বাংলাদেশ ০৯:৩৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ফেরামের কার্যালয় উদ্বোধন ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত পটুয়াখালী পৌরসভার ১০ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া, সারারাত জ্বলে কোম্পানির বিলবোর্ড। বরগুনা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সাংসদ গোলাম সরোয়ার টুকু’র শুভেচ্ছা বিনিময় নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা  ইউএস অ্যাগ্রিমেন্টে অ্যাপস প্রতারণায় রাজশাহীতে ১০ মামলা নারায়ণগঞ্জে শ্রমিকদের বেতন ভাতা ও ঘোষিত মজুরি বাস্তবায়নের জন্য জনসভা আরএমপি’র কমিশনারসহ ৬ পুলিশ সদস্য পেলেন বিপিএম-পিপিএম পদক রাজশাহীতে প্রতিবছর বাড়ছে পেঁয়াজ বীজের চাষ এসএসসি ’৯৪ ব্যাচের প্রয়াত বন্ধুদের স্মরণানুষ্ঠান হত্যা মামলার দীর্ঘ ২৩ বছর যাবত পলাতক আসামী নজরুল মাঝি গ্রেফতার।  আমতলীতে গরুসহ চোর গ্রেপ্তার অপরূপ সৌন্দর্যে ঘেরা রাঙ্গাবালী, হতে পারে পর্যটনের কেন্দ্রবিন্দু। বুড়িচংয়ে বিল্লাল হোসেন ঠিকাদার ডাবল হোল্ডা কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন রায়গঞ্জে এনডিপির উদ্যোগে মিনি ম্যারাথন অনুষ্ঠিত এক প্রার্থীর বিরুদ্ধে কালো টাকা ছড়ানোর তুলে এক নারী মেয়র প্রার্থীর প্রার্থীতা প্রত্যাহার

নবীগঞ্জে দুর্বৃত্তের দেয়া আগুণে পুড়ে ছাই বসতঘর খোলা আকাশের নিচে অসহায় পরিবার

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:২৫:১৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ মার্চ ২০২২
  • ১৬৮৮ বার পড়া হয়েছে

নবীগঞ্জে দুর্বৃত্তের দেয়া আগুণে পুড়ে ছাই বসতঘর খোলা আকাশের নিচে অসহায় পরিবার

মোফাজ্জল ইসলাম সজীব, নবীগঞ্জ  ॥
হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় এক অসহায় দিনমুজুর পরিবারের ঘর-বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। ফলে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছে পরিবারটি। বুধবার (২৩ মার্চ) দিবাগত গভীর রাতে উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের বেরীগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- বুধবার রাতে প্রতিদিনের ন্যায় উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের বেরীগাঁও গ্রামের ছফি মিয়া অন্ধ স্ত্রী ও সন্তানদেরকে নিয়ে নিজ ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন। হঠাৎ আগুণের লেলিহান শিখার তাপে ঘুম ভাঙে দিন মুজুর ছফি মিয়া ও তার পরিবারের লোকজনের।
পরে ঘর থেকে বের হতে চাইলে বাহির থেকে দুর্বৃত্তরা দরজা বেঁধে রাখার ফলে দরজা দিয়ে অন্ধ স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে বের হতে প্রাণপন চেষ্টা করেন। এক পর্যায়ে ঘরের বেড়া ভেঙে ঘর থেকে বের হয়ে আসেন তারা। এসময় তাদের আত্ম-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলেও ততক্ষণে পুড়ে ছাই হয়ে যায় বসত ঘরে থাকা ১৭টি মোরগ, ১০টি হাঁস ও নগদ ১০ হাজার টাকাসহ ঘরের আসবাবপত্র, ছাই হয়ে যায় বসত ঘরটি। পরে এলাকাবাসী ৯৯৯ কল দিলে নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।
ভুক্তভোগী ছফি মিয়ার অভিযোগ- আমি অসহায় মানুষ, দিন আনি দিন খাই, অন্যের জায়গায় ঘর বানিয়ে বসবাস করে আসছিলাম, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন হত্যার উদ্দেশ্যে বাহিরের দিকে দরজা বেঁধে আমার ঘরে আগুন দেয়, আমি আমার অন্ধ স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে বের হওয়ার জন্য প্রাণপন চেষ্টা করে ভাগ্যক্রমে বেঁচে যাই, বের হওয়ার পর কয়েকজনকে দৌড়ে যেতে দেখেছি।
এ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ডালিম আহমেদ বলেন- ইতিমধ্যে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে, অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন বলেন- আগুণে বসতঘর পুড়ে গেছে বিষয়টি জেনেছি, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে সহযোগীতা করা হবে।
জনপ্রিয় সংবাদ

নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ফেরামের কার্যালয় উদ্বোধন ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

নবীগঞ্জে দুর্বৃত্তের দেয়া আগুণে পুড়ে ছাই বসতঘর খোলা আকাশের নিচে অসহায় পরিবার

আপডেট সময় ০৩:২৫:১৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ মার্চ ২০২২
মোফাজ্জল ইসলাম সজীব, নবীগঞ্জ  ॥
হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় এক অসহায় দিনমুজুর পরিবারের ঘর-বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। ফলে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছে পরিবারটি। বুধবার (২৩ মার্চ) দিবাগত গভীর রাতে উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের বেরীগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- বুধবার রাতে প্রতিদিনের ন্যায় উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের বেরীগাঁও গ্রামের ছফি মিয়া অন্ধ স্ত্রী ও সন্তানদেরকে নিয়ে নিজ ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন। হঠাৎ আগুণের লেলিহান শিখার তাপে ঘুম ভাঙে দিন মুজুর ছফি মিয়া ও তার পরিবারের লোকজনের।
পরে ঘর থেকে বের হতে চাইলে বাহির থেকে দুর্বৃত্তরা দরজা বেঁধে রাখার ফলে দরজা দিয়ে অন্ধ স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে বের হতে প্রাণপন চেষ্টা করেন। এক পর্যায়ে ঘরের বেড়া ভেঙে ঘর থেকে বের হয়ে আসেন তারা। এসময় তাদের আত্ম-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলেও ততক্ষণে পুড়ে ছাই হয়ে যায় বসত ঘরে থাকা ১৭টি মোরগ, ১০টি হাঁস ও নগদ ১০ হাজার টাকাসহ ঘরের আসবাবপত্র, ছাই হয়ে যায় বসত ঘরটি। পরে এলাকাবাসী ৯৯৯ কল দিলে নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।
ভুক্তভোগী ছফি মিয়ার অভিযোগ- আমি অসহায় মানুষ, দিন আনি দিন খাই, অন্যের জায়গায় ঘর বানিয়ে বসবাস করে আসছিলাম, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন হত্যার উদ্দেশ্যে বাহিরের দিকে দরজা বেঁধে আমার ঘরে আগুন দেয়, আমি আমার অন্ধ স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে বের হওয়ার জন্য প্রাণপন চেষ্টা করে ভাগ্যক্রমে বেঁচে যাই, বের হওয়ার পর কয়েকজনকে দৌড়ে যেতে দেখেছি।
এ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ডালিম আহমেদ বলেন- ইতিমধ্যে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে, অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন বলেন- আগুণে বসতঘর পুড়ে গেছে বিষয়টি জেনেছি, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে সহযোগীতা করা হবে।