বাংলাদেশ ১২:০৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
ফাল্গুনেও বসন্ত আসেনি আম বাগানগুলোতে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ অভিযানে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, মেয়াদ উর্ত্তীন রেজিস্ট্রেশন, ডাক্তারের এর নামের শেষে প্রতারণামূলক পদবী ব্যবহার সহ বিভিন্ন অপরাধের দায়ে ০৫ টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ০১ টি চিকিৎসালয়কে জরিমানা। সরকার মানুষের ভোটাধিকার ও বাকস্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে : এড. এমরান চৌধুরী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্র সরবরাহ করতে গিয়ে পেকুয়ার জয়নাল র‍্যাবে হাতে আটক ভান্ডারিয়ায় মাদ্রাসার দরিদ্র শিক্ষার্থীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ ১২নং চাঁদপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গরীরের চেয়ারম্যান মানিক চৌধুরী জনপ্রিয়তার শীর্ষে ধর্ষণ মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী কে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৬। বিদেশী মদসহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১। নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা মামলার আসামি কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-০২। শ্লীলতাহানির ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরালের ভয় দেখিয়ে যুবতীকে ধর্ষণ এর সাথে জড়িত প্রধান আসামীকে গ্রেফতার। মহিপুর মৎস্য আড়ৎ পট্টিতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড; ভস্মিভূত একাধিক আড়ৎ- দোকান পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের নব নির্বাচিত সভাপতি মনিরুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা রাসেল সেনাবাহিনীকে আরও আধুনিক বাহিনীতে পরিণত করা হবে প্রধানমন্ত্রী রায়গঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি রফিকুল সম্পাদক ইয়ামিন কাল রুয়েটে প্রকৌশল গুচ্ছ পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে সাড়ে সাত হাজার ভর্তিচ্ছু

