বাংলাদেশ ১২:৫৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থ ৩ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলেন সমাজ সেবক মিঠু মিয়া বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। বুড়িচং ফজলুর রহমান মেমোরিয়াল কলেজ অব টেকনোলজির শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মাদক সাপ্লাইয়ের অভিযোগ  পেকুয়ায় ইভটিজিংয়ের দায়ে ২ জনকে কারাদণ্ড পীরগঞ্জ মহিলা কলেজে মেহেদী উৎসব অনুষ্ঠিত। পীরগঞ্জে ডিজিটাল প্রযুক্তি ও জীবন জীবীকা বিষয়ক প্রশিক্ষণ চলছে পাঠক শূন্য রাজশাহীর পুঠিয়ার সাধারণ পাঠাগার হত্যা মামলার পলাতক অন্যতম আসামী নুরুলকে র‍্যাব কর্তৃক গ্রেফতার। রাজশাহীর পুঠিয়ায় যাবজ্জাীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেপ্তার কলাপাড়ায় জেলেদের জালে শিকার হলো জীবিত এক ডলফিন। দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত রাজশাহী মহানগরীতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার মির্জাগঞ্জে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ শেখ কামাল আইটি ট্রেনিংয়ে সারাদেশের মধ্যে প্রথম হয়েছে রাজাপুরের মশিউর রহমান তামিম ত্রিশালে রেইজ’র অভিবাসী বিষয়ক ওরিয়েন্টেশন

চাকরি পেয়ে তো ঠিকই ঘুষ নিবেন আমরা একটু বেশি নিলে সমস্যা কি; রাবির দোকানি

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৯:৪৫:৫৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪
  • ১৬৩০ বার পড়া হয়েছে

চাকরি পেয়ে তো ঠিকই ঘুষ নিবেন আমরা একটু বেশি নিলে সমস্যা কি; রাবির দোকানি

 

রাবি প্রতিনিধি:
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তি হতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটারের দোকানগুলোতে ভিড় জমাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। এতে ৫ মিনিট কাজের বিনিময়ে ১৫০-২০০ টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার দোকান মালিকদের বিরুদ্ধে। এদিকে নজর নেই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, দোকানীরা নিজেদের ইচ্ছে মতো ব্যবসা করছেন। যার কাছ থেকে যেমন পারছেন, বাড়তি দাম রাখছেন। ২ মিনিটের কাজের জন্য ১৫০-২০০ টাকা দাবি করছেন তারা। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

এদিকে, ভর্তির টাকা রকেট অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। সাধারণ শিক্ষার্থীদের অনেকের রকেট অ্যাকাউন্ট না থাকায় তাদেরকে বিভিন্ন ফটোকপি ও কম্পিউটার দোকানে যেতে হচ্ছে। আর এই সুযোগকে কাজে লাগাচ্ছে দোকানিরা।

প্রতিবছর ভর্তির সময় রিকশা ভাড়া থেকে শুরু করে সবকিছুর দাম বেড়ে যায় ক্যাম্পাসে। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। ভর্তি পরিক্ষার সময় রিক্সাভাড়া নিয়ে নানা সমালোচনা হয়েছে। ভর্তি হতে এসে আবারো সেই পরিস্থিতির শিকার হচ্ছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিক্ষার্থীরা।

যশোর থেকে ভর্তি হতে আসা শিক্ষার্থী বুলবুল বলেন, যে কাজ আমাদের এলাকায় করতে ২০-৩০টাকা লাগে, সে কাজ করতে ২০০ টাকা দিতে হলো আমাকে। কালার প্রিন্ট ৫ টাকা করে হলেও, এখানে ১০টাকা করে রাখছে তারা। এ নিয়ে কিছু বললে আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করেছে দোকানদার। বিশ্ববিদ্যালয়ের দোকানে এত দাম হবে আগে জানলে বাইরে থেকে করে আনতাম।

ঐ শিক্ষার্থীর বাবা বলেন, আমরা গরীব মানুষ, ভর্তির জন্য এতো টাকা লাগছে, তারপর আবার এখানে ২০০ টাকা বেশি দিতে হলো। আমি শুনেছিলাম ভর্তির সময় সবকিছুর দাম একটু বেশি তাই বলে এতো বেশি ভাবিনি। এটা আসলে অমানবিক। ভর্তির সময় আসলেই যেন তাদের ইদ লাগে।

খুলনা থেকে ভর্তি হতে আসা শিক্ষার্থী রামিম বলেন, আমি কয়েকটা দোকানে গেলাম, সব দোকানে একই কথা বলছে। আমি ক্যাম্পাসে এসে কাগজপত্রের কাজগুলো করবো ভেবেছিলাম। এমন হবে জানলে বাসা থেকে করে আনতাম। রকেটের মাধ্যমে পেমেন্ট করার জন্য তারা ২০০ টাকা দাবি করছে। এখন বাধ্য হয়ে আমাকে এখান থেকে করতে হচ্ছে। টাকা বেশি লাগলেও কিছু করার নেই।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন মার্কেট, স্টেডিয়াম মার্কেটসহ অধিকাংশ দোকানে চড়া মূল্য রাখা হচ্ছে।কোথায় ১৫০ আবার কোথায় ২০০ টাকা রাখা হচ্ছে।

