বাংলাদেশ ০৮:৫১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
জণগণের পাশে ছিলাম, আছি এবং আজীবন থাকবো-অ্যাড. অরুনাংশু দত্ত টিটো দোকানের বাকির টাকা দিতে দেরি করায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে যখম, থানায় অভিযোগ।  সকল দলের মানুষের সেবক হিসেবে পাশে থাকতে চাই- অধ্যক্ষ সইদুল হক  পিরোজপুরে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা টিভি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে ঘোড়া মার্কার প্রার্থীকে জরিমানা রায়গঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে জামরুল ফল বিদেশী মদসহ ০৩ জন কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। সরকারের অনিচ্ছাতেই উচ্চ শিক্ষায় স্বদেশি ভাষা চালু হয়নি: ড. সলিমুল্লাহ খান রাজশাহীতে ৩০ ছাত্রকে বলাৎকার করে ভিডিও ধারণ করেন শিক্ষক ওয়াকেল ঠাকুরগাঁওয়ে উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে জেলা আওয়ামী রাজনীতিতে বিভক্তি হওয়ার আশঙ্কা রাজশাহীর পুঠিয়ায় তিন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সম্পদশালী মাসুদ পুঠিয়া উপজেলায় নির্বাচন: চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীদের কার সম্পদ কত? রাজশাহী মহানগরীতে চেকপোস্টে দুই পুলিশ পিটিয়ে আহত! দুইভাই আটক কাউনিয়ায় লিগ্যাল এইড সার্ভিসেস ট্রাস্ট এর সভা অনুষ্ঠিত ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি মামলার আসামী নাজিবুল ইসলাম নাজিমকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। উল্লাপাড়ায় সড়ক দূর্ঘনায় ১ জনের মৃত্যু 

ঝিনাইদহে পিঁয়াজের বাজার ধসে দিশেহারা কৃষক।

ঝিনাইদহে পিঁয়াজের বাজার ধসে দিশেহারা কৃষক।

মোঃ জাকির হোসেন ঝিনাইদহ (শৈলকুপা) প্রতিনিধি।
 ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলায় এ বছর ৫০ হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের চাষ করা হয়, বৈরী আবহাওয়া ও মৌসুমি বৃষ্টি সাথে পিঁয়াজের বাজর ধসে কৃষকদের মাঝে পিঁয়াজের ন্যায্য মূল্য না পাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।
শৈলকুপা উপজেলার কয়েকটি উল্লেখযোগ্য বাজারের মধ্যে লাঙ্গলবাঁধ অন্যতম। শৈলকুপা, শ্রীপুর ও পাংশা উপজেলার মোহনায় লাঙ্গলবাঁধ বাজার অবস্থিত। শিল্প বাণিজ্যের প্রধান কেন্দ্র বিন্দু হচ্ছে লাঙ্গল বাঁধ। মৌসুমের প্রাথমিক সূচনালগ্নেই লাঙ্গলবাঁধ বাজারে প্রচুর পিঁয়াজের আমদানি হয়েছে ফলে পিঁয়াজের দাম ও ছিল মানুষের নাগালের মধ্যে।
প্রতি মন পিঁয়াজ ১২০০ থেকে ১৪০০ টাকা মন দরে বিক্রি হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে উপজেলা কৃষকদের মধ্যে এক ধরনের উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে কারণ তারা পিঁয়াজের যে মূল্য আশা করছিল সেই আশানুরূপ বাজার মূল্য থেকে বঞ্চিত হয়েছে।
লাঙ্গলবাঁধ পিঁয়াজ ব্যবসায়ী দের কাছ থেকে শৈলকুপা উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ জাকির হোসেন জানতে পারেন উপজেলায় প্রচুর পিঁয়াজ চাষের ফলশ্রুতিতে বাজারে দেশি ও উন্নত জাতের পিঁয়াজের প্রচুর আমদানি হয়েছে ফলে পিঁয়াজের বাজার অনেকটাই শিথিল হয়ে গেছে।
স্থানীয় কৃষক মোঃ খায়রুল খাঁ ও মোশাররফ হোসেন সাথে কথা বলে জানা যায় এবছর টাতে পিঁয়াজের চাষ অনেকটা ব্যয়বহুল ছিল। পিঁয়াজ রোপণে সার, কিটনাশক, জমি সেছ ও পিঁয়াজ লাগানোর মজুরি ছিল অনেক বেশি! ফলশ্রুতিতে কৃষকদের পিঁয়াজ রোপণে প্রতি শতাংশে ১৪০০ থেকে ১৫০০ টাকা ব্যয় সাধিত হয়েছে।
কিন্তু হঠাৎ পেঁয়াজের বাজার ধসে কৃষকদের মধ্যে এক প্রকার হতাশা সৃষ্টি হয়েছে যে তারা পেঁয়াজ চাষের  মূল খরচ উঠাতে পারবে কি না। প্রান্তিক পেঁয়াজ চাষি আলমগীর হোসেন ও ফুরাদ শেখ বলেন পেঁয়াজ আমাদের এ মৌসুমের একমাত্র ফসল যা দিয়ে আমরা আমাদের পরিবারের পারিবারিক চাহিদা ও অর্থনৈতিক চাহিদা পূরন করে থাকি কিন্তু এতো অল্প দামে পেঁয়াজ  বিক্রি ও পেঁয়াজের বাজার ভালো না হওয়ায় ফলশ্রুতিতে কিছুদিন পরে আমরা এবং আমাদের পরিবারকে পথে বসতে হবে। কিবরিয়া বিশ্বাস, সাজ্জাদ শেখ ও বিশারত শেখ বলেন সরকার যদি মৌসুমে ভারতীয় পেঁয়াজ  আমদানি বন্ধ করে তাহলে হয়তো পেঁয়াজের বাজার  ভালো হতে পারে।
অধিকাংশ কৃষকদের অভিমত সরকারের সঠিক পদক্ষেপ ও  মৌসুমে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ করলেয় হয়তো  কৃষকরা তাদের ক্ষতি অনেকটা লাঘব করতে পারবে। পরিশেষে  কৃষক বাঁচলে বাঁচবে দেশ এই স্লোগান কে সামনে রেখে  কৃষকদের  স্বার্থে কাজ করে যেতে হবে।
জনপ্রিয় সংবাদ

