বাংলাদেশ ০৭:৫০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
গোদাগাড়ীতে বালু মজুদ করতে ১০ একর জমির কাঁচা ধান কর্তন বেপরোয়া গতিতে চলমান রাইদা পরিবহনের বাসের চাপায় পিষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনায় ঘাতক বাস ড্রাইভার গ্রেফতার।  হত্যা মামলার ০১ জন পলাতক আসামীকে ০৬ দিনের মধ্যে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। চট্টগ্রামে বিয়ের নামে ফাঁদ, একাধিক পুরুষকে নিঃস্ব করেছেন সুন্দরী টুম্পা কষ্টিপাথরের নন্দী মূর্তি-সংঘবদ্ধ পাচারকারীচক্রের মূলহোতা সহ ০২জন আসামীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ভান্ডারিয়ায় আলতাফ হোসেন স্মৃতি সংসদের শুভ উদ্বোধন করলেন শিক্ষানুরাগী ফজলুল করিম মিঠু মিয়া বদলগাছীতে মটর সাইকেল ভুটভুটি সংঘর্ষে ঝরে গেল তাজা একটি প্রান। শতাধিক রোভার সহচরকে দীক্ষা দিলো জবি রোভার স্কাউট গ্রুপ  হত্যা মামলার পলাতক আসামীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাক্টরচাপায় অটোরিকশা যাত্রী নিহত ১৫ দিনের ঈদযাত্রায় ২৯৪ প্রাণের মৃত্যুমিছিল : সেভ দ্য রোড অতিরিক্ত টোল আদায়, গোনায় ধরছে না কাউকে ইজারাদার ভালুকায় স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর ধর্ষন মামলা স্বামী কারাগারে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা যশোরে তীব্র তাপদাহে পুড়ছে মানুষ  মাধবপুরে তরুণের বিরুদ্ধে বাবা মা ও ভাইকে নির্যাতনের অভিযোগ

মধুপুরে চায়না জাল দিয়ে চলছে মাছ নিধন

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৯:০০:২৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ৪ জুলাই ২০২২
  • ১৬৭৭ বার পড়া হয়েছে

