বাংলাদেশ ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

কমরেড নিজাম উদ্দিনের মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণ সভা 

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৮:১৩:৩৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • ১৬০৫ বার পড়া হয়েছে
স্বীকৃতি বিশ্বাস,যশোরঃ
বাংলাদেশের বিপ্লবী কমিউনিস্ট লীগের নেতা ( সাবেক ওয়ার্কার্স পার্টি মার্কসবাদী  যশোর জেলা কমিটির অন্যতম নেতা ) পাঁজিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান কমরেড নিজামউদ্দিনের ৩য় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে  কেশবপুরে কমরেডের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
আজ সোমবার ( ৫ সেপ্টেম্বর)  বিকাল সাড়ে তিনটায় কেশবপুরের গড়ভাঙ্গায় স্মৃতি রক্ষা পরিষদের আহ্বানে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
 কমরেড সনদ কুমার হরির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশের বিপ্লবী কমিউনিস্ট লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবির জাহিদ, কমরেড এ্যাড.আবুল হোসেন, কমরেড তসলিম উর রহমান, কমরেড  এ্যাডঃ আবুবক্কার সিদ্দিকী প্রমুখ।
নেত্ববৃন্দ তাদের বক্তব্যে  কমঃ নিজাম উদ্দীনের অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করে মেহনতি মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করার অঙ্গীকার করেন ৷
উল্লেখ্য কমরেড নিজাম উদ্দিন ছিলেন, একজন শিক্ষক এবং তার বাইরে ছিলেন ( মাওবাদী-  মার্কসবাদী)  কৃষক শ্রেনীর প্রিয়জন  তথা  জনমানুষের নেতা। ওয়ার্কার্স পার্টির রাজনীতিকে জনগনের দুয়ারে নিয়ে যাওয়া নেতাদের মধ্যে তিনি ছিলেন একজন পূরধা ব্যক্তিত্ব। ছাব্বিশ বিল ও ভবদহ আন্দোলনের অন্যতম  সংগঠন।  কেশবপুরের বিভিন্ন সামাজিক আন্দোলনের অন্যতম রূপকার ছিলেন। যার ফল স্বরুপ  কেশবপুর পাঁজিয়া ও গড়ভাঙার জনগন তাকে  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছিলেন।
ক্ষমতার মসনদে বসার পরেও  বাম আদর্শ থেকে কখনো বিচ্যুত হননি। শুধু সে একা নন তার পরিবার কেউ সংগঠিত করেছিলেন, বাম রাজনীতিতে। তার দুই জন সন্তান যারা প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর যশোর জেলা শাখার নেতা ছিলেন।  স্থানীয় সন্ত্রাস কিংবা পুঁজিবাদীদের  রক্তচক্ষুকে কখনো  ভয় পায়নি এমনকি পার্টি তথা বাম বিচ্ছেদ তার মাথায় কখনো ছিল না। এমন একজন কৃষকবন্ধু নেতা আজ আমাদের সমাজে বড়ই  বিরল।
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

কমরেড নিজাম উদ্দিনের মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণ সভা 

আপডেট সময় ০৮:১৩:৩৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩
স্বীকৃতি বিশ্বাস,যশোরঃ
বাংলাদেশের বিপ্লবী কমিউনিস্ট লীগের নেতা ( সাবেক ওয়ার্কার্স পার্টি মার্কসবাদী  যশোর জেলা কমিটির অন্যতম নেতা ) পাঁজিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান কমরেড নিজামউদ্দিনের ৩য় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে  কেশবপুরে কমরেডের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
আজ সোমবার ( ৫ সেপ্টেম্বর)  বিকাল সাড়ে তিনটায় কেশবপুরের গড়ভাঙ্গায় স্মৃতি রক্ষা পরিষদের আহ্বানে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
 কমরেড সনদ কুমার হরির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশের বিপ্লবী কমিউনিস্ট লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবির জাহিদ, কমরেড এ্যাড.আবুল হোসেন, কমরেড তসলিম উর রহমান, কমরেড  এ্যাডঃ আবুবক্কার সিদ্দিকী প্রমুখ।
নেত্ববৃন্দ তাদের বক্তব্যে  কমঃ নিজাম উদ্দীনের অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করে মেহনতি মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করার অঙ্গীকার করেন ৷
উল্লেখ্য কমরেড নিজাম উদ্দিন ছিলেন, একজন শিক্ষক এবং তার বাইরে ছিলেন ( মাওবাদী-  মার্কসবাদী)  কৃষক শ্রেনীর প্রিয়জন  তথা  জনমানুষের নেতা। ওয়ার্কার্স পার্টির রাজনীতিকে জনগনের দুয়ারে নিয়ে যাওয়া নেতাদের মধ্যে তিনি ছিলেন একজন পূরধা ব্যক্তিত্ব। ছাব্বিশ বিল ও ভবদহ আন্দোলনের অন্যতম  সংগঠন।  কেশবপুরের বিভিন্ন সামাজিক আন্দোলনের অন্যতম রূপকার ছিলেন। যার ফল স্বরুপ  কেশবপুর পাঁজিয়া ও গড়ভাঙার জনগন তাকে  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছিলেন।
ক্ষমতার মসনদে বসার পরেও  বাম আদর্শ থেকে কখনো বিচ্যুত হননি। শুধু সে একা নন তার পরিবার কেউ সংগঠিত করেছিলেন, বাম রাজনীতিতে। তার দুই জন সন্তান যারা প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর যশোর জেলা শাখার নেতা ছিলেন।  স্থানীয় সন্ত্রাস কিংবা পুঁজিবাদীদের  রক্তচক্ষুকে কখনো  ভয় পায়নি এমনকি পার্টি তথা বাম বিচ্ছেদ তার মাথায় কখনো ছিল না। এমন একজন কৃষকবন্ধু নেতা আজ আমাদের সমাজে বড়ই  বিরল।