এ ঘটনার সাথে জড়িত নেই। চরবাটা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম রাজীবের ফোনে কল করা হলে তিনি ফোন রিসভি করেননি।

এ বিষয়ে জানতে একাধিকবার সুবর্ণচর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাউছার আহমেদের ফোনে কল করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেনি। জেলা দুর্যোগ ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান জাহিদুর রহমান অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে দাবি করেন দরপত্র বিক্রি করা হয়েছে।

 

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) চৈতী সর্ববিদ্যা বলেন, ডিসি স্যারের অনুমতি ছাড়া আমি কোন বক্তব্য দিতে পারবনা। নোয়াখালী জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমানকে বিষয়টি অবহিত করলে তিনি বলেনে খোঁজ নিয়ে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা  অধিদপ্তরের অতিরিক্ত সচিব ও প্রকল্প পরিচালক দীপক রঞ্জন অধিকারী বলেন, দরপত্র ওপেন করে দেওয়ার কথা। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা কেন সিডিউল বিক্রি করছেনা, বিষয়টি আমি দেখছি।