বাংলাদেশ ০৭:৫৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
বেইলী রোডের কাচ্চিভাই নামক রেস্টুরেন্টে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় সাহসী ভূমিকা পালন করছে র‌্যাব-৩। অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা মিজানুর রহমানকে জনতা ব্যাংকের নির্বাহী কর্মকর্তা হওয়ায় বেইলি রোডে একটি রেস্টুরেন্টে লাগা আগুন ফায়ার সার্ভিসের ১৩ টি ইউনিটের চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে। বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এপর্যন্ত ৬৮ জন জীবিত উদ্ধার, বদলগাছী উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  ভোটের সার্বিক কার্যক্রম কমিশন থেকে মনিটরিং ইসি সচিব জাহাঙ্গীর আলম কিশোর গ্যাং আমির গ্রুপের লীডার আমির সহ ০৯ সদস্য গ্রেফতার। নলছিটি তালতলা বাজার থেকে ৫ কেজি গাজা সহ গোশত ব্যবসায়ি ফারুক আটক বঙ্গবন্ধু মুক্তির সংগ্রাম বলতে অর্থনৈতিক মুক্তি বুঝিয়েছেন: কাজী খলীকুজ্জমান প্রায় অর্ধ কোটি টাকার অবৈধ মাদকদ্রব্য উদ্ধার: বিপুল পরিমান ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০৩ জন বড় মাদক ব্যবসায়ী আটক এবং মাদক পরিবহনকারী গাড়ী জব্দ। জবিতে ‘আমরা তোমাদের ভুলবো না’ শীর্ষক অনুষ্ঠান আয়োজিত  রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক পেলেন মাধবপুর থানার ওসি মোঃ রকিবুল খান দুই মামলা থেকেই অব্যাহতি পেলেন খাদিজা পৌরবাসীর ক্ষোভের মুখে সাবমার্সিবল বিল বাতিল ঘোষণা  জবিতে ক্যান্সার আক্রান্ত শিক্ষার্থীর জন্য ‘কনসার্ট ফর জহির’  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শিশু নাট্যমের ৯ম আর্ট ক্যাম্প আয়োজন।

তারাগঞ্জে ভুল কীটনাশক প্রয়োগে পুড়ে গেছে কৃষকের ধানক্ষেত-কৃষি বিভাগের তদারকির অভাব

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:১৭:৪১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২২
  • ১৬৯০ বার পড়া হয়েছে

তারাগঞ্জে ভুল কীটনাশক প্রয়োগে পুড়ে গেছে কৃষকের ধানক্ষেত-কৃষি বিভাগের তদারকির অভাব

