বাংলাদেশ ০৮:৫৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ফেরামের কার্যালয় উদ্বোধন ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত পটুয়াখালী পৌরসভার ১০ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া, সারারাত জ্বলে কোম্পানির বিলবোর্ড। বরগুনা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সাংসদ গোলাম সরোয়ার টুকু’র শুভেচ্ছা বিনিময় নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা  ইউএস অ্যাগ্রিমেন্টে অ্যাপস প্রতারণায় রাজশাহীতে ১০ মামলা নারায়ণগঞ্জে শ্রমিকদের বেতন ভাতা ও ঘোষিত মজুরি বাস্তবায়নের জন্য জনসভা আরএমপি’র কমিশনারসহ ৬ পুলিশ সদস্য পেলেন বিপিএম-পিপিএম পদক রাজশাহীতে প্রতিবছর বাড়ছে পেঁয়াজ বীজের চাষ এসএসসি ’৯৪ ব্যাচের প্রয়াত বন্ধুদের স্মরণানুষ্ঠান হত্যা মামলার দীর্ঘ ২৩ বছর যাবত পলাতক আসামী নজরুল মাঝি গ্রেফতার।  আমতলীতে গরুসহ চোর গ্রেপ্তার অপরূপ সৌন্দর্যে ঘেরা রাঙ্গাবালী, হতে পারে পর্যটনের কেন্দ্রবিন্দু। বুড়িচংয়ে বিল্লাল হোসেন ঠিকাদার ডাবল হোল্ডা কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন রায়গঞ্জে এনডিপির উদ্যোগে মিনি ম্যারাথন অনুষ্ঠিত এক প্রার্থীর বিরুদ্ধে কালো টাকা ছড়ানোর তুলে এক নারী মেয়র প্রার্থীর প্রার্থীতা প্রত্যাহার

পঞ্চসার জিয়সতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২টা গাছ কেটে ফেলেছে

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১০:১২:৫৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৩ মার্চ ২০২২
  • ১৬৭৬ বার পড়া হয়েছে

 

 সৈয়দ মাহবুবুর রহমান ঃঃ 
পঞ্চসার জিয়সতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠিত জায়গার শতবর্ষ পুরানো ৩টি গাছের মধ্যে ২টা গাছ কেটে ফেলেছে সুধির মন্ডল ও কালী দাসের নেতৃত্বে। বিশাল আকৃতির স্কুলের এই গাছ কেউ কাটতে সাহস না পেলেও সুধির মন্ডল কালী দাস সিরাজ সর্দারকে দিয়ে কেটে সাইজ করে ফেলেছেন। একটি গাছ এখন দাঁড়িয়ে আছে স্কুলের জায়গায়। মঙ্গলবার বিকাল ১টার সময় পঞ্চসার জিয়সতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এই জায়গাটি মন্দির কর্তৃপক্ষ দখল করে নেয়ার পায়তারা করছে বলে শিক্ষকগণ জানিয়েছেন। পুলিশ প্রশাসন দিয়ে স্কুলের জায়গায় জোরপূর্বক গেট লাগিয়েছেন সুধির মন্ডল ও কালী দাস।

পঞ্চসার জিয়সতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মোতাহারা বেগম জানান, ৮ বছর পূর্বে স্কুলের নামে একটি সাইনবোর্ড সাটানো ছিল। সেটাও সরিয়ে ফেলেছে তারা। তাদের বিরুদ্ধে মামলা চলছে। মামলা চলমান অবস্থায় কিভাবে স্কুলের লাগানো গাছ কেটে ফেলেছে আমার বুঝে আসে না। এ বিষয়ে মঙ্গলবার বিকাল ২টায় খবর পেয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষিকাসহ অন্যান্য শিক্ষকগণ ঘটনাস্থলে গিয়ে গেটের চাবি নিয়ে আসেন এবং গাছ কাটা বন্ধ করে দেন।

 

এ বিষয়ে সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নাসিমা খানম জানান, বিষয়টি জানার পরে স্কুলের প্রধান শিক্ষিকাকে পাঠিয়ে গাছ কাটা বন্ধ করে দিয়েছি। বাকী আগামীকালকে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে পরামর্শ করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ হাসিব সরকার জানানোর পরে সে দুইবার জানানো হয়েছে কিন্তু সে জানিয়েছেন বিষয়টি জেনে পরে জানাচ্ছি। রাত সোয়া আটটার সময় সেলফোনে ফোন দিলে তিনি জানান, সহকারি শিক্ষক ও বনবিভাগের কর্মকর্তাকে পাঠানো হয়েছে। তাদের মাধ্যমে গাছ কাটা বন্ধ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে সুধির ও কালিদাসের সাথে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি।

