বাংলাদেশ ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মেহেন্দিগঞ্জে কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্য পুলিশের হাতে আটক। পঞ্চগড়ে বঞ্চিত শিশুদের আনন্দ দিতে শিশুস্বর্গের নানা আয়োজন শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চার নেতা কর্মীকে বহিষ্কার। অস্বাস্থ্যকর জেলি পুশকৃত চিংড়ি বাজারজাতকরণের উদ্দেশ্যে পরিবহনে সহায়তা করার অপরাধে চিংড়ি মালিককে জরিমানা ও জেলি পুশ চিংড়ি ধ্বংস করেছে র‌্যাব। কাউখালীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতিসহ ৪ প্রার্থী জামানত হারান  চাকরি পেয়ে তো ঠিকই ঘুষ নিবেন আমরা একটু বেশি নিলে সমস্যা কি; রাবির দোকানি নরসিংদীর রায়পুরায় ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীকে পিটিয়ে হত্যা কালকিনি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী তৌফিকুজ্জামান শাহীন সাহস করে উঠে দাঁড়ান নইলে কাল আপনার পালা: মঈন উদ্দিন খান মতিহারে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার সাপাহারে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী হলেন যারা ঘাটাইলে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার শ্রমজীবী-পথচারীদের মাঝে দাগনভূঞা সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের শরবত বিতরণ  কামারগাঁ ইউপি বাসীর পক্ষ থেকে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ময়নাকে সংবর্ধনা  সকল বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে এগিয়ে চলেছেন রায়গঞ্জের ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম নান্নু

বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেই বিনা বেতনে পড়ার সুযোগ

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৮:২০:১৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২
  • ১৬৭৮ বার পড়া হয়েছে

বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেই বিনা বেতনে পড়ার সুযোগ

মোঃ শহিদুল ইসলাম, টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধিঃ
ঈদুল আজহা উপলক্ষে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকবে বিদ্যালয়। এ সময় মাধ্যমিক পর্যায়ের কোনো শিক্ষার্থী যাতে বাল্যবিয়ের শিকার হয়ে ঝড়ে না পরে তাই বাল্যবিয়ে বন্ধে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা এসএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

 

 

বিদ্যালয়ের নেওয়া উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে- কোনো ছাত্রী তার নিজের বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে পারলে সে বিনা বেতনে ওই বিদ্যালয়ে লেখাপড়া চালিয়ে যেতে পারবে। এছাড়া কোনো শিক্ষার্থী বাল্যবিয়ের খবর দিলে তারও তিন মাসের বেতন মওকুফ করা হবে।

 

জানা গেছে, আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গত শনিবার (২ জুলাই) থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এতে দীর্ঘদিন বিদ্যালয় বন্ধ থাকবে। বিদ্যালয় বন্ধ থাকার সুযোগে বাল্যবিয়ের শিকার হয় মেয়ে শিক্ষার্থীরা। এছাড়া বিদ্যালয়গুলোতে ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীর হার বেড়ে যায়। বাল্যবিয়ের শিকার ও শিক্ষার্থীদের ঝড়েপড়া রোধে তাই এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন এসএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সন্তোষ কুমার দত্ত।

 

গত শনিবার (২ জুলাই) বিদ্যালয় বন্ধ হওয়ার দিনে শিক্ষার্থীদের জানানো হয়, কোনো ছাত্রী তার নিজের বাল্য বিয়ে বন্ধ করতে পারলে তাকে আর বিদ্যালয়ে পড়াশুনা করার জন্য মাসিক বেতন দিতে হবে না। এছাড়া কোনো ছাত্রী যদি তার গ্রামের কোনো মেয়ের বাল্যবিয়ে হচ্ছে এমন খবর জানাতে পারে তাহলে তার ৩ মাসের বেতন মওকুফ করা হবে।

 

