বাংলাদেশ ০৩:৫৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
জবিতে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মের নতুন কমিটির দায়িত্ব গ্রহণ  মুলাদীতে নিজস্ব অর্থায়নে সামাজিক উন্নয়ন করে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন ইউপি সদস্য ইরান হোসেন॥ ভালুকায় প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ জয়ঝাপ যুব সমাজের উদ্যোগে ১৫তম মাহফিল অনুষ্ঠিত। সাংবাদিক জিগারুল ইসলাম রাঙ্গুনিয়ার মদিনাতুল উলুম মাদ্রাসার সভাপতি নির্বাচিত। পার্বতীপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে বিশিষ্ট সাংবাদিক আতিকুর রহমান আতিকের জোর তৎপরতা॥ ফুলবাড়ীতে কুকুরের কামড়ে ৮টি ছাগলে মৃত্যু বদলগাছীতে অভিনব কায়দায় লুকায়িত ৭২ কেজি গাঁজা উদ্ধার গ্রেফতার-১  ভালুকায় যুবলীগ নেতাকে ফাসানোর চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত  রাবির ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতির নেতৃত্বে জুলিয়া-মমিন বুড়িচংয়ে আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা  শিক্ষার্থীদের অনলাইন সেবা দিতে আমতলী সোনালী ব্যাংকের চুক্তিপত্র স্বাক্ষর রাবি ফটোগ্রাফিক ক্লাবের সভাপতি রেজওয়ান, সম্পাদক নাজমুল কার মদদে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অবৈধ ট্রলি?রামগঞ্জে নিষিদ্ধ ট্রাক্টরের দাপট বিলিন হচ্ছে ফসলি জমি প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদক ভূষিত হলেন গলাচিপা থানার ওসি ফেরদৌস খান

আজ বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস

আজ বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস

স্বীকৃতি বিশ্বাস 
সাবেক মার্কিস প্রেসিডেন্ট জন এফ. কেনেডি ১৯৬২ সালের ১৫ মার্চ ভোক্তাদের স্বার্থ রক্ষার বিষয়ে নিরাপত্তার অধিকার, তথ্যপ্রাপ্তির অধিকার, পছন্দের অধিকার এবং অভিযোগ প্রদানের অধিকার এই ৪ টি মৌলিক অধিকার সম্পর্কে আলোকপাত করেন।
বিশিষ্ট পরিবেশবাদী ও ভোক্তাদের অধিকার বিষয়ে আন্দোলনে সোচ্চার মালয়েশিয়ার আনোয়ার ফজলকে ভোক্তা অধিকার দিবসের রূপকার হিসাবে গণ্য করা হয়। ১৯৮৩ সালের ১৫ মার্চ ভোক্তা সংগঠনগুলোর মাধ্যমে ভোক্তাদের মৌলিক অধিকার সম্পর্কে সচেতন করার উদ্দেশ্য নিয়ে সারা বিশ্বে দিবসটি পালনের আহ্বান জানানো হয়।  যা পরবর্তী সময়ে ভোক্তা আধিকার আইন হিসাবে স্বীকৃতি পায়।
১৯৮৫ সালে জাতিসংঘের মাধ্যমে জাতিসংঘ ভোক্তা অধিকার রক্ষার নীতিমালায় কেনেডি বর্ণিত চারটি মৌলিক অধিকারকে আরো বিস্তৃত করে অতিরিক্ত আরো আটটি মৌলিক অধিকার সংযুক্ত করা হয়। আর তাই  সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট কেনেডি’র ভাষণের দিনকে স্মরণীয় করে রাখতে ১৫ মার্চকে বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস হিসেবে বৈশ্বিকভাবে উদ্‌যাপন করা হয়।
ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ অনুযায়ী, ক্রেতা যেসব বিষয়ে আইনের আশ্রয় নিতে পারেন, তা হলো বিক্রেতার পণ্যের মোড়ক ব্যবহার না করা, মূল্যতালিকা প্রদর্শন না করা, সেবার তালিকা সংরক্ষণ ও প্রদর্শন না করা, অধিক মূল্যে পণ্য বিক্রয় করা, পণ্য মজুত করা, ভেজাল পণ্য বিক্রয়, খাদ্যপণ্যে নিষিদ্ধ দ্রব্যের মিশ্রণ, অবৈধ প্রক্রিয়ায় উৎপাদন খাদ্য বাজারে সরবরাহ ইত্যাদি।
ভোক্তা অধিকার দিবসটি পালন  উপলক্ষে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও নানা কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। দিবসটির এ বছরের প্রতিপাদ্য- ডিজিটাল আর্থিক ব্যবস্থায় ন্যায্যতা।
বাংলাদেশে ভোক্তা অধিকার আইন আছে কিন্তু প্রয়োগের ক্ষেত্রে রয়েছে নানা ধরনের জটিলতা। বাজারে গিয়ে দেখা যায় পণ্যের মোড়ক নাই আবার মোড়ক থাকলেও মোড়কের গায়ে মূল্য লেখা নেই। কোন কোন ক্ষেত্রে মূল্য লেখা থাকলেও তৈরীর তারিখ ও বাজেয়াপ্তির তারিখ অস্পষ্ট। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় মূল্য তালিকা নেই। ফলে একই জিনিসের দাম বিভিন্ন দোকানে কম/বেশি নেওয়া হয়।ফলে ভোক্তারা সব সময় বিক্রেতার নিকট ও পণ্যের মান নিয়ে চিন্তিত থাকতে হয়।
বাংলাদেশে ভোক্তারা সব সময় সিন্ডিকেটের কবলে পড়ে ঠকতে থাকে।ভোক্তা অধিকার নিয়ে সরকারের ভোক্তা অধিকার আইন যেমন আছে তেমনি আছে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের অফিস। ভোক্তা আধিকার অফিস ও অফিসের কর্মকর্তা থাকলেও বাজার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে তাদের কোন মাথা ব্যাথা নেই, সিন্ডিকেট ভাঙার কোন প্রয়াসও নেই।
বিশ্বের উন্নত দেশে ব্যবসা বা বাজার নিয়ন্ত্রণ করে সরকার। আর আমাদের দেশে বাজার নিয়ন্ত্রণ করে ব্যবসায়ীরা। এ ছাড়া আমাদের বাংলাদেশের সরকারের দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যক্তিদের কথা শুনে মনে হয় সরকারও যেন কোন এক অদৃশ্য কারণে ভোক্তাদের অধিকার নিশ্চিত অনেকাংশে অনিহা।
জনপ্রিয় সংবাদ

