বাংলাদেশ ১০:১৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
পাষন্ড দুই সন্তানের হাতে মার খেয়ে মায়ের ঠাই হলো মাদ্রাসায় নাজিরপুরে ট্রাক চাপায় ভ্যান চালকের মৃত্যু রাজশাহী মহানগরীতে গ্রেফতার ৩জন ছিনতাইকারী দেবীগঞ্জে যৌতুকের বলি শাহনাজ হত্যার ৫দিন পর আদালতে মামলা মহানগরীতে ৮টি মামলার সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী রবিউল গ্রেফতার ত্রিশালে শুভেচ্ছা ও গণসংযোগে মাজহারুল ইসলাম জুয়েল পিরোজপুরে তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ১০ প্রার্থীর মনোয়নপত্র দাখিল বাঙ্গালহালিয়া ধলিয়াপাড়া শিক্ষা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ রায়গঞ্জের হাটপাঙ্গাসীতে পহেলা বৈশাখ উদযাপিত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ব্রাহ্মণপাড়া ভগবান সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮৯ ব্যাচের ঈদ পূণর্মিলনী অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কাউনিয়ায় ১৩ প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র দাখিল বগুড়া-নন্দীগ্রাম (উত্তর-কচুগাড়ী) গ্রামে ১৬ প্রহর ব্যাপী হরিবাসর অনুষ্ঠিত..!! হরিপুর চেয়ারম্যান পদে ৫ জনসহ ৯ জনের মনোনয়ন দাখিল কুমিল্লায় মাই টিভির ১৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন

ঐতিহ্যবাহী সেই ঢেঁকি আজ বিলুপ্তির খাতায়!! রামগঞ্জের গ্রাম বাংলায় ঢেঁকিতে ধান ভানার দৃশ্য চোখেই পড়ে না!!

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০২:৪৮:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৬ মার্চ ২০২২
  • ১৮০৩ বার পড়া হয়েছে

ঐতিহ্যবাহী সেই ঢেঁকি আজ বিলুপ্তির খাতায়!! রামগঞ্জের গ্রাম বাংলায় ঢেঁকিতে ধান ভানার দৃশ্য চোখেই পড়ে না!!

 

 

 

মোঃ ছায়েদ হোসেন, রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) সংবাদদাতাঃ

 

 

প্রবাদ আছে, ও বউ ধান ভানো রে ঢেঁকিতে পাড় দিয়া, ঢেঁকি নাচে বউ নাচে হেলিয়া দুলিয়া ও বউ ধান ভানো রে। ঢেঁকিতে উঠে কত গান ও কত প্রবাদ গাওয়া হতো গ্রাম্য মেয়েদের। ঐতিহ্যবাহী সেই ঢেঁকি আজ বিলুপ্তির খাতায়। সময় আর জীবন দুটিই নন্দকূজা নদীর মতো। জোয়ারে এক রকম আর ভাটায় ভিন্ন রকমের পরিবেশ মুহূর্তেই যেন পাল্টে যায় চিত্র। আর এখনও তো অনেকেই বলে থাকেন ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে।

 

 

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ঢেঁকিকে নিয়ে গান ও প্রবাদ প্রচলিত থাকলেও ঐতিহ্যবাহী সেই ঢেঁকি আজ বিলুপ্তির পথে। এখন আর গ্রাম বাংলায় ঢেঁকিতে ধান ভানার দৃশ্য চোখেই পড়ে না। শোনা যায় না ঢেঁকির ধুপধাপ শব্দ। বিশেষ করে শীতের সময় পৌষ ও মাঘ মাসে ঢেঁকির ব্যবহার অন্য সময়ের চেয়ে বেশি ছিল। এক সময় ভোরে আজানের সঙ্গে সঙ্গে স্তব্ধতা ভেঙে চারদিকে ছড়িতে পড়তো ঢেঁকির শব্দ। পরিবারের নারীরা সে সময় দৈনন্দিন ধান, গম ও যব ভাঙার কাজ ঢেঁকিতে করতেন।

 

 

