বাংলাদেশ ০৩:৪৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থ ৩ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলেন সমাজ সেবক মিঠু মিয়া বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। বুড়িচং ফজলুর রহমান মেমোরিয়াল কলেজ অব টেকনোলজির শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মাদক সাপ্লাইয়ের অভিযোগ  পেকুয়ায় ইভটিজিংয়ের দায়ে ২ জনকে কারাদণ্ড পীরগঞ্জ মহিলা কলেজে মেহেদী উৎসব অনুষ্ঠিত। পীরগঞ্জে ডিজিটাল প্রযুক্তি ও জীবন জীবীকা বিষয়ক প্রশিক্ষণ চলছে পাঠক শূন্য রাজশাহীর পুঠিয়ার সাধারণ পাঠাগার হত্যা মামলার পলাতক অন্যতম আসামী নুরুলকে র‍্যাব কর্তৃক গ্রেফতার। রাজশাহীর পুঠিয়ায় যাবজ্জাীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেপ্তার কলাপাড়ায় জেলেদের জালে শিকার হলো জীবিত এক ডলফিন। দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত রাজশাহী মহানগরীতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার মির্জাগঞ্জে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ শেখ কামাল আইটি ট্রেনিংয়ে সারাদেশের মধ্যে প্রথম হয়েছে রাজাপুরের মশিউর রহমান তামিম ত্রিশালে রেইজ’র অভিবাসী বিষয়ক ওরিয়েন্টেশন

বিলুপ্তির পথে টাইপমেশিনের ব্যবহার

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:২০:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২
  • ১৭৩০ বার পড়া হয়েছে

বিলুপ্তির পথে টাইপমেশিনের ব্যবহার

শংকর চৌধুরী, হাটহাজারী প্রতিনিধি:
গ্রাম-গঞ্জে, অফিস-আদালতের একসময়ের জনপ্রিয় এই টাইপমেশিন কালের বিবর্তন, সভ্যতার আধুনিকায়ন ও প্রযুক্তির ডিজিটালায়নে নাই বললেই চলে। কোর্ট বিল্ডিং এর সামনে একসময় সারি সারি বসে বিরতিহীন কাজ করতো এই টাইপিস্টরা।কারণ টাইপমেশিনে বিদ্যুৎ লাগতো না। টাইপ করার জন্য সিরিয়াল নিতে হতো কাস্টমারদের। টাইপিস্টদের ছিল তখন অনেক কদর। হাসপাতাল-ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টারে তখন টাইপমেশিনে রিপোর্ট দেওয়া হতো।
এজন্য টাইপ জানা প্রার্থীকে অগ্রাধিকারে নিয়োগ দেওয়া হতো। এই টাইপিস্ট স্টাফদের বেতনও বাড়তি দেওয়া হতো। কারণ কম্পিউটার তখন সহজলভ্য ছিলো না বাংলাদেশে।তাছাড়া বিদ্যুৎও ছিলো না সবখানে। তাই একমাত্র টাইপমেশিনই ছিলো যতো মেডিকেল রিপোর্ট, দলিল, চুক্তিনামা এসব লিখার একমাত্র মাধ্যম। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে জনপ্রিয় এই টাইপমেশিন এখন তেমন ব্যবহার হয় না। কারণ এখন সবজায়গায় বিদ্যুৎ পৌঁছে যাওয়াতে টাইপমেশিনের পরিবর্তে চলছে কম্পিউটারে সকল কাজ। তাই অনেক টাইপিস্ট এখন কম্পিউটারে কাজ করে, আর যাদের বয়স হয়েছে তারা এই পেশা ছেড়ে দিয়ে অন্য পেশা বেছে নিয়েছে।
আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থ ৩ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলেন সমাজ সেবক মিঠু মিয়া

বিলুপ্তির পথে টাইপমেশিনের ব্যবহার

আপডেট সময় ০৩:২০:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২
শংকর চৌধুরী, হাটহাজারী প্রতিনিধি:
গ্রাম-গঞ্জে, অফিস-আদালতের একসময়ের জনপ্রিয় এই টাইপমেশিন কালের বিবর্তন, সভ্যতার আধুনিকায়ন ও প্রযুক্তির ডিজিটালায়নে নাই বললেই চলে। কোর্ট বিল্ডিং এর সামনে একসময় সারি সারি বসে বিরতিহীন কাজ করতো এই টাইপিস্টরা।কারণ টাইপমেশিনে বিদ্যুৎ লাগতো না। টাইপ করার জন্য সিরিয়াল নিতে হতো কাস্টমারদের। টাইপিস্টদের ছিল তখন অনেক কদর। হাসপাতাল-ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টারে তখন টাইপমেশিনে রিপোর্ট দেওয়া হতো।
এজন্য টাইপ জানা প্রার্থীকে অগ্রাধিকারে নিয়োগ দেওয়া হতো। এই টাইপিস্ট স্টাফদের বেতনও বাড়তি দেওয়া হতো। কারণ কম্পিউটার তখন সহজলভ্য ছিলো না বাংলাদেশে।তাছাড়া বিদ্যুৎও ছিলো না সবখানে। তাই একমাত্র টাইপমেশিনই ছিলো যতো মেডিকেল রিপোর্ট, দলিল, চুক্তিনামা এসব লিখার একমাত্র মাধ্যম। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে জনপ্রিয় এই টাইপমেশিন এখন তেমন ব্যবহার হয় না। কারণ এখন সবজায়গায় বিদ্যুৎ পৌঁছে যাওয়াতে টাইপমেশিনের পরিবর্তে চলছে কম্পিউটারে সকল কাজ। তাই অনেক টাইপিস্ট এখন কম্পিউটারে কাজ করে, আর যাদের বয়স হয়েছে তারা এই পেশা ছেড়ে দিয়ে অন্য পেশা বেছে নিয়েছে।