বাংলাদেশ ০৮:২০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মেহেন্দিগঞ্জে কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্য পুলিশের হাতে আটক। পঞ্চগড়ে বঞ্চিত শিশুদের আনন্দ দিতে শিশুস্বর্গের নানা আয়োজন শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চার নেতা কর্মীকে বহিষ্কার। অস্বাস্থ্যকর জেলি পুশকৃত চিংড়ি বাজারজাতকরণের উদ্দেশ্যে পরিবহনে সহায়তা করার অপরাধে চিংড়ি মালিককে জরিমানা ও জেলি পুশ চিংড়ি ধ্বংস করেছে র‌্যাব। কাউখালীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতিসহ ৪ প্রার্থী জামানত হারান  চাকরি পেয়ে তো ঠিকই ঘুষ নিবেন আমরা একটু বেশি নিলে সমস্যা কি; রাবির দোকানি নরসিংদীর রায়পুরায় ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীকে পিটিয়ে হত্যা কালকিনি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী তৌফিকুজ্জামান শাহীন সাহস করে উঠে দাঁড়ান নইলে কাল আপনার পালা: মঈন উদ্দিন খান মতিহারে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার সাপাহারে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী হলেন যারা ঘাটাইলে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার শ্রমজীবী-পথচারীদের মাঝে দাগনভূঞা সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের শরবত বিতরণ  কামারগাঁ ইউপি বাসীর পক্ষ থেকে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ময়নাকে সংবর্ধনা  সকল বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে এগিয়ে চলেছেন রায়গঞ্জের ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম নান্নু

বুড়িচং প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের ঘুটির জোর কোথায় 

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:০৭:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ৭ মার্চ ২০২২
  • ১৬৭৪ বার পড়া হয়েছে

বুড়িচং প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের ঘুটির জোর কোথায় 

বুড়িচং (কুমিল্লা) প্রতিনিধি : 
কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ৫ নং পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের মধ্য শ্যামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এসব হচ্ছে কী?।
১৫ জনের সিএস এবং আর এস ও বি এস খতিয়ান ভূক্ত বাড়িকে নাল বানিয়ে  ষড়যন্ত্র করে মাত্র পাঁচ জনে বিদ্যালয়ের নামে ৩৩ শতক জমি কাওলা দেয়। এই পাঁচজনের মধ্যে ৪ জনেরই স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে জমি দাতার শিক্ষক প্রার্থীকে গুরুত্ব না দিয়ে প্রচুর অর্থ বানিজ্য করে শিক্ষক নিয়োগ করেছে। প্রাথমিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক বিস্তারে গত ০৪/০৩/১৯৯৭ ইং তারিখের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি মতে দাতা অগ্রাধিকার হিসাবে কুলছুল আক্তার এবং রোকসানা আক্তার আবেদন করেন। তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার কাজী সহিদ নির্দিষ্ট সময়ে  নিয়োগ পরীক্ষা না নিয়ে অনিয়মভাবে শিক্ষক নিয়োগ করেছে।
