বাংলাদেশ ০২:০৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মহাসড়কে পণ্যবাহী যানবাহন থেকে চাঁদাবাজি চক্রের ১১ জনকে আটক করেছে র‌্যাব। শ্রীমঙ্গলে আড়াই বছরের প্রতিবন্ধী শিশুকে বিষ খাইয়ে হত্যা কালকিনিতে স্ত্রীর জন্য শিক্ষকদের কাছে ভোট চাওয়ার অভিযোগ সরকারী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাচন- ঠাকুরগাঁওয়ে প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা নব-নির্বাচিত ময়না চেয়ারম্যানকে গণসংবর্ধনা রাবি শিক্ষার্থী জিসানের শতাধিক নিরীক্ষাধর্মী ছবি নিয়ে একক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী রাবি সায়েন্স ক্লাবের ” Win the Career Race” কর্মশালার আয়োজন অনিয়মের অভিযোগে ইটভাটায় অর্থদন্ড করে ভ্রাম্যমাণ আদালত রাবিতে শুরু হল দুই দিনব্যাপী আরিইউসিসি জব ফেয়ার কেন্দ্রীয় ম‌হিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠ‌নিক সৈয়দা রা‌জিয়া মোস্তফা’র পৈত্রিক বসতঘরে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড যতদিন বাচবো মুলাদীর মানুষের সাথে থাকবো-মিঠু খান মির্জাগঞ্জের উপজেলা নির্বাচনে, প্রতিশ্রুতি নিয়ে ভোটের মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা কয়রায় হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত আট বছরের ঘুমন্ত শিশুকে কোলে করে ভুট্টা ক্ষেতে নিয়ে ধর্ষনের চেষ্টা নাগরপুরে নবনির্বাচিত শিক্ষক সমিতির নেতাদের সাথে মতবিনিময় করলেন – পান্না

ভৈরবে ক্যাপসিকাম চাষে কৃষকের সফলতা

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:৩৩:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • ১৭৩৬ বার পড়া হয়েছে

ভৈরবে ক্যাপসিকাম চাষে কৃষকের সফলতা

মাহফুজ রাজা, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ;
কিশোরগঞ্জের ভৈরবে প্রথমবারের মতো পুষ্টি গুণাগুণ সমৃদ্ধ ক্যাপসিকাম চাষ হচ্ছে। ক্যাপসিকাম চাষ করে সাফল্য পেয়েছেন এলাকার বাসিন্দারা।
ক্যাপসিকাম বা মিষ্টি মরিচ সারা বিশ্বেই একটি জনপ্রিয় সবজি। বাংলাদেশেও এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। মিষ্টি মরিচের আকার ও আকৃতি বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। তবে সাধারণত ফল গোলাকার ও ত্বক পুরু হয়। মিষ্টি মরিচ আমাদের দেশীয় প্রচলিত সবজি না হলেও ইদানিং এর চাষ প্রসারিত হচ্ছে। বিশেষ করে বড় বড় শহরের আশেপাশে সীমিত পরিসরে কৃষক ভাইয়েরা এর চাষ করে থাকে, যা অভিজাত হোটেল ও বিভিন্ন বড় বড় মার্কেটে বিক্রি হয়ে থাকে। এ ছাড়া মিষ্টি মরিচের বিদেশে রপ্তানীর সম্ভাবনাও প্রচুর। কারণ সারা বিশ্বে টমেটোর পরেই দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ সবজি হচ্ছে মিষ্টি মরিচ।
উপজেলার কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নের আদর্শপাড়া গ্রামের বাসিন্দা শহিদুল ইসলাম শাহিন। তিনি পেশায় এক জন স্কুল শিক্ষক। শিক্ষকতার পাশাপাশি বিভিন্ন জাতের সবজি চাষাবাদের সঙ্গে তিনি ক্যাপসিকাম আবাদ করে সফলতা অর্জন করেছেন।
শহিদুল ইসলাম জানান, ছয় বছর আগে একটি রেস্টুরেন্টে খেতে গিয়ে জানতে পারেন পিত্জা তৈরির প্রধান উপকরণ হচ্ছে এই ক্যাপসিকাম। তখনই তিনি ক্যাপসিকাম চাষের সিদ্ধান্ত নেন। পরে ২০১৭ সালে ৩০০ চারা সংগ্রহ করে এক বিঘা জমিতে আবাদ শুরু করেন।
তিনি বলেন, ‘এক বিঘা জমি প্রস্তুত করতে সব মিলে প্রায় ৫০ হাজার টাকা ব্যয় হয়। বর্তমানে ১৬০-২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন। এ মৌসুমে তার দুই লক্ষাধিক টাকা লাভ হবে।’
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আকলিমা বেগম বলেন, ‘এ সবজিটির কদর দিন দিন বেড়েই চলছে। আমরা প্রতিনিয়ত শহিদুল ইসলামকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা এবং পরামর্শ দিচ্ছি। শহরের সাজেদা আলাল জেনারেল হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. মো. নজরুল ইসলাম জানান, শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে ক্যাপসিকাম।
জনপ্রিয় সংবাদ

