বাংলাদেশ ১২:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
পীরগঞ্জে বিশেষ অভিযানে জুয়ারী সহ ১৩জন গ্রেফতার। সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী উম্মে কুলসুম ধর্ষণ মামলার আসামী রনিকে গ্রেফতার। কুষ্টিয়ায় এক সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলা বাবুগঞ্জে এসএসসি কৃতকার্য ছাত্রী ধর্ষিতা অবশেষে পুত্র সন্তানের মা হলেন চট্টগ্রামে নির্ধারিত সময়ের আগেই কোরবানির পশুর বর্জ্যমুক্ত তানোর পৌর বাসীকে ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আওয়ামীলীগ নেতা সুজন রাঙ্গাবালীতে ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা। রাঙ্গাবালী সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা। বেলাল চেয়ারম্যানের ঈদ শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা হত-দরিদ্রের মাঝে রাবি ছাত্রলীগের ইদ উপহার বিতরণ চট্টগ্রামে ঈদুল আজহা উপকরনে কিনতে ব্যস্থ কোরবানিরা প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ভিজিএফ চাল বিতরণে অনিয়ম, তথ্য সংগ্রহ কালে সাংবাদিককে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে জুতা মারার হুমকি। উত্তরবঙ্গের টিকেট কালোবাজারি চক্রের প্রধান দুই সদস্য নুরুজ্জামান ও জাহাঙ্গীর আলমকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। রংপুরের পীরগঞ্জে ইয়াবা, জুয়ারী,ও ওয়ারেন্টের আসামী সহ ৮জনকে আটক করে পীরগঞ্জ থানা পুলিশ পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জনপ্রিয় নেতা এহসাম হাওলাদার

কিশোরগঞ্জে কচু চাষে কৃষক দেখছে সফলতার মুখ।বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে কচু।

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৭:২০:২৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৯ মার্চ ২০২২
  • ১৭৪৬ বার পড়া হয়েছে

কিশোরগঞ্জে কচু চাষে কৃষক দেখছে সফলতার মুখ।বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে কচু।

মাহফুজ রাজা,কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ;
কিশোরগঞ্জের চাষীরা কচু ও কচুর লতি চাষে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পথ খুঁজে পেয়েছে। এমনকি দেশ ছাড়িয়ে বিদেশেও স্বাদ ছড়িয়ে পড়েছে কিশোরগঞ্জের কচু ও কচুর লতির। জেলার উৎপাদিত কচু ও কচুর লতি রপ্তানি হচ্ছে ইউরোপের যুক্তরাজ্য ও ইতালি এবং সৌদি আরব, কুয়েত, কাতারসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে। এখানকার কচু ও লতি সুস্বাদু হওয়ায় দেশ-বিদেশে কদর বাড়ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। আর উৎপাদন খরচ এবং পরিশ্রমের তুলনায় বেশি লাভ পাওয়ায় কচু চাষে আগ্রহও বাড়ছে কৃষকদের।
কৃষকরা জানান, এক বিঘা কচু চাষে তাদের খরচ হয় হাজার বিশেক টাকার মতো। যা কচুর লতি বিক্রি করেই ওঠে আসে সেই খরচ। লাভের অংশ হিসেবে প্রতি বিঘা জমির কচু বিক্রি করা যায় ন্যূনতম ৮০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা।
অন্যদিকে সবজিটির প্রচুর চাহিদা থাকায়, জমি থেকে তুলে স্থানীয় বিভিন্ন বাজারে নেয়া মাত্রই তা বিক্রি হয়ে যায় বলেও জানিয়েছেন কৃষকেরা। দেশের বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ীরা এখানকার বাজারগুলো থেকে প্রতিদিন এসে কচু ও লতি কিনে নিয়ে যান।
কিশোরগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, কিশোরগঞ্জের মাটি কচু চাষের জন্য উপযোগী হওয়ায় প্রায় প্রতিটি উপজেলাতেই কচুর আবাদ হচ্ছে। এ জেলায় সাদা ও নারকেলি-এই দুই জাতের কচুর আবাদ হয়ে থাকে। চলতি বছর জেলায় ৪৭৫ হেক্টর জমিতে কচুর আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। চলতি বছর ১০ হাজার ৪৯৮ মেট্রিক টন কচু উৎপাদিত হয়েছে। কচু চার মাস মেয়াদি সময়ের ফসল হওয়ায়, কচুর ফলন তুলে খুব সহজেই রোপা আমন ধানের চাষাবাদ করতে পারেন স্থানীয় কৃষকরা।
কিশোরগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ উপ-পরিচালক মোঃ সাইফুল আলম জানান, কচু চাষে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণসহ নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় কৃষি অফিস। বিষমুক্ত কচু উৎপাদনে সেক্স ফেরোমন ফাঁদসহ চাষপদ্ধতি সম্পর্কে কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।
তিনি জানান, আগামীতে এ এলাকায় উৎপাদন আরো বাড়বে বলে আশা করছেন তারা। আর বিদেশী রপ্তানি হওয়ায় কৃষকরাও লাভবান হচ্ছেন বলেও জানান তিনি।
জনপ্রিয় সংবাদ