এবিষয়ে গত ২১/১২/১৯৯৭ ইং তারিখে বুড়িচং থানা শিক্ষা অফিসার কাজী সহিদ কে আবেদন করেও কোন ফল পাওয়া যায়নি। গত ০৫/০৭/২০১০ইং তারিখে জাল দাতা সদস্য মোকবুল হোসেনের আবেদন  মতে সরকারি ৩০ হাজার টাকা জাল দাতা সদস্যের রেজুলেশন স্বাক্ষর জাল করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা আলেয়া বেগম টাকা উত্তোলন করার মত ঘটনা বুড়িচং উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের তদন্তে প্রমাণিত আছে। গত ১৪/১২/২০১০ ইং তারিখে জমির মালিক নাছির উদ্দীন জাল কাওলা সম্পর্কে বুড়িচং উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সিরাজুল ইসলাম খন্দকারকে আবেদন করলে  তা আমলে না নিয়ে প্রচুর অর্থ বানিজ্য করে অনিয়মকে আবারোও  সহযোগিতা করেছে।
জাল কাওলা সম্পর্কে গত ২০/০৪/২০১১ ইং তারিখে জমির বৈধ মালিক মিজানুর রহমানের উকিল নোটিশ করলে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা ও বুড়িচং প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার পুনরায় আর্থিক বানিজ্য করে অনিয়মকে সহযোগিতা করে পাল্টা উকিল নোটিশ প্রধান করে যা অবৈধ।গত ০৯/০৩/২০১১ ইং তারিখে জমির মালিক বেলায়েত হোসেন পরিচালক কোইকা প্রকল্প বার্ড কুমিল্লাকে জাল দলিল সম্পর্কে আবেদন অবগত করলেও পুনরায় উপযুক্ত অর্থ বানিজ্য নিয়েছে।
অবশেষে গত ০৪/০৩/২০১৭ ইং তারিখে বুড়িচং  রেজিঃ ডাক নং ৮৮৮ এর মাধ্যমে বুড়িচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে বুড়িচং রেজি ডাক নং ৮৮৯ এর মাধ্যমে  জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার কুমিল্লাকে ও বুড়িচং রেজিঃ ডাক নং ৮৮৭ এর মাধ্যমে দুদক ঢাকাকে জাল দলিল সম্পর্কে অবগত করেন এবং স্থানীয় কুমিল্লার কয়েকটি পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করেও  অনিয়মকে বন্ধ করতে পারে নাই।
জমির মালিকরা গরিব ও অসহায় বলে মামলা করতে সাহস পায় না। বর্তমানে সরকারের প্রায় ৭০ লক্ষ টাকার দালান ঘর উক্ত জাল দলিলের স্থানে এবং দলিলের বাহিরে অন্য পুকুর দাগে সরকারের টাকা আত্মসাৎ ও অপচয় করার পায়তারা করছে। স্থানীয় কামাল উদ্দিন ওরফে সুন্দর আলী, ডাঃ আবু মূসা ভূইয়া পিতা:- আবদুল খালেক, মো:ইকবাল হোসেন পিতাঃ-আঃছিদ্দিকুর রহমান সাং- দক্ষিণ শ্যামপুর, গং ব্যক্তিরা।
এবিষয়ে গত ০৪/১২/২০২০ ইং তারিখে জমির মালিক সাংবাদিক মোকবুল হোসেন ভূইয়া বুড়িচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃমোজাম্মেল হক (পিপিএম)কে অভিযোগ জানালে ওসি সাহেব তাৎক্ষণিকভাবে এসআই সুজয় কুমার মজুমদার সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনা স্থলে পরিদর্শন করে এবং স্থানীয় পত্রিকার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন। তদন্তে  এসআই সুজয় কুমার মজুমদার আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেন।
এ বিষয়ে একই দিন বুড়িচং উপজেলার প্রকৌশলী অনুপ কুমার কে লিখিত অভিযোগটি দেয়া হয় এবং ০৬/০২/২০২০ ইং তারিখে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রৌশনারাকে লিখিত অভিযোগটি দেয়া হয় ও ০৮/০২/২০২০ ইং তারিখে পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের  জাহের চেয়ারম্যানকে অবগতি কপি দেওয়া হয় এবং অবশেষে ০৮/০২/২০২০ ইং তারিখে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে আবেদন কপি দিলে তিনি প্রয়োজনীয় তদন্ত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রৌশনা আরা কে সুপারিশ করে কপি প্রেরন  করে তাতে  কোন ফল না পেয়ে অবশেষে নিরুপায় হয়ে এ বিষয়ে বুড়িচং সহকারী জজ কুমিল্লা আদালতে গত ০৬/০২/২০২০ ইং তারিখে মামলা করেন।
