বাংলাদেশ ০৯:০৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
জণগণের পাশে ছিলাম, আছি এবং আজীবন থাকবো-অ্যাড. অরুনাংশু দত্ত টিটো দোকানের বাকির টাকা দিতে দেরি করায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে যখম, থানায় অভিযোগ।  সকল দলের মানুষের সেবক হিসেবে পাশে থাকতে চাই- অধ্যক্ষ সইদুল হক  পিরোজপুরে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা টিভি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে ঘোড়া মার্কার প্রার্থীকে জরিমানা রায়গঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে জামরুল ফল বিদেশী মদসহ ০৩ জন কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। সরকারের অনিচ্ছাতেই উচ্চ শিক্ষায় স্বদেশি ভাষা চালু হয়নি: ড. সলিমুল্লাহ খান রাজশাহীতে ৩০ ছাত্রকে বলাৎকার করে ভিডিও ধারণ করেন শিক্ষক ওয়াকেল ঠাকুরগাঁওয়ে উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে জেলা আওয়ামী রাজনীতিতে বিভক্তি হওয়ার আশঙ্কা রাজশাহীর পুঠিয়ায় তিন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সম্পদশালী মাসুদ পুঠিয়া উপজেলায় নির্বাচন: চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীদের কার সম্পদ কত? রাজশাহী মহানগরীতে চেকপোস্টে দুই পুলিশ পিটিয়ে আহত! দুইভাই আটক কাউনিয়ায় লিগ্যাল এইড সার্ভিসেস ট্রাস্ট এর সভা অনুষ্ঠিত ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি মামলার আসামী নাজিবুল ইসলাম নাজিমকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। উল্লাপাড়ায় সড়ক দূর্ঘনায় ১ জনের মৃত্যু 

ফাগুনের বনে চোখধাঁধানো শিমুল ফুলের প্রস্থান রচিত হচ্ছে ধীরে ধীরে। 

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:০১:২০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • ১৭১৪ বার পড়া হয়েছে

ফাগুনের বনে চোখধাঁধানো শিমুল ফুলের প্রস্থান রচিত হচ্ছে ধীরে ধীরে। 

মাহফুজ রাজা, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ;
“নারী হয় লজ্জাতে লাল,ফাগুনে লাল শিমুল বন, এ কোন রঙে রঙিন হলো বাউল মন”? গীতিকারের গানের ছন্দে উচ্ছ্বসিত যৌবন ফুটে উঠেছে শিমুল ফুলের।পকৃতপক্ষে প্রকৃতির যৌবনের বাঁধ ভাঙ্গা মনোলোভা সৌন্দর্যের অবগাহন এই বসন্তের আমলে।প্রকৃতি থেকে বিদায় নিচ্ছে শীত। গাছে গাছে সবুজ পাতা। ফসলের মাঠ সবুজে ছেয়ে আছে। মৃদুমন্দ হাওয়া বইছে। নাকে ভেসে আসছে শিমুল ফুলের ঘ্রাণ। কিশোরগঞ্জ জেলার প্রকৃতিতে এমনি রুপের দেমাগ  এখন।
প্রকৃতিতে বইছে দখিনা বাতাস। কোকিলের সুমিষ্ট কুহুতানে ফাগুনের উত্তাল হাওয়া দিচ্ছে দোলা। গাছে গাছে জেগে উঠেছে সবুজ পাতা। মুকুল আর শিমুল ফুল দেখে বোঝা যায় শীত বিদায় নিয়ে এসেছে ফাগুন। শিমুল ফুলে এখন বসন্তের হাসি। ঋতুরাজ বসন্তের আগমনে আবহমান গ্রামবাংলার প্রকৃতি রাঙিয়ে উঠে নয়নাভিরাম শিমুল ফুল।
