বাংলাদেশ ১০:০৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

হাসপাতালে ঢুকে আহত প্রতিপক্ষকে ফের মারধর

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৭:৫৯:১৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • ১৬১৫ বার পড়া হয়েছে
আব্দুর রহমান ঈশান, নেত্রকোণা প্রতিনিধি :
নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে প্রতিবেশীদের মধ্যে কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয়পক্ষের আটজন আহত হন। তাঁদের মধ্যে একজন চিকিৎসা নেওয়ার সময় হাসপাতালে ঢুকে তাঁকে ফের মারধর করা হয়। এ ঘটনায় উভয়পক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। বৃহস্পতিবার মোহনগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে, গতকাল বুধবার বিকেলে উপজেলার কেওয়ারদীঘি গ্রামের মারধরের ঘটনা ঘটে।
স্থানীয়রা পুলিশকে জানায়, বুধবার বেলা ১১টার দিকে কেওয়ারদীঘি গ্রামের প্রতিবেশী রুবেল মিয়া ও রতন মিয়ার মধ্যে বাচ্চাদের বকাঝকা করা নিয়ে ঝগড়া শুরু হয়। একপর্যায়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে পরিবারের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এতে একপক্ষের রুবেল মিয়াসহ চারজন আহত হয়। অপরপক্ষের রতন মিয়াসহ তিন-চারজন আহত হয়।
বিকেলে আহত রুবেল মিয়াকে মোহনগঞ্জ হাসপাতালে জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে সেখানেও হামলা চালায় প্রতিপক্ষের লোকজন। এ সময় রুবেলকে দেখতে হাসপাতালে যায় তাঁর চাচাতো ভাই রিপন। রিপনেকেও লোহার রড দিয়ে পেটায় রতনের লোকজন। পরে চিকিৎসকেরা থানায় খবর দিলে পুলিশ হাসপাতালে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।
হামলার শিকার রুবেল মিয়া বলেন, বেলা ১১টার দিকে ছোটদের বিষয় নিয়ে তর্কাতর্কির জেরে রতনের পরিবারের লোকজন আমাদের ওপর হামলা চালায়। আমিসহ পরিবারের চারজন আহত হই। পরে বিকেলে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে জরুরি বিভাগে গেলে সেখানে রতনের ভাতিজা আশরাফের নেতৃত্বে ৮-১০ জন যুবক রড নিয়ে এসে আমার ওপর হামলা চালায়।
চিকিৎসকেরা তাঁদের পরে শান্ত করতে না পেরে পুলিশে খবর দেয়। এতে তাঁরা বাইরে গিয়ে গেটের কাছে চাচাতো ভাই রিপনকে পেয়ে তাঁকেও রড দিয়ে বেদম পেটায় বলে তিনি জানান।
আহত রিপন জানান, আমি রোগী দেখতে এসেছিলাম। এর মধ্যে আশরাফ ও তাঁর সঙ্গীরা রড দিয়ে পিটিয়ে আমাকে জখম করেছে। আমার ছয়টি দাঁত নড়ে গেছে। এগুলো ফেলে দিতে হবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। এ ঘটনায় রাতে থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।
এদিকে প্রতিপক্ষের রতন মিয়া বলেন, ঝগড়া শুরু করেছে রুবেলের পরিবারের লোকজন। এর জেরে আমাকে মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে। হাসপাতালের ভেতরে মারধরের বিষয়টি আমার জানা নেই। হাসপাতালের ভেতর হামলার বিষয়ে আশরাফের বক্তব্য জানতে চেয়ে তাঁর মোবাইল ফোনে কল করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।
মোহনগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার পার্থ সরকার বলেন, জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা আহত রোগীর ওপর হামলা চালালে আমরা পুলিশে খবর দিই। পুলিশ আসার আগেই অবশ্য হামলাকারীরা চলে যায়।
ওসি মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, মারধরের ঘটনায় উভয়পক্ষ থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। তদন্ত করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