মামলার নং ১১/২০২০, উক্ত মামলা মাননীয় সহকারী জজ বুড়িচং আদালত  কুমিল্লা মামলায় সমন জারি করেন।  গত ০১/০৩/২০২০ ইং তারিখে বুড়িচং রেজিঃ ডাক নং ১০০০ এর মাধ্যমে কুমিল্লা জেলা শিক্ষা অফিসারকে পুনরায়  আবেদন করি।
এবিষয়ে গত ০২/০৩/২০২০ ইং তারিখে বুড়িচং থানায় ৭৭ নং একটি জিডি করি এবং গত ০৯/০৮/২০২০ ইং তারিখে সিআর ২৬০/২০ নং মামলা করিলে বিবাদি পক্ষ ক্ষিপ্ত হলে গত ০৮/০৯/২০২০ ইং তারিখে ২৮১ নং আরেকটি জিডি করি।
উক্ত জিডির আলোকে বুড়িচং থানার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী ২নং আদালতে তদন্তের জন্য অনুমতি নিয়ে এ পর্যন্ত বুড়িচং থানা তদন্ত প্রতিবেদন এ যাবৎ দেন নাই। অপর দিকে আমার জান মালের ক্ষয়ক্ষতি করার জন্য বিভিন্ন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকা অবস্থায়  গত ০৩/০৯/২০২০ইং তারিখে কুমিল্লা পুলিশ সুপারকে আবেদন করলে পুলিশ সুপার স্মারক নং ৪২১২ এর  মাধ্যমে বুড়িচং থানা তদন্তের  জন্য প্রেরণ করেন। উল্লেখিত আবেদনের ও যথাযথ কোন ব্যবস্থা এ যাবৎ স্থানীয় থানা  প্রশাসন নেননি।
অপরদিকে নিষেধাজ্ঞা ১১/২০ মামলায় কাওলা দাতা ৫ জনের মধ্যে ৩ জন কাওলার স্বাক্ষার দিয়েছেন বলে  জবাব দেন, অন্য ১ জন জাল স্বাক্ষার  বলে জবাব দেন, অন্য একজন জবাব থেকে বিরত থাকেন। পিআর ১৪৫ ধারা ৪৩১/২০ মামলায় থানা তদন্তে রিপোর্ট  বাদীর বিপক্ষে দেন আবার পিআর ১৪১৮/২০ মামলায় থানা তদন্ত বাদীর পক্ষে দেন। জাল দলিলে ২০৬/২০ সিআর মামলায় হারার ভয় দেখিয়ে আপোষ করার ক্ষেত্রে বাদীর ভাই ১ নং সাক্ষী বিপক্ষে কাজ করলেও মামলা খারিজ করে দেন।ফলে ১ নং সাক্ষী নিরুপায় হয়ে ২৪৮/২০ আপীল মামলা করলে তাও খারিজ করে দিলে অবশেষে সিআর ২৩৩/২১ জেলা জজ আদালতে জাল দলিলের আপিল মামলা রেকড হয়ে চলমান আছে।
এবিষয়ে গত ০৩/০৯/২০২০ ইং তারিখে এলজিইডি কুমিল্লা নির্বাহীকে আবেদন করে এ যাবৎ কোন ফল হয় নাই।  স্থানীয় ইউএনও সাবিনা ইয়াসমিন তদন্ত করতে গিয়ে জাল দলিল ও জাল খতিয়ানের প্রমাণ পেয়েও পুনরায় বরাদ্দ অনুমোদনের ব্যবস্থা করেন বলে জানা যায়। ইউএনও তদন্ত শেষে মামলার বাদী সাংবাদিক ও শিক্ষক মোঃ মোকবুল হোসেন ভুইয়াকে হামলায় আহত ও নাজেহাল ঘটনায় ৮৩/ ২০২১ ডিবি তদন্তে উৎকোচ নিয়ে মিথ্যা মনগড়া সাজানো রির্পোট দিলে বাদী তাতে আপত্তি দিলে বিচারক পূনরয়া বুড়িচং থানাকে তদন্ত করার জন্য আদেশ দেন।
১১/২০ মামলায় কমিশন রির্পোট বাদীর পক্ষে হলেও জাল দলিলে মিডিয়েশন করার জন্য বাদীকে বিচারক অতি উৎসাহিত করলে বাদী তাতে রাজি না হয়ে টিপি মামলায় করলে বিচারক মোঃ  কামাল উদ্দিন বাদীকে আদালতে নাজেহাল ভাষা কথা বলে বাদীকে লান্চিত করেন বলে জানা যায়।
বাদী সাংবাদিক মোঃ মোকবুল হোসেন ভুইয়ার পিতার সাথে জাতির পিতা শেখ মুজিবর রহমান ও মাওঃ আবদুল হামিদ খান ভাষানী দেখা করে রাত্রিযাপন করেন এবং বাদী মোকবুল হোসেন ভুইয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জেল হাজত বাস থেকে মুক্তির জন্য তত্ত্বাবধারক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা নিকট আবেদন করেছিলেন।
দুঃজনক হলেও সত্য যে আওয়ামী লীগ সমর্থক হাওয়ার কারনে অন্য সরকারের আমলে বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের শিকার হন আবার বর্তমান দলীয় সরকারের আমলোও ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এ জন্য কি দেশ স্বাধীন হয়েছিল?
