বাংলাদেশ ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
তালতলীর খালাকে হত্যার পর কানের রিং বিক্রি করে খুনিকে টাকা দেয় ভাগ্নে কলাপাড়ায় এক সন্তানের জননীকে ধর্ষন চেষ্টার অভিযোগ নতুন কারিকুলাম বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সুপারিশ রাঙ্গাবালীতে মৎস্য ব্যবসায়ী রাসাদ হত্যাকারীর ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন। পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরনকে কেন্দ্র করে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মিলন মেলায় পরিনত  নাটোরের বড়াইগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরণ। পঞ্চগড়ের বোদায় ট্যাপেন্ডাডল ট্যাবলেটসহ ২ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। রায়গঞ্জের বিভিন্ন গাছে গাছে দেখা যাচ্ছে আমের মুকুল মুক্তিযোদ্বা প্রজন্ম লীগ সভাপতিকে কুপিয়ে জখমকে কেন্দ্র করে পিরোজপুর শহরে উত্তেজনা রাবিতে চাঁদপুর পরিবারের নেতৃত্বে ইমন-রাহিম ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ইঞ্জিঃ পিলাব মল্লিক (গোল্ডেন) -এর সংবাদ  সম্মেলন    ঝালকাঠিতে ৮টি গাঁজাগাছ ও ১৫পিস ইয়াবাসহ আটক-২ ঝালকাঠির নবগ্রামের শতবর্ষী রেইন্ট্রি গাছ নিয়ে গুনাই বিবি নাটকের রূপ কথার গল্প চার শিশুর জন্ম দিল এক মা। শিশুরা সবাই সুস্থ আছেন। ভান্ডারিয়ায় ৯৬ হাজার স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণে শুভ উদ্বোধন

হোসেনপুরে পানচাষে বাজিমাৎ 

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:২৮:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ ডিসেম্বর ২০২৩
  • ১৬০২ বার পড়া হয়েছে

হোসেনপুরে পানচাষে বাজিমাৎ 

মাহফুজ রাজা, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:
কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে আবাদি উঁচু জমিতে, বাড়ির পাশে এবং বিভিন্ন গাছে বা বাড়ির আঙিনায় পান চাষে আগ্রহ বাড়ছে চাষিদের। এতে স্বাবলম্বী হচ্ছেন এলাকার অনেক দরিদ্র পরিবার।এক সময় ইউনিয়নজুড়ে দেখা যেত ধানখেত, এখন সেখানে চোখে পড়ে পানের বরজ।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, চলতি বছর উপজেলায় ১২হেক্টর জমিতে পানের আবাদ হয়েছে। এর প্রতি একর জমিতে পানের উৎপাদন ব্যয় পাঁচ-ছয় লাখ টাকা, আর তা বিক্রি হয় ১০-১২ লাখ টাকায়। উপজেলায় সুরাটি, হারেঞ্জা ও বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ৫শ পান চাষি রয়েছে।
উপজেলার ৬ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় বিভিন্ন গ্রাম অঞ্চলে অসংখ্য পানের বরজ রয়েছে। এখানকার উৎপাদিত পান উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ হচ্ছে পার্শ্ববর্তী পাকুন্দিয়া, নান্দাইল ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়। এরই মধ্যে উপজেলা পানপল্লী খ্যাত সুরাটি, সিদলা, জাহাঙ্গীর পুর, পিতলগঞ্জ, বরুয়া, হারেঞ্জাসহ বিভিন্ন এলাকার মানুষ পান চাষ করে বদলে দিয়েছে গোটা উপজেলার পরিবেশ। ওই উপজেলার পান চাষি তার শ্রম কাজে লাগিয়ে পান চাষ করে বদলে দিচ্ছে তাদের পরিবারের ভাগ্য।
শুক্রবার  সিদলা ইউনিয়নের সুরাটি গিয়ে দেখা গেছে, মাঠের পর মাঠ পানের বরজ, কেউ খেত থেকে পান তুলছেন, কেউ করছেন খেতের পরিচর্যা। কথা হয় সুরাটি গ্রামের পানচাষি তমিজ মিয়ার সঙ্গে। তিনি বলেন, পান আমার কষ্ট দূর করছে। এখন গোয়ালে গরু আছে, ডুলিভরা ধান, আর খেতভরা পান আছে। সবমিলে আমার সুখের সংসার।
এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ  একে এম সাহজাহান কবির জানান, পান লাভজনক হওয়ায় এ অঞ্চলে পান চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এবার উৎপাদিত পান থেকে প্রচুর আয় হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এ ছাড়াও পান চাষ করতে গিয়ে কৃষক কোনো রকমের সমস্যার সম্মুখীন হলে তাদের পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করে থাকেন বলেও জানান তিনি।
জনপ্রিয় সংবাদ