বালাগঞ্জ ইউনিয়ন নির্বাচন ও প্রাসঙ্গীক কিছু কথা।

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০২:৪৬:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ ২০২২
  • ১৬৪৫ বার পড়া হয়েছে
সাইদুল ইসলাম বালাগঞ্জ সিলেট প্রতিনিধি ::
ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন-২০২১-২২ এর দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল ১১ নভেম্বর ২০২১ তারিখে। ঐ তারিখে সিলেট জেলার বালাগঞ্জ উপজেলার বালাগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনও অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনের ৯টি ভোট কেন্দ্রের ১টি ৪১নং বির্তনীয় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। অর্থাৎ বালাগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড।
অন্যান্য ভোট কেন্দ্রের ন্যায় ১১ নভেম্বর ২০২১ তারিখ সকাল ৮.০০ ঘটিকায় উক্ত কেন্দ্রে ভোট গ্রহন শুরু হওয়ার কথা। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, উক্ত কেন্দ্রে প্রায় ১ ঘন্টা বিলম্ব করে সকাল ৯.০০ ঘটিকায় ভোটগ্রহন শুরু হয়। বিলম্বে ভোট শুরু হওয়ার বিষয়টি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ জুনেদ মিয়া’র প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট হিসাবে আমাকে ঐ কেন্দ্রের পোলিং এজেন্ট অবহিত করে। বিষয়টি জানার পর আমি খোঁজ নিয়ে দেখি ঐ কেন্দ্রে দেরিতে ভোটগ্রহন শুরুসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে  অনিয়ম এবং বিশৃংখলা হচ্ছে।
বিশৃংখলা এরানোর জন্য ঐ ভোট কেন্দ্রের নৌকার পোলিং এজেন্টকে দিয়ে তাৎক্ষনিক প্রিসাইডিং অফিসার বরাবরে অভিযোগ করাই এবং আমি নিজেও অভিযোগ করি। অনিয়ম আর বিশৃংখলতার মধ্যদিয়ে প্রায় সাড়ে ৫টার দিকে ঐ ভোট কেন্দ্রের ভোটগ্রহন শেষ হয়। এবং যথারিতি ভোট গননা শুরু হয় (ভোট গননা কালে আমাদের কোন পোলিং এজেন্ট গননা কক্ষে ছিলো না)।
ভোট কেন্দ্র সমূহের ভোট গননাকালীন সময়ে আমি ও আমাদের প্রার্থী নির্বাচনী কার্যালয়ে বসে বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রের ফলাফল সংগ্রহ করছিলাম। প্রায় সব কেন্দ্রের ফলাফল আমরা যথাসময়ে পেয়ে যাই। শুধু বিশৃংখলার জন্য ৪২নং গৌরীনাথপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্র এবং  ৪১নং বির্তনীয় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের ফলাফল আসতে বিলম্ব হচ্ছিলো। বিলম্ব দেখে আমি ও আমাদের প্রার্থী বির্তনীয়া ভোট কেন্দ্রে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি ভোট কেন্দ্রের বাহিরে মানুষজন ফলাফলের জন্য শ্লোগান দিচ্ছে এবং কিছু মানুষ ভোট কেন্দ্রের দরজা-জানালা ভাঙ্গা শুরু করেছে। আমরা তখন ভয়ে সেখান থেকে চলে আসি।
চলে আসার পর রাতেই আমি  রিটানিং অফিসার বরাবরে এই ভোট কেন্দ্রের অনিয়ম বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন করি এবং আবেদনে ফলাফল ঘোষনা থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানাই।
উক্ত ভোট কেন্দ্রে ভোট গননাকালীন সময়ে আমাদের পোলিং এজেন্ট না থাকায় আমরা ফলাফল জানতে পারিনি। পরে উপজেলা কন্টোলরুমে রাতে গিয়ে ফলাফল সংগ্রহ করি। তখনই ফলাফলে দেখতে পাই ৪১নং বির্তনীয় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ১০০% ভোট কাস্ট করা হয়েছ। যাহা নীতি বহির্ভূত এবং অনিয়মের চুড়ান্ত পর্যায় বলে আমার কাছে মনে হলো।
রেজাল্ট সিটে এই মর্মান্তিক ঘটনা দেখে আমি আবারও রিটার্নিং অফিসার বরাবরে আবদন করি এবং এই কেন্দ্রের ফলাফল বাতিলের দাবি জানাই। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, রিটার্নিং অফিসার কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেননি। রিটার্নিং অফিসারের কাছে ব্যর্থ হয়ে আমি সরাসরি প্রধান নির্বাচন কমিশন বরাবরে আবেদন করি।
উক্ত আবেদনের প্রেক্ষিতে দতন্ত স্বাপেক্ষে নির্বাচন কমিশন এই কেন্দ্রের ফলাফল বাতিল করে পুনরায় ভোট গ্রহনের সিদ্ধান্ত নেন এবং যথারিতি ভোটগ্রহনের নির্দেশ দেন। সেই নির্দেশনা মতে যথাযথ কর্তৃপক্ষ ৩১ মার্চ ২০২২ তারিখে পূণঃ নির্বাচন অনুষ্ঠানের গণ বিজ্ঞপ্তি জারি করে। সেই বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক আজ ছিলো নির্বাচনের দিন। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, হঠাৎ গতকালে রাতে কর্তৃপক্ষ থেকে জানা যায় আজ নির্বাচন হবে না। এর কারন- এই ভোট কেন্দ্রের ফলাফল নিয়ে কোর্টে একটা আবেদন করা হয়েছে, সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে আজকের তারিখে নির্বাচন না করার জন্য ইসি থেকে জানানো হয়েছে।
তো সবকিছু শেষে কিছু দিনের মধ্যে এই নির্বাচনের তারিখ আবার পুণঃনির্ধারন করা হবে। সময় বেশি দিন লাগবে না, সর্বোচ্ছ ৩ মাসের মধ্যে হবে, অনেকেই বিষয়টাকে অনেক ভাবে ভাবছেন। আসলে বিষয়টা ভিন্নভাবে ভাবার সুযোগ নেই, পুরু বিষয়টা আইনী প্রক্রিয়ার মধ্যদিয়ে এগুচ্ছে। এখানে আমিত্বের আর বড়ত্বের কিছুই নেই। আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই সত্যটা বেড়িয়ে আসবে। ফিরে আসবে জনমনে ম্বস্তি।
চলমান আইনী প্রক্রিয়া সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত সবাই ধর্য ধরুণ। ষড়যন্ত্রকারীরা যেখানে স্বস্তির ঢেকুর দিচ্ছে, সেখান থেকেই জয়ধ্বনি উচ্ছারিত হবে।
জনপ্রিয় সংবাদ