পাশাপাশি চিড়া তৈরির মত কঠিন কঠিন কাজও ঢেঁকিতে করা হতো। বিশেষ করে তিন দশক আগেও গুরুদাসপুরের বিভিন্ন এলাকায় শবে বরাত, ঈদ, পূজা, নবান্ন উৎসবসহ বিশেষ বিশেষ দিনে পিঁঠা পুলি খাওয়ার জন্য অধিকাংশ বাড়িতে ঢেঁকিতে চালের আটা তৈরি করা হতো। সে সময় গ্রাম্য বধুদের ধান ভাঙার গান আর ঢেঁকির ছন্দময় শব্দে চারিদিকে হৈচৈ পড়ে যেত। বর্তমানে ডিজিটাল যুগে সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলতে গিয়ে আধুনিক যন্ত্রপাতির কাছে ম্লান হয়ে গেছে আগেকার দিনের সেই ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকির ব্যবহার। ৮০-৯০ দশকে জেলার গ্রাম এলাকায় বিপুল সংখ্যক মানুষ তাদের সারা বছরের ভাতের চাল বাড়িতে পাতানো ঢেঁকিতে ছেঁটে প্রস্তুত করত। ভাদ্র মাসে আউস ও অগ্রহায়ণ-পৌষ মাসে রোপা আমন ধান ঘরে উঠলে প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই নানা রকম পিঠা ও পায়েস খাওয়ার ধুম পড়ে যেত। আর এজন্য বাড়িতে বাড়িতে আটা কোটার ধুম পড়ে যেত। আমন ধান কাটা শেষে পৌষ মাসে ঢেঁকিতে ধান ভাঙ্গার শব্দে অনেকের রাতের ঘুম নষ্ট হতো। মানুষের জীবন ও জীবনের উপাদানও চলার পথে পাল্টে যায়। তেমনিভাবে পাল্টে গেছে গ্রাম বাংলার চিত্র আর ঢেঁকি।

 

 

বদলে যাচ্ছে রামগঞ্জের প্রতিটি পাড়া মহল্লায় ভবনের পর ভবন গড়ে উঠছে। সেই সঙ্গে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম হতে মাড়াই ঢেঁকি। গ্রামের পাড়ায় পাড়ায় এক সময় ঢেঁকি দিয়ে চাল তৈরি, চিড়া ভাঙা, আটা, গম, জব, পায়েসের চালের গুঁড়ো, খির তৈরির চাল বানানোর সেই ঢেঁকি-আজ অসহায় হয়ে পড়েছে ইঞ্জিনচালিত মেশিনের কাছে। কালের বিবর্তন আর আধুনিকতার ছোয়ায় রামগঞ্জের গ্রাম বাংলা থেকে বিলীন হয়ে গেছে ঢেঁকি। কয়েকটি গ্রাম ঘুরেও তা দেখা মেলেনা আর। হয়তো জাদুঘরে তার স্থান হয়েছে। বর্তমান মানুষের প্রযুক্তি নির্ভরতা এবং কর্মব্যবস্ততা বেড়ে যাওয়ায় ঢেঁকির ব্যবহার নেই বললেই চলে। তবে এখনো দেশের কিছু কিছু প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে ঢেঁকির দেখা মেলে হয়তো। এসব ঢেঁকিগুলোর আবার ব্যবহার কমে এসেছে। চৈত্র মাস শেষে নতুন ধানের গন্ধে যখন গ্রাম বিমোহিত হতো তখনি গ্রাম্য মেয়েরা নতুন চাউলের পিঠা আর নানা খাবার তৈরিতে ব্যস্ত থাকতো। এখন আর সেদিন নেই। সব অতীত এখন স্মৃতির পাতায় জমা।

 

 

আগে বারো মাস ব্যবহার করা হলেও এখন ঢেঁকি শুধু বিশেষ বিশেষ সময়েও দেখা যাচ্ছে না। শহরে তো বটেই, আজকাল গ্রামের ছেলে মেয়েরাও ঢেঁকি শব্দটির কথা জানলেও বাস্তবে দেখেনি। অনেকের কৌতূহল কেমন করে মেশিন ছাড়া ধান থেকে চাল বের করা হতো। আসলে ধানের তুষ ছাড়িয়ে চাল বানানোই ছিল ঢেঁকির কাজ। ঢেঁকি হচ্ছে কাঠের তৈরি কল বিশেষ। প্রায় ৬ ফুট লম্বা ও ৯ ইঞ্চি ব্যাস বিশিষ্ট একটি ধড় থাকে ঢেঁকিতে। মেঝে থেকে ১৮ ইঞ্চি উচ্চতায় ধড়ের একেবারে সামনে দুই ফুট লম্বা একটি গোল কাঠ থাকে। এটাকে মৌনা বলা হয়। দু’টি বড় কাঠের দ-ের ভেতর দিয়ে একটি ছোট হুকড়া হিসেবে কাঠের গোরাকার খির থাকে। এভাবেই তৈরি ঢেঁকি দিয়ে এক সময় ধান ভাঙ্গানোর কাজ করা হতো ব্যাপকভাবে।

