বাংলাদেশ ১১:২১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মাগুরা প্রতারক চঞ্চল ও তার সহযোগীদের প্রতারণার শিকার জেড এম রাইচ এন্ড কনজুমার লিমিটেড এর এমডি বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানা পুলিশ কর্তৃক প্রায় ১০কেজি গাঁজাসহ মাদক কারবারি আটক পটুয়াখালীতে খাদ্য ও পুষ্টি মেলা অনুষ্ঠিত স্থানীয় কাউন্সিলর তোফায়েল আহমদ সেপুলের কোনো সম্পৃক্ততা ছিল না। মাধ্যমিক শিক্ষা ও শিক্ষকের বর্তমান অবস্থা: উন্নয়নে করণীয়। বেইলী রোডের কাচ্চিভাই নামক রেস্টুরেন্টে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় সাহসী ভূমিকা পালন করছে র‌্যাব-৩। অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা মিজানুর রহমানকে জনতা ব্যাংকের নির্বাহী কর্মকর্তা হওয়ায় বেইলি রোডে একটি রেস্টুরেন্টে লাগা আগুন ফায়ার সার্ভিসের ১৩ টি ইউনিটের চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে। বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এপর্যন্ত ৬৮ জন জীবিত উদ্ধার, বদলগাছী উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  ভোটের সার্বিক কার্যক্রম কমিশন থেকে মনিটরিং ইসি সচিব জাহাঙ্গীর আলম কিশোর গ্যাং আমির গ্রুপের লীডার আমির সহ ০৯ সদস্য গ্রেফতার। নলছিটি তালতলা বাজার থেকে ৫ কেজি গাজা সহ গোশত ব্যবসায়ি ফারুক আটক বঙ্গবন্ধু মুক্তির সংগ্রাম বলতে অর্থনৈতিক মুক্তি বুঝিয়েছেন: কাজী খলীকুজ্জমান প্রায় অর্ধ কোটি টাকার অবৈধ মাদকদ্রব্য উদ্ধার: বিপুল পরিমান ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০৩ জন বড় মাদক ব্যবসায়ী আটক এবং মাদক পরিবহনকারী গাড়ী জব্দ। জবিতে ‘আমরা তোমাদের ভুলবো না’ শীর্ষক অনুষ্ঠান আয়োজিত 

মাধবপুরে ৬টি রেল ষ্টেশন তালাবদ্ধ

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১০:২১:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ ২০২২
  • ১৬৬০ বার পড়া হয়েছে

মাধবপুরে ৬টি রেল ষ্টেশন তালাবদ্ধ

 

লিটন পাঠান, মাধবপুর প্রতিনিধি

আখাউড়া-সিলেট রেল সেকশনের মাধবপুর উপজেলার ৬টি রেল ষ্টেশনের এখন করুণ দশা। ৬টি রেল ষ্টেশন বন্ধ হবার কারণে রেলের মূল্যবান যন্ত্রপাতি নষ্ট ও লোপাট হয়ে যাচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় লোকজন তালাবদ্ধ রেল ষ্টেশন গুলো চালু করার দাবী করলেও কর্তৃপক্ষের কোনো উদ্যোগ নেই।

 

 

কাশিমনগর, শাহপুর, তেলিয়াপাড়া, ইটাখোলা, ছাতিয়াইন ও সুতাং রেল ষ্টেশনগুলো দীর্ঘদিন ধরে তালাবদ্ধ। স্থানীয় লোকজন জানান, রেল ষ্টেশনগুলো সংস্কার করে ট্রেন দাড়ানো ও লোকবল নিয়োগ করে চালু করা হলে প্রতিদিন শত শত যাত্রী ট্রেনে গমন করতে পারতো। এতে সরকারের রাজস্ব আয়েরও সম্ভাবনা ছিল।

 

 

