বাংলাদেশ ০৭:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
১৫ দিনের ঈদযাত্রায় ২৯৪ প্রাণের মৃত্যুমিছিল : সেভ দ্য রোড উপজেলা নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রীদের স্বজনদের প্রার্থীতা প্রত্যাহারের নির্দেশ কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীর আজহারুল কে ফেন্সিডিল ও ইয়াবা ট্যাবলেটসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ফুলবাড়ীতে তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির স্মরণসভা শ্যালিকার সঙ্গে পরকীয়ার জেরে দুলাভাইকে নৃশংসভাবে হত্যার মামলার আসামি আশারুল তার প্রধান সহযোগী ইলিয়াস ও খায়রুল কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। পঞ্চগড়ে কৃষিভিত্তিক কারখানায়, দূর হচ্ছে বেকারত্ব হত্যা মামলার মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি মামুনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। নাটোরে বাগাতিপাড়ায় পূর্ব শত্রুতার জেরে যুবককে কুপিয়ে হত্যা! মধুপুরে অবৈধভাবে মাটিকাটার অপরাধে ১লক্ষ টাকা জরিমানা  পেকুয়ায় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত শের-ই- বাংলা পাবলিক লাইব্রেরীতে পিরোজপুর সাহিত্য পরিষদের ঈদপূনর্মিলনী অনুষ্ঠিত সিংড়া উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী’কে শোকজ করল আ.লীগ যশোরে তিনদিন ব্যাপী চিত্র প্রদর্শনী শুরু  এক পিস ডাবের দাম ১৮০ টাকা! সার্বজনীন পেনশন স্কিম নিবন্ধনে ‘রাজশাহী’ এগিয়ে
বোয়ালখালীর জৈষ্ঠ্যপুরায় আবারো হাতি - রাত নামলেই যেন মৃত‍্যু ভয় তাড়া করে ওদের

বোয়ালখালীর জৈষ্ঠ্যপুরায় আবারো হাতি – রাত নামলেই যেন মৃত‍্যু ভয় তাড়া করে ওদের

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১১:৩৬:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • ১৬৮৯ বার পড়া হয়েছে

বোয়ালখালীর জৈষ্ঠ্যপুরায় আবারো হাতি - রাত নামলেই যেন মৃত‍্যু ভয় তাড়া করে ওদের

 

 

 

 

 

এম মনির চৌধুরী রানা

সূর্য তখন ডুবু-ডবু ভাব। যে সময় সুন্দর সূর্যাস্ত বা শান্ত প্রকৃতির মুক্ত বাতাস সেবনের জন‍্য গ্রামীণ পথে ঘাটে এলাকাবাসির ঘুরে বেড়ানো, খেলাধুলায় ছোটদের হৈ-হুল্লোড় করে এলাকা মাতিয়ে তোলার কথা সে সময় এলাকাটি একেবারে শুনশান। পথ ঘাট একদম ফাকাঁ। দোকানপাট বন্ধ। ক্ষেত-খামার,কাজ-কর্ম ফেলেই লোকজন ঘরে ঢুকে গেছে অনেক আগেই। আগন্তুুকদের ডাক শুনেই জানালার ফাকঁ ফোকর দিয়ে উকি দিচ্ছে বাড়ির লোকজন। চোখে-মুখে ভীতির ভাব। কি যেন তাড়া করছে তাদের। নির্ভয়ের অনুরোধে বেড়িয়ে আসে কয়েকজন।

কারণ জানতে চাইলে তারা বলেন। গত এক সপ্তাহ ধরে ঘুম নেই তাদের চোখে। প্রতি রাতেই হাতি নেমে আসে এলাকায়। মানুষ না পেলে তছনছ করে ক্ষেত খামার ,ঘর-বাড়ি। গোলা ভেঙ্গে খেয়ে যাচ্ছে ধান। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে এলাকার নিপুন মেম্বার বাড়ীতে তান্ডব চালিয়ে কারো কোন ক্ষতি করতে না পেরে গোলা ভেঙ্গে ধানের কিছু খেয়েছে বাকীগুলো নষ্ট করে দিয়েছে। গৃহকর্তা নিপুন দে জানান শেষ রাতে হঠাৎ বিকট শব্দ শুনে ঘুম ভেঙ্গে যায় সবার।

