বাংলাদেশ ১১:৪৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মাগুরা প্রতারক চঞ্চল ও তার সহযোগীদের প্রতারণার শিকার জেড এম রাইচ এন্ড কনজুমার লিমিটেড এর এমডি বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানা পুলিশ কর্তৃক প্রায় ১০কেজি গাঁজাসহ মাদক কারবারি আটক পটুয়াখালীতে খাদ্য ও পুষ্টি মেলা অনুষ্ঠিত স্থানীয় কাউন্সিলর তোফায়েল আহমদ সেপুলের কোনো সম্পৃক্ততা ছিল না। মাধ্যমিক শিক্ষা ও শিক্ষকের বর্তমান অবস্থা: উন্নয়নে করণীয়। বেইলী রোডের কাচ্চিভাই নামক রেস্টুরেন্টে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় সাহসী ভূমিকা পালন করছে র‌্যাব-৩। অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা মিজানুর রহমানকে জনতা ব্যাংকের নির্বাহী কর্মকর্তা হওয়ায় বেইলি রোডে একটি রেস্টুরেন্টে লাগা আগুন ফায়ার সার্ভিসের ১৩ টি ইউনিটের চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে। বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এপর্যন্ত ৬৮ জন জীবিত উদ্ধার, বদলগাছী উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  ভোটের সার্বিক কার্যক্রম কমিশন থেকে মনিটরিং ইসি সচিব জাহাঙ্গীর আলম কিশোর গ্যাং আমির গ্রুপের লীডার আমির সহ ০৯ সদস্য গ্রেফতার। নলছিটি তালতলা বাজার থেকে ৫ কেজি গাজা সহ গোশত ব্যবসায়ি ফারুক আটক বঙ্গবন্ধু মুক্তির সংগ্রাম বলতে অর্থনৈতিক মুক্তি বুঝিয়েছেন: কাজী খলীকুজ্জমান প্রায় অর্ধ কোটি টাকার অবৈধ মাদকদ্রব্য উদ্ধার: বিপুল পরিমান ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০৩ জন বড় মাদক ব্যবসায়ী আটক এবং মাদক পরিবহনকারী গাড়ী জব্দ। জবিতে ‘আমরা তোমাদের ভুলবো না’ শীর্ষক অনুষ্ঠান আয়োজিত 

তিন দিন পর বস্তাবন্দি কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার 

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৯:০৯:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ ২০২২
  • ১৬৬২ বার পড়া হয়েছে

মনিরামপুরে একরামুল হত্যায় আটক দুই ভাইয়ের স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি 

স্বীকৃতি বিশ্বাস, বিশেষ প্রতিনিধিঃ
আজ দুপুরে যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার মদনপুর মাঠের নিমতলা নামক স্থানের একটি ডোবা থেকে কলেজ ছাত্র  ইকরামুল হোসেন (১৮)- এর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।  মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। ইকরামুল মনিরামপুর  উপজেলার মশ্মিমনগরের ভরতপুর গ্রামের প্রবাসী মফিজুর রহমানের ছেলে এবং  রাজগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন। এ ঘটনায় বুধবার (৩০ মার্চ) দিবাগত মধ্যরাতে পুলিশ ভরতপুর গ্রাম থেকে তিনজনকে আটক করে। পরে তাদের দেয়া তথ্য মতে ইকরামুলের মরদেহ উদ্ধার হয়। আটক তিনজনই ইকরামুলের প্রতিবেশী। ইতিপূর্বে গত সোমবার (২৮ মার্চ) সন্ধ্যায় ওয়াজ মাহফিল শোনার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হন ইকরামুল। তার তিনদিন পর ওই ছাত্রের বস্তাবন্দী পুঁতে রাখা লাশ উদ্ধার হলো। আটক তিনজন হলেন, ভরতপুর গ্রামের হোসেন আলী মোড়লের দুই ছেলে আমিনুর রহমান ও কামরুল হাসান এবং আব্দুল কাদেরের ছেলে মেহেদী হাসান।
ইকরামুলের স্বজনরা এ তিনজনকে আটকের কথা জানালেও পুলিশ আমিনুরকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। আমিনুর উচ্চ শিক্ষিত বেকার। তার ভাই কামরুল কুয়েত প্রবাসী। সম্প্রতি তিনি বাড়িতে এসেছেন। আর মেহেদী প্যারামেডিকেলের ছাত্র। নিহতের স্বজনদের দাবি, কেরাম খেলা নিয়ে আমিনুরের সাথে দ্বন্দ্বে আটক তিনজন মিলে ইকরামুলকে খুন করেছে।তবে স্থানীয় একাধিক সূত্র বলছে, প্রবাসীদের স্ত্রীর সাথে সম্পর্কের জেরে এ হত্যাকাণ্ড। তবে, পুলিশের পক্ষ থেকে হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে উপস্থিত কিছু জানা যায়নি।
ইকরামুলের চাচা আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, ইকরামুল মশ্মিমনগর এলাকায় ওয়াজ মাহফিলে যাওয়ার উদ্দেশ্যে গত ২৮ মার্চ সোমবার সন্ধ্যার আগে সাইকেল নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। এরপর রাত নয়টা থেকে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে মঙ্গলবার মধ্যরাতে আমরা থানায় আসি। পুলিশের পরামর্শে বুধবার সকালে যশোরে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কার্যালয়ে যাই। তারা মণিরামপুর থানায় জিডি করতে বলেন। থানায় জিডি করার পর দুপুরে আবার যশোরে যাই। এরপর রাত একটার দিকে পুলিশ বাড়ি থেকে প্রথমে আমিনুরকে আটক করে। পরে কামরুল ও মেহেদীকে আটক করে তিনজনকে নিয়ে যায়।
আসাদুজ্জামান বলেন, ওয়াজ মাহফিলে যাওয়ার আগে এলাকার একটি সাঁকোর ওপরে আমার সাথে ইকরামুলের দেখা হয়। সেখানে থেকে মেহেদীর মোটরসাইকেলে করে মাহফিলে যাওয়ার কথা ছিলো ইকরামুলের। তিনি বলেন, এক বছর আগে কেরাম খেলা নিয়ে আমিনুরের সাথে গণ্ডগোল হয় ইকরামুলের। সে সূত্র ধরে আমিনুর, কামরুল ও মেহেদী সোমবার রাতে তুলে নিয়ে ৯টার দিকে বাড়ি থেকে ৮-১০ কিলোমিটার দূরে হত্যা করে লাশ বস্তায় ভরে পুঁতে রাখে।
আসাদুজ্জামান আরও বলেন, ইকরামুলকে পিটিয়ে ও গলায় বিদ্যুতের তার পেঁচিয়ে তারা খুন করেছে। তার মোবাইলের সিমকার্ড খুলে তাতে নিজের সিমকার্ড ঢোকায় আমিনুর। সে সূত্র ধরে আমিনুরকে আটক করে পিবিআই। ইকরামুলের মা রেশমা খাতুন বলেন, পুলিশ আমিনুর, কামরুল আর মেহেদীকে ধরেছে। ওরা আমার ছেলেকে খুন করেছে। আমি ওদের ফাঁসি চাই।
যশোরের পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) পরিদর্শক হিরন্ময় সরকার ঘটনাস্থল থেকে বলেন, নিখোঁজ কলেজ ছাত্র ইকরামুলের মা জিডি করার পর আমরা ছায়া তদন্ত শুরু করি। প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমিনুরকে আটক করি। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ইকরামুলের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। তিনি আরও বলেন কি কারণে হত্যাকাণ্ড তা পরে জানাতে পারবো। মণিরামপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গাজী মাহবুবুর রহমান লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বুধবার (৩০ মার্চ) থানায় জিডি হয়েছে। আটকের বিষয়টি পিবিআই বলতে পারবে।
জনপ্রিয় সংবাদ