কিন্তু কালের বিবর্তনে কিশোরগঞ্জের ফাগুনে চোখধাঁধানো গাঢ় লাল রঙের অপরূপ সাজে সজ্জিত শিমুল গাছ এখন বিলুপ্ত প্রায়। এক যুগ আগেও কিশোরগঞ্জের প্রত্যেকটি উপজেলার গ্রামের অধিকাংশ বাড়ির আনাচে-কানাচে, রাস্তায়, পতিত ভিটায় প্রচুর শিমুল গাছ দেখা যেত। গাছে গাছে প্রস্ফুটিত শিমুল ফুলই স্মরণ করিয়ে দিত, এসেছে বসন্ত।বর্তমানে শিমুলের বিয়োজনে মলিন হাসির আনাগোনা দিগন্তজোড়া।
প্রাকৃতিকভাবে তুলা আহরণের অন্যতম অবলম্বন শিমুল গাছ। জানা যায়, এ গাছের সব অংশেই রয়েছে ভেষজগুণ। শীতের শেষে শিমুলের পাতা ঝরে পড়ে। বসন্তের শুরুতেই গাছে ফুল ফোটে। আর এ ফুল থেকেই হয় ফল। চৈত্র মাসের শেষের দিকে ফল পুষ্ট হয়। বৈশাখ মাসের দিকে ফলগুলো পেকে শুকিয়ে যায়। বাতাসে আপনা-আপনিই ফল ফেটে প্রাকৃতিকভাবে তুলার সঙ্গে উড়ে দূর-দূরান্তে ছড়িয়ে পড়া বীজ থেকেই নতুন গাছের জন্ম হয়।
অন্যান্য গাছের মতো এ গাছ কেউ শখ করে রোপণ করে না। নেওয়া হয় না কোনো যত্ন। প্রাকৃতিকভাবেই গাছ বেড়ে ওঠে। এ গাছের প্রায় সব অংশই কাজে লাগে। এর ছাল, পাতা ও ফুল গবাদিপশুর খুব প্রিয় খাদ্য।
বর্তমানে মানুষ এ গাছ কারণে-অকারণে কেটে ফেলছে মানুষ। অতীতে নানা ধরনের প্যাকিং বাক্স তৈরি ও ইটভাটার জ্বালানি, দিয়াশলাইয়ের কাঠি হিসেবে ব্যবহার হলেও সেই তুলনায় রোপণ করা হয়নি। ফলে আজ কিশোরগঞ্জ জেলায় বিলুপ্তির পথে শিমুল গাছ।
নিকলী উপজেলার হাসিবুল হাসান বলেন, আগে গ্রামে প্রচুর শিমুল গাছ ছিল। এখন আর দেখা যায় না। একটি বড় ধরনের গাছ থেকে তুলা বিক্রি করে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা আয় করা সম্ভব। আগের তুলনায় এখন শিমুলের তুলার দাম অনেক বেড়ে গেছে। তবুও এই গাছ বিলুপ্তির পথে। আগের যুগে শিমুল তুলা দিয়ে লেপ, তোশক ও বালিশ তৈরি করা হতো। কিন্তু শিমুল তুলার মূল্য বৃদ্ধিতে গার্মেন্টের জুট কাপড় দিয়ে তৈরি তুলা, পাম্পের তোশক, বালিশসহ পঞ্চ, কাপাশ তুলা আজ শিমুল তুলার স্থান দখল করে নিয়েছে। তা ছাড়া শিমুল ফল ফেটে তুলা ছড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন স্থানে। তাই শিমুল গাছকে একটি বাড়তি ঝামেলা হিসেবে দেখতে শুরু করেছে গ্রাম বাংলার মানুষ।’হোসেনপুর উপজেলার হোসেনপুর মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যাপক আশরাফ আহমেদ, তাড়াইল উপজেলার মামুন ভূইয়া,সদরের মনিরুজ্জামান, নিকলী উপজেলার আব্দুর রহিম,বাজিতপুরের সাইদুর রহমান, মিঠামইনের শফিকুল ইসলামসহ অনেকেই বলেন,এই সময়কালে রাস্তার ধারে আপন সৌন্দর্যে ফুটে থাকা কিংবা গাছের নিচে লাল জাজিম আগের মত চোখে পড়েনা।
ব্যবসায়ী সূত্রে জানা যায়,বর্তমানে শিমুল তুলা ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা কেজি, আর গার্মেন্টের জুট দিয়ে তৈরি তুলা ৪০ থেকে ৫০ টাকা, কাপাশ তুলা ২৫০ এবং পজ্ঞের তুলা ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