জানালার ফাকঁ দিয়ে দেখি একটা হাতি দরজা ঠেলছে। ঘুম থেকে জেগে ঘরের সবাই দৌড়ে ছাদে উঠে যাই। উকি দিয়ে দেখি হাতিটি গোলা ভেঙ্গে ধান খাওয়া শুরু করেছে। গোলায় আমার ৪০/৫০ আড়ি ধানের মধ‍্যে কিছু খেয়েছে বাকিগুলো নষ্ট করে দিয়ে চলে গেছে। যাতে আমি প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছি। এলাকার ছবি বসু বলেন- ক্ষেত-খামারের আয় দিয়ে আমার সংসার চলে। গতকাল সকালে বেগুন ক্ষেতে গিয়ে দেখি সব শেষ।

যেন দৈত্য নেমেছে। হাতির পা দিয়ে দুমড়ে -মুচড়ে দিয়েছে সব। প্রায় ২০/৩০ হাজার টাকার বেগুন ক্ষেত নিমেষেই শেষ করে দিয়েছে হাতির দল। শুধু ছবি বসু কিংবা নিপুণ মেম্বার নয়। ঘটনাস্থলে উপস্হিত রুপন দে আরতি দেব,রত্না নন্দী ও মীরা দে এরা সবাই বলেন আগে এলাকার অনেককেই পায়ে পিষ্ট করে মেরেছে হাতি। মাঝখানে কিছুদিন বিরতির পর গত সপ্তাহ খানেক ধরে হঠাৎ বেড়েছে উপদ্রব। রাত হলেই পাশ্ববর্তী পাহাড় থেকে নেমে আসছে হাতি। সারারাত তান্ডব চালিয়ে ভোরে ফিরে যাচ্ছে। ভয়ে সূর্যাস্তের সাথে-সাথেই ঘরে ঢুকে যাচ্ছে এলাকার মানুষ।

কখন কার ঘর আক্রমণ করে এ ভয়ে রাতভর নির্ঘুম রাত কাঠাতে হচ্ছ। একরাত দু’রাত নয় গত প্রায় এক সপ্তাহ ধরেই চলে আসছে এ অবস্হা। নির্ঘুম তাদের দু’চোখ যেন প্রশ্ন করেই যাচ্ছে এভাবে আর কত রাত। এলাকাবাসির অভিযোগ ঘটনাটি স্হানিয় প্রশাসনকে জানিয়েছে তারা অনেকবার, কিন্তু কোন প্রতিকার নেই।স্হানিয় চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোকারম ঘটনার সত‍্যতা স্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন সরকারি নিষেধ থাকায় কিছু পদ্ধতি দিয়ে হাতিকে তাড়ানো ছাড়া অন‍্য কিছু করার নেই। কয়েকজনকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে তারা চেষ্টা করে যাচ্ছে। তারপরও এখন প্রতিদিন হাতি নেমে তান্ডব চালাচ্ছে। অন‍্য এক প্রশ্নের জবাবে ক্ষতিগ্রস্হদের ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে বলে জানান। তবে ক্ষতিপূরণ নয় এর থেকে নিস্তার চান এলাকাবাসি।

 

 

 

 

জনপ্রিয় সংবাদ

১৫ দিনের ঈদযাত্রায় ২৯৪ প্রাণের মৃত্যুমিছিল : সেভ দ্য রোড

বোয়ালখালীর জৈষ্ঠ্যপুরায় আবারো হাতি - রাত নামলেই যেন মৃত‍্যু ভয় তাড়া করে ওদের

বোয়ালখালীর জৈষ্ঠ্যপুরায় আবারো হাতি – রাত নামলেই যেন মৃত‍্যু ভয় তাড়া করে ওদের

আপডেট সময় ১১:৩৬:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২২

 

 

 

 

 

এম মনির চৌধুরী রানা

সূর্য তখন ডুবু-ডবু ভাব। যে সময় সুন্দর সূর্যাস্ত বা শান্ত প্রকৃতির মুক্ত বাতাস সেবনের জন‍্য গ্রামীণ পথে ঘাটে এলাকাবাসির ঘুরে বেড়ানো, খেলাধুলায় ছোটদের হৈ-হুল্লোড় করে এলাকা মাতিয়ে তোলার কথা সে সময় এলাকাটি একেবারে শুনশান। পথ ঘাট একদম ফাকাঁ। দোকানপাট বন্ধ। ক্ষেত-খামার,কাজ-কর্ম ফেলেই লোকজন ঘরে ঢুকে গেছে অনেক আগেই। আগন্তুুকদের ডাক শুনেই জানালার ফাকঁ ফোকর দিয়ে উকি দিচ্ছে বাড়ির লোকজন। চোখে-মুখে ভীতির ভাব। কি যেন তাড়া করছে তাদের। নির্ভয়ের অনুরোধে বেড়িয়ে আসে কয়েকজন।