জবিতে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মের নতুন কমিটির দায়িত্ব গ্রহণ 

আজ বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস

আপডেট সময় ০৮:২৮:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ মার্চ ২০২২
স্বীকৃতি বিশ্বাস 
সাবেক মার্কিস প্রেসিডেন্ট জন এফ. কেনেডি ১৯৬২ সালের ১৫ মার্চ ভোক্তাদের স্বার্থ রক্ষার বিষয়ে নিরাপত্তার অধিকার, তথ্যপ্রাপ্তির অধিকার, পছন্দের অধিকার এবং অভিযোগ প্রদানের অধিকার এই ৪ টি মৌলিক অধিকার সম্পর্কে আলোকপাত করেন।
বিশিষ্ট পরিবেশবাদী ও ভোক্তাদের অধিকার বিষয়ে আন্দোলনে সোচ্চার মালয়েশিয়ার আনোয়ার ফজলকে ভোক্তা অধিকার দিবসের রূপকার হিসাবে গণ্য করা হয়। ১৯৮৩ সালের ১৫ মার্চ ভোক্তা সংগঠনগুলোর মাধ্যমে ভোক্তাদের মৌলিক অধিকার সম্পর্কে সচেতন করার উদ্দেশ্য নিয়ে সারা বিশ্বে দিবসটি পালনের আহ্বান জানানো হয়।  যা পরবর্তী সময়ে ভোক্তা আধিকার আইন হিসাবে স্বীকৃতি পায়।
১৯৮৫ সালে জাতিসংঘের মাধ্যমে জাতিসংঘ ভোক্তা অধিকার রক্ষার নীতিমালায় কেনেডি বর্ণিত চারটি মৌলিক অধিকারকে আরো বিস্তৃত করে অতিরিক্ত আরো আটটি মৌলিক অধিকার সংযুক্ত করা হয়। আর তাই  সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট কেনেডি’র ভাষণের দিনকে স্মরণীয় করে রাখতে ১৫ মার্চকে বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস হিসেবে বৈশ্বিকভাবে উদ্‌যাপন করা হয়।
ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ অনুযায়ী, ক্রেতা যেসব বিষয়ে আইনের আশ্রয় নিতে পারেন, তা হলো বিক্রেতার পণ্যের মোড়ক ব্যবহার না করা, মূল্যতালিকা প্রদর্শন না করা, সেবার তালিকা সংরক্ষণ ও প্রদর্শন না করা, অধিক মূল্যে পণ্য বিক্রয় করা, পণ্য মজুত করা, ভেজাল পণ্য বিক্রয়, খাদ্যপণ্যে নিষিদ্ধ দ্রব্যের মিশ্রণ, অবৈধ প্রক্রিয়ায় উৎপাদন খাদ্য বাজারে সরবরাহ ইত্যাদি।
ভোক্তা অধিকার দিবসটি পালন  উপলক্ষে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও নানা কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। দিবসটির এ বছরের প্রতিপাদ্য- ডিজিটাল আর্থিক ব্যবস্থায় ন্যায্যতা।
বাংলাদেশে ভোক্তা অধিকার আইন আছে কিন্তু প্রয়োগের ক্ষেত্রে রয়েছে নানা ধরনের জটিলতা। বাজারে গিয়ে দেখা যায় পণ্যের মোড়ক নাই আবার মোড়ক থাকলেও মোড়কের গায়ে মূল্য লেখা নেই। কোন কোন ক্ষেত্রে মূল্য লেখা থাকলেও তৈরীর তারিখ ও বাজেয়াপ্তির তারিখ অস্পষ্ট। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় মূল্য তালিকা নেই। ফলে একই জিনিসের দাম বিভিন্ন দোকানে কম/বেশি নেওয়া হয়।ফলে ভোক্তারা সব সময় বিক্রেতার নিকট ও পণ্যের মান নিয়ে চিন্তিত থাকতে হয়।
বাংলাদেশে ভোক্তারা সব সময় সিন্ডিকেটের কবলে পড়ে ঠকতে থাকে।ভোক্তা অধিকার নিয়ে সরকারের ভোক্তা অধিকার আইন যেমন আছে তেমনি আছে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের অফিস। ভোক্তা আধিকার অফিস ও অফিসের কর্মকর্তা থাকলেও বাজার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে তাদের কোন মাথা ব্যাথা নেই, সিন্ডিকেট ভাঙার কোন প্রয়াসও নেই।
বিশ্বের উন্নত দেশে ব্যবসা বা বাজার নিয়ন্ত্রণ করে সরকার। আর আমাদের দেশে বাজার নিয়ন্ত্রণ করে ব্যবসায়ীরা। এ ছাড়া আমাদের বাংলাদেশের সরকারের দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যক্তিদের কথা শুনে মনে হয় সরকারও যেন কোন এক অদৃশ্য কারণে ভোক্তাদের অধিকার নিশ্চিত অনেকাংশে অনিহা।