 

 

কালের বিবর্তনে আধুনিক যুগে সেই ঢেঁকির জায়গা দখল করে নিয়ে বিদ্যুৎ চালিত মেশিন (ধান ভাঙ্গার চাল কল) এর মাধ্যমে মানুষ এখন অতি সহজেই অল্প সময়ে ধান থেকে চাল পাচ্ছে। গ্রামে গ্রামে বসছে চাল তৈরির কল। হাতের কাছে বিভিন্ন যন্ত্র আর প্রযুক্তি সহজলভ্য হওয়ায় ঢেঁকির মতো ঐতিহ্যবাহী অনেক কিছুই এখন হারিয়ে যাচ্ছে। এক সময় হয়তো সে সবের দেখা মিলবে কেবল জাদুঘরে। তবে ঢেঁকি আমাদের একটি প্রাচীন ঐতিহ্য। ঢেঁকি একটি শিল্প হলেও এ শিল্পকে সংরক্ষণের কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ছে না। ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকি শিল্প রক্ষায় সকলকে একযোগে এগিয়ে আসতে হবে বলে মনে করেন রামগঞ্জের প্রবীণরা। অনেক দরিদ্র পরিবার আবার ঢেঁকিতে চাল ভাঙিয়ে হাট-বাজারে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করত বলে মন্তব্য করেছেন একই পাড়ার মুনছুর আলী। ঢেঁকিতে ভাঙা পুষ্টিকর এবং সুস্বাদু চালের বেশ কদর ছিল সেসময়।

 

 

ধান গম ভাঙা যন্ত্র আবিষ্কারের এক সময়ের নিত্যপ্রয়োজনীয় ঢেঁকি আজ বিলুপ্ত প্রায়। সভ্যতার প্রয়োজনে ঢেঁকির আবির্ভাব ঘটেছিল। আবার গতিময় সভ্যতার যাত্রাপথে প্রযুক্তিগত উৎকর্ষেই বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে ঢেঁকি। যোগ হচ্ছে নতুন নতুন পণ্য আর যন্ত্রপাতি। সময় বাঁচাতে গিয়ে এসব যন্ত্রের ওপর বাড়ছে মানুষের বাড়তি নজর। লুপে নিচ্ছে সব সুযোগ-সুবিধা। তবে আমাদের রামগঞ্জ উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়নের মতিন চাচা বলেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, আধুনিক যুগে নিত্য নতুন প্রযুক্তির ব্যবহারে যেসব ফলমূল আর আটা ময়দার প্যাকেট সৃষ্টি হচ্ছে তাতে পূর্বের কোনো স্বাদ নেই। যেন রস, স্বাদ, গন্ধহীন হাইব্রিডে হারাচ্ছে খাদ্যের গুণগত মানও।’ যদিও ওনার কথার সঙ্গে অনেক যুক্তি রয়েছে। তবে তা ফেলে দেওয়ার মতো না।

 

 

 

জনপ্রিয় সংবাদ

পাষন্ড দুই সন্তানের হাতে মার খেয়ে মায়ের ঠাই হলো মাদ্রাসায়

ঐতিহ্যবাহী সেই ঢেঁকি আজ বিলুপ্তির খাতায়!! রামগঞ্জের গ্রাম বাংলায় ঢেঁকিতে ধান ভানার দৃশ্য চোখেই পড়ে না!!

আপডেট সময় ০২:৪৮:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৬ মার্চ ২০২২

 

 

 

মোঃ ছায়েদ হোসেন, রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) সংবাদদাতাঃ

 

 

প্রবাদ আছে, ও বউ ধান ভানো রে ঢেঁকিতে পাড় দিয়া, ঢেঁকি নাচে বউ নাচে হেলিয়া দুলিয়া ও বউ ধান ভানো রে। ঢেঁকিতে উঠে কত গান ও কত প্রবাদ গাওয়া হতো গ্রাম্য মেয়েদের। ঐতিহ্যবাহী সেই ঢেঁকি আজ বিলুপ্তির খাতায়। সময় আর জীবন দুটিই নন্দকূজা নদীর মতো। জোয়ারে এক রকম আর ভাটায় ভিন্ন রকমের পরিবেশ মুহূর্তেই যেন পাল্টে যায় চিত্র। আর এখনও তো অনেকেই বলে থাকেন ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে।