এবিষয় প্রয়োজনীয় তদন্ত ব্যবস্তা গ্রহণ করতে সরকারের উপর মহলে সাংবাদিক ও শিক্ষক মোঃ মোকবুল হোসেন ভুইয়া জোর দাবী জানিয়েছেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

মেহেন্দিগঞ্জে কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্য পুলিশের হাতে আটক।

বুড়িচং প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের ঘুটির জোর কোথায় 

আপডেট সময় ০৬:০৭:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ৭ মার্চ ২০২২
বুড়িচং (কুমিল্লা) প্রতিনিধি : 
কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ৫ নং পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের মধ্য শ্যামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এসব হচ্ছে কী?।
১৫ জনের সিএস এবং আর এস ও বি এস খতিয়ান ভূক্ত বাড়িকে নাল বানিয়ে  ষড়যন্ত্র করে মাত্র পাঁচ জনে বিদ্যালয়ের নামে ৩৩ শতক জমি কাওলা দেয়। এই পাঁচজনের মধ্যে ৪ জনেরই স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে জমি দাতার শিক্ষক প্রার্থীকে গুরুত্ব না দিয়ে প্রচুর অর্থ বানিজ্য করে শিক্ষক নিয়োগ করেছে। প্রাথমিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক বিস্তারে গত ০৪/০৩/১৯৯৭ ইং তারিখের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি মতে দাতা অগ্রাধিকার হিসাবে কুলছুল আক্তার এবং রোকসানা আক্তার আবেদন করেন। তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার কাজী সহিদ নির্দিষ্ট সময়ে  নিয়োগ পরীক্ষা না নিয়ে অনিয়মভাবে শিক্ষক নিয়োগ করেছে।
এবিষয়ে গত ২১/১২/১৯৯৭ ইং তারিখে বুড়িচং থানা শিক্ষা অফিসার কাজী সহিদ কে আবেদন করেও কোন ফল পাওয়া যায়নি। গত ০৫/০৭/২০১০ইং তারিখে জাল দাতা সদস্য মোকবুল হোসেনের আবেদন  মতে সরকারি ৩০ হাজার টাকা জাল দাতা সদস্যের রেজুলেশন স্বাক্ষর জাল করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা আলেয়া বেগম টাকা উত্তোলন করার মত ঘটনা বুড়িচং উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের তদন্তে প্রমাণিত আছে। গত ১৪/১২/২০১০ ইং তারিখে জমির মালিক নাছির উদ্দীন জাল কাওলা সম্পর্কে বুড়িচং উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সিরাজুল ইসলাম খন্দকারকে আবেদন করলে  তা আমলে না নিয়ে প্রচুর অর্থ বানিজ্য করে অনিয়মকে আবারোও  সহযোগিতা করেছে।
জাল কাওলা সম্পর্কে গত ২০/০৪/২০১১ ইং তারিখে জমির বৈধ মালিক মিজানুর রহমানের উকিল নোটিশ করলে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা ও বুড়িচং প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার পুনরায় আর্থিক বানিজ্য করে অনিয়মকে সহযোগিতা করে পাল্টা উকিল নোটিশ প্রধান করে যা অবৈধ।গত ০৯/০৩/২০১১ ইং তারিখে জমির মালিক বেলায়েত হোসেন পরিচালক কোইকা প্রকল্প বার্ড কুমিল্লাকে জাল দলিল সম্পর্কে আবেদন অবগত করলেও পুনরায় উপযুক্ত অর্থ বানিজ্য নিয়েছে।