মধুপুরে চায়না জাল দিয়ে চলছে মাছ নিধন

আঃ হামিদ মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ 
টাঙ্গাইলের মধুপুরে চায়না জাল দিয়ে প্রতিনিয়ত চলছে ছোট ছোট রেণুপোনা সহ রুই, কাতলা, বোয়াল,  বাঘাইড়, আইড়, চিতল ও অন্যান্য সকল প্রকার মাছ নিধন। মধুপুর পৌরসভা সহ উপজেলার বিভিন্ন নদ-নদীসহ খালবিল, নামা ও ডুবাতে প্রতিনিয়তই ব্যবহার করা হচ্ছে চায়না জাল নামের এক বিশেষ ধরনের ফাঁদ। যে ফাঁদে নির্বিচারে মারা পড়ছে রেণুপোনাসহ সব ধরনের মাছ। যার ফলে ভবিষ্যতে মধুপুর উপজেলায় বড় ধরনের মাছের সংকটে পড়ার আশংকা করছেন বিশিষ্টজনেরা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়- চায়না সুতায় দেশীয় ভাবে তৈরী এই জাল ২ থেকে ৩ফুট করে চারকোনা বিশিষ্ট ৭ ফুট চওড়া এবং ৩০ থেকে ৮০ফুট পর্ষন্ত লম্বা হয়ে থাকে। ২ সুতী লোহার রড দিয়ে দুইপ্রান্তের প্রথমে গোলাকার পরে পর্ষায়ক্রমে চারকোনা করে ২ফুট পরপর সারিবাঁধা অবস্থায় জাল দিয়ে জড়ানো এবং  ভিতরে একটি জাল বিশেষ কায়দায় লাগানো যা দোয়াইরের পারার মতো দেখতে। ড্রেনের মতো লম্বা এই জালের শেষ প্রান্ত পর্ষন্ত দুই পার্শ্বেই প্রায় ৩০ থেকে ৭০টি মাছ ঢুকার ফাদ সংকুচিত অবস্থায় থাকে যার ফলে রেনুপোনাসহ যেকোন বড় মাছ ঢুকলে আর বেরিয়ে আসতে পারেনা।
এই চায়না ফাঁদ নামক জালের আকার ৭০/৮০ ফুট লম্বা এবং ৭ফুট গোলাকার থাকার কারণে মাছ অবাধে  চলাচল করতে পারে ফলে তা সর্বদাই তরতাজা ও জীবিত থাকে কখনোই নষ্ট হয় না।
আকার ভেদে ৩০ ফুট মাপের জাল ২ হাজার ৫০০টাকা, ৫০ফুট মাপের জাল ৩ হাজার ৫০০ টাকা ও ৮০ ফুট মাপের জাল ৭/৮ হাজার টাকায় খুচরা কিনতে পাওয়া যায়।
বিশেষ কায়দায় তৈরী চায়না ফাঁদ ব্যবহারকারীএক জেলে বলেন-দেশীয় কারেন্ট জালে মাছ আটকে কাটা পড়ে মারা যায়, দামও কম পাওয়া যায়, জাল থেকেও মাছ ছাড়ানো কষ্টকর ও অনেক সময়ের ব্যাপার।
 চীনের আবিস্কার এই বিশেষ ‘চায়না ফাঁদ নামক জালে’ ছোট-বড় সকল প্রকার মাছই আটকা পড়ে। মাছ বের করে আনাও সহজ এবং তাজা থাকে, দামও বেশি পাওয়া যায়। আষাঢ় মাস থেকে আশ্বিন পর্যন্ত এই চার মাস নদী-নালা, খাল-বিল, নামা জায়গাতে প্রচুর মাছ ধরা পড়ে।
 বৃষ্টির কারণে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হওয়ায় নদীনালা, বিল-ঝিল, খানাখন্দরে রেনুপোনাসহ ছোট বড়  প্রচুর মাছ ধরা পড়ে এই চায়না ফাঁদে।
কারেন্ট জালের চেয়েও ভয়াবহ এই চায়না ফাঁদ মাটির সাথে আটকে থাকে যার ফলে রেনুপোনাসহ সব ধরনের ছোট বড় মাছ এ জালে ধরা পড়ে।
উপজেলার প্রায় সকল এলাকাতেই এই জালের অবাধ ব্যবহার প্রচুর লক্ষ করা যায়। মধুপুরের প্রায় সব নেটের দোকানেই এই চায়না জাল দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য টানিয়ে অবাধে বিক্রি করা হচ্ছে। এছাড়া অনেকেই টাকা সাশ্রয়ের জন্য হামিদপুর ও কালিহাতী থেকেও এই অবৈধ চায়না জাল ক্রয় করছেন।
স্থানীয় এলাকাবাসী জানান- দেশীয় প্রজাতির মাছের রেনুপোনার বংশ বিস্তার ও সংরক্ষণে হুমকি এই চায়না ফাঁদ ও কারেন্ট জালের বিরুদ্ধে খুব দ্রুত আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে সকল প্রকার দেশীয় মাছের ব্যাপক সংকটে পড়বেন উপজেলাবাসি।
এই ‘চায়না জালের ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করে ইতিমধ্যে বিভিন্ন জেলা উপজেলায় অভিযান চালিয়ে অর্থদন্ড সহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ও জাল নিধনের কাজ অব্যাহত রয়েছে ।
মধুপুর উপজেলাবাসী খুব দ্রুত সময়ে এই চায়না জালের ব্যবহার বন্ধ সহ বিক্রয়কারীর বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য উপজেলা প্রশাসনের প্রতি বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানান।
এব্যাপারে মধুপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা তারিকুল ইসলামের সহিত কথা বললে তিনি জানান, আমাদের জেলা মৎস্য কর্মকর্তার নির্দেশ আছে যারা এধরনেন জাল দিয়ে মাছ ধরবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্হা নেয়া হবে।
ইতিমধ্যেই উপজেলার কয়েকটি বিলে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করে নিষিদ্ধ চায়না জাল পুড়িয়ে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। আমরা বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচানা করেছি। চায়না জালের ব্যাপারে আমাদের কাছে কোন রকম তথ্য আসা মাত্রই আইনগত ব্যাবস্হা নেওয়া হবে।
আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