শিমুলগাছে রয়েছে অসংখ্য গুনাগুন আমাদের যৌন শক্তি বৃদ্ধি করার পাশাপাশি বীর্য ঘন করে থাকে। অনেক পুরুষের বাবা হওয়ার সম্ভবনা কম থাকে এর প্রধান কারন এদের বীর্যে শুক্রাণুর পরিমান অনেক কম। তাই স্ত্রী সহবাস করার পরেও তাদের সন্তান হয় না। বীর্যে শুক্রাণুর পরিমান বৃদ্ধি করতে শিমুল মূল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। নিয়মিত এই মূল চুর্ণ খেলে শুক্রাণুর বেড়ে যাবে এবং সন্তান হওয়ার সম্ভবনা থাকে। এছারা আরো কিছু উপকারিতা জেনে নিই। মাওলানা জাকির হোসাইন আজাদীর সত্যকথা প্রকাশনীর “গাছ-গাছড়ার হাজার গুন লতা পাতায় রোগমুক্তিতে উল্লেখিতঃ-
১) অনেক পুরুষ আছে স্ত্রী সহবাসে অধিক সময় থাকতে পারেন না। এতে দুই জনের মিলন তৃপ্তি হয় না। স্ত্রীর মনে সবসময় কষ্ট থেকে যায়। এবং জীবনে নেমে আসে হতাসা। এর প্রধান কারণ পুরুষের বীর্য পাতলা। আর বীর্য পাতলা হলে স্ত্রী সহবাসে কখনো দীর্ঘ সময় থাকা যায় না। এই কঠিন সমস্যার সমাধান দিবে শিমুল মূল। কারণ নিয়মিত শিমুল মূল,তেতুল বীজের গুড়া ও অর্শ্বগন্ধা একত্রে খেলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাবে। ফলে দীর্ঘ সময় স্ত্রী সহবাস করা যাবে। ২) আগেই বলা হয়েছে এটি খেলে পুরুষের শুক্ররানু বৃদ্ধি পায়। এবং এটি যৌবন ধরে রাখে দীর্ঘদিন। ৩) অনেকের রক্ত আময়শায় ভূগছেন। আর এই থেকে পরিত্রাণ পেতে শিমুল মূল চুর্ণ এর সাথে ছাগলের দুধ পান করতে হবে। বেশ কয়েক দিন খেলে এটি ভালো হয়ে যাবে।
৪) কিছু কিছু সময় আমাদের ফোরা দেখা যায়। এবং এটি অধিক যন্ত্রনা দেয়। এই ব্যাথা থেকে মুক্তি পেতে শিমুল মূল ছেচে ক্ষত স্থানে লাগালে দ্রুত কাজ করবে। ৫) অনেক ক্ষেত্রে মহিলাদের অতিরিক্ত রক্তস্রাব হয় । আর এটি খেলে এই রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। ৬) এটি মেছতা ও উদরাময় রোগ দূর করে থাকে।
৭) শারীরিক দুর্বলতা ও যৌন দুর্বলতা উভয় দূর করতে প্রতিদিন এই চূণের সাথে মধু মিশিয়ে খেলে ভালো কাজ করে। এতে বলা যায় শিমুল মূলের উপকারিতা স্বাস্থ্যের জন্য অনেক।(বিশেষজ্ঞদের পরমর্শ অনুযায়ী সেব্য)
বন ও পরিবেশ নিয়ে কাজ করা সংশ্লিষ্টরা জানান, বাণিজ্যিকভাবে এখন জেলার কোথাও এই শিমুলগাছ বা তুলা চাষ করা হয় না। এটি প্রাকৃতিকভাবে বেড়ে ওঠে। যার কারণে শিমুলগাছ ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে। এর তুলাটা খুবই ভালো এটি বাণিজ্যিকভাবে চাষ হলে মানুষ আসল তুলার মর্ম বুঝত।
জনপ্রিয় সংবাদ

জণগণের পাশে ছিলাম, আছি এবং আজীবন থাকবো-অ্যাড. অরুনাংশু দত্ত টিটো

ফাগুনের বনে চোখধাঁধানো শিমুল ফুলের প্রস্থান রচিত হচ্ছে ধীরে ধীরে। 

আপডেট সময় ০৩:০১:২০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২২
মাহফুজ রাজা, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ;
“নারী হয় লজ্জাতে লাল,ফাগুনে লাল শিমুল বন, এ কোন রঙে রঙিন হলো বাউল মন”? গীতিকারের গানের ছন্দে উচ্ছ্বসিত যৌবন ফুটে উঠেছে শিমুল ফুলের।পকৃতপক্ষে প্রকৃতির যৌবনের বাঁধ ভাঙ্গা মনোলোভা সৌন্দর্যের অবগাহন এই বসন্তের আমলে।প্রকৃতি থেকে বিদায় নিচ্ছে শীত। গাছে গাছে সবুজ পাতা। ফসলের মাঠ সবুজে ছেয়ে আছে। মৃদুমন্দ হাওয়া বইছে। নাকে ভেসে আসছে শিমুল ফুলের ঘ্রাণ। কিশোরগঞ্জ জেলার প্রকৃতিতে এমনি রুপের দেমাগ  এখন।