পীরগঞ্জে বিশেষ অভিযানে জুয়ারী সহ ১৩জন গ্রেফতার।

কিশোরগঞ্জে কচু চাষে কৃষক দেখছে সফলতার মুখ।বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে কচু।

আপডেট সময় ০৭:২০:২৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৯ মার্চ ২০২২
মাহফুজ রাজা,কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ;
কিশোরগঞ্জের চাষীরা কচু ও কচুর লতি চাষে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পথ খুঁজে পেয়েছে। এমনকি দেশ ছাড়িয়ে বিদেশেও স্বাদ ছড়িয়ে পড়েছে কিশোরগঞ্জের কচু ও কচুর লতির। জেলার উৎপাদিত কচু ও কচুর লতি রপ্তানি হচ্ছে ইউরোপের যুক্তরাজ্য ও ইতালি এবং সৌদি আরব, কুয়েত, কাতারসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে। এখানকার কচু ও লতি সুস্বাদু হওয়ায় দেশ-বিদেশে কদর বাড়ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। আর উৎপাদন খরচ এবং পরিশ্রমের তুলনায় বেশি লাভ পাওয়ায় কচু চাষে আগ্রহও বাড়ছে কৃষকদের।
কৃষকরা জানান, এক বিঘা কচু চাষে তাদের খরচ হয় হাজার বিশেক টাকার মতো। যা কচুর লতি বিক্রি করেই ওঠে আসে সেই খরচ। লাভের অংশ হিসেবে প্রতি বিঘা জমির কচু বিক্রি করা যায় ন্যূনতম ৮০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা।
অন্যদিকে সবজিটির প্রচুর চাহিদা থাকায়, জমি থেকে তুলে স্থানীয় বিভিন্ন বাজারে নেয়া মাত্রই তা বিক্রি হয়ে যায় বলেও জানিয়েছেন কৃষকেরা। দেশের বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ীরা এখানকার বাজারগুলো থেকে প্রতিদিন এসে কচু ও লতি কিনে নিয়ে যান।
কিশোরগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, কিশোরগঞ্জের মাটি কচু চাষের জন্য উপযোগী হওয়ায় প্রায় প্রতিটি উপজেলাতেই কচুর আবাদ হচ্ছে। এ জেলায় সাদা ও নারকেলি-এই দুই জাতের কচুর আবাদ হয়ে থাকে। চলতি বছর জেলায় ৪৭৫ হেক্টর জমিতে কচুর আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। চলতি বছর ১০ হাজার ৪৯৮ মেট্রিক টন কচু উৎপাদিত হয়েছে। কচু চার মাস মেয়াদি সময়ের ফসল হওয়ায়, কচুর ফলন তুলে খুব সহজেই রোপা আমন ধানের চাষাবাদ করতে পারেন স্থানীয় কৃষকরা।
কিশোরগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ উপ-পরিচালক মোঃ সাইফুল আলম জানান, কচু চাষে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণসহ নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় কৃষি অফিস। বিষমুক্ত কচু উৎপাদনে সেক্স ফেরোমন ফাঁদসহ চাষপদ্ধতি সম্পর্কে কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।
তিনি জানান, আগামীতে এ এলাকায় উৎপাদন আরো বাড়বে বলে আশা করছেন তারা। আর বিদেশী রপ্তানি হওয়ায় কৃষকরাও লাভবান হচ্ছেন বলেও জানান তিনি।