বাংলাদেশ ০৮:৩০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
ধর্মীয় শিক্ষার অভাবে মানুষ বিপদগামী হচ্ছে — ভান্ডারিয়ায় মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ ফয়জুল করিম নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ করতে যা করার প্রয়োজন তাই করা হবে- নির্বাচন কমিশনার ২৪ এপ্রিল থেকে তিন দিনব্যাপী ঐতিহ্যবাহী জব্বারের বলিখেলা কালুরঘাট ভারী শিল্প এলাকার চার শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করলেন চসিক ভ্রাম্যমান আদালত চলতি বছরেই পঁচিশ শতাংশ ভাটায় ব্লক ইট তৈরী নিশ্চিত করতে হবে — জেলা প্রশাসক নলছিটিতে শেষ হলো মরহুম আঃ সোবাহান চেয়ারম্যান স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। নওগাঁর হাসপাতাল গুলোতে বাড়ছে ডায়রিয়া রুগী  ভান্ডারিয়ায় প্রাণি সম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত ব্রাহ্মণপাড়ায় প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী উপলক্ষে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভা  ব্রাহ্মণপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে হতদরিদ্রের মাঝে ঘর উপহার  ব্রাহ্মণপাড়া থেকে কুমিল্লায় সিএনজি ভাড়া দ্বিগুণ থেকে তিন গুণ ভোগান্তিতে যাত্রীরা ঘুমন্ত স্বামীর পুরুষাঙ্গ কর্তণের দায়ে স্ত্রী কারাগারে! বাগেরহাটে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী ২০২৪ অনুষ্ঠিত একযুগেরও বেশি সময় পর ঠাকুরগাঁও চেম্বারের নির্বাচন দোকান কর্মচারি, গৃহবধু, ঝাড়ুদার ভোটার। অনিয়মের ছড়াছড়ি তালতলীতে এবার ইউপি চেয়ারম্যানের আপত্তিকর ভিডিও ভাইরাল

কুড়িগ্রামের উলিপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৭:০৪:০৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ মার্চ ২০২২
  • ১৬৮৭ বার পড়া হয়েছে
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
কুড়িগ্রামের উলিপুরে এক সেনা সদস্যকে মারপিট ও পাঁচ লাখ চাঁদা দাবীর অভিযোগে নব-নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনার আটদিন পর উপজেলার থেতরাই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতাসহ তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে এ মামলা হয়। উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে মঙ্গলবার (১ মার্চ) পর্যন্ত ওই চেয়ারম্যানসহ অন্যান্যরা আটক হননি। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলার ঘটনায় ওই ইউনিয়নের সর্বত্র চলছে আলোচনা-সমালোচনা।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার থেতরাই ইউনিয়নের দড়িকিশোরপুর এলাকার সেকেন্দার আলীর সাথে পার্শ্ববর্তী মজির উদ্দিনের ছেলে আতাউর রহমান আতার দীর্ঘদিন থেকে একটি দোকান ঘর নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এর জেরে দোকানঘর ভাংচুর ও সেকেন্দার আলীকে মারপিট করলে তিনি আতা ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। মামলাটি বর্তমানে আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। সম্প্রতি চতুর্থ ধাপে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয় আতাউর রহমান আতা। এরপর থেকেই চেয়ারম্যান সেকেন্দার আলীকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য চাপসৃষ্টিসহ পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছিলেন।
আরো জানা গেছে,  গত ১৬ ফেব্রুয়ারী সেকেন্দার আলীর ছেলে সেনা সদস্য সালাহ উদ্দিন ১০ দিনের ছুটিতে বাড়িতে আসেন। পরদিন (১৭ ফেব্রুয়ারী) রাতে সেনা সদস্য তাদের দোকান ঘরের সামনে গেলে চেয়ারম্যান তাকে সেখানে দেখতে পেয়ে মারপিট ও খুন করার হুমকি দেন। এ ঘটনায় ওই সেনা সদস্য ১৯ ফেব্রুয়ারী উলিপুর থানায় জিডি করেন। জিডির বিষয়টি চেয়ারম্যান জানতে পেয়ে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। এরপর ২০ ফেব্রুয়ারী দুপুরে ওই ইউনিয়নের থেতরাই পাকার মাথা নামকস্থানে সেনা সদস্য সালাহ উদ্দিনকে দেখতে পেয়ে চেয়ারম্যান তার বিরুদ্ধে করা পূর্বের মামলা তুলে নিতে বলেন এবং না হলে মামলার খরচ বাবদ ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করেন। এ সময় ওই সেনা সদস্য চাঁদা দিতে অস্বীকার করে ঘটনার প্রতিবাদ করলে চেয়ারম্যান ও তার লোকজন সেনা সদস্যকে জোর করে অপহরন করে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানে কক্ষে নিয়ে মারপিট করে গুরুত্বর আহত করেন।
পরে সেনা সদস্যকে রক্ষা করার জন্য তার পিতা সেকেন্দার আলী ও মাতা শাহানাজ পারভীন এগিয়ে আসলে তাদেরকেও মারপিট করে চেয়ারম্যান এবং তার লোকজন। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করেন। ঘটনার আটদিন পর চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মারপিট ও চাঁদাদাবীর অভিযোগে ওই সেনা সদস্যর মামলা নেন থানা পুলিশ। মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান আতাসহ নামীয় ১৩ জন ও অজ্ঞাতনামা ১০-১২জনকে আসামী করা হয়। (উলিপুর থানার মামলা নং-৩২)।
থেতরাই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা জানান, ঘটনার দিন আমি উপস্থিত ছিলাম না। তারপরেও আমার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা হওয়া দুঃখজনক। আমরা উপজেলা ইউপি চেয়ারম্যান সমিতি ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছি।
উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ কবির ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মারপিটসহ চাঁদা দাবীর অভিযোগে মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। ঘটনার আটদিন পর মামলা রুজু করার কারন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওই সেনা সদস্যের চিকিৎসাসহ তার উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের অনুমতি গ্রহন করার পর তিনি মামলা দায়ের করেছেন। এ কারনে বিলম্ব হয়েছে।
জনপ্রিয় সংবাদ