কারণ জানতে চাইলে তারা বলেন। গত এক সপ্তাহ ধরে ঘুম নেই তাদের চোখে। প্রতি রাতেই হাতি নেমে আসে এলাকায়। মানুষ না পেলে তছনছ করে ক্ষেত খামার ,ঘর-বাড়ি। গোলা ভেঙ্গে খেয়ে যাচ্ছে ধান। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে এলাকার নিপুন মেম্বার বাড়ীতে তান্ডব চালিয়ে কারো কোন ক্ষতি করতে না পেরে গোলা ভেঙ্গে ধানের কিছু খেয়েছে বাকীগুলো নষ্ট করে দিয়েছে। গৃহকর্তা নিপুন দে জানান শেষ রাতে হঠাৎ বিকট শব্দ শুনে ঘুম ভেঙ্গে যায় সবার।

জানালার ফাকঁ দিয়ে দেখি একটা হাতি দরজা ঠেলছে। ঘুম থেকে জেগে ঘরের সবাই দৌড়ে ছাদে উঠে যাই। উকি দিয়ে দেখি হাতিটি গোলা ভেঙ্গে ধান খাওয়া শুরু করেছে। গোলায় আমার ৪০/৫০ আড়ি ধানের মধ‍্যে কিছু খেয়েছে বাকিগুলো নষ্ট করে দিয়ে চলে গেছে। যাতে আমি প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছি। এলাকার ছবি বসু বলেন- ক্ষেত-খামারের আয় দিয়ে আমার সংসার চলে। গতকাল সকালে বেগুন ক্ষেতে গিয়ে দেখি সব শেষ।

যেন দৈত্য নেমেছে। হাতির পা দিয়ে দুমড়ে -মুচড়ে দিয়েছে সব। প্রায় ২০/৩০ হাজার টাকার বেগুন ক্ষেত নিমেষেই শেষ করে দিয়েছে হাতির দল। শুধু ছবি বসু কিংবা নিপুণ মেম্বার নয়। ঘটনাস্থলে উপস্হিত রুপন দে আরতি দেব,রত্না নন্দী ও মীরা দে এরা সবাই বলেন আগে এলাকার অনেককেই পায়ে পিষ্ট করে মেরেছে হাতি। মাঝখানে কিছুদিন বিরতির পর গত সপ্তাহ খানেক ধরে হঠাৎ বেড়েছে উপদ্রব। রাত হলেই পাশ্ববর্তী পাহাড় থেকে নেমে আসছে হাতি। সারারাত তান্ডব চালিয়ে ভোরে ফিরে যাচ্ছে। ভয়ে সূর্যাস্তের সাথে-সাথেই ঘরে ঢুকে যাচ্ছে এলাকার মানুষ।

কখন কার ঘর আক্রমণ করে এ ভয়ে রাতভর নির্ঘুম রাত কাঠাতে হচ্ছ। একরাত দু’রাত নয় গত প্রায় এক সপ্তাহ ধরেই চলে আসছে এ অবস্হা। নির্ঘুম তাদের দু’চোখ যেন প্রশ্ন করেই যাচ্ছে এভাবে আর কত রাত। এলাকাবাসির অভিযোগ ঘটনাটি স্হানিয় প্রশাসনকে জানিয়েছে তারা অনেকবার, কিন্তু কোন প্রতিকার নেই।স্হানিয় চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোকারম ঘটনার সত‍্যতা স্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন সরকারি নিষেধ থাকায় কিছু পদ্ধতি দিয়ে হাতিকে তাড়ানো ছাড়া অন‍্য কিছু করার নেই। কয়েকজনকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে তারা চেষ্টা করে যাচ্ছে। তারপরও এখন প্রতিদিন হাতি নেমে তান্ডব চালাচ্ছে। অন‍্য এক প্রশ্নের জবাবে ক্ষতিগ্রস্হদের ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে বলে জানান। তবে ক্ষতিপূরণ নয় এর থেকে নিস্তার চান এলাকাবাসি।