ইমরান প্রামানিক, 
তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধিঃ
রংপুরের তারাগঞ্জে ব্যবসায়ীর দেয়া ভুল কীটনাশক প্রয়োগে পুড়ে গেছে কৃষকের ধানক্ষেত। পরে স্থানীয় মাতব্বরদের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষককে ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দেন ওই ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক। ঘটনাটি ঘটছে উপজেলার ইকরচালী ইউনিয়নের লক্ষিপুর মিস্ত্রীপাড়া দিঘীরপার নামক এলাকায়। ফলে এ ঘটনায় ওই এলাকার কৃষকরা হতাশা বিরাজ করছেন।
ভুক্তভোগী কৃষক আলমগির হোসেন জানান, তার জমির ধান পাকতে শুরু করেছে। গত শনিবার ধান ক্ষেতে ছত্রাকের আক্রমণ ঠেকাতে কীটনাশক প্রয়োগের জন্য চলতি বছরের ২৩ এপ্রিল পার্শ্ববর্তী দিঘীরপার ইকরচালী “আলিজা ট্রেডাস” এ যান তিনি।
ছত্রাকনাশক ঔষধ রাইনেট চাইলে কীটনাশক ব্যবসায়ী কাটুন থেকে ধানের আগাছা নাশক ঔষধ হাতে দিয়ে ধানক্ষেতে দেয়ার পরামর্শ দেন। পরামর্শ অনুযায়ী ক্ষেতে কীটনাশক প্রয়োগের এক দিন পর সকালে গিয়ে দেখেন তার দেড় একরের জমির পুরো ধান চিটে হয়ে গেছে। মরে গেছে ধানের গাছগুলো এবং ঘাস ও লতাপাতাও। এরপর কীটনাশক ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাককে ঔষধের বোতল দেখালে তিনি বিষয়টি বুঝতে পেরে কাউকে কোন কিছু না বলার নির্দেশ দেন এবং আমাকে জমির ধানের মূল্য ক্ষতিপূরণ দিতে চান। কিন্তু এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও ব্যবসায়ী রাজ্জাক ভুক্তভোগী কৃষককে কোন ক্ষতিপূরণ দেননি। এ অবস্থায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষক আলমগির হোসেন।
পরে বিষয়টি স্থানীয় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শিরিনা বেগম কে জানালে তিনি এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত ওই এলাকায় ধানক্ষেত দেখতে যাননি। কৃষক আলমগির হোসেন বলেন, আমি গরিব মানুষ। আমার তেমন কোন জমিজমা নেই। দিন আনি দিন খাই। আমি মানুষের কাছ থেকে জমি লিজ নিয়ে ধারদেনা করে ধান চাষ করেছি। কিন্তু ভুল ঔষধ দিয়ে আমার লিজ নেয়া জমির সব ধান পুড়ে ছাই করে দিয়েছে ওই কীটনাশক ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক। ওনার ওই ক্ষতিপূরণ নিয়ে আমার ধারদেনা পরিশোধ করবো না স্ত্রী সন্তানদের খাবারের চিন্তা করবো। পরিবার পরিজন নিয়ে ভবিষ্যতে কী খাবে, আর ধার দেনা কীভাবে পরিশোধ করবেন এ নিয়ে দুশ্চিন্তার অন্ত নেই আলমগির হোসেনের।
এ ব্যাপারে কীটনাশক ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমি তারাগঞ্জ বাজারের নেহা ট্রেডার্স এর মালিক আব্দুর রশিদ এর কাছ থেকে ছত্রাক নাশক ঔষধ নিয়ে আসি। ওনি ভুল করে ছত্রাক নাশক ঔষধের স্থানে আগাছা নাশক ঔষধ দিয়ে দেন। আমি বুঝতে না পেরে কৃষকে জমিতে স্প্রে করতে বলি। ফলে কৃষকের জমির ধান পুড়ে নষ্ট হয়ে যায়।
উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শিরিনা বেগম জানান, ধান পুড়ে যাওয়ার বিষয়টি আমাকে জানানো হয়েছে। কিন্তু যে সময় আমাকে জানানো হয়েছে রমজান মাসে অফিস তাড়াতাড়ি বন্ধ হওয়ায় খোজ নিতে পারিনি। অফিস চলাকালিন সময়ে আমি পুড়ে যাওয়া ধান ক্ষেত দেখে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানানো হবে বলে জানান তিনি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাসেল মিয়া বলেন, আমি আলমগির হোসেনের জমির ধান পুড়ে যাওয়ার বিষয়ে কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা উর্মি তাবাসসুম বলেন, আমি এ বিষয়ে আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম। আগামীকাল ওই পুড়ে যাওয়া জমির ধান পরিদর্শন করে ওই দুই কীটনাশক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello

বেইলী রোডের কাচ্চিভাই নামক রেস্টুরেন্টে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় সাহসী ভূমিকা পালন করছে র‌্যাব-৩।

তারাগঞ্জে ভুল কীটনাশক প্রয়োগে পুড়ে গেছে কৃষকের ধানক্ষেত-কৃষি বিভাগের তদারকির অভাব

