বাংলাদেশ ০৯:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মহানগরীতে ৮টি মামলার সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী রবিউল গ্রেফতার ত্রিশালে শুভেচ্ছা ও গণসংযোগে মাজহারুল ইসলাম জুয়েল পিরোজপুরে তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ১০ প্রার্থীর মনোয়নপত্র দাখিল বাঙ্গালহালিয়া ধলিয়াপাড়া শিক্ষা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ রায়গঞ্জের হাটপাঙ্গাসীতে পহেলা বৈশাখ উদযাপিত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ব্রাহ্মণপাড়া ভগবান সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮৯ ব্যাচের ঈদ পূণর্মিলনী অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কাউনিয়ায় ১৩ প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র দাখিল বগুড়া-নন্দীগ্রাম (উত্তর-কচুগাড়ী) গ্রামে ১৬ প্রহর ব্যাপী হরিবাসর অনুষ্ঠিত..!! হরিপুর চেয়ারম্যান পদে ৫ জনসহ ৯ জনের মনোনয়ন দাখিল কুমিল্লায় মাই টিভির ১৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন নরসিংদীতে ইউপি সদস্যকে গুলি ও জবাই করে হত্যা ক্লাস-পরীক্ষা চালু রেখেই জবিতে ১৮ এপ্রিল বাংলা নববর্ষ উদযাপনের সিদ্ধান্ত  পঞ্চগড়ে পেঁয়াজ চাষে ভাগ্য পরিবর্তন। পীরগঞ্জে হেরোইন, গাঁজাসহ ৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার
হবিগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে লাইনের সিরিয়াল নিয়ে ব্যবসা।

হবিগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে লাইনের সিরিয়াল নিয়ে ব্যবসা।

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৫:৪৯:২০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • ১৭০৪ বার পড়া হয়েছে

হবিগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে লাইনের সিরিয়াল নিয়ে ব্যবসা।

হবিগঞ্জ জেলা স্টাফ রিপোর্টারঃ

সিরিয়াল দালাল চক্রকে বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা  এইসব জানে   তার মানে সকাল ৫ থেকে ৭ টা ভিতর  দালাল চক্রকে। কাজ শেষ করে চলে যাচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তাদের আটক  করেছে কেন। তার কারণ জানতে চায় সাধারণ মানুষ। পাসপোর্ট অফিস সামনে পুলিশ সুপার কার্যালয় , দুর্নীতি দমন কমিশন কার্যালয় থাকলেও দালালি করছে না পাসপোর্ট অফিসে।  তাদের নাম নাম জিজ্ঞাসা করলে তারার নাম না বলতে কি এইসব কার কারনে হচ্ছে। সারা রাত আমরা জাগি লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার চেষ্টা করি কিন্তু দালালচক্রের কারণে। আমরা সুন্দরভাবে পাসপোর্ট ফরম জমা দিতে পারিনা সকালে তারা এসে 500 থেকে 1000 টাকা করে সিরিয়াল ব্যবসা শুরু করেন আমরা সারারাত জেগে পাসপোর্ট জমা দেওয়ার চেষ্টা করি কিন্তু তাদের কারণে পাইনা এই চক্র কি শুধু হবিগঞ্জ জেলা তে আছে না আরো আছে তা জানতে চাইলে। পাসপোর্ট কর্তৃপক্ষরা জিজ্ঞাসা করলে তারা বলে একা আমাদের বিষয় নয়। যারা আমাদের কাছে জমা দিবে তাদের তবে অবশ্যই বৈধ করে দেবো কিন্তু তারা যদি ছিঁড়ে কাটে সেটা তো আমাদের দেখার বিষয় না কিন্তু এই দেখার বিষয়টি কার জানতে চায় সাধারণ মানুষ।