এছাড়া ষ্টেশন গুলো বন্ধ ও পরিত্যক্ত হয়ে পড়ায় এখানে নানা অসামাজিক ও অপরাধীদের নিরাপদ আস্থানায় পরিণত হয়েছে। কাশিমনগর রেল ষ্টেশনের টিকেট মাষ্টার নুরুল ইসলাম প্রায় ১৪ বছর আগে মারা যাবার পর একজন লোক নিয়োগ প্রদান করলেও তিনি মাস ছয়েক থেকে তিনিও চলে যান। যে কারণে রেল ষ্টেশনের কার্যালয়ে তালাবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে। ঠিকাদার ও সরবরাহকারী ব্যবসায়ী জয়নাল আবেদীন (জুনু) জানান, এখন পার্শ্ববর্তী ১৫/২০টি গ্রাম থেকে আখাউড়া-সিলেট রোডে প্রায় প্রতিদিন ৪টি লোকাল ট্রেনে ২/৩শ যাত্রী সাধারণ ওঠানামা করতো এবং কাশিমনগর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে কাঁচামাল সরবরাহ করা হত।

 

 

এতে কাঁচামাল পাইকাররা সহজেই তাদের গন্তব্যস্থানে মালামালগুলো সরবরাহ করতে পারতো। তেলিয়াপাড়া রেল ষ্টেশনে আব্দুল হাই নামে একজন বুকিং ক্লার্ক মৃত্যু হওয়ার পর এখানে কোন বুকিং ক্লার্ক নিয়োগ দেয়া হয় নাই। ওই এলাকার বাসিন্দা তেলিয়াপাড়া ষ্টেশন বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী কাওছার আহমেদ জানান, রেল ষ্টেশন সংস্কার করে চালু করলে ১০/১২টি গ্রাম সহ তেলিয়াপাড়া ও সুরমা চা বাগানের লোকজন ট্রেনে ভ্রমন করার সুযোগ পেত। তেলিয়াপাড়া রেল ষ্টেশনটি এক সময় খুবই জমজমাট ছিল। তেলিয়াপাড়া ও সুরমা চা বাগানের উৎপাদিত চা পাতা মালবাহী ট্রেনে চালান দেওয়া হতো। সংস্কারতো দুরের কথা প্রায় ২৫ বছর আগে বিভিন্ন যন্ত্রপাতি খুলে রেল ষ্টেশনটি সংকোচিত করা হয়েছে। শাহজাহানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ পারভেজ হোসেন চৌধুরী জানান, ব্রিটিশ আমল থেকে রেল ষ্টেশনটি চালু ছিল।

 

 

প্রতিদিন শত শত যাত্রী রেল ষ্টেশন থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ করত। কিন্তু বর্তমানে কোনো জনবল নেই। যে কারণে টিকেট বিক্রির কোনো ব্যবস্থা নেই। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা একাধিকবার রেল ষ্টেশনটি সংস্কারের জন্য প্রতিশ্রুতি দিলেও তা বাস্তবায়িত হয়নি। রেল ষ্টেশনের অনেক মূল্যবান রেল যন্ত্রপাতি নষ্ট ও চুরি হয়ে গেছে। ইটাখোলা ষ্টেশন একটি সুপ্রসিদ্ধ ষ্টেশন ছিল। এ রেল ষ্টেশন থেকে অনেক পণ্য ও মানুষ রেলপথে আসা যাওয়া করত। কিন্তু এ ঐতিহ্যবাহী রেল ষ্টেশনে এখন দুএকটি লোকাল ট্রেনও যাত্রা বিরতী করে না। ছাতিয়াইন ও সুতাং রেল ষ্টেশন প্রায় ২ যুগের বেশি সময় ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে।

 

 

এছাড়া অনেক স্থানে গেইট ও গেইট ম্যান না থাকায় সাধারণ যানবাহন রেল লাইনের উপর দিয়ে পাড় হচ্ছে। এতে করে অনেক স্থানেই ঘটছে রেল দুর্ঘটনা। নোয়াপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সৈয়দ মোঃ রাসেল জানান, মাধবপুরে দেশের প্রায় শতাধিক বেশি নামীদামি শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এছাড়া সড়ক পথে বেশি দুর্ঘটনা হওয়ায় রেল পথকে মানুষ বেশি আরামদায়ক ও নিরাপদ মনে করে। এ কারণে বন্ধ ৬টি রেল ষ্টেশন সংস্কার করে চালু করলে এলাকার মানুষের সুবিধার পাশাপাশি শিল্প প্রতিষ্ঠানের উৎপাদিত পন্য সামগ্রী চালান দেওয়া সহজ হবে। এতে সরকারেরও রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে।