প্রকৃতিতে বইছে দখিনা বাতাস। কোকিলের সুমিষ্ট কুহুতানে ফাগুনের উত্তাল হাওয়া দিচ্ছে দোলা। গাছে গাছে জেগে উঠেছে সবুজ পাতা। মুকুল আর শিমুল ফুল দেখে বোঝা যায় শীত বিদায় নিয়ে এসেছে ফাগুন। শিমুল ফুলে এখন বসন্তের হাসি। ঋতুরাজ বসন্তের আগমনে আবহমান গ্রামবাংলার প্রকৃতি রাঙিয়ে উঠে নয়নাভিরাম শিমুল ফুল।
কিন্তু কালের বিবর্তনে কিশোরগঞ্জের ফাগুনে চোখধাঁধানো গাঢ় লাল রঙের অপরূপ সাজে সজ্জিত শিমুল গাছ এখন বিলুপ্ত প্রায়। এক যুগ আগেও কিশোরগঞ্জের প্রত্যেকটি উপজেলার গ্রামের অধিকাংশ বাড়ির আনাচে-কানাচে, রাস্তায়, পতিত ভিটায় প্রচুর শিমুল গাছ দেখা যেত। গাছে গাছে প্রস্ফুটিত শিমুল ফুলই স্মরণ করিয়ে দিত, এসেছে বসন্ত।বর্তমানে শিমুলের বিয়োজনে মলিন হাসির আনাগোনা দিগন্তজোড়া।
প্রাকৃতিকভাবে তুলা আহরণের অন্যতম অবলম্বন শিমুল গাছ। জানা যায়, এ গাছের সব অংশেই রয়েছে ভেষজগুণ। শীতের শেষে শিমুলের পাতা ঝরে পড়ে। বসন্তের শুরুতেই গাছে ফুল ফোটে। আর এ ফুল থেকেই হয় ফল। চৈত্র মাসের শেষের দিকে ফল পুষ্ট হয়। বৈশাখ মাসের দিকে ফলগুলো পেকে শুকিয়ে যায়। বাতাসে আপনা-আপনিই ফল ফেটে প্রাকৃতিকভাবে তুলার সঙ্গে উড়ে দূর-দূরান্তে ছড়িয়ে পড়া বীজ থেকেই নতুন গাছের জন্ম হয়।
অন্যান্য গাছের মতো এ গাছ কেউ শখ করে রোপণ করে না। নেওয়া হয় না কোনো যত্ন। প্রাকৃতিকভাবেই গাছ বেড়ে ওঠে। এ গাছের প্রায় সব অংশই কাজে লাগে। এর ছাল, পাতা ও ফুল গবাদিপশুর খুব প্রিয় খাদ্য।
বর্তমানে মানুষ এ গাছ কারণে-অকারণে কেটে ফেলছে মানুষ। অতীতে নানা ধরনের প্যাকিং বাক্স তৈরি ও ইটভাটার জ্বালানি, দিয়াশলাইয়ের কাঠি হিসেবে ব্যবহার হলেও সেই তুলনায় রোপণ করা হয়নি। ফলে আজ কিশোরগঞ্জ জেলায় বিলুপ্তির পথে শিমুল গাছ।
নিকলী উপজেলার হাসিবুল হাসান বলেন, আগে গ্রামে প্রচুর শিমুল গাছ ছিল। এখন আর দেখা যায় না। একটি বড় ধরনের গাছ থেকে তুলা বিক্রি করে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা আয় করা সম্ভব। আগের তুলনায় এখন শিমুলের তুলার দাম অনেক বেড়ে গেছে। তবুও এই গাছ বিলুপ্তির পথে। আগের যুগে শিমুল তুলা দিয়ে লেপ, তোশক ও বালিশ তৈরি করা হতো। কিন্তু শিমুল তুলার মূল্য বৃদ্ধিতে গার্মেন্টের জুট কাপড় দিয়ে তৈরি তুলা, পাম্পের তোশক, বালিশসহ পঞ্চ, কাপাশ তুলা আজ শিমুল তুলার স্থান দখল করে নিয়েছে। তা ছাড়া শিমুল ফল ফেটে তুলা ছড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন স্থানে। তাই শিমুল গাছকে একটি বাড়তি ঝামেলা হিসেবে দেখতে শুরু করেছে গ্রাম বাংলার মানুষ।’হোসেনপুর উপজেলার হোসেনপুর মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যাপক আশরাফ আহমেদ, তাড়াইল উপজেলার মামুন ভূইয়া,সদরের মনিরুজ্জামান, নিকলী উপজেলার আব্দুর রহিম,বাজিতপুরের সাইদুর রহমান, মিঠামইনের শফিকুল ইসলামসহ অনেকেই বলেন,এই সময়কালে রাস্তার ধারে আপন সৌন্দর্যে ফুটে থাকা কিংবা গাছের নিচে লাল জাজিম আগের মত চোখে পড়েনা।