হবিগঞ্জ জেলা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে গ্রাহকরা নানা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। শুধু তাই নয় সিরিয়াল পেতেও গুনতে হচ্ছে ৫শ থেকে ১ হাজার টাকা। স্থানীয় কতিপয় বখাটে যুবক আগের দিন সন্ধ্যা থেকে পরেরদিন সকাল ৭টা পর্যন্ত গেটের বাইরে লাইনে ইট বিছিয়ে জায়গা দখল করে রাখে। পরে সকালে দুর দুরান্ত থেকে আসা পাসপোর্ট জমা দিতে আসা লোকজন লাইনে দাড়াতে চাইলে ওই চক্রের সদস্যদের কাছ থেকে ৫শ থেকে ১ হাজার টাকায় সিরিয়াল কিনতে হয়। তাদের সাথে রয়েছে গেইটের কতিপয় আনসার সদস্য। খবর নিয়ে জানা যায়, হবিগঞ্জ জেলাসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে প্রতিদিন সকালে শত শত গ্রাহকরা পাসপোর্টের কাগজপত্র জমা দেওয়ার জন্য ২নং পুলস্থ পাসপোর্ট অফিসে আসেন। লোকজন বেশি হওয়ায় পাসপোর্ট অফিস থেকে লাইনে দাড়ানোর জন্য বলা হয়। বাধ্য হয়ে লোকজন লাইনে দাড়িয়ে সিরিয়ালের জন্য অপেক্ষা করেন। কিন্তু এলাকার কিছু বখাটে যুবক এই সিরিয়ালকেই ব্যবসার মাধ্যম হিসেবে বেঁছে নিয়েছে। যারা আগের দিন রাতে লাইনের জন্য ইট ও কাগজ বিছিয়ে রাখে। যাতে মনে হয় এখানে আগে থেকেই কেউ অপেক্ষমান রয়েছে।

আর এসব রাতভর পাহাড়া দেয় বখাটেদেরই এক প্রতিনিধি। ভোর থেকেই লাইনে দাড়ানোর জন্য ভিড় হলে সিরিয়াল অনুযায়ী দাড়াতে চাইলে ওইচক্রটি তখন বাঁধা দেয় এবং তাদেরকে টাকা দিলেই লাইনে দাড়ানোর সুযোগ করে দেয়া হয়। এ নিয়ে প্রায়ই দালালদের মাঝে বাকবিতন্ডা হয়। কিন্তু পাসপোর্ট অফিসের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না বলে ভুক্তভোগীরা জানান। তারা আরও জানান, অতিসত্তর বিষয়টির প্রতি নজর না দিলে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার আশংকা রয়েছে। এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন দালাল জানান, চুরি, ডাকাতি করলে বিপদ, কিন্তু দালালি করলে কোনো সমস্যা নাই। পেটের দায়ে আমরা এ পেশা নিয়েছি। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগের কারণে র‌্যাব-৯ অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকজন দালালকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে কারাদন্ড দিলেও কিছুদিন বন্ধ থাকার পর দালালরা জামিনে বেরিয়ে এসে পুনরায় এসব করছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

মহানগরীতে ৮টি মামলার সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী রবিউল গ্রেফতার

হবিগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে লাইনের সিরিয়াল নিয়ে ব্যবসা।

হবিগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে লাইনের সিরিয়াল নিয়ে ব্যবসা।

