বাংলাদেশ ০৬:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
উপজেলা নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রীদের স্বজনদের প্রার্থীতা প্রত্যাহারের নির্দেশ কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীর আজহারুল কে ফেন্সিডিল ও ইয়াবা ট্যাবলেটসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ফুলবাড়ীতে তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির স্মরণসভা হত্যা মামলার মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি মামুনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। নাটোরে বাগাতিপাড়ায় পূর্ব শত্রুতার জেরে যুবককে কুপিয়ে হত্যা! মধুপুরে অবৈধভাবে মাটিকাটার অপরাধে ১লক্ষ টাকা জরিমানা  পেকুয়ায় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত শের-ই- বাংলা পাবলিক লাইব্রেরীতে পিরোজপুর সাহিত্য পরিষদের ঈদপূনর্মিলনী অনুষ্ঠিত সিংড়া উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী’কে শোকজ করল আ.লীগ যশোরে তিনদিন ব্যাপী চিত্র প্রদর্শনী শুরু  এক পিস ডাবের দাম ১৮০ টাকা! সার্বজনীন পেনশন স্কিম নিবন্ধনে ‘রাজশাহী’ এগিয়ে ভান্ডারিয়ায় ঐতিহ্যবাহী ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগিতা দেখতে দর্শনার্থীদের ঢল বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধ কটিয়াদীতে ভাতিজার হাতে চাচা খুন শিক্ষক আবু তালেবের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া

আন্তর্জাতিক নারী দিবস

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৯:১৩:৩৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ মার্চ ২০২২
  • ১৮৯৭ বার পড়া হয়েছে
স্বীকৃতি বিশ্বাস 
“বিশ্বে যা- কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর অর্ধেক তার করিয়াছি নারী, অর্ধেক তার নর।”-সৃষ্টির শুরু থেকে অদ্যাবধি নারী ও পুরুষ একে অপরের পরিপূরক। সৃষ্টি ছাড়া এ জগৎ অকল্পনীয়। সৃষ্টিকে যদি জানতে বা মানতে হয় তাহলে নারী শক্তিকে জানতে হবে। সকল সৃষ্টির আধার হচ্ছে নারী। আমরা যদি আদিম যুগেও ফিরে যাই তাহলে দেখব জীবন – জীবিকা ও বেঁচে থাকার তাগিদে যে কৃষি কাজের সূচনা হয়েছিল তারও আদ্যশক্তি ছিল এই নারী। নারী শক্তি ছাড়া এ জগৎ সত্যি অকল্পনীয়। নারী প্রতিটি মানুষের প্রেরণারও উৎস। সকাল থেকে ঘুমানোর পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত নিজের হাজারো কাজের মধ্যে সন্তানসহ পরিবারের প্রতিটি সদস্যেকে পরম মমতায় আগলে রাখে। অথচ সেই নারীর পারিবারিক, সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক সাংস্কৃতিক ও কর্মক্ষেত্রে তার কাজের অবদানকে প্রতিষ্ঠিত করতে একটি নির্দিষ্ট দিবসকে উপলক্ষ্য করে পালন করতে হয় যা সত্যিই কষ্টের ও বেদনার।
তেমনিই একটি কষ্ট ও বেদনাদায়ক দিন মার্চ মাসের ০৮ তারিখ।সারা বিশ্বব্যাপি নারীপুরুষ নির্বিশেষে একটি প্রধান উপলক্ষ্য হিসাবে এই দিবসটি পালন করে থাকেন যা আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসাবে খ্যাত। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে নারীদিবস পালনের প্রধান লক্ষ্য বিভিন্ন। কোথাও নারীর প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা দিবসটি পালনের মূখ্য বিষয় আবার কোথাওবা মহিলাদের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠার বিষয় গুলি গুরুত্ব পায়।