ব্যবসায়ী সূত্রে জানা যায়,বর্তমানে শিমুল তুলা ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা কেজি, আর গার্মেন্টের জুট দিয়ে তৈরি তুলা ৪০ থেকে ৫০ টাকা, কাপাশ তুলা ২৫০ এবং পজ্ঞের তুলা ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
শিমুলগাছে রয়েছে অসংখ্য গুনাগুন আমাদের যৌন শক্তি বৃদ্ধি করার পাশাপাশি বীর্য ঘন করে থাকে। অনেক পুরুষের বাবা হওয়ার সম্ভবনা কম থাকে এর প্রধান কারন এদের বীর্যে শুক্রাণুর পরিমান অনেক কম। তাই স্ত্রী সহবাস করার পরেও তাদের সন্তান হয় না। বীর্যে শুক্রাণুর পরিমান বৃদ্ধি করতে শিমুল মূল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। নিয়মিত এই মূল চুর্ণ খেলে শুক্রাণুর বেড়ে যাবে এবং সন্তান হওয়ার সম্ভবনা থাকে। এছারা আরো কিছু উপকারিতা জেনে নিই। মাওলানা জাকির হোসাইন আজাদীর সত্যকথা প্রকাশনীর “গাছ-গাছড়ার হাজার গুন লতা পাতায় রোগমুক্তিতে উল্লেখিতঃ-
১) অনেক পুরুষ আছে স্ত্রী সহবাসে অধিক সময় থাকতে পারেন না। এতে দুই জনের মিলন তৃপ্তি হয় না। স্ত্রীর মনে সবসময় কষ্ট থেকে যায়। এবং জীবনে নেমে আসে হতাসা। এর প্রধান কারণ পুরুষের বীর্য পাতলা। আর বীর্য পাতলা হলে স্ত্রী সহবাসে কখনো দীর্ঘ সময় থাকা যায় না। এই কঠিন সমস্যার সমাধান দিবে শিমুল মূল। কারণ নিয়মিত শিমুল মূল,তেতুল বীজের গুড়া ও অর্শ্বগন্ধা একত্রে খেলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাবে। ফলে দীর্ঘ সময় স্ত্রী সহবাস করা যাবে। ২) আগেই বলা হয়েছে এটি খেলে পুরুষের শুক্ররানু বৃদ্ধি পায়। এবং এটি যৌবন ধরে রাখে দীর্ঘদিন। ৩) অনেকের রক্ত আময়শায় ভূগছেন। আর এই থেকে পরিত্রাণ পেতে শিমুল মূল চুর্ণ এর সাথে ছাগলের দুধ পান করতে হবে। বেশ কয়েক দিন খেলে এটি ভালো হয়ে যাবে।
৪) কিছু কিছু সময় আমাদের ফোরা দেখা যায়। এবং এটি অধিক যন্ত্রনা দেয়। এই ব্যাথা থেকে মুক্তি পেতে শিমুল মূল ছেচে ক্ষত স্থানে লাগালে দ্রুত কাজ করবে। ৫) অনেক ক্ষেত্রে মহিলাদের অতিরিক্ত রক্তস্রাব হয় । আর এটি খেলে এই রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। ৬) এটি মেছতা ও উদরাময় রোগ দূর করে থাকে।
৭) শারীরিক দুর্বলতা ও যৌন দুর্বলতা উভয় দূর করতে প্রতিদিন এই চূণের সাথে মধু মিশিয়ে খেলে ভালো কাজ করে। এতে বলা যায় শিমুল মূলের উপকারিতা স্বাস্থ্যের জন্য অনেক।(বিশেষজ্ঞদের পরমর্শ অনুযায়ী সেব্য)
বন ও পরিবেশ নিয়ে কাজ করা সংশ্লিষ্টরা জানান, বাণিজ্যিকভাবে এখন জেলার কোথাও এই শিমুলগাছ বা তুলা চাষ করা হয় না। এটি প্রাকৃতিকভাবে বেড়ে ওঠে। যার কারণে শিমুলগাছ ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে। এর তুলাটা খুবই ভালো এটি বাণিজ্যিকভাবে চাষ হলে মানুষ আসল তুলার মর্ম বুঝত।