 

 

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ঢেঁকিকে নিয়ে গান ও প্রবাদ প্রচলিত থাকলেও ঐতিহ্যবাহী সেই ঢেঁকি আজ বিলুপ্তির পথে। এখন আর গ্রাম বাংলায় ঢেঁকিতে ধান ভানার দৃশ্য চোখেই পড়ে না। শোনা যায় না ঢেঁকির ধুপধাপ শব্দ। বিশেষ করে শীতের সময় পৌষ ও মাঘ মাসে ঢেঁকির ব্যবহার অন্য সময়ের চেয়ে বেশি ছিল। এক সময় ভোরে আজানের সঙ্গে সঙ্গে স্তব্ধতা ভেঙে চারদিকে ছড়িতে পড়তো ঢেঁকির শব্দ। পরিবারের নারীরা সে সময় দৈনন্দিন ধান, গম ও যব ভাঙার কাজ ঢেঁকিতে করতেন।

 

 

পাশাপাশি চিড়া তৈরির মত কঠিন কঠিন কাজও ঢেঁকিতে করা হতো। বিশেষ করে তিন দশক আগেও গুরুদাসপুরের বিভিন্ন এলাকায় শবে বরাত, ঈদ, পূজা, নবান্ন উৎসবসহ বিশেষ বিশেষ দিনে পিঁঠা পুলি খাওয়ার জন্য অধিকাংশ বাড়িতে ঢেঁকিতে চালের আটা তৈরি করা হতো। সে সময় গ্রাম্য বধুদের ধান ভাঙার গান আর ঢেঁকির ছন্দময় শব্দে চারিদিকে হৈচৈ পড়ে যেত। বর্তমানে ডিজিটাল যুগে সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলতে গিয়ে আধুনিক যন্ত্রপাতির কাছে ম্লান হয়ে গেছে আগেকার দিনের সেই ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকির ব্যবহার। ৮০-৯০ দশকে জেলার গ্রাম এলাকায় বিপুল সংখ্যক মানুষ তাদের সারা বছরের ভাতের চাল বাড়িতে পাতানো ঢেঁকিতে ছেঁটে প্রস্তুত করত। ভাদ্র মাসে আউস ও অগ্রহায়ণ-পৌষ মাসে রোপা আমন ধান ঘরে উঠলে প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই নানা রকম পিঠা ও পায়েস খাওয়ার ধুম পড়ে যেত। আর এজন্য বাড়িতে বাড়িতে আটা কোটার ধুম পড়ে যেত। আমন ধান কাটা শেষে পৌষ মাসে ঢেঁকিতে ধান ভাঙ্গার শব্দে অনেকের রাতের ঘুম নষ্ট হতো। মানুষের জীবন ও জীবনের উপাদানও চলার পথে পাল্টে যায়। তেমনিভাবে পাল্টে গেছে গ্রাম বাংলার চিত্র আর ঢেঁকি।

 

 

বদলে যাচ্ছে রামগঞ্জের প্রতিটি পাড়া মহল্লায় ভবনের পর ভবন গড়ে উঠছে। সেই সঙ্গে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম হতে মাড়াই ঢেঁকি। গ্রামের পাড়ায় পাড়ায় এক সময় ঢেঁকি দিয়ে চাল তৈরি, চিড়া ভাঙা, আটা, গম, জব, পায়েসের চালের গুঁড়ো, খির তৈরির চাল বানানোর সেই ঢেঁকি-আজ অসহায় হয়ে পড়েছে ইঞ্জিনচালিত মেশিনের কাছে। কালের বিবর্তন আর আধুনিকতার ছোয়ায় রামগঞ্জের গ্রাম বাংলা থেকে বিলীন হয়ে গেছে ঢেঁকি। কয়েকটি গ্রাম ঘুরেও তা দেখা মেলেনা আর। হয়তো জাদুঘরে তার স্থান হয়েছে। বর্তমান মানুষের প্রযুক্তি নির্ভরতা এবং কর্মব্যবস্ততা বেড়ে যাওয়ায় ঢেঁকির ব্যবহার নেই বললেই চলে। তবে এখনো দেশের কিছু কিছু প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে ঢেঁকির দেখা মেলে হয়তো। এসব ঢেঁকিগুলোর আবার ব্যবহার কমে এসেছে। চৈত্র মাস শেষে নতুন ধানের গন্ধে যখন গ্রাম বিমোহিত হতো তখনি গ্রাম্য মেয়েরা নতুন চাউলের পিঠা আর নানা খাবার তৈরিতে ব্যস্ত থাকতো। এখন আর সেদিন নেই। সব অতীত এখন স্মৃতির পাতায় জমা।