মহাসড়কে পণ্যবাহী যানবাহন থেকে চাঁদাবাজি চক্রের ১১ জনকে আটক করেছে র‌্যাব।

ভৈরবে ক্যাপসিকাম চাষে কৃষকের সফলতা

আপডেট সময় ০৩:৩৩:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২২
মাহফুজ রাজা, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ;
কিশোরগঞ্জের ভৈরবে প্রথমবারের মতো পুষ্টি গুণাগুণ সমৃদ্ধ ক্যাপসিকাম চাষ হচ্ছে। ক্যাপসিকাম চাষ করে সাফল্য পেয়েছেন এলাকার বাসিন্দারা।
ক্যাপসিকাম বা মিষ্টি মরিচ সারা বিশ্বেই একটি জনপ্রিয় সবজি। বাংলাদেশেও এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। মিষ্টি মরিচের আকার ও আকৃতি বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। তবে সাধারণত ফল গোলাকার ও ত্বক পুরু হয়। মিষ্টি মরিচ আমাদের দেশীয় প্রচলিত সবজি না হলেও ইদানিং এর চাষ প্রসারিত হচ্ছে। বিশেষ করে বড় বড় শহরের আশেপাশে সীমিত পরিসরে কৃষক ভাইয়েরা এর চাষ করে থাকে, যা অভিজাত হোটেল ও বিভিন্ন বড় বড় মার্কেটে বিক্রি হয়ে থাকে। এ ছাড়া মিষ্টি মরিচের বিদেশে রপ্তানীর সম্ভাবনাও প্রচুর। কারণ সারা বিশ্বে টমেটোর পরেই দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ সবজি হচ্ছে মিষ্টি মরিচ।
উপজেলার কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নের আদর্শপাড়া গ্রামের বাসিন্দা শহিদুল ইসলাম শাহিন। তিনি পেশায় এক জন স্কুল শিক্ষক। শিক্ষকতার পাশাপাশি বিভিন্ন জাতের সবজি চাষাবাদের সঙ্গে তিনি ক্যাপসিকাম আবাদ করে সফলতা অর্জন করেছেন।
শহিদুল ইসলাম জানান, ছয় বছর আগে একটি রেস্টুরেন্টে খেতে গিয়ে জানতে পারেন পিত্জা তৈরির প্রধান উপকরণ হচ্ছে এই ক্যাপসিকাম। তখনই তিনি ক্যাপসিকাম চাষের সিদ্ধান্ত নেন। পরে ২০১৭ সালে ৩০০ চারা সংগ্রহ করে এক বিঘা জমিতে আবাদ শুরু করেন।
তিনি বলেন, ‘এক বিঘা জমি প্রস্তুত করতে সব মিলে প্রায় ৫০ হাজার টাকা ব্যয় হয়। বর্তমানে ১৬০-২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন। এ মৌসুমে তার দুই লক্ষাধিক টাকা লাভ হবে।’
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আকলিমা বেগম বলেন, ‘এ সবজিটির কদর দিন দিন বেড়েই চলছে। আমরা প্রতিনিয়ত শহিদুল ইসলামকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা এবং পরামর্শ দিচ্ছি। শহরের সাজেদা আলাল জেনারেল হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. মো. নজরুল ইসলাম জানান, শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে ক্যাপসিকাম।