আপডেট সময় ০৫:৪৯:২০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২২

হবিগঞ্জ জেলা স্টাফ রিপোর্টারঃ

সিরিয়াল দালাল চক্রকে বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা  এইসব জানে   তার মানে সকাল ৫ থেকে ৭ টা ভিতর  দালাল চক্রকে। কাজ শেষ করে চলে যাচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তাদের আটক  করেছে কেন। তার কারণ জানতে চায় সাধারণ মানুষ। পাসপোর্ট অফিস সামনে পুলিশ সুপার কার্যালয় , দুর্নীতি দমন কমিশন কার্যালয় থাকলেও দালালি করছে না পাসপোর্ট অফিসে।  তাদের নাম নাম জিজ্ঞাসা করলে তারার নাম না বলতে কি এইসব কার কারনে হচ্ছে। সারা রাত আমরা জাগি লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার চেষ্টা করি কিন্তু দালালচক্রের কারণে। আমরা সুন্দরভাবে পাসপোর্ট ফরম জমা দিতে পারিনা সকালে তারা এসে 500 থেকে 1000 টাকা করে সিরিয়াল ব্যবসা শুরু করেন আমরা সারারাত জেগে পাসপোর্ট জমা দেওয়ার চেষ্টা করি কিন্তু তাদের কারণে পাইনা এই চক্র কি শুধু হবিগঞ্জ জেলা তে আছে না আরো আছে তা জানতে চাইলে। পাসপোর্ট কর্তৃপক্ষরা জিজ্ঞাসা করলে তারা বলে একা আমাদের বিষয় নয়। যারা আমাদের কাছে জমা দিবে তাদের তবে অবশ্যই বৈধ করে দেবো কিন্তু তারা যদি ছিঁড়ে কাটে সেটা তো আমাদের দেখার বিষয় না কিন্তু এই দেখার বিষয়টি কার জানতে চায় সাধারণ মানুষ।

হবিগঞ্জ জেলা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে গ্রাহকরা নানা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। শুধু তাই নয় সিরিয়াল পেতেও গুনতে হচ্ছে ৫শ থেকে ১ হাজার টাকা। স্থানীয় কতিপয় বখাটে যুবক আগের দিন সন্ধ্যা থেকে পরেরদিন সকাল ৭টা পর্যন্ত গেটের বাইরে লাইনে ইট বিছিয়ে জায়গা দখল করে রাখে। পরে সকালে দুর দুরান্ত থেকে আসা পাসপোর্ট জমা দিতে আসা লোকজন লাইনে দাড়াতে চাইলে ওই চক্রের সদস্যদের কাছ থেকে ৫শ থেকে ১ হাজার টাকায় সিরিয়াল কিনতে হয়। তাদের সাথে রয়েছে গেইটের কতিপয় আনসার সদস্য। খবর নিয়ে জানা যায়, হবিগঞ্জ জেলাসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে প্রতিদিন সকালে শত শত গ্রাহকরা পাসপোর্টের কাগজপত্র জমা দেওয়ার জন্য ২নং পুলস্থ পাসপোর্ট অফিসে আসেন। লোকজন বেশি হওয়ায় পাসপোর্ট অফিস থেকে লাইনে দাড়ানোর জন্য বলা হয়। বাধ্য হয়ে লোকজন লাইনে দাড়িয়ে সিরিয়ালের জন্য অপেক্ষা করেন। কিন্তু এলাকার কিছু বখাটে যুবক এই সিরিয়ালকেই ব্যবসার মাধ্যম হিসেবে বেঁছে নিয়েছে। যারা আগের দিন রাতে লাইনের জন্য ইট ও কাগজ বিছিয়ে রাখে। যাতে মনে হয় এখানে আগে থেকেই কেউ অপেক্ষমান রয়েছে।

আর এসব রাতভর পাহাড়া দেয় বখাটেদেরই এক প্রতিনিধি। ভোর থেকেই লাইনে দাড়ানোর জন্য ভিড় হলে সিরিয়াল অনুযায়ী দাড়াতে চাইলে ওইচক্রটি তখন বাঁধা দেয় এবং তাদেরকে টাকা দিলেই লাইনে দাড়ানোর সুযোগ করে দেয়া হয়। এ নিয়ে প্রায়ই দালালদের মাঝে বাকবিতন্ডা হয়। কিন্তু পাসপোর্ট অফিসের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না বলে ভুক্তভোগীরা জানান। তারা আরও জানান, অতিসত্তর বিষয়টির প্রতি নজর না দিলে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার আশংকা রয়েছে। এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন দালাল জানান, চুরি, ডাকাতি করলে বিপদ, কিন্তু দালালি করলে কোনো সমস্যা নাই। পেটের দায়ে আমরা এ পেশা নিয়েছি। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগের কারণে র‌্যাব-৯ অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকজন দালালকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে কারাদন্ড দিলেও কিছুদিন বন্ধ থাকার পর দালালরা জামিনে বেরিয়ে এসে পুনরায় এসব করছে।