বাংলাদেশ ০১:১৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
রামপুর মধ্যপাড়া মরহুম হাজী নিতু মন্ডল এর বাড়ির উদ্যোগে-৪র্থ বার্ষিক ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল। রাজশাহী মহানগরীতে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই! দুই ভুয়া ডিবি গ্রেফতার পটুয়াখালী মহিপুর ইয়াবাসহ একজন গ্রেফতার। চন্দ্রকোনায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেল এক ব্যতিক্রমী চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা। আজ শেরপুর জেলার জন্মদিন অবৈধ গ্যাস সংযোগ উচ্ছেদ অভিযান শুরু মুহম্মদ ফয়সল আকন্দের ‘চন্দ্রপুর’ গ্রন্থের পাঠ উন্মোচন সভা অনুষ্ঠিত  বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য অনেক কিছু করেছে : আমু মতলব ব্রহ্মানন্দ যোগাশ্রমে শ্রী শ্রী বিশ্ব শান্তি গীতা যজ্ঞ ও সনাতন ধর্ম সম্মেলন ২৪ ফেব্রুয়ারী রাজশাহীতে লংকাবাংলা সিকিউরিটিজের ডিজিটাল বুথের উদ্বোধন রাজশাহী পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত জবিতে শুরু হচ্ছে ৬ দিন ব্যাপি সিনেশো ব্যরিস্টার শাহজাহান ওমরের বিকল্পে জামালকে মূল্যায়ন পিরোজপুরের নেছারাবাদে দুই দিনে পাগলা কুকুরের কামড়ে নারী শিশু, বৃদ্ধসহ ১৭ জন আহত নলছিটি বন্দর স্কুলের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন আমির হোসেন আমু

টিসিবি’র ফ্যামিলি কার্ড ছাড়া ৫ জনের পণ্য নিলেন একজন 

টিসিবি’র ফ্যামিলি কার্ড ছাড়া ৫ জনের পণ্য নিলেন একজন 

শংকর চৌধুরী, হাটহাজারী প্রতিনিধি 
হাটহাজারী উপজেলার ১ নম্বর ফরহাদাবাদ ইউনিয়ন পরিষদে ফ্যামিলি কার্ড ছাড়া একাই নিয়েছেন ৫ জনের টিসিবি পণ্য। পরে  বাণিজ্য মন্ত্রণনালয়ের মনিটরিং টিমের সদস্যরা তাকে ধরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করেন।
মঙ্গলবার (২২ মার্চ) দুপুরের দিকে হাটহাজারী উপজেলার ১ নম্বর ফরহাদাবাদ ইউনিয়নে পরিদর্শনে এসে দেখা যায় এমন চিত্র।
জানা গেছে, জসীম উদ্দিন নামের এক উদ্যোক্তা টিসিবির ফ্যামিলি কার্ড ছাড়া একাই নিয়েছেন ৫ জনের টিসিবি পণ্য।
পরে সে পণ্যগুলো জব্দ করেন টিসিবি পণ্য নিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক গঠিত মনিটরিং টিম-৩ এর সদস্য বাংলাদেশ চা বোর্ডের সিনিয়র সহকারী সচিব (সচিব ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ রুহুল আমীন। এসময় তার কাছ থেকে  ১০ লিটার তেল, ১০ কেজি ডাল, ১০ কেজি চিনি জব্দ করা হয়।
মনিটরিং টিম-৩ এর সদস্য বাংলাদেশ চা বোর্ডের সিনিয়র সহকারী সচিব (সচিব ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ রুহুল আমীন বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে যে মনিটরিং টিম গঠন করা হয়েছে সে কমিটির সদস্য হিসেবে আমরা চট্টগ্রামের নগরসহ বিভিন্ন উপজেলার বিক্রয় কার্যক্রম মনিটরিং করছি। আমদের কাছে অনিয়ম ধরা পড়লে তা স্থানীয় প্রশাসনকে জানাই।
আজকে যখন দেখলাম ট্রাকের কাছ থেকে এনআইডি সহ একটি নাম্বার দিয়ে পণ্য কেনার চেষ্টা করছে। আমরা ডিলারকে বলে দেয় এভাবে পণ্য বিক্রি না করতে। ফ্যামিলি কার্ড যাদের আছে তাদের কাছে বিক্রি করতে। এসময় সন্দেহ হলে আমি ডিলারকে জিজ্ঞেস করি, ফ্যামিলি কার্ড ছাড়া কি পরিমাণ বিক্রি করা হয়েছে। সে জানায় কিছু বিক্রি করেছে। পরে ভেতরে গিয়ে দেখি টেবিলের নিচে রয়েছে অনেকগুলো। সেগুলো জব্দ করে ইউএনওকে পাঠিয়ে দেই।
জনপ্রিয় সংবাদ