 

 

আগে বারো মাস ব্যবহার করা হলেও এখন ঢেঁকি শুধু বিশেষ বিশেষ সময়েও দেখা যাচ্ছে না। শহরে তো বটেই, আজকাল গ্রামের ছেলে মেয়েরাও ঢেঁকি শব্দটির কথা জানলেও বাস্তবে দেখেনি। অনেকের কৌতূহল কেমন করে মেশিন ছাড়া ধান থেকে চাল বের করা হতো। আসলে ধানের তুষ ছাড়িয়ে চাল বানানোই ছিল ঢেঁকির কাজ। ঢেঁকি হচ্ছে কাঠের তৈরি কল বিশেষ। প্রায় ৬ ফুট লম্বা ও ৯ ইঞ্চি ব্যাস বিশিষ্ট একটি ধড় থাকে ঢেঁকিতে। মেঝে থেকে ১৮ ইঞ্চি উচ্চতায় ধড়ের একেবারে সামনে দুই ফুট লম্বা একটি গোল কাঠ থাকে। এটাকে মৌনা বলা হয়। দু’টি বড় কাঠের দ-ের ভেতর দিয়ে একটি ছোট হুকড়া হিসেবে কাঠের গোরাকার খির থাকে। এভাবেই তৈরি ঢেঁকি দিয়ে এক সময় ধান ভাঙ্গানোর কাজ করা হতো ব্যাপকভাবে।

 

 

কালের বিবর্তনে আধুনিক যুগে সেই ঢেঁকির জায়গা দখল করে নিয়ে বিদ্যুৎ চালিত মেশিন (ধান ভাঙ্গার চাল কল) এর মাধ্যমে মানুষ এখন অতি সহজেই অল্প সময়ে ধান থেকে চাল পাচ্ছে। গ্রামে গ্রামে বসছে চাল তৈরির কল। হাতের কাছে বিভিন্ন যন্ত্র আর প্রযুক্তি সহজলভ্য হওয়ায় ঢেঁকির মতো ঐতিহ্যবাহী অনেক কিছুই এখন হারিয়ে যাচ্ছে। এক সময় হয়তো সে সবের দেখা মিলবে কেবল জাদুঘরে। তবে ঢেঁকি আমাদের একটি প্রাচীন ঐতিহ্য। ঢেঁকি একটি শিল্প হলেও এ শিল্পকে সংরক্ষণের কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ছে না। ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকি শিল্প রক্ষায় সকলকে একযোগে এগিয়ে আসতে হবে বলে মনে করেন রামগঞ্জের প্রবীণরা। অনেক দরিদ্র পরিবার আবার ঢেঁকিতে চাল ভাঙিয়ে হাট-বাজারে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করত বলে মন্তব্য করেছেন একই পাড়ার মুনছুর আলী। ঢেঁকিতে ভাঙা পুষ্টিকর এবং সুস্বাদু চালের বেশ কদর ছিল সেসময়।

 

 

ধান গম ভাঙা যন্ত্র আবিষ্কারের এক সময়ের নিত্যপ্রয়োজনীয় ঢেঁকি আজ বিলুপ্ত প্রায়। সভ্যতার প্রয়োজনে ঢেঁকির আবির্ভাব ঘটেছিল। আবার গতিময় সভ্যতার যাত্রাপথে প্রযুক্তিগত উৎকর্ষেই বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে ঢেঁকি। যোগ হচ্ছে নতুন নতুন পণ্য আর যন্ত্রপাতি। সময় বাঁচাতে গিয়ে এসব যন্ত্রের ওপর বাড়ছে মানুষের বাড়তি নজর। লুপে নিচ্ছে সব সুযোগ-সুবিধা। তবে আমাদের রামগঞ্জ উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়নের মতিন চাচা বলেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, আধুনিক যুগে নিত্য নতুন প্রযুক্তির ব্যবহারে যেসব ফলমূল আর আটা ময়দার প্যাকেট সৃষ্টি হচ্ছে তাতে পূর্বের কোনো স্বাদ নেই। যেন রস, স্বাদ, গন্ধহীন হাইব্রিডে হারাচ্ছে খাদ্যের গুণগত মানও।’ যদিও ওনার কথার সঙ্গে অনেক যুক্তি রয়েছে। তবে তা ফেলে দেওয়ার মতো না।