 এই দিবসটি উদযাপনের পিছনে রয়েছে নারী শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামের ইতিহাস। ১৮৫৭ সালে মজুরি বৈষম্য, কর্মঘন্টা নির্দিষ্ট করা, কাজের অমানবিক পরিবেশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের রাস্তায় নেমেছিলেন সুতা কারখানার নারী শ্রমিকেরা। আর সেই মিছিলে চলে সরকারি লাঠিয়াল বাহিনীর দমন-পীড়ন। ১৯০৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি নিউইয়র্কের সোশ্যালডেমোক্র্যাট নারী সংগঠনের পক্ষ থেকে আয়োজিত নারী সমাবেশে সর্বপ্রথম আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন হয়।
এরপর ১৯১০ সালে ডেনমার্কের কোপেন হেগেনে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন এবং  ১৭ টি দেশ থেকে ১০০ জন নারী প্রতিনিধি এতে যোগ দেয়। এ সম্মেলনে জার্মান রাজনীতিবিদ ও জার্মান কমিউনিস্ট পার্টির ক্লারা প্রতি বছর ০৮ মার্চকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন করার প্রস্তাব দেন। সিদ্ধান্ত হয় ১৯১১ সাল থেকে নারীদের সম-অধিকার দিবস হিসাবে দিনটি পালিত হবে। ১৯১৪ সাল থেকে বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে ০৮ মার্চ পালিত হতে লাগলো।
বাংলাদেশে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা লাভের পূর্ব থেকেই দিবসটি পালিত হতে  শুরু করে। অতঃপর ১৯৭৫ সালের ০৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসাবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়।দিবসটি পালনের জন্য জাতিসংঘ বিভিন্ন রাষ্ট্রকে আহ্বান জানায়।এরপর থেকে সারা পৃথিবী জুড়ে দিবসটি পালিত হচ্ছে নারীর সমাধিকার আদায়ের প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করার অভিপ্রায় নিয়ে।
প্রতি বছরই পৃথক পৃথক মূল বিষয় নিয়ে দিবসটি পালিত হয়।শুধুমাত্র ১৯৯৬ সালে নির্দিষ্ট থিম নিয়ে আন্তর্জাতিক নারী দিবসটি পালিত হয়েছিল। এ বছরের নারী দিবসে জাতিসংঘের স্লোগান ‘নারীর সুস্বাস্থ্য ও জাগরণ’। এই মূল প্রতিপাদ্যের আলোকে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবছর আন্তর্জাতিক নারী দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে- “টেকসই আগামীর জন্য, জেন্ডার সমতাই আজ অগ্রগণ্য।”
নারীর প্রতি সবরকম বৈষম্য ও অন্যায়-অবিচারের অবসান ঘটিয়ে একটি সুখী, সমৃদ্ধ ও গণতান্ত্রিক বিশ্ব গড়ার কাজে, টেকসই সামাজিক ভিত্তি গড়ার জন্য নারী পুরুষ সমতার বিকল্প নেই।পুরুষের ন্যায় সমান অবদান রাখার প্রত্যয় নিয়ে নারীদের এগিয়ে চলা আরও বেগবান হোক। বিশেষত সিদ্ধান্ত গ্রহন ও নীতি নির্ধারণে মহিলারাও যাতে সমান অংশীদার হতে পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখাই শুধু নয় পরিস্থিতির চাহিদা অনুযায়ী, সাম্যের ভবিষ্যৎ গড়ায় যাতে সমান অবদান রাখতে পারে সেবিষয়ে সচেষ্ট থাকা।
আন্তর্জাতিক নারী দিবসের মধ্য দিয়ে নারীত্বের অধিকারের বিষয় তুলে ধরা হয়। জাতি, ধর্ম, বর্ণ, ভাষা, সংস্কৃতি, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ভেদাভেদ ভুলে মহিলাদের কৃতিত্বকে স্বীকৃতি জানানোর জন্য দিবসটি পালিত হয়। এই দিনে প্রত্যেক নারীর অধিকার ও জেন্ডার সমতার বিষয়ে সচেতন করে তোলা হয়। পাশাপাশি মহিলাদের লড়াইয়ের গতি সঞ্চার করার জন্য উদ্বুদ্ধ করাও দিবসটি পালনের অন্যতম উদ্দেশ্য।
জনপ্রিয় সংবাদ