ফাল্গুনেও বসন্ত আসেনি আম বাগানগুলোতে

বালাগঞ্জ ইউনিয়ন নির্বাচন ও প্রাসঙ্গীক কিছু কথা।

আপডেট সময় ০২:৪৬:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ ২০২২
সাইদুল ইসলাম বালাগঞ্জ সিলেট প্রতিনিধি ::
ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন-২০২১-২২ এর দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল ১১ নভেম্বর ২০২১ তারিখে। ঐ তারিখে সিলেট জেলার বালাগঞ্জ উপজেলার বালাগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনও অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনের ৯টি ভোট কেন্দ্রের ১টি ৪১নং বির্তনীয় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। অর্থাৎ বালাগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড।
অন্যান্য ভোট কেন্দ্রের ন্যায় ১১ নভেম্বর ২০২১ তারিখ সকাল ৮.০০ ঘটিকায় উক্ত কেন্দ্রে ভোট গ্রহন শুরু হওয়ার কথা। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, উক্ত কেন্দ্রে প্রায় ১ ঘন্টা বিলম্ব করে সকাল ৯.০০ ঘটিকায় ভোটগ্রহন শুরু হয়। বিলম্বে ভোট শুরু হওয়ার বিষয়টি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ জুনেদ মিয়া’র প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট হিসাবে আমাকে ঐ কেন্দ্রের পোলিং এজেন্ট অবহিত করে। বিষয়টি জানার পর আমি খোঁজ নিয়ে দেখি ঐ কেন্দ্রে দেরিতে ভোটগ্রহন শুরুসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে  অনিয়ম এবং বিশৃংখলা হচ্ছে।
বিশৃংখলা এরানোর জন্য ঐ ভোট কেন্দ্রের নৌকার পোলিং এজেন্টকে দিয়ে তাৎক্ষনিক প্রিসাইডিং অফিসার বরাবরে অভিযোগ করাই এবং আমি নিজেও অভিযোগ করি। অনিয়ম আর বিশৃংখলতার মধ্যদিয়ে প্রায় সাড়ে ৫টার দিকে ঐ ভোট কেন্দ্রের ভোটগ্রহন শেষ হয়। এবং যথারিতি ভোট গননা শুরু হয় (ভোট গননা কালে আমাদের কোন পোলিং এজেন্ট গননা কক্ষে ছিলো না)।
ভোট কেন্দ্র সমূহের ভোট গননাকালীন সময়ে আমি ও আমাদের প্রার্থী নির্বাচনী কার্যালয়ে বসে বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রের ফলাফল সংগ্রহ করছিলাম। প্রায় সব কেন্দ্রের ফলাফল আমরা যথাসময়ে পেয়ে যাই। শুধু বিশৃংখলার জন্য ৪২নং গৌরীনাথপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্র এবং  ৪১নং বির্তনীয় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের ফলাফল আসতে বিলম্ব হচ্ছিলো। বিলম্ব দেখে আমি ও আমাদের প্রার্থী বির্তনীয়া ভোট কেন্দ্রে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি ভোট কেন্দ্রের বাহিরে মানুষজন ফলাফলের জন্য শ্লোগান দিচ্ছে এবং কিছু মানুষ ভোট কেন্দ্রের দরজা-জানালা ভাঙ্গা শুরু করেছে। আমরা তখন ভয়ে সেখান থেকে চলে আসি।
চলে আসার পর রাতেই আমি  রিটানিং অফিসার বরাবরে এই ভোট কেন্দ্রের অনিয়ম বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন করি এবং আবেদনে ফলাফল ঘোষনা থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানাই।
উক্ত ভোট কেন্দ্রে ভোট গননাকালীন সময়ে আমাদের পোলিং এজেন্ট না থাকায় আমরা ফলাফল জানতে পারিনি। পরে উপজেলা কন্টোলরুমে রাতে গিয়ে ফলাফল সংগ্রহ করি। তখনই ফলাফলে দেখতে পাই ৪১নং বির্তনীয় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ১০০% ভোট কাস্ট করা হয়েছ। যাহা নীতি বহির্ভূত এবং অনিয়মের চুড়ান্ত পর্যায় বলে আমার কাছে মনে হলো।
রেজাল্ট সিটে এই মর্মান্তিক ঘটনা দেখে আমি আবারও রিটার্নিং অফিসার বরাবরে আবদন করি এবং এই কেন্দ্রের ফলাফল বাতিলের দাবি জানাই। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, রিটার্নিং অফিসার কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেননি। রিটার্নিং অফিসারের কাছে ব্যর্থ হয়ে আমি সরাসরি প্রধান নির্বাচন কমিশন বরাবরে আবেদন করি।
উক্ত আবেদনের প্রেক্ষিতে দতন্ত স্বাপেক্ষে নির্বাচন কমিশন এই কেন্দ্রের ফলাফল বাতিল করে পুনরায় ভোট গ্রহনের সিদ্ধান্ত নেন এবং যথারিতি ভোটগ্রহনের নির্দেশ দেন। সেই নির্দেশনা মতে যথাযথ কর্তৃপক্ষ ৩১ মার্চ ২০২২ তারিখে পূণঃ নির্বাচন অনুষ্ঠানের গণ বিজ্ঞপ্তি জারি করে। সেই বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক আজ ছিলো নির্বাচনের দিন। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, হঠাৎ গতকালে রাতে কর্তৃপক্ষ থেকে জানা যায় আজ নির্বাচন হবে না। এর কারন- এই ভোট কেন্দ্রের ফলাফল নিয়ে কোর্টে একটা আবেদন করা হয়েছে, সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে আজকের তারিখে নির্বাচন না করার জন্য ইসি থেকে জানানো হয়েছে।
তো সবকিছু শেষে কিছু দিনের মধ্যে এই নির্বাচনের তারিখ আবার পুণঃনির্ধারন করা হবে। সময় বেশি দিন লাগবে না, সর্বোচ্ছ ৩ মাসের মধ্যে হবে, অনেকেই বিষয়টাকে অনেক ভাবে ভাবছেন। আসলে বিষয়টা ভিন্নভাবে ভাবার সুযোগ নেই, পুরু বিষয়টা আইনী প্রক্রিয়ার মধ্যদিয়ে এগুচ্ছে। এখানে আমিত্বের আর বড়ত্বের কিছুই নেই। আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই সত্যটা বেড়িয়ে আসবে। ফিরে আসবে জনমনে ম্বস্তি।
চলমান আইনী প্রক্রিয়া সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত সবাই ধর্য ধরুণ। ষড়যন্ত্রকারীরা যেখানে স্বস্তির ঢেকুর দিচ্ছে, সেখান থেকেই জয়ধ্বনি উচ্ছারিত হবে।