হাসপাতালে ঢুকে আহত প্রতিপক্ষকে ফের মারধর

আপডেট সময় ০৭:৫৯:১৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩
আব্দুর রহমান ঈশান, নেত্রকোণা প্রতিনিধি :
নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে প্রতিবেশীদের মধ্যে কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয়পক্ষের আটজন আহত হন। তাঁদের মধ্যে একজন চিকিৎসা নেওয়ার সময় হাসপাতালে ঢুকে তাঁকে ফের মারধর করা হয়। এ ঘটনায় উভয়পক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। বৃহস্পতিবার মোহনগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে, গতকাল বুধবার বিকেলে উপজেলার কেওয়ারদীঘি গ্রামের মারধরের ঘটনা ঘটে।
স্থানীয়রা পুলিশকে জানায়, বুধবার বেলা ১১টার দিকে কেওয়ারদীঘি গ্রামের প্রতিবেশী রুবেল মিয়া ও রতন মিয়ার মধ্যে বাচ্চাদের বকাঝকা করা নিয়ে ঝগড়া শুরু হয়। একপর্যায়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে পরিবারের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এতে একপক্ষের রুবেল মিয়াসহ চারজন আহত হয়। অপরপক্ষের রতন মিয়াসহ তিন-চারজন আহত হয়।
বিকেলে আহত রুবেল মিয়াকে মোহনগঞ্জ হাসপাতালে জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে সেখানেও হামলা চালায় প্রতিপক্ষের লোকজন। এ সময় রুবেলকে দেখতে হাসপাতালে যায় তাঁর চাচাতো ভাই রিপন। রিপনেকেও লোহার রড দিয়ে পেটায় রতনের লোকজন। পরে চিকিৎসকেরা থানায় খবর দিলে পুলিশ হাসপাতালে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।
হামলার শিকার রুবেল মিয়া বলেন, বেলা ১১টার দিকে ছোটদের বিষয় নিয়ে তর্কাতর্কির জেরে রতনের পরিবারের লোকজন আমাদের ওপর হামলা চালায়। আমিসহ পরিবারের চারজন আহত হই। পরে বিকেলে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে জরুরি বিভাগে গেলে সেখানে রতনের ভাতিজা আশরাফের নেতৃত্বে ৮-১০ জন যুবক রড নিয়ে এসে আমার ওপর হামলা চালায়।
চিকিৎসকেরা তাঁদের পরে শান্ত করতে না পেরে পুলিশে খবর দেয়। এতে তাঁরা বাইরে গিয়ে গেটের কাছে চাচাতো ভাই রিপনকে পেয়ে তাঁকেও রড দিয়ে বেদম পেটায় বলে তিনি জানান।
আহত রিপন জানান, আমি রোগী দেখতে এসেছিলাম। এর মধ্যে আশরাফ ও তাঁর সঙ্গীরা রড দিয়ে পিটিয়ে আমাকে জখম করেছে। আমার ছয়টি দাঁত নড়ে গেছে। এগুলো ফেলে দিতে হবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। এ ঘটনায় রাতে থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।
এদিকে প্রতিপক্ষের রতন মিয়া বলেন, ঝগড়া শুরু করেছে রুবেলের পরিবারের লোকজন। এর জেরে আমাকে মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে। হাসপাতালের ভেতরে মারধরের বিষয়টি আমার জানা নেই। হাসপাতালের ভেতর হামলার বিষয়ে আশরাফের বক্তব্য জানতে চেয়ে তাঁর মোবাইল ফোনে কল করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।
মোহনগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার পার্থ সরকার বলেন, জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা আহত রোগীর ওপর হামলা চালালে আমরা পুলিশে খবর দিই। পুলিশ আসার আগেই অবশ্য হামলাকারীরা চলে যায়।
ওসি মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, মারধরের ঘটনায় উভয়পক্ষ থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। তদন্ত করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।