আপডেট সময় ০৩:১৭:৪১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২২
ইমরান প্রামানিক, 
তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধিঃ
রংপুরের তারাগঞ্জে ব্যবসায়ীর দেয়া ভুল কীটনাশক প্রয়োগে পুড়ে গেছে কৃষকের ধানক্ষেত। পরে স্থানীয় মাতব্বরদের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষককে ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দেন ওই ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক। ঘটনাটি ঘটছে উপজেলার ইকরচালী ইউনিয়নের লক্ষিপুর মিস্ত্রীপাড়া দিঘীরপার নামক এলাকায়। ফলে এ ঘটনায় ওই এলাকার কৃষকরা হতাশা বিরাজ করছেন।
ভুক্তভোগী কৃষক আলমগির হোসেন জানান, তার জমির ধান পাকতে শুরু করেছে। গত শনিবার ধান ক্ষেতে ছত্রাকের আক্রমণ ঠেকাতে কীটনাশক প্রয়োগের জন্য চলতি বছরের ২৩ এপ্রিল পার্শ্ববর্তী দিঘীরপার ইকরচালী “আলিজা ট্রেডাস” এ যান তিনি।
ছত্রাকনাশক ঔষধ রাইনেট চাইলে কীটনাশক ব্যবসায়ী কাটুন থেকে ধানের আগাছা নাশক ঔষধ হাতে দিয়ে ধানক্ষেতে দেয়ার পরামর্শ দেন। পরামর্শ অনুযায়ী ক্ষেতে কীটনাশক প্রয়োগের এক দিন পর সকালে গিয়ে দেখেন তার দেড় একরের জমির পুরো ধান চিটে হয়ে গেছে। মরে গেছে ধানের গাছগুলো এবং ঘাস ও লতাপাতাও। এরপর কীটনাশক ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাককে ঔষধের বোতল দেখালে তিনি বিষয়টি বুঝতে পেরে কাউকে কোন কিছু না বলার নির্দেশ দেন এবং আমাকে জমির ধানের মূল্য ক্ষতিপূরণ দিতে চান। কিন্তু এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও ব্যবসায়ী রাজ্জাক ভুক্তভোগী কৃষককে কোন ক্ষতিপূরণ দেননি। এ অবস্থায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষক আলমগির হোসেন।
পরে বিষয়টি স্থানীয় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শিরিনা বেগম কে জানালে তিনি এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত ওই এলাকায় ধানক্ষেত দেখতে যাননি। কৃষক আলমগির হোসেন বলেন, আমি গরিব মানুষ। আমার তেমন কোন জমিজমা নেই। দিন আনি দিন খাই। আমি মানুষের কাছ থেকে জমি লিজ নিয়ে ধারদেনা করে ধান চাষ করেছি। কিন্তু ভুল ঔষধ দিয়ে আমার লিজ নেয়া জমির সব ধান পুড়ে ছাই করে দিয়েছে ওই কীটনাশক ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক। ওনার ওই ক্ষতিপূরণ নিয়ে আমার ধারদেনা পরিশোধ করবো না স্ত্রী সন্তানদের খাবারের চিন্তা করবো। পরিবার পরিজন নিয়ে ভবিষ্যতে কী খাবে, আর ধার দেনা কীভাবে পরিশোধ করবেন এ নিয়ে দুশ্চিন্তার অন্ত নেই আলমগির হোসেনের।
এ ব্যাপারে কীটনাশক ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমি তারাগঞ্জ বাজারের নেহা ট্রেডার্স এর মালিক আব্দুর রশিদ এর কাছ থেকে ছত্রাক নাশক ঔষধ নিয়ে আসি। ওনি ভুল করে ছত্রাক নাশক ঔষধের স্থানে আগাছা নাশক ঔষধ দিয়ে দেন। আমি বুঝতে না পেরে কৃষকে জমিতে স্প্রে করতে বলি। ফলে কৃষকের জমির ধান পুড়ে নষ্ট হয়ে যায়।
উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শিরিনা বেগম জানান, ধান পুড়ে যাওয়ার বিষয়টি আমাকে জানানো হয়েছে। কিন্তু যে সময় আমাকে জানানো হয়েছে রমজান মাসে অফিস তাড়াতাড়ি বন্ধ হওয়ায় খোজ নিতে পারিনি। অফিস চলাকালিন সময়ে আমি পুড়ে যাওয়া ধান ক্ষেত দেখে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানানো হবে বলে জানান তিনি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাসেল মিয়া বলেন, আমি আলমগির হোসেনের জমির ধান পুড়ে যাওয়ার বিষয়ে কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা উর্মি তাবাসসুম বলেন, আমি এ বিষয়ে আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম। আগামীকাল ওই পুড়ে যাওয়া জমির ধান পরিদর্শন করে ওই দুই কীটনাশক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।