বাংলাদেশ ০৪:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
যৌন হয়রানির অভিযোগকারীকে এমনভাবে উপস্থাপন করা হয় যেন সব দোষ তার”- জবি উপাচার্য আনসার আল ইসলাম এর রিক্রুটিং শাখার প্রধান ইসমাইল হোসেন ও দুইজন আঞ্চলিক প্রশিক্ষককে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। কুষ্টিয়ায় পরকীয়ার জেরে এক যুবককে মারপিট ও শ্বাসরোধে হত্যা, আটক-০৩ ঠাকুরগাঁওয়ে মাদকসহ গ্রেফতার -৩ কুষ্টিয়ায় মসজিদ চত্ত্বরে পানি ছিটাতে গিয়ে বিদ্যুতায়িত হয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু কুষ্টিয়া ডিবি পুলিশের অভিযানে ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেটসহ গ্রেফতার-১ নাগরপুরে হাজী মকবুল হোসেনের ৪র্থ মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল অবৈধ মাদক দ্রব্য গাজাসহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। বিপুল পরিমাণ জাল স্ট্যাম্প সম্বলিত বিড়ি এবং জাল স্ট্যাম্প সহ ০৩ জন আসামী গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ধর্ষণ মামলার যাবজ্জীবন পলাতক ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী সোহাগ আহম্মেদ রিপন কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। অভিযানেও বন্ধ হচ্ছে না, প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে চলছে পুকুর খনন কলাপাড়ায় প্রতিমা ভাংগার ঘটনায় সন্দেহ ভাজন আটক। সিলেট নগরীতে কিশোর গ্যাং এর অত্যাচার ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে। ফুলবাড়ী জুয়েলারী সমিতি‘র নবনির্বাচিত কমিটির সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে চল্লিশ বছর পর নিজ দেশ নেপালে ফিরলেন বীর বাহাদুর

বিপাকে পড়ছে কৃষকরা- তাই কৃষক কৃষিকাজ ছেড়ে অন্য পেশা খুজছেন!!

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:১০:৪১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • ১৬৮৮ বার পড়া হয়েছে

বিপাকে পড়ছে কৃষকরা- তাই কৃষক কৃষিকাজ ছেড়ে অন্য পেশা খুজছেন!!

 

 

 

 

 

মোঃ ছায়েদ হোসেন, রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) সংবাদাদাতাঃ

 

 

রামগঞ্জে কৃষি জমিতে পুকুর খনন, টপ সয়েল কেটে নেওয়ায় জলাবদ্ধতায় দ্রুতগতিতে কমছে ফসলি জমি। আর এসব ফসলি জমির মাটি যাচ্ছে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠা ২২টি ইটভাটায়। মাটি ব্যবসায়ীরা চড়া দামে একটি জমি ক্রয় করে ভুমি আইন অমান্য করে জমির শ্রেনী পরিবর্তন করে পুকুর খনন করেছে, এতে পাশ্ববর্তী জমি ভেঙ্গে যাচ্ছে।

 

 

 

তাই জমির মালিকরা বাধ্য হয়ে জমির ২ থেকে ৪ ফুট মাটি অথবা জমি বিক্রি দিচ্ছে। অনেকে চাষবাস না করে ফেলে রেখেছেন। এতে বিপাকে পড়ছে কৃষকরা। তাই অনেক কৃষক কৃষিকাজ ছেড়ে অন্য পেশা খুজছেন। এভাবে অনাবাদি জমি পরিমান বাড়তে থাকলে এক সময় খাদ্য ঘাটতি দেখা দিতে পারে। উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ২শত ১২ একর ফসলি জমি কমেছে। ২০১৯ সালে প্রায় ২ হাজার ৬শত একর ফসলি জমিতে চাষাবাদ হয়। এ বছর চাষাবাদ হয়েছে প্রায় ২ হাজার ৫০ একক জমি। এ ভাবে প্রতি বছর প্রায় ২শত একর ফসলি জমি কমতে থাকে।

 

 

 

এর কারন হিসেবে কৃষক ও কৃষি অফিসাররা ফসলি জমিতে পুকুর খনন ও টপসয়েল কেটে নেওয়া ও অপরিকল্পিতভাবে বাড়ি করাকে দায়ী করছেন। উপজেলা নির্বাহীর কর্মকর্তা অফিসের তথ্য অনুযায়ী জানা যায়,উপজেলায় মোট ২২টি ইটভাটা রয়েছে। কৃষক আবদুল মান্নান, আবু জাফর মানিক, শাহ আলমসহ অনেকে কৃষক জানান, ফসলি জমির টপ সয়েল কেটে , যেখানে-সেখানে পুকুর খনন করে অধিক মূল্যে ইটভাটায় মাটি বিক্রি করছে। তাই মাঠে সারা বছর জলাবদ্ধতা কারনে চাষাবাদ করা যাচ্ছে না। বর্তমানে আমরা কৃষকরা বড় বিপদে আছি। জমির মালিক বাচ্ছু মিয়া, শাহবুদ্দিনসহ অনেকে জানান, ইটভাটার মাটির জন্য ব্যবসায়ীরা কৌশলে একটি জমি কিনে নিয়ে ৩ থেকে ১৫ ফুট পর্যন্ত মাটি কেটে নিচ্ছে। এতে পাশ^বর্তি জমি ভেঙ্গে পড়ে। আশপাশে পুকুর থাকায় জমিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে সেখানে তিনি কোনো আবাদ করতে পারছেন না। বাধ্য হয়ে মাটি বিক্রি করতে হচ্ছে।

