বাংলাদেশ ০৭:১২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

শাহজাদপুরে চলছে মাছ ধরার বাউত উৎসব

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:২৯:৫৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৬ মার্চ ২০২২
  • ১৭৪৬ বার পড়া হয়েছে

শাহজাদপুরে চলছে মাছ ধরার বাউত উৎসব

 

মোঃ আমিরুল ইসলাম, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে বিভিন্ন নদ-নদী, খাল-বিল থেকে বর্ষার পানি নামার সঙ্গে সঙ্গে ঐতিহ্যবাহী বাউত উৎসব শুরু হয়েছে।প্রতি বছরের মতো এবারেও  উপজেলার বিভিন্ন নদী ও খাল  বিলের পানিতে নেমে পলো  দিয়ে সৌখিন মাছ শিকারিরা মাছ শিকারে মত্ত হয়ে উঠেছেন।

স্থানীয় ভাষায় এসব মাছ শিকারিকে বলা হয় ‘বাউত’। বিভিন্ন  বিলাঞ্চলের বিভিন্ন নদ-নদী ও বিলের পানিতে মাছ শিকারে সবাই দলবেঁধে নেমে পড়ছেন। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার মাছের আনাগোনা কম হওয়ায় বেশির ভাগ বাউতদের ফিরতে হচ্ছে খালি হাতে।

শনিবার সকালে সরেজমিন উপজেলার ফুলঝর নদীতে দেখা যায় শত শত সৌখিন মাছ শিকারি মাছ শিকারে নেমে পড়েছেন। কেউ মাছ পাচ্ছেন আবার কেউবা ফিরছেন খালি হাতে।উপজেলার  বিভিন্ন স্থান থেকে বাউতরা এসেছেন মাছ শিকারে।এই মাছ ধরার উৎসবে মেতে উঠছেন শিশু-কিশোর, যুবক থেকে শুরু করে বৃদ্ধরা।

এই বাউতে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ধরা পড়ছে  শোল, বোয়াল, আইড়, গজার,রুই,টাকিসহ হরেক রকমের মাছ। বাউতে মাছ শিকার প্রেমিক মোঃ আব্দুস ছাত্তার বলেন, মাছ পাওয়া না পাওয়া বড় কথা নয়, ব্যতিক্রমী এ উৎসবে যোগ দিতে পেরে  আনন্দ উপভোগ করাটাই আমাদের  কাছে মুখ্য বিষয়।

উপজেলার মশিপুর গ্রামের মোঃ বাহাদুর হোসেন,নরিনার গ্রামের চাঁন,ব্রজবালার ইয়াছিন,মশিপুর গ্রামের ওমর হোসেন,বনগ্রামের লালু সরকারসহ বেশ কয়েকজন বাউত সৌখিন মৎস্য শিকারি অগ্নিশিখাকে জানান, প্রতি বছর এই সময়টার অপেক্ষায় থাকেন তারা। মোবাইলের মাধ্যমে একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করে করতোয়া নদী ফুলঝর নদী ও বিভিন্ন  বিলে পলো নিয়ে মাছ শিকারে নেমে পড়ছেন। দলবদ্ধ হয়ে মাছ ধরা এক ধরনের উৎসবে পরিণত হয়েছে।

এছাড়া বাউত উৎসব গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য। এই ঐতিহ্যকে কখনো তারা হারাতে দেবেনা।এবং ঐতিহ্যকে টিকিয়ে রাখতে প্রতি বছরই বাউত উৎসবে যোগ দিবেন  বলে জানালেন তারা।

জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

শাহজাদপুরে চলছে মাছ ধরার বাউত উৎসব

আপডেট সময় ০৪:২৯:৫৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৬ মার্চ ২০২২

 

মোঃ আমিরুল ইসলাম, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে বিভিন্ন নদ-নদী, খাল-বিল থেকে বর্ষার পানি নামার সঙ্গে সঙ্গে ঐতিহ্যবাহী বাউত উৎসব শুরু হয়েছে।প্রতি বছরের মতো এবারেও  উপজেলার বিভিন্ন নদী ও খাল  বিলের পানিতে নেমে পলো  দিয়ে সৌখিন মাছ শিকারিরা মাছ শিকারে মত্ত হয়ে উঠেছেন।

স্থানীয় ভাষায় এসব মাছ শিকারিকে বলা হয় ‘বাউত’। বিভিন্ন  বিলাঞ্চলের বিভিন্ন নদ-নদী ও বিলের পানিতে মাছ শিকারে সবাই দলবেঁধে নেমে পড়ছেন। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার মাছের আনাগোনা কম হওয়ায় বেশির ভাগ বাউতদের ফিরতে হচ্ছে খালি হাতে।

শনিবার সকালে সরেজমিন উপজেলার ফুলঝর নদীতে দেখা যায় শত শত সৌখিন মাছ শিকারি মাছ শিকারে নেমে পড়েছেন। কেউ মাছ পাচ্ছেন আবার কেউবা ফিরছেন খালি হাতে।উপজেলার  বিভিন্ন স্থান থেকে বাউতরা এসেছেন মাছ শিকারে।এই মাছ ধরার উৎসবে মেতে উঠছেন শিশু-কিশোর, যুবক থেকে শুরু করে বৃদ্ধরা।

এই বাউতে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ধরা পড়ছে  শোল, বোয়াল, আইড়, গজার,রুই,টাকিসহ হরেক রকমের মাছ। বাউতে মাছ শিকার প্রেমিক মোঃ আব্দুস ছাত্তার বলেন, মাছ পাওয়া না পাওয়া বড় কথা নয়, ব্যতিক্রমী এ উৎসবে যোগ দিতে পেরে  আনন্দ উপভোগ করাটাই আমাদের  কাছে মুখ্য বিষয়।

উপজেলার মশিপুর গ্রামের মোঃ বাহাদুর হোসেন,নরিনার গ্রামের চাঁন,ব্রজবালার ইয়াছিন,মশিপুর গ্রামের ওমর হোসেন,বনগ্রামের লালু সরকারসহ বেশ কয়েকজন বাউত সৌখিন মৎস্য শিকারি অগ্নিশিখাকে জানান, প্রতি বছর এই সময়টার অপেক্ষায় থাকেন তারা। মোবাইলের মাধ্যমে একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করে করতোয়া নদী ফুলঝর নদী ও বিভিন্ন  বিলে পলো নিয়ে মাছ শিকারে নেমে পড়ছেন। দলবদ্ধ হয়ে মাছ ধরা এক ধরনের উৎসবে পরিণত হয়েছে।

এছাড়া বাউত উৎসব গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য। এই ঐতিহ্যকে কখনো তারা হারাতে দেবেনা।এবং ঐতিহ্যকে টিকিয়ে রাখতে প্রতি বছরই বাউত উৎসবে যোগ দিবেন  বলে জানালেন তারা।