 

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, হবিগঞ্জ-৪ (মাধবপুর-চুনারুঘাট) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ এডভোকেট মাহবুব আলী বলেন, মাধবপুরের ৬টি রেল ষ্টেশনগুলোর সংস্কার ও লোকবল নিয়োগ খুবই প্রয়োজন। ৬টি রেল ষ্টেশন চালু হলে রেল পথে মানুষের ভ্রমন সহজ হবে। মাননীয় রেল মন্ত্রীকে বিষয়টি জানিয়েছি। আশা করি সরকার যোগাযোগ উন্নয়নের বিষয়ে মাধবপুরে ৬টি রেল ষ্টেশনে উন্নয়নে যুগপযোগি সিদ্ধান্ত নেবে।

 

 

 

আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

মাগুরা প্রতারক চঞ্চল ও তার সহযোগীদের প্রতারণার শিকার জেড এম রাইচ এন্ড কনজুমার লিমিটেড এর এমডি

মাধবপুরে ৬টি রেল ষ্টেশন তালাবদ্ধ

আপডেট সময় ১০:২১:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ ২০২২

 

লিটন পাঠান, মাধবপুর প্রতিনিধি

আখাউড়া-সিলেট রেল সেকশনের মাধবপুর উপজেলার ৬টি রেল ষ্টেশনের এখন করুণ দশা। ৬টি রেল ষ্টেশন বন্ধ হবার কারণে রেলের মূল্যবান যন্ত্রপাতি নষ্ট ও লোপাট হয়ে যাচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় লোকজন তালাবদ্ধ রেল ষ্টেশন গুলো চালু করার দাবী করলেও কর্তৃপক্ষের কোনো উদ্যোগ নেই।

 

 

কাশিমনগর, শাহপুর, তেলিয়াপাড়া, ইটাখোলা, ছাতিয়াইন ও সুতাং রেল ষ্টেশনগুলো দীর্ঘদিন ধরে তালাবদ্ধ। স্থানীয় লোকজন জানান, রেল ষ্টেশনগুলো সংস্কার করে ট্রেন দাড়ানো ও লোকবল নিয়োগ করে চালু করা হলে প্রতিদিন শত শত যাত্রী ট্রেনে গমন করতে পারতো। এতে সরকারের রাজস্ব আয়েরও সম্ভাবনা ছিল।

 

 

এছাড়া ষ্টেশন গুলো বন্ধ ও পরিত্যক্ত হয়ে পড়ায় এখানে নানা অসামাজিক ও অপরাধীদের নিরাপদ আস্থানায় পরিণত হয়েছে। কাশিমনগর রেল ষ্টেশনের টিকেট মাষ্টার নুরুল ইসলাম প্রায় ১৪ বছর আগে মারা যাবার পর একজন লোক নিয়োগ প্রদান করলেও তিনি মাস ছয়েক থেকে তিনিও চলে যান। যে কারণে রেল ষ্টেশনের কার্যালয়ে তালাবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে। ঠিকাদার ও সরবরাহকারী ব্যবসায়ী জয়নাল আবেদীন (জুনু) জানান, এখন পার্শ্ববর্তী ১৫/২০টি গ্রাম থেকে আখাউড়া-সিলেট রোডে প্রায় প্রতিদিন ৪টি লোকাল ট্রেনে ২/৩শ যাত্রী সাধারণ ওঠানামা করতো এবং কাশিমনগর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে কাঁচামাল সরবরাহ করা হত।

 

 