 

 

 

উপজেলা কৃষি সম্পসারন অফিসার কমল কুমার ভর্মণ বলেন, ফসলি জমিতে পুকুর খনন, জমি টপ সয়েল কেটে নেওয়ার ফলে দিন দিন ফসলি জমি কমে যাচ্ছে। এ নিয়ে আমরাও সঙ্কিত । বর্তমানে খাদ্য ঘাটতি না থাকলেও যেভাবে আবাদি জমির সংখ্যা কমে যাচ্ছে, তাতে একসময় খাদ্য ঘাটতি দেখা দিতে পারে। রামগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মনিরা খাতুন জানান, কেউ চাইলেই ইচ্ছেমতো জমির শ্রেণি পরিবর্তন করতে পারেন না। এ ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসকের অনুমতি নিতে হয়। এভাবে জমি শ্রেণি পরিবর্তন কেউ করলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

 

 

জনপ্রিয় সংবাদ

যৌন হয়রানির অভিযোগকারীকে এমনভাবে উপস্থাপন করা হয় যেন সব দোষ তার”- জবি উপাচার্য

বিপাকে পড়ছে কৃষকরা- তাই কৃষক কৃষিকাজ ছেড়ে অন্য পেশা খুজছেন!!

আপডেট সময় ০৬:১০:৪১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২২

 

 

 

 

 

মোঃ ছায়েদ হোসেন, রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) সংবাদাদাতাঃ

 

 

রামগঞ্জে কৃষি জমিতে পুকুর খনন, টপ সয়েল কেটে নেওয়ায় জলাবদ্ধতায় দ্রুতগতিতে কমছে ফসলি জমি। আর এসব ফসলি জমির মাটি যাচ্ছে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠা ২২টি ইটভাটায়। মাটি ব্যবসায়ীরা চড়া দামে একটি জমি ক্রয় করে ভুমি আইন অমান্য করে জমির শ্রেনী পরিবর্তন করে পুকুর খনন করেছে, এতে পাশ্ববর্তী জমি ভেঙ্গে যাচ্ছে।

 

 

 

তাই জমির মালিকরা বাধ্য হয়ে জমির ২ থেকে ৪ ফুট মাটি অথবা জমি বিক্রি দিচ্ছে। অনেকে চাষবাস না করে ফেলে রেখেছেন। এতে বিপাকে পড়ছে কৃষকরা। তাই অনেক কৃষক কৃষিকাজ ছেড়ে অন্য পেশা খুজছেন। এভাবে অনাবাদি জমি পরিমান বাড়তে থাকলে এক সময় খাদ্য ঘাটতি দেখা দিতে পারে। উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ২শত ১২ একর ফসলি জমি কমেছে। ২০১৯ সালে প্রায় ২ হাজার ৬শত একর ফসলি জমিতে চাষাবাদ হয়। এ বছর চাষাবাদ হয়েছে প্রায় ২ হাজার ৫০ একক জমি। এ ভাবে প্রতি বছর প্রায় ২শত একর ফসলি জমি কমতে থাকে।

 

 

 

এর কারন হিসেবে কৃষক ও কৃষি অফিসাররা ফসলি জমিতে পুকুর খনন ও টপসয়েল কেটে নেওয়া ও অপরিকল্পিতভাবে বাড়ি করাকে দায়ী করছেন। উপজেলা নির্বাহীর কর্মকর্তা অফিসের তথ্য অনুযায়ী জানা যায়,উপজেলায় মোট ২২টি ইটভাটা রয়েছে। কৃষক আবদুল মান্নান, আবু জাফর মানিক, শাহ আলমসহ অনেকে কৃষক জানান, ফসলি জমির টপ সয়েল কেটে , যেখানে-সেখানে পুকুর খনন করে অধিক মূল্যে ইটভাটায় মাটি বিক্রি করছে। তাই মাঠে সারা বছর জলাবদ্ধতা কারনে চাষাবাদ করা যাচ্ছে না। বর্তমানে আমরা কৃষকরা বড় বিপদে আছি। জমির মালিক বাচ্ছু মিয়া, শাহবুদ্দিনসহ অনেকে জানান, ইটভাটার মাটির জন্য ব্যবসায়ীরা কৌশলে একটি জমি কিনে নিয়ে ৩ থেকে ১৫ ফুট পর্যন্ত মাটি কেটে নিচ্ছে। এতে পাশ^বর্তি জমি ভেঙ্গে পড়ে। আশপাশে পুকুর থাকায় জমিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে সেখানে তিনি কোনো আবাদ করতে পারছেন না। বাধ্য হয়ে মাটি বিক্রি করতে হচ্ছে।

 

 

 

উপজেলা কৃষি সম্পসারন অফিসার কমল কুমার ভর্মণ বলেন, ফসলি জমিতে পুকুর খনন, জমি টপ সয়েল কেটে নেওয়ার ফলে দিন দিন ফসলি জমি কমে যাচ্ছে। এ নিয়ে আমরাও সঙ্কিত । বর্তমানে খাদ্য ঘাটতি না থাকলেও যেভাবে আবাদি জমির সংখ্যা কমে যাচ্ছে, তাতে একসময় খাদ্য ঘাটতি দেখা দিতে পারে। রামগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মনিরা খাতুন জানান, কেউ চাইলেই ইচ্ছেমতো জমির শ্রেণি পরিবর্তন করতে পারেন না। এ ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসকের অনুমতি নিতে হয়। এভাবে জমি শ্রেণি পরিবর্তন কেউ করলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।