এদিকে বাল্যবিয়ে রোধে বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত একজন করে শিক্ষার্থী নিয়ে একটি টিম গঠন করা হয়েছে। একটি ক্লাশের দুইজন শিক্ষক নিয়মিত ছাত্রীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখবে। গ্রামের কোনো ছাত্রী বাল্যবিয়ের শিকার হলেই গঠিত টিম বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবে। বিদ্যালয়ে এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয়রা বাসিন্দারা।

 

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানান, করোনাকালীন বিদ্যালয় বন্ধ থাকার কারণে অনেক সহপাঠী বাল্যবিয়ের শিকার হয়েছে। এদের মধ্যে অনেকেই লেখাপড়া বাদ দিয়েছে। নিজের বাল্যবিয়ে বন্ধ এবং আমাদের কোনো সহপাঠী যদি বাল্যবিয়ের শিকার হয় তাহলে শিক্ষকদের (স্যার) জানাবো। এতে করে বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করতে মাসিক বেতন যেমন দিতে হবে না অন্যদিকে আমাদের কোনো সহপাঠী বাল্য বিয়ের শিকার হবে না।

 

ফলদা এসএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা শাহনাজ পারভীন বলেন, আমরা শিক্ষকরা স্কুল বন্ধ থাকলেও ছাত্রীদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখি। এছাড়া ছাত্রীদের বাড়িতে গিয়ে তাদের খোঁজখবর নেই যাতে তারা বাল্যবিয়ের শিকার হয়ে ঝড়ে না পড়ে। অভিভাবকরা যাতে তাদের সন্তানদের বাল্যবিয়ে না দেয় সেটার কুফল ও আইন সম্পর্কে জানাই। বিদ্যালয়ে একটি টিমের মাধ্যমে আমরা এই কাজগুলো করি।

 

ফলদা এসএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সন্তোষ কুমার দত্ত বলেন, গ্রামাঞ্চলের মেয়েরা বাল্যবিয়ের শিকার হয় বেশি। বাল্যবিয়ে রোধে বিদ্যালয়ে একটি প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা ফলদার বিভিন্ন গ্রামে শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে বাল্যবিয়ে রোধে কাজ করে। ঈদকে কেন্দ্র করে বিদ্যালয় অনেকদিন বন্ধ থাকবে।

 

 

এই সময়ের মধ্যে যাতে কোনো শিক্ষার্থী বাল্যবিয়ের কারণে ঝড়ে না পড়ে এজন্য দুইটি ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ঘোষণাগুলো হল- যে ছাত্রী তার নিজের বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে পারবে তাকে বিদ্যালয়ে পড়ালেখার জন্য কোনো মাসিক বেতন দিতে হবে না। এছাড়া যে ছাত্রী তার এলাকায় বাল্য বিয়ে হওয়ার খবর দিতে পারবে তাকেও ৩ মাসের কোনো বেতন দিতে হবে না।

 

 

 

আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

মেহেন্দিগঞ্জে কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্য পুলিশের হাতে আটক।

বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেই বিনা বেতনে পড়ার সুযোগ

আপডেট সময় ০৮:২০:১৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২

মোঃ শহিদুল ইসলাম, টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধিঃ
ঈদুল আজহা উপলক্ষে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকবে বিদ্যালয়। এ সময় মাধ্যমিক পর্যায়ের কোনো শিক্ষার্থী যাতে বাল্যবিয়ের শিকার হয়ে ঝড়ে না পরে তাই বাল্যবিয়ে বন্ধে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা এসএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

 

 

বিদ্যালয়ের নেওয়া উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে- কোনো ছাত্রী তার নিজের বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে পারলে সে বিনা বেতনে ওই বিদ্যালয়ে লেখাপড়া চালিয়ে যেতে পারবে। এছাড়া কোনো শিক্ষার্থী বাল্যবিয়ের খবর দিলে তারও তিন মাসের বেতন মওকুফ করা হবে।

 