এতে কাঁচামাল পাইকাররা সহজেই তাদের গন্তব্যস্থানে মালামালগুলো সরবরাহ করতে পারতো। তেলিয়াপাড়া রেল ষ্টেশনে আব্দুল হাই নামে একজন বুকিং ক্লার্ক মৃত্যু হওয়ার পর এখানে কোন বুকিং ক্লার্ক নিয়োগ দেয়া হয় নাই। ওই এলাকার বাসিন্দা তেলিয়াপাড়া ষ্টেশন বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী কাওছার আহমেদ জানান, রেল ষ্টেশন সংস্কার করে চালু করলে ১০/১২টি গ্রাম সহ তেলিয়াপাড়া ও সুরমা চা বাগানের লোকজন ট্রেনে ভ্রমন করার সুযোগ পেত। তেলিয়াপাড়া রেল ষ্টেশনটি এক সময় খুবই জমজমাট ছিল। তেলিয়াপাড়া ও সুরমা চা বাগানের উৎপাদিত চা পাতা মালবাহী ট্রেনে চালান দেওয়া হতো। সংস্কারতো দুরের কথা প্রায় ২৫ বছর আগে বিভিন্ন যন্ত্রপাতি খুলে রেল ষ্টেশনটি সংকোচিত করা হয়েছে। শাহজাহানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ পারভেজ হোসেন চৌধুরী জানান, ব্রিটিশ আমল থেকে রেল ষ্টেশনটি চালু ছিল।

 

 

প্রতিদিন শত শত যাত্রী রেল ষ্টেশন থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ করত। কিন্তু বর্তমানে কোনো জনবল নেই। যে কারণে টিকেট বিক্রির কোনো ব্যবস্থা নেই। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা একাধিকবার রেল ষ্টেশনটি সংস্কারের জন্য প্রতিশ্রুতি দিলেও তা বাস্তবায়িত হয়নি। রেল ষ্টেশনের অনেক মূল্যবান রেল যন্ত্রপাতি নষ্ট ও চুরি হয়ে গেছে। ইটাখোলা ষ্টেশন একটি সুপ্রসিদ্ধ ষ্টেশন ছিল। এ রেল ষ্টেশন থেকে অনেক পণ্য ও মানুষ রেলপথে আসা যাওয়া করত। কিন্তু এ ঐতিহ্যবাহী রেল ষ্টেশনে এখন দুএকটি লোকাল ট্রেনও যাত্রা বিরতী করে না। ছাতিয়াইন ও সুতাং রেল ষ্টেশন প্রায় ২ যুগের বেশি সময় ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে।

 

 

এছাড়া অনেক স্থানে গেইট ও গেইট ম্যান না থাকায় সাধারণ যানবাহন রেল লাইনের উপর দিয়ে পাড় হচ্ছে। এতে করে অনেক স্থানেই ঘটছে রেল দুর্ঘটনা। নোয়াপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সৈয়দ মোঃ রাসেল জানান, মাধবপুরে দেশের প্রায় শতাধিক বেশি নামীদামি শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এছাড়া সড়ক পথে বেশি দুর্ঘটনা হওয়ায় রেল পথকে মানুষ বেশি আরামদায়ক ও নিরাপদ মনে করে। এ কারণে বন্ধ ৬টি রেল ষ্টেশন সংস্কার করে চালু করলে এলাকার মানুষের সুবিধার পাশাপাশি শিল্প প্রতিষ্ঠানের উৎপাদিত পন্য সামগ্রী চালান দেওয়া সহজ হবে। এতে সরকারেরও রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে।

 

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, হবিগঞ্জ-৪ (মাধবপুর-চুনারুঘাট) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ এডভোকেট মাহবুব আলী বলেন, মাধবপুরের ৬টি রেল ষ্টেশনগুলোর সংস্কার ও লোকবল নিয়োগ খুবই প্রয়োজন। ৬টি রেল ষ্টেশন চালু হলে রেল পথে মানুষের ভ্রমন সহজ হবে। মাননীয় রেল মন্ত্রীকে বিষয়টি জানিয়েছি। আশা করি সরকার যোগাযোগ উন্নয়নের বিষয়ে মাধবপুরে ৬টি রেল ষ্টেশনে উন্নয়নে যুগপযোগি সিদ্ধান্ত নেবে।