সাবেক সভাপতি ফিরোজ জানান, স্কুলের জায়গার দলিলাদি পাওয়ার পরই আদালতে মামলা করা হয়েছে। স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা ও ম্যানেজিং কমিটির লোকজন গিয়ে গাছ কাটা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। উপজেলায় অভিযোগ দেওয়ার জন্য গিয়েছি কিন্তু অফিসারগণ সকলে মিটিংয়ে থাকার কারণে কোন অভিযোগ দিতে পারিনি। আগামীকালকে লিখিত অভিযোগ দেব।

জনপ্রিয় সংবাদ

নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ফেরামের কার্যালয় উদ্বোধন ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

পঞ্চসার জিয়সতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২টা গাছ কেটে ফেলেছে

আপডেট সময় ১০:১২:৫৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৩ মার্চ ২০২২

 

 সৈয়দ মাহবুবুর রহমান ঃঃ 
পঞ্চসার জিয়সতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠিত জায়গার শতবর্ষ পুরানো ৩টি গাছের মধ্যে ২টা গাছ কেটে ফেলেছে সুধির মন্ডল ও কালী দাসের নেতৃত্বে। বিশাল আকৃতির স্কুলের এই গাছ কেউ কাটতে সাহস না পেলেও সুধির মন্ডল কালী দাস সিরাজ সর্দারকে দিয়ে কেটে সাইজ করে ফেলেছেন। একটি গাছ এখন দাঁড়িয়ে আছে স্কুলের জায়গায়। মঙ্গলবার বিকাল ১টার সময় পঞ্চসার জিয়সতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এই জায়গাটি মন্দির কর্তৃপক্ষ দখল করে নেয়ার পায়তারা করছে বলে শিক্ষকগণ জানিয়েছেন। পুলিশ প্রশাসন দিয়ে স্কুলের জায়গায় জোরপূর্বক গেট লাগিয়েছেন সুধির মন্ডল ও কালী দাস।

পঞ্চসার জিয়সতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মোতাহারা বেগম জানান, ৮ বছর পূর্বে স্কুলের নামে একটি সাইনবোর্ড সাটানো ছিল। সেটাও সরিয়ে ফেলেছে তারা। তাদের বিরুদ্ধে মামলা চলছে। মামলা চলমান অবস্থায় কিভাবে স্কুলের লাগানো গাছ কেটে ফেলেছে আমার বুঝে আসে না। এ বিষয়ে মঙ্গলবার বিকাল ২টায় খবর পেয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষিকাসহ অন্যান্য শিক্ষকগণ ঘটনাস্থলে গিয়ে গেটের চাবি নিয়ে আসেন এবং গাছ কাটা বন্ধ করে দেন।

 

এ বিষয়ে সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নাসিমা খানম জানান, বিষয়টি জানার পরে স্কুলের প্রধান শিক্ষিকাকে পাঠিয়ে গাছ কাটা বন্ধ করে দিয়েছি। বাকী আগামীকালকে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে পরামর্শ করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ হাসিব সরকার জানানোর পরে সে দুইবার জানানো হয়েছে কিন্তু সে জানিয়েছেন বিষয়টি জেনে পরে জানাচ্ছি। রাত সোয়া আটটার সময় সেলফোনে ফোন দিলে তিনি জানান, সহকারি শিক্ষক ও বনবিভাগের কর্মকর্তাকে পাঠানো হয়েছে। তাদের মাধ্যমে গাছ কাটা বন্ধ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে সুধির ও কালিদাসের সাথে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি।

সাবেক সভাপতি ফিরোজ জানান, স্কুলের জায়গার দলিলাদি পাওয়ার পরই আদালতে মামলা করা হয়েছে। স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা ও ম্যানেজিং কমিটির লোকজন গিয়ে গাছ কাটা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। উপজেলায় অভিযোগ দেওয়ার জন্য গিয়েছি কিন্তু অফিসারগণ সকলে মিটিংয়ে থাকার কারণে কোন অভিযোগ দিতে পারিনি। আগামীকালকে লিখিত অভিযোগ দেব।