তালতলীর খালাকে হত্যার পর কানের রিং বিক্রি করে খুনিকে টাকা দেয় ভাগ্নে

হোসেনপুরে পানচাষে বাজিমাৎ 

আপডেট সময় ০৪:২৮:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ ডিসেম্বর ২০২৩
মাহফুজ রাজা, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:
কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে আবাদি উঁচু জমিতে, বাড়ির পাশে এবং বিভিন্ন গাছে বা বাড়ির আঙিনায় পান চাষে আগ্রহ বাড়ছে চাষিদের। এতে স্বাবলম্বী হচ্ছেন এলাকার অনেক দরিদ্র পরিবার।এক সময় ইউনিয়নজুড়ে দেখা যেত ধানখেত, এখন সেখানে চোখে পড়ে পানের বরজ।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, চলতি বছর উপজেলায় ১২হেক্টর জমিতে পানের আবাদ হয়েছে। এর প্রতি একর জমিতে পানের উৎপাদন ব্যয় পাঁচ-ছয় লাখ টাকা, আর তা বিক্রি হয় ১০-১২ লাখ টাকায়। উপজেলায় সুরাটি, হারেঞ্জা ও বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ৫শ পান চাষি রয়েছে।
উপজেলার ৬ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় বিভিন্ন গ্রাম অঞ্চলে অসংখ্য পানের বরজ রয়েছে। এখানকার উৎপাদিত পান উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ হচ্ছে পার্শ্ববর্তী পাকুন্দিয়া, নান্দাইল ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়। এরই মধ্যে উপজেলা পানপল্লী খ্যাত সুরাটি, সিদলা, জাহাঙ্গীর পুর, পিতলগঞ্জ, বরুয়া, হারেঞ্জাসহ বিভিন্ন এলাকার মানুষ পান চাষ করে বদলে দিয়েছে গোটা উপজেলার পরিবেশ। ওই উপজেলার পান চাষি তার শ্রম কাজে লাগিয়ে পান চাষ করে বদলে দিচ্ছে তাদের পরিবারের ভাগ্য।
শুক্রবার  সিদলা ইউনিয়নের সুরাটি গিয়ে দেখা গেছে, মাঠের পর মাঠ পানের বরজ, কেউ খেত থেকে পান তুলছেন, কেউ করছেন খেতের পরিচর্যা। কথা হয় সুরাটি গ্রামের পানচাষি তমিজ মিয়ার সঙ্গে। তিনি বলেন, পান আমার কষ্ট দূর করছে। এখন গোয়ালে গরু আছে, ডুলিভরা ধান, আর খেতভরা পান আছে। সবমিলে আমার সুখের সংসার।
এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ  একে এম সাহজাহান কবির জানান, পান লাভজনক হওয়ায় এ অঞ্চলে পান চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এবার উৎপাদিত পান থেকে প্রচুর আয় হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এ ছাড়াও পান চাষ করতে গিয়ে কৃষক কোনো রকমের সমস্যার সম্মুখীন হলে তাদের পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করে থাকেন বলেও জানান তিনি।