রামপুর মধ্যপাড়া মরহুম হাজী নিতু মন্ডল এর বাড়ির উদ্যোগে-৪র্থ বার্ষিক ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিল।

টিসিবি’র ফ্যামিলি কার্ড ছাড়া ৫ জনের পণ্য নিলেন একজন 

আপডেট সময় ০৩:৫৪:১৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২২ মার্চ ২০২২
শংকর চৌধুরী, হাটহাজারী প্রতিনিধি 
হাটহাজারী উপজেলার ১ নম্বর ফরহাদাবাদ ইউনিয়ন পরিষদে ফ্যামিলি কার্ড ছাড়া একাই নিয়েছেন ৫ জনের টিসিবি পণ্য। পরে  বাণিজ্য মন্ত্রণনালয়ের মনিটরিং টিমের সদস্যরা তাকে ধরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করেন।
মঙ্গলবার (২২ মার্চ) দুপুরের দিকে হাটহাজারী উপজেলার ১ নম্বর ফরহাদাবাদ ইউনিয়নে পরিদর্শনে এসে দেখা যায় এমন চিত্র।
জানা গেছে, জসীম উদ্দিন নামের এক উদ্যোক্তা টিসিবির ফ্যামিলি কার্ড ছাড়া একাই নিয়েছেন ৫ জনের টিসিবি পণ্য।
পরে সে পণ্যগুলো জব্দ করেন টিসিবি পণ্য নিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক গঠিত মনিটরিং টিম-৩ এর সদস্য বাংলাদেশ চা বোর্ডের সিনিয়র সহকারী সচিব (সচিব ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ রুহুল আমীন। এসময় তার কাছ থেকে  ১০ লিটার তেল, ১০ কেজি ডাল, ১০ কেজি চিনি জব্দ করা হয়।
মনিটরিং টিম-৩ এর সদস্য বাংলাদেশ চা বোর্ডের সিনিয়র সহকারী সচিব (সচিব ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ রুহুল আমীন বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে যে মনিটরিং টিম গঠন করা হয়েছে সে কমিটির সদস্য হিসেবে আমরা চট্টগ্রামের নগরসহ বিভিন্ন উপজেলার বিক্রয় কার্যক্রম মনিটরিং করছি। আমদের কাছে অনিয়ম ধরা পড়লে তা স্থানীয় প্রশাসনকে জানাই।
আজকে যখন দেখলাম ট্রাকের কাছ থেকে এনআইডি সহ একটি নাম্বার দিয়ে পণ্য কেনার চেষ্টা করছে। আমরা ডিলারকে বলে দেয় এভাবে পণ্য বিক্রি না করতে। ফ্যামিলি কার্ড যাদের আছে তাদের কাছে বিক্রি করতে। এসময় সন্দেহ হলে আমি ডিলারকে জিজ্ঞেস করি, ফ্যামিলি কার্ড ছাড়া কি পরিমাণ বিক্রি করা হয়েছে। সে জানায় কিছু বিক্রি করেছে। পরে ভেতরে গিয়ে দেখি টেবিলের নিচে রয়েছে অনেকগুলো। সেগুলো জব্দ করে ইউএনওকে পাঠিয়ে দেই।