উপজেলা নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রীদের স্বজনদের প্রার্থীতা প্রত্যাহারের নির্দেশ

আন্তর্জাতিক নারী দিবস

আপডেট সময় ০৯:১৩:৩৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ মার্চ ২০২২
স্বীকৃতি বিশ্বাস 
“বিশ্বে যা- কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর অর্ধেক তার করিয়াছি নারী, অর্ধেক তার নর।”-সৃষ্টির শুরু থেকে অদ্যাবধি নারী ও পুরুষ একে অপরের পরিপূরক। সৃষ্টি ছাড়া এ জগৎ অকল্পনীয়। সৃষ্টিকে যদি জানতে বা মানতে হয় তাহলে নারী শক্তিকে জানতে হবে। সকল সৃষ্টির আধার হচ্ছে নারী। আমরা যদি আদিম যুগেও ফিরে যাই তাহলে দেখব জীবন – জীবিকা ও বেঁচে থাকার তাগিদে যে কৃষি কাজের সূচনা হয়েছিল তারও আদ্যশক্তি ছিল এই নারী। নারী শক্তি ছাড়া এ জগৎ সত্যি অকল্পনীয়। নারী প্রতিটি মানুষের প্রেরণারও উৎস। সকাল থেকে ঘুমানোর পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত নিজের হাজারো কাজের মধ্যে সন্তানসহ পরিবারের প্রতিটি সদস্যেকে পরম মমতায় আগলে রাখে। অথচ সেই নারীর পারিবারিক, সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক সাংস্কৃতিক ও কর্মক্ষেত্রে তার কাজের অবদানকে প্রতিষ্ঠিত করতে একটি নির্দিষ্ট দিবসকে উপলক্ষ্য করে পালন করতে হয় যা সত্যিই কষ্টের ও বেদনার।
তেমনিই একটি কষ্ট ও বেদনাদায়ক দিন মার্চ মাসের ০৮ তারিখ।সারা বিশ্বব্যাপি নারীপুরুষ নির্বিশেষে একটি প্রধান উপলক্ষ্য হিসাবে এই দিবসটি পালন করে থাকেন যা আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসাবে খ্যাত। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে নারীদিবস পালনের প্রধান লক্ষ্য বিভিন্ন। কোথাও নারীর প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা দিবসটি পালনের মূখ্য বিষয় আবার কোথাওবা মহিলাদের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠার বিষয় গুলি গুরুত্ব পায়।
 এই দিবসটি উদযাপনের পিছনে রয়েছে নারী শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামের ইতিহাস। ১৮৫৭ সালে মজুরি বৈষম্য, কর্মঘন্টা নির্দিষ্ট করা, কাজের অমানবিক পরিবেশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের রাস্তায় নেমেছিলেন সুতা কারখানার নারী শ্রমিকেরা। আর সেই মিছিলে চলে সরকারি লাঠিয়াল বাহিনীর দমন-পীড়ন। ১৯০৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি নিউইয়র্কের সোশ্যালডেমোক্র্যাট নারী সংগঠনের পক্ষ থেকে আয়োজিত নারী সমাবেশে সর্বপ্রথম আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন হয়।
এরপর ১৯১০ সালে ডেনমার্কের কোপেন হেগেনে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন এবং  ১৭ টি দেশ থেকে ১০০ জন নারী প্রতিনিধি এতে যোগ দেয়। এ সম্মেলনে জার্মান রাজনীতিবিদ ও জার্মান কমিউনিস্ট পার্টির ক্লারা প্রতি বছর ০৮ মার্চকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন করার প্রস্তাব দেন। সিদ্ধান্ত হয় ১৯১১ সাল থেকে নারীদের সম-অধিকার দিবস হিসাবে দিনটি পালিত হবে। ১৯১৪ সাল থেকে বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে ০৮ মার্চ পালিত হতে লাগলো।
বাংলাদেশে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা লাভের পূর্ব থেকেই দিবসটি পালিত হতে  শুরু করে। অতঃপর ১৯৭৫ সালের ০৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসাবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়।দিবসটি পালনের জন্য জাতিসংঘ বিভিন্ন রাষ্ট্রকে আহ্বান জানায়।এরপর থেকে সারা পৃথিবী জুড়ে দিবসটি পালিত হচ্ছে নারীর সমাধিকার আদায়ের প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করার অভিপ্রায় নিয়ে।
প্রতি বছরই পৃথক পৃথক মূল বিষয় নিয়ে দিবসটি পালিত হয়।শুধুমাত্র ১৯৯৬ সালে নির্দিষ্ট থিম নিয়ে আন্তর্জাতিক নারী দিবসটি পালিত হয়েছিল। এ বছরের নারী দিবসে জাতিসংঘের স্লোগান ‘নারীর সুস্বাস্থ্য ও জাগরণ’। এই মূল প্রতিপাদ্যের আলোকে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবছর আন্তর্জাতিক নারী দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে- “টেকসই আগামীর জন্য, জেন্ডার সমতাই আজ অগ্রগণ্য।”
নারীর প্রতি সবরকম বৈষম্য ও অন্যায়-অবিচারের অবসান ঘটিয়ে একটি সুখী, সমৃদ্ধ ও গণতান্ত্রিক বিশ্ব গড়ার কাজে, টেকসই সামাজিক ভিত্তি গড়ার জন্য নারী পুরুষ সমতার বিকল্প নেই।পুরুষের ন্যায় সমান অবদান রাখার প্রত্যয় নিয়ে নারীদের এগিয়ে চলা আরও বেগবান হোক। বিশেষত সিদ্ধান্ত গ্রহন ও নীতি নির্ধারণে মহিলারাও যাতে সমান অংশীদার হতে পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখাই শুধু নয় পরিস্থিতির চাহিদা অনুযায়ী, সাম্যের ভবিষ্যৎ গড়ায় যাতে সমান অবদান রাখতে পারে সেবিষয়ে সচেষ্ট থাকা।
আন্তর্জাতিক নারী দিবসের মধ্য দিয়ে নারীত্বের অধিকারের বিষয় তুলে ধরা হয়। জাতি, ধর্ম, বর্ণ, ভাষা, সংস্কৃতি, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ভেদাভেদ ভুলে মহিলাদের কৃতিত্বকে স্বীকৃতি জানানোর জন্য দিবসটি পালিত হয়। এই দিনে প্রত্যেক নারীর অধিকার ও জেন্ডার সমতার বিষয়ে সচেতন করে তোলা হয়। পাশাপাশি মহিলাদের লড়াইয়ের গতি সঞ্চার করার জন্য উদ্বুদ্ধ করাও দিবসটি পালনের অন্যতম উদ্দেশ্য।