অবশেষে গত ০৪/০৩/২০১৭ ইং তারিখে বুড়িচং  রেজিঃ ডাক নং ৮৮৮ এর মাধ্যমে বুড়িচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে বুড়িচং রেজি ডাক নং ৮৮৯ এর মাধ্যমে  জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার কুমিল্লাকে ও বুড়িচং রেজিঃ ডাক নং ৮৮৭ এর মাধ্যমে দুদক ঢাকাকে জাল দলিল সম্পর্কে অবগত করেন এবং স্থানীয় কুমিল্লার কয়েকটি পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করেও  অনিয়মকে বন্ধ করতে পারে নাই।
জমির মালিকরা গরিব ও অসহায় বলে মামলা করতে সাহস পায় না। বর্তমানে সরকারের প্রায় ৭০ লক্ষ টাকার দালান ঘর উক্ত জাল দলিলের স্থানে এবং দলিলের বাহিরে অন্য পুকুর দাগে সরকারের টাকা আত্মসাৎ ও অপচয় করার পায়তারা করছে। স্থানীয় কামাল উদ্দিন ওরফে সুন্দর আলী, ডাঃ আবু মূসা ভূইয়া পিতা:- আবদুল খালেক, মো:ইকবাল হোসেন পিতাঃ-আঃছিদ্দিকুর রহমান সাং- দক্ষিণ শ্যামপুর, গং ব্যক্তিরা।
এবিষয়ে গত ০৪/১২/২০২০ ইং তারিখে জমির মালিক সাংবাদিক মোকবুল হোসেন ভূইয়া বুড়িচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃমোজাম্মেল হক (পিপিএম)কে অভিযোগ জানালে ওসি সাহেব তাৎক্ষণিকভাবে এসআই সুজয় কুমার মজুমদার সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনা স্থলে পরিদর্শন করে এবং স্থানীয় পত্রিকার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন। তদন্তে  এসআই সুজয় কুমার মজুমদার আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেন।
এ বিষয়ে একই দিন বুড়িচং উপজেলার প্রকৌশলী অনুপ কুমার কে লিখিত অভিযোগটি দেয়া হয় এবং ০৬/০২/২০২০ ইং তারিখে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রৌশনারাকে লিখিত অভিযোগটি দেয়া হয় ও ০৮/০২/২০২০ ইং তারিখে পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের  জাহের চেয়ারম্যানকে অবগতি কপি দেওয়া হয় এবং অবশেষে ০৮/০২/২০২০ ইং তারিখে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে আবেদন কপি দিলে তিনি প্রয়োজনীয় তদন্ত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রৌশনা আরা কে সুপারিশ করে কপি প্রেরন  করে তাতে  কোন ফল না পেয়ে অবশেষে নিরুপায় হয়ে এ বিষয়ে বুড়িচং সহকারী জজ কুমিল্লা আদালতে গত ০৬/০২/২০২০ ইং তারিখে মামলা করেন।
মামলার নং ১১/২০২০, উক্ত মামলা মাননীয় সহকারী জজ বুড়িচং আদালত  কুমিল্লা মামলায় সমন জারি করেন।  গত ০১/০৩/২০২০ ইং তারিখে বুড়িচং রেজিঃ ডাক নং ১০০০ এর মাধ্যমে কুমিল্লা জেলা শিক্ষা অফিসারকে পুনরায়  আবেদন করি।
এবিষয়ে গত ০২/০৩/২০২০ ইং তারিখে বুড়িচং থানায় ৭৭ নং একটি জিডি করি এবং গত ০৯/০৮/২০২০ ইং তারিখে সিআর ২৬০/২০ নং মামলা করিলে বিবাদি পক্ষ ক্ষিপ্ত হলে গত ০৮/০৯/২০২০ ইং তারিখে ২৮১ নং আরেকটি জিডি করি।