কেন এত দাম রাখছেন জানতে চাইলে তারা বলেন, সব দোকানে এমন নিচ্ছে তাই আমরাও নিচ্ছি। এমনকি একজন দোকানদার বলেন যে, এখান থেকে বের হয়ে চাকরিতে ঢুকলে আপনারা তো ঠিকই ঘুষ নিবেন আমরা একটু বেশি নিলে সমস্যা কি? লাখ টাকার জিনিসপত্র কিনে দোকান দিয়েছি, টাকা তো তোলা লাগবে। আমরা এখানে ইনভেস্ট করছি তাই লাভ নিচ্ছি।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, আমরা বিষয়টি জানতে পেরেছি। এবিষয়ে খোঁজ নিয়ে সঠিক তথ্য প্রমাণ পেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

 

 

 

 

জনপ্রিয় সংবাদ

ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থ ৩ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলেন সমাজ সেবক মিঠু মিয়া

চাকরি পেয়ে তো ঠিকই ঘুষ নিবেন আমরা একটু বেশি নিলে সমস্যা কি; রাবির দোকানি

আপডেট সময় ০৯:৪৫:৫৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪

 

রাবি প্রতিনিধি:
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তি হতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটারের দোকানগুলোতে ভিড় জমাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। এতে ৫ মিনিট কাজের বিনিময়ে ১৫০-২০০ টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার দোকান মালিকদের বিরুদ্ধে। এদিকে নজর নেই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, দোকানীরা নিজেদের ইচ্ছে মতো ব্যবসা করছেন। যার কাছ থেকে যেমন পারছেন, বাড়তি দাম রাখছেন। ২ মিনিটের কাজের জন্য ১৫০-২০০ টাকা দাবি করছেন তারা। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

এদিকে, ভর্তির টাকা রকেট অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। সাধারণ শিক্ষার্থীদের অনেকের রকেট অ্যাকাউন্ট না থাকায় তাদেরকে বিভিন্ন ফটোকপি ও কম্পিউটার দোকানে যেতে হচ্ছে। আর এই সুযোগকে কাজে লাগাচ্ছে দোকানিরা।

প্রতিবছর ভর্তির সময় রিকশা ভাড়া থেকে শুরু করে সবকিছুর দাম বেড়ে যায় ক্যাম্পাসে। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। ভর্তি পরিক্ষার সময় রিক্সাভাড়া নিয়ে নানা সমালোচনা হয়েছে। ভর্তি হতে এসে আবারো সেই পরিস্থিতির শিকার হচ্ছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিক্ষার্থীরা।

যশোর থেকে ভর্তি হতে আসা শিক্ষার্থী বুলবুল বলেন, যে কাজ আমাদের এলাকায় করতে ২০-৩০টাকা লাগে, সে কাজ করতে ২০০ টাকা দিতে হলো আমাকে। কালার প্রিন্ট ৫ টাকা করে হলেও, এখানে ১০টাকা করে রাখছে তারা। এ নিয়ে কিছু বললে আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করেছে দোকানদার। বিশ্ববিদ্যালয়ের দোকানে এত দাম হবে আগে জানলে বাইরে থেকে করে আনতাম।

ঐ শিক্ষার্থীর বাবা বলেন, আমরা গরীব মানুষ, ভর্তির জন্য এতো টাকা লাগছে, তারপর আবার এখানে ২০০ টাকা বেশি দিতে হলো। আমি শুনেছিলাম ভর্তির সময় সবকিছুর দাম একটু বেশি তাই বলে এতো বেশি ভাবিনি। এটা আসলে অমানবিক। ভর্তির সময় আসলেই যেন তাদের ইদ লাগে।

খুলনা থেকে ভর্তি হতে আসা শিক্ষার্থী রামিম বলেন, আমি কয়েকটা দোকানে গেলাম, সব দোকানে একই কথা বলছে। আমি ক্যাম্পাসে এসে কাগজপত্রের কাজগুলো করবো ভেবেছিলাম। এমন হবে জানলে বাসা থেকে করে আনতাম। রকেটের মাধ্যমে পেমেন্ট করার জন্য তারা ২০০ টাকা দাবি করছে। এখন বাধ্য হয়ে আমাকে এখান থেকে করতে হচ্ছে। টাকা বেশি লাগলেও কিছু করার নেই।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন মার্কেট, স্টেডিয়াম মার্কেটসহ অধিকাংশ দোকানে চড়া মূল্য রাখা হচ্ছে।কোথায় ১৫০ আবার কোথায় ২০০ টাকা রাখা হচ্ছে।

কেন এত দাম রাখছেন জানতে চাইলে তারা বলেন, সব দোকানে এমন নিচ্ছে তাই আমরাও নিচ্ছি। এমনকি একজন দোকানদার বলেন যে, এখান থেকে বের হয়ে চাকরিতে ঢুকলে আপনারা তো ঠিকই ঘুষ নিবেন আমরা একটু বেশি নিলে সমস্যা কি? লাখ টাকার জিনিসপত্র কিনে দোকান দিয়েছি, টাকা তো তোলা লাগবে। আমরা এখানে ইনভেস্ট করছি তাই লাভ নিচ্ছি।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, আমরা বিষয়টি জানতে পেরেছি। এবিষয়ে খোঁজ নিয়ে সঠিক তথ্য প্রমাণ পেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।