জণগণের পাশে ছিলাম, আছি এবং আজীবন থাকবো-অ্যাড. অরুনাংশু দত্ত টিটো

ঝিনাইদহে পিঁয়াজের বাজার ধসে দিশেহারা কৃষক।

আপডেট সময় ০৯:০৯:২২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৬ মার্চ ২০২২
মোঃ জাকির হোসেন ঝিনাইদহ (শৈলকুপা) প্রতিনিধি।
 ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলায় এ বছর ৫০ হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের চাষ করা হয়, বৈরী আবহাওয়া ও মৌসুমি বৃষ্টি সাথে পিঁয়াজের বাজর ধসে কৃষকদের মাঝে পিঁয়াজের ন্যায্য মূল্য না পাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।
শৈলকুপা উপজেলার কয়েকটি উল্লেখযোগ্য বাজারের মধ্যে লাঙ্গলবাঁধ অন্যতম। শৈলকুপা, শ্রীপুর ও পাংশা উপজেলার মোহনায় লাঙ্গলবাঁধ বাজার অবস্থিত। শিল্প বাণিজ্যের প্রধান কেন্দ্র বিন্দু হচ্ছে লাঙ্গল বাঁধ। মৌসুমের প্রাথমিক সূচনালগ্নেই লাঙ্গলবাঁধ বাজারে প্রচুর পিঁয়াজের আমদানি হয়েছে ফলে পিঁয়াজের দাম ও ছিল মানুষের নাগালের মধ্যে।
প্রতি মন পিঁয়াজ ১২০০ থেকে ১৪০০ টাকা মন দরে বিক্রি হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে উপজেলা কৃষকদের মধ্যে এক ধরনের উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে কারণ তারা পিঁয়াজের যে মূল্য আশা করছিল সেই আশানুরূপ বাজার মূল্য থেকে বঞ্চিত হয়েছে।
লাঙ্গলবাঁধ পিঁয়াজ ব্যবসায়ী দের কাছ থেকে শৈলকুপা উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ জাকির হোসেন জানতে পারেন উপজেলায় প্রচুর পিঁয়াজ চাষের ফলশ্রুতিতে বাজারে দেশি ও উন্নত জাতের পিঁয়াজের প্রচুর আমদানি হয়েছে ফলে পিঁয়াজের বাজার অনেকটাই শিথিল হয়ে গেছে।
স্থানীয় কৃষক মোঃ খায়রুল খাঁ ও মোশাররফ হোসেন সাথে কথা বলে জানা যায় এবছর টাতে পিঁয়াজের চাষ অনেকটা ব্যয়বহুল ছিল। পিঁয়াজ রোপণে সার, কিটনাশক, জমি সেছ ও পিঁয়াজ লাগানোর মজুরি ছিল অনেক বেশি! ফলশ্রুতিতে কৃষকদের পিঁয়াজ রোপণে প্রতি শতাংশে ১৪০০ থেকে ১৫০০ টাকা ব্যয় সাধিত হয়েছে।
কিন্তু হঠাৎ পেঁয়াজের বাজার ধসে কৃষকদের মধ্যে এক প্রকার হতাশা সৃষ্টি হয়েছে যে তারা পেঁয়াজ চাষের  মূল খরচ উঠাতে পারবে কি না। প্রান্তিক পেঁয়াজ চাষি আলমগীর হোসেন ও ফুরাদ শেখ বলেন পেঁয়াজ আমাদের এ মৌসুমের একমাত্র ফসল যা দিয়ে আমরা আমাদের পরিবারের পারিবারিক চাহিদা ও অর্থনৈতিক চাহিদা পূরন করে থাকি কিন্তু এতো অল্প দামে পেঁয়াজ  বিক্রি ও পেঁয়াজের বাজার ভালো না হওয়ায় ফলশ্রুতিতে কিছুদিন পরে আমরা এবং আমাদের পরিবারকে পথে বসতে হবে। কিবরিয়া বিশ্বাস, সাজ্জাদ শেখ ও বিশারত শেখ বলেন সরকার যদি মৌসুমে ভারতীয় পেঁয়াজ  আমদানি বন্ধ করে তাহলে হয়তো পেঁয়াজের বাজার  ভালো হতে পারে।
অধিকাংশ কৃষকদের অভিমত সরকারের সঠিক পদক্ষেপ ও  মৌসুমে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ করলেয় হয়তো  কৃষকরা তাদের ক্ষতি অনেকটা লাঘব করতে পারবে। পরিশেষে  কৃষক বাঁচলে বাঁচবে দেশ এই স্লোগান কে সামনে রেখে  কৃষকদের  স্বার্থে কাজ করে যেতে হবে।