উক্ত জিডির আলোকে বুড়িচং থানার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী ২নং আদালতে তদন্তের জন্য অনুমতি নিয়ে এ পর্যন্ত বুড়িচং থানা তদন্ত প্রতিবেদন এ যাবৎ দেন নাই। অপর দিকে আমার জান মালের ক্ষয়ক্ষতি করার জন্য বিভিন্ন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকা অবস্থায়  গত ০৩/০৯/২০২০ইং তারিখে কুমিল্লা পুলিশ সুপারকে আবেদন করলে পুলিশ সুপার স্মারক নং ৪২১২ এর  মাধ্যমে বুড়িচং থানা তদন্তের  জন্য প্রেরণ করেন। উল্লেখিত আবেদনের ও যথাযথ কোন ব্যবস্থা এ যাবৎ স্থানীয় থানা  প্রশাসন নেননি।
অপরদিকে নিষেধাজ্ঞা ১১/২০ মামলায় কাওলা দাতা ৫ জনের মধ্যে ৩ জন কাওলার স্বাক্ষার দিয়েছেন বলে  জবাব দেন, অন্য ১ জন জাল স্বাক্ষার  বলে জবাব দেন, অন্য একজন জবাব থেকে বিরত থাকেন। পিআর ১৪৫ ধারা ৪৩১/২০ মামলায় থানা তদন্তে রিপোর্ট  বাদীর বিপক্ষে দেন আবার পিআর ১৪১৮/২০ মামলায় থানা তদন্ত বাদীর পক্ষে দেন। জাল দলিলে ২০৬/২০ সিআর মামলায় হারার ভয় দেখিয়ে আপোষ করার ক্ষেত্রে বাদীর ভাই ১ নং সাক্ষী বিপক্ষে কাজ করলেও মামলা খারিজ করে দেন।ফলে ১ নং সাক্ষী নিরুপায় হয়ে ২৪৮/২০ আপীল মামলা করলে তাও খারিজ করে দিলে অবশেষে সিআর ২৩৩/২১ জেলা জজ আদালতে জাল দলিলের আপিল মামলা রেকড হয়ে চলমান আছে।
এবিষয়ে গত ০৩/০৯/২০২০ ইং তারিখে এলজিইডি কুমিল্লা নির্বাহীকে আবেদন করে এ যাবৎ কোন ফল হয় নাই।  স্থানীয় ইউএনও সাবিনা ইয়াসমিন তদন্ত করতে গিয়ে জাল দলিল ও জাল খতিয়ানের প্রমাণ পেয়েও পুনরায় বরাদ্দ অনুমোদনের ব্যবস্থা করেন বলে জানা যায়। ইউএনও তদন্ত শেষে মামলার বাদী সাংবাদিক ও শিক্ষক মোঃ মোকবুল হোসেন ভুইয়াকে হামলায় আহত ও নাজেহাল ঘটনায় ৮৩/ ২০২১ ডিবি তদন্তে উৎকোচ নিয়ে মিথ্যা মনগড়া সাজানো রির্পোট দিলে বাদী তাতে আপত্তি দিলে বিচারক পূনরয়া বুড়িচং থানাকে তদন্ত করার জন্য আদেশ দেন।
১১/২০ মামলায় কমিশন রির্পোট বাদীর পক্ষে হলেও জাল দলিলে মিডিয়েশন করার জন্য বাদীকে বিচারক অতি উৎসাহিত করলে বাদী তাতে রাজি না হয়ে টিপি মামলায় করলে বিচারক মোঃ  কামাল উদ্দিন বাদীকে আদালতে নাজেহাল ভাষা কথা বলে বাদীকে লান্চিত করেন বলে জানা যায়।
বাদী সাংবাদিক মোঃ মোকবুল হোসেন ভুইয়ার পিতার সাথে জাতির পিতা শেখ মুজিবর রহমান ও মাওঃ আবদুল হামিদ খান ভাষানী দেখা করে রাত্রিযাপন করেন এবং বাদী মোকবুল হোসেন ভুইয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জেল হাজত বাস থেকে মুক্তির জন্য তত্ত্বাবধারক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা নিকট আবেদন করেছিলেন।
দুঃজনক হলেও সত্য যে আওয়ামী লীগ সমর্থক হাওয়ার কারনে অন্য সরকারের আমলে বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের শিকার হন আবার বর্তমান দলীয় সরকারের আমলোও ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এ জন্য কি দেশ স্বাধীন হয়েছিল?
এবিষয় প্রয়োজনীয় তদন্ত ব্যবস্তা গ্রহণ করতে সরকারের উপর মহলে সাংবাদিক ও শিক্ষক মোঃ মোকবুল হোসেন ভুইয়া জোর দাবী জানিয়েছেন।