গোদাগাড়ীতে বালু মজুদ করতে ১০ একর জমির কাঁচা ধান কর্তন

মধুপুরে চায়না জাল দিয়ে চলছে মাছ নিধন

আপডেট সময় ০৯:০০:২৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ৪ জুলাই ২০২২
আঃ হামিদ মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ 
টাঙ্গাইলের মধুপুরে চায়না জাল দিয়ে প্রতিনিয়ত চলছে ছোট ছোট রেণুপোনা সহ রুই, কাতলা, বোয়াল,  বাঘাইড়, আইড়, চিতল ও অন্যান্য সকল প্রকার মাছ নিধন। মধুপুর পৌরসভা সহ উপজেলার বিভিন্ন নদ-নদীসহ খালবিল, নামা ও ডুবাতে প্রতিনিয়তই ব্যবহার করা হচ্ছে চায়না জাল নামের এক বিশেষ ধরনের ফাঁদ। যে ফাঁদে নির্বিচারে মারা পড়ছে রেণুপোনাসহ সব ধরনের মাছ। যার ফলে ভবিষ্যতে মধুপুর উপজেলায় বড় ধরনের মাছের সংকটে পড়ার আশংকা করছেন বিশিষ্টজনেরা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়- চায়না সুতায় দেশীয় ভাবে তৈরী এই জাল ২ থেকে ৩ফুট করে চারকোনা বিশিষ্ট ৭ ফুট চওড়া এবং ৩০ থেকে ৮০ফুট পর্ষন্ত লম্বা হয়ে থাকে। ২ সুতী লোহার রড দিয়ে দুইপ্রান্তের প্রথমে গোলাকার পরে পর্ষায়ক্রমে চারকোনা করে ২ফুট পরপর সারিবাঁধা অবস্থায় জাল দিয়ে জড়ানো এবং  ভিতরে একটি জাল বিশেষ কায়দায় লাগানো যা দোয়াইরের পারার মতো দেখতে। ড্রেনের মতো লম্বা এই জালের শেষ প্রান্ত পর্ষন্ত দুই পার্শ্বেই প্রায় ৩০ থেকে ৭০টি মাছ ঢুকার ফাদ সংকুচিত অবস্থায় থাকে যার ফলে রেনুপোনাসহ যেকোন বড় মাছ ঢুকলে আর বেরিয়ে আসতে পারেনা।
এই চায়না ফাঁদ নামক জালের আকার ৭০/৮০ ফুট লম্বা এবং ৭ফুট গোলাকার থাকার কারণে মাছ অবাধে  চলাচল করতে পারে ফলে তা সর্বদাই তরতাজা ও জীবিত থাকে কখনোই নষ্ট হয় না।
আকার ভেদে ৩০ ফুট মাপের জাল ২ হাজার ৫০০টাকা, ৫০ফুট মাপের জাল ৩ হাজার ৫০০ টাকা ও ৮০ ফুট মাপের জাল ৭/৮ হাজার টাকায় খুচরা কিনতে পাওয়া যায়।
বিশেষ কায়দায় তৈরী চায়না ফাঁদ ব্যবহারকারীএক জেলে বলেন-দেশীয় কারেন্ট জালে মাছ আটকে কাটা পড়ে মারা যায়, দামও কম পাওয়া যায়, জাল থেকেও মাছ ছাড়ানো কষ্টকর ও অনেক সময়ের ব্যাপার।
 চীনের আবিস্কার এই বিশেষ ‘চায়না ফাঁদ নামক জালে’ ছোট-বড় সকল প্রকার মাছই আটকা পড়ে। মাছ বের করে আনাও সহজ এবং তাজা থাকে, দামও বেশি পাওয়া যায়। আষাঢ় মাস থেকে আশ্বিন পর্যন্ত এই চার মাস নদী-নালা, খাল-বিল, নামা জায়গাতে প্রচুর মাছ ধরা পড়ে।
 বৃষ্টির কারণে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হওয়ায় নদীনালা, বিল-ঝিল, খানাখন্দরে রেনুপোনাসহ ছোট বড়  প্রচুর মাছ ধরা পড়ে এই চায়না ফাঁদে।
কারেন্ট জালের চেয়েও ভয়াবহ এই চায়না ফাঁদ মাটির সাথে আটকে থাকে যার ফলে রেনুপোনাসহ সব ধরনের ছোট বড় মাছ এ জালে ধরা পড়ে।
উপজেলার প্রায় সকল এলাকাতেই এই জালের অবাধ ব্যবহার প্রচুর লক্ষ করা যায়। মধুপুরের প্রায় সব নেটের দোকানেই এই চায়না জাল দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য টানিয়ে অবাধে বিক্রি করা হচ্ছে। এছাড়া অনেকেই টাকা সাশ্রয়ের জন্য হামিদপুর ও কালিহাতী থেকেও এই অবৈধ চায়না জাল ক্রয় করছেন।
স্থানীয় এলাকাবাসী জানান- দেশীয় প্রজাতির মাছের রেনুপোনার বংশ বিস্তার ও সংরক্ষণে হুমকি এই চায়না ফাঁদ ও কারেন্ট জালের বিরুদ্ধে খুব দ্রুত আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে সকল প্রকার দেশীয় মাছের ব্যাপক সংকটে পড়বেন উপজেলাবাসি।
এই ‘চায়না জালের ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করে ইতিমধ্যে বিভিন্ন জেলা উপজেলায় অভিযান চালিয়ে অর্থদন্ড সহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ও জাল নিধনের কাজ অব্যাহত রয়েছে ।
মধুপুর উপজেলাবাসী খুব দ্রুত সময়ে এই চায়না জালের ব্যবহার বন্ধ সহ বিক্রয়কারীর বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য উপজেলা প্রশাসনের প্রতি বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানান।
এব্যাপারে মধুপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা তারিকুল ইসলামের সহিত কথা বললে তিনি জানান, আমাদের জেলা মৎস্য কর্মকর্তার নির্দেশ আছে যারা এধরনেন জাল দিয়ে মাছ ধরবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্হা নেয়া হবে।
ইতিমধ্যেই উপজেলার কয়েকটি বিলে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করে নিষিদ্ধ চায়না জাল পুড়িয়ে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। আমরা বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচানা করেছি। চায়না জালের ব্যাপারে আমাদের কাছে কোন রকম তথ্য আসা মাত্রই আইনগত ব্যাবস্হা নেওয়া হবে।