ধর্মীয় শিক্ষার অভাবে মানুষ বিপদগামী হচ্ছে — ভান্ডারিয়ায় মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ ফয়জুল করিম

কুড়িগ্রামের উলিপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা

আপডেট সময় ০৭:০৪:০৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ মার্চ ২০২২
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
কুড়িগ্রামের উলিপুরে এক সেনা সদস্যকে মারপিট ও পাঁচ লাখ চাঁদা দাবীর অভিযোগে নব-নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনার আটদিন পর উপজেলার থেতরাই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতাসহ তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে এ মামলা হয়। উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে মঙ্গলবার (১ মার্চ) পর্যন্ত ওই চেয়ারম্যানসহ অন্যান্যরা আটক হননি। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলার ঘটনায় ওই ইউনিয়নের সর্বত্র চলছে আলোচনা-সমালোচনা।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার থেতরাই ইউনিয়নের দড়িকিশোরপুর এলাকার সেকেন্দার আলীর সাথে পার্শ্ববর্তী মজির উদ্দিনের ছেলে আতাউর রহমান আতার দীর্ঘদিন থেকে একটি দোকান ঘর নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এর জেরে দোকানঘর ভাংচুর ও সেকেন্দার আলীকে মারপিট করলে তিনি আতা ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। মামলাটি বর্তমানে আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। সম্প্রতি চতুর্থ ধাপে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয় আতাউর রহমান আতা। এরপর থেকেই চেয়ারম্যান সেকেন্দার আলীকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য চাপসৃষ্টিসহ পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছিলেন।
আরো জানা গেছে,  গত ১৬ ফেব্রুয়ারী সেকেন্দার আলীর ছেলে সেনা সদস্য সালাহ উদ্দিন ১০ দিনের ছুটিতে বাড়িতে আসেন। পরদিন (১৭ ফেব্রুয়ারী) রাতে সেনা সদস্য তাদের দোকান ঘরের সামনে গেলে চেয়ারম্যান তাকে সেখানে দেখতে পেয়ে মারপিট ও খুন করার হুমকি দেন। এ ঘটনায় ওই সেনা সদস্য ১৯ ফেব্রুয়ারী উলিপুর থানায় জিডি করেন। জিডির বিষয়টি চেয়ারম্যান জানতে পেয়ে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। এরপর ২০ ফেব্রুয়ারী দুপুরে ওই ইউনিয়নের থেতরাই পাকার মাথা নামকস্থানে সেনা সদস্য সালাহ উদ্দিনকে দেখতে পেয়ে চেয়ারম্যান তার বিরুদ্ধে করা পূর্বের মামলা তুলে নিতে বলেন এবং না হলে মামলার খরচ বাবদ ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করেন। এ সময় ওই সেনা সদস্য চাঁদা দিতে অস্বীকার করে ঘটনার প্রতিবাদ করলে চেয়ারম্যান ও তার লোকজন সেনা সদস্যকে জোর করে অপহরন করে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানে কক্ষে নিয়ে মারপিট করে গুরুত্বর আহত করেন।
পরে সেনা সদস্যকে রক্ষা করার জন্য তার পিতা সেকেন্দার আলী ও মাতা শাহানাজ পারভীন এগিয়ে আসলে তাদেরকেও মারপিট করে চেয়ারম্যান এবং তার লোকজন। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করেন। ঘটনার আটদিন পর চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মারপিট ও চাঁদাদাবীর অভিযোগে ওই সেনা সদস্যর মামলা নেন থানা পুলিশ। মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান আতাসহ নামীয় ১৩ জন ও অজ্ঞাতনামা ১০-১২জনকে আসামী করা হয়। (উলিপুর থানার মামলা নং-৩২)।
থেতরাই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা জানান, ঘটনার দিন আমি উপস্থিত ছিলাম না। তারপরেও আমার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা হওয়া দুঃখজনক। আমরা উপজেলা ইউপি চেয়ারম্যান সমিতি ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছি।
উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ কবির ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মারপিটসহ চাঁদা দাবীর অভিযোগে মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। ঘটনার আটদিন পর মামলা রুজু করার কারন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওই সেনা সদস্যের চিকিৎসাসহ তার উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের অনুমতি গ্রহন করার পর তিনি মামলা দায়ের করেছেন। এ কারনে বিলম্ব হয়েছে।