জানা গেছে, আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গত শনিবার (২ জুলাই) থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এতে দীর্ঘদিন বিদ্যালয় বন্ধ থাকবে। বিদ্যালয় বন্ধ থাকার সুযোগে বাল্যবিয়ের শিকার হয় মেয়ে শিক্ষার্থীরা। এছাড়া বিদ্যালয়গুলোতে ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীর হার বেড়ে যায়। বাল্যবিয়ের শিকার ও শিক্ষার্থীদের ঝড়েপড়া রোধে তাই এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন এসএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সন্তোষ কুমার দত্ত।

 

গত শনিবার (২ জুলাই) বিদ্যালয় বন্ধ হওয়ার দিনে শিক্ষার্থীদের জানানো হয়, কোনো ছাত্রী তার নিজের বাল্য বিয়ে বন্ধ করতে পারলে তাকে আর বিদ্যালয়ে পড়াশুনা করার জন্য মাসিক বেতন দিতে হবে না। এছাড়া কোনো ছাত্রী যদি তার গ্রামের কোনো মেয়ের বাল্যবিয়ে হচ্ছে এমন খবর জানাতে পারে তাহলে তার ৩ মাসের বেতন মওকুফ করা হবে।

 

এদিকে বাল্যবিয়ে রোধে বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত একজন করে শিক্ষার্থী নিয়ে একটি টিম গঠন করা হয়েছে। একটি ক্লাশের দুইজন শিক্ষক নিয়মিত ছাত্রীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখবে। গ্রামের কোনো ছাত্রী বাল্যবিয়ের শিকার হলেই গঠিত টিম বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবে। বিদ্যালয়ে এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয়রা বাসিন্দারা।

 

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানান, করোনাকালীন বিদ্যালয় বন্ধ থাকার কারণে অনেক সহপাঠী বাল্যবিয়ের শিকার হয়েছে। এদের মধ্যে অনেকেই লেখাপড়া বাদ দিয়েছে। নিজের বাল্যবিয়ে বন্ধ এবং আমাদের কোনো সহপাঠী যদি বাল্যবিয়ের শিকার হয় তাহলে শিক্ষকদের (স্যার) জানাবো। এতে করে বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করতে মাসিক বেতন যেমন দিতে হবে না অন্যদিকে আমাদের কোনো সহপাঠী বাল্য বিয়ের শিকার হবে না।

 

ফলদা এসএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা শাহনাজ পারভীন বলেন, আমরা শিক্ষকরা স্কুল বন্ধ থাকলেও ছাত্রীদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখি। এছাড়া ছাত্রীদের বাড়িতে গিয়ে তাদের খোঁজখবর নেই যাতে তারা বাল্যবিয়ের শিকার হয়ে ঝড়ে না পড়ে। অভিভাবকরা যাতে তাদের সন্তানদের বাল্যবিয়ে না দেয় সেটার কুফল ও আইন সম্পর্কে জানাই। বিদ্যালয়ে একটি টিমের মাধ্যমে আমরা এই কাজগুলো করি।

 

ফলদা এসএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সন্তোষ কুমার দত্ত বলেন, গ্রামাঞ্চলের মেয়েরা বাল্যবিয়ের শিকার হয় বেশি। বাল্যবিয়ে রোধে বিদ্যালয়ে একটি প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা ফলদার বিভিন্ন গ্রামে শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে বাল্যবিয়ে রোধে কাজ করে। ঈদকে কেন্দ্র করে বিদ্যালয় অনেকদিন বন্ধ থাকবে।

 

 

এই সময়ের মধ্যে যাতে কোনো শিক্ষার্থী বাল্যবিয়ের কারণে ঝড়ে না পড়ে এজন্য দুইটি ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ঘোষণাগুলো হল- যে ছাত্রী তার নিজের বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে পারবে তাকে বিদ্যালয়ে পড়ালেখার জন্য কোনো মাসিক বেতন দিতে হবে না। এছাড়া যে ছাত্রী তার এলাকায় বাল্য বিয়ে হওয়ার খবর দিতে পারবে তাকেও ৩ মাসের কোনো বেতন দিতে হবে না।