বাংলাদেশ ০৮:১৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ফেরামের কার্যালয় উদ্বোধন ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত পটুয়াখালী পৌরসভার ১০ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া, সারারাত জ্বলে কোম্পানির বিলবোর্ড। বরগুনা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সাংসদ গোলাম সরোয়ার টুকু’র শুভেচ্ছা বিনিময় নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা  ইউএস অ্যাগ্রিমেন্টে অ্যাপস প্রতারণায় রাজশাহীতে ১০ মামলা নারায়ণগঞ্জে শ্রমিকদের বেতন ভাতা ও ঘোষিত মজুরি বাস্তবায়নের জন্য জনসভা আরএমপি’র কমিশনারসহ ৬ পুলিশ সদস্য পেলেন বিপিএম-পিপিএম পদক রাজশাহীতে প্রতিবছর বাড়ছে পেঁয়াজ বীজের চাষ এসএসসি ’৯৪ ব্যাচের প্রয়াত বন্ধুদের স্মরণানুষ্ঠান হত্যা মামলার দীর্ঘ ২৩ বছর যাবত পলাতক আসামী নজরুল মাঝি গ্রেফতার।  আমতলীতে গরুসহ চোর গ্রেপ্তার অপরূপ সৌন্দর্যে ঘেরা রাঙ্গাবালী, হতে পারে পর্যটনের কেন্দ্রবিন্দু। বুড়িচংয়ে বিল্লাল হোসেন ঠিকাদার ডাবল হোল্ডা কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন রায়গঞ্জে এনডিপির উদ্যোগে মিনি ম্যারাথন অনুষ্ঠিত এক প্রার্থীর বিরুদ্ধে কালো টাকা ছড়ানোর তুলে এক নারী মেয়র প্রার্থীর প্রার্থীতা প্রত্যাহার

শেষ হয়ে গেছে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শহীদ ওমর ফারুক এর জন্য সেই মায়ের অপেক্ষা

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:৪৩:১৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল ২০২২
  • ১৬৬২ বার পড়া হয়েছে

শেষ হয়ে গেছে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শহীদ ওমর ফারুক এর জন্য সেই মায়ের অপেক্ষা

গাজী এনামুল হক (লিটন) 
স্টাফ রিপোর্টারঃ
পিরোজপুরের অন্যতম মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শহীদ ওমর ফারুক এর মা কুলসুম বেগম দির্ঘদিনের অপেক্ষা শেষে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে জেলা আওয়ামীলীগ সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবকৃন্দের মধ্যে।
আজ বুধবার (২৬ এপ্রিল) রাত ২টার দিকে পিরোজপুরের নিজ বাসভাবনে বার্ধক্য জনিত কারনে ইন্তেকাল করেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। তিনি ছেলে মেয়ে ও আত্মীয় স্বজনসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। কুলসুম বেগম দীর্ঘ ৫০ বছর তার ছেলে শহীদ ওমর ফারুকের জন্য ভাতের থালা নিয়ে রাতে দরজা খোলা রেখে অপেক্ষা করতেন। যোহর নামায পড়ে জানাযা শেষে শহরের পৌর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
কুলসুম বেগমের মেয়ে জেলা মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সালমা রহমান হ্যাপি জানান, আমার ভাইয়ের ঘরে ফেরার অপেক্ষায় মা জীবনের শেষ দিনটি পর্যন্ত দরজা খুলে রেখে অপেক্ষা করেছেন। আজ সেই অপেক্ষার প্রহর শেষ হয়েছে। আমার মায়ের জন্য সবাই দোয়া করবেন। তার জানাজা শেষে তাকে পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।
শহীদ ওমর ফারুক পিরোজপুরে প্রথম স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তেলন করেছিরেন। তিনি তৎকালীন মহকুমা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। বরিশালের ত্রিশ গোড়াউনে হানাদার বাহিনী লোহার রডে পতাকা বেধে তার মাথায় ঢুকিয়ে তাকে হত্যা করে তার লাশ গাছের সাথে ঝুলিয়ে রেখেছিলো।
আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ফেরামের কার্যালয় উদ্বোধন ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

শেষ হয়ে গেছে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শহীদ ওমর ফারুক এর জন্য সেই মায়ের অপেক্ষা

আপডেট সময় ০৬:৪৩:১৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল ২০২২
গাজী এনামুল হক (লিটন) 
স্টাফ রিপোর্টারঃ
পিরোজপুরের অন্যতম মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শহীদ ওমর ফারুক এর মা কুলসুম বেগম দির্ঘদিনের অপেক্ষা শেষে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে জেলা আওয়ামীলীগ সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবকৃন্দের মধ্যে।
আজ বুধবার (২৬ এপ্রিল) রাত ২টার দিকে পিরোজপুরের নিজ বাসভাবনে বার্ধক্য জনিত কারনে ইন্তেকাল করেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। তিনি ছেলে মেয়ে ও আত্মীয় স্বজনসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। কুলসুম বেগম দীর্ঘ ৫০ বছর তার ছেলে শহীদ ওমর ফারুকের জন্য ভাতের থালা নিয়ে রাতে দরজা খোলা রেখে অপেক্ষা করতেন। যোহর নামায পড়ে জানাযা শেষে শহরের পৌর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
কুলসুম বেগমের মেয়ে জেলা মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সালমা রহমান হ্যাপি জানান, আমার ভাইয়ের ঘরে ফেরার অপেক্ষায় মা জীবনের শেষ দিনটি পর্যন্ত দরজা খুলে রেখে অপেক্ষা করেছেন। আজ সেই অপেক্ষার প্রহর শেষ হয়েছে। আমার মায়ের জন্য সবাই দোয়া করবেন। তার জানাজা শেষে তাকে পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।
শহীদ ওমর ফারুক পিরোজপুরে প্রথম স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তেলন করেছিরেন। তিনি তৎকালীন মহকুমা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। বরিশালের ত্রিশ গোড়াউনে হানাদার বাহিনী লোহার রডে পতাকা বেধে তার মাথায় ঢুকিয়ে তাকে হত্যা করে তার লাশ গাছের সাথে ঝুলিয়ে রেখেছিলো।