মাগুরা প্রতারক চঞ্চল ও তার সহযোগীদের প্রতারণার শিকার জেড এম রাইচ এন্ড কনজুমার লিমিটেড এর এমডি

তিন দিন পর বস্তাবন্দি কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার 

আপডেট সময় ০৯:০৯:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ ২০২২
স্বীকৃতি বিশ্বাস, বিশেষ প্রতিনিধিঃ
আজ দুপুরে যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার মদনপুর মাঠের নিমতলা নামক স্থানের একটি ডোবা থেকে কলেজ ছাত্র  ইকরামুল হোসেন (১৮)- এর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।  মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। ইকরামুল মনিরামপুর  উপজেলার মশ্মিমনগরের ভরতপুর গ্রামের প্রবাসী মফিজুর রহমানের ছেলে এবং  রাজগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন। এ ঘটনায় বুধবার (৩০ মার্চ) দিবাগত মধ্যরাতে পুলিশ ভরতপুর গ্রাম থেকে তিনজনকে আটক করে। পরে তাদের দেয়া তথ্য মতে ইকরামুলের মরদেহ উদ্ধার হয়। আটক তিনজনই ইকরামুলের প্রতিবেশী। ইতিপূর্বে গত সোমবার (২৮ মার্চ) সন্ধ্যায় ওয়াজ মাহফিল শোনার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হন ইকরামুল। তার তিনদিন পর ওই ছাত্রের বস্তাবন্দী পুঁতে রাখা লাশ উদ্ধার হলো। আটক তিনজন হলেন, ভরতপুর গ্রামের হোসেন আলী মোড়লের দুই ছেলে আমিনুর রহমান ও কামরুল হাসান এবং আব্দুল কাদেরের ছেলে মেহেদী হাসান।
ইকরামুলের স্বজনরা এ তিনজনকে আটকের কথা জানালেও পুলিশ আমিনুরকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। আমিনুর উচ্চ শিক্ষিত বেকার। তার ভাই কামরুল কুয়েত প্রবাসী। সম্প্রতি তিনি বাড়িতে এসেছেন। আর মেহেদী প্যারামেডিকেলের ছাত্র। নিহতের স্বজনদের দাবি, কেরাম খেলা নিয়ে আমিনুরের সাথে দ্বন্দ্বে আটক তিনজন মিলে ইকরামুলকে খুন করেছে।তবে স্থানীয় একাধিক সূত্র বলছে, প্রবাসীদের স্ত্রীর সাথে সম্পর্কের জেরে এ হত্যাকাণ্ড। তবে, পুলিশের পক্ষ থেকে হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে উপস্থিত কিছু জানা যায়নি।
ইকরামুলের চাচা আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, ইকরামুল মশ্মিমনগর এলাকায় ওয়াজ মাহফিলে যাওয়ার উদ্দেশ্যে গত ২৮ মার্চ সোমবার সন্ধ্যার আগে সাইকেল নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। এরপর রাত নয়টা থেকে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে মঙ্গলবার মধ্যরাতে আমরা থানায় আসি। পুলিশের পরামর্শে বুধবার সকালে যশোরে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কার্যালয়ে যাই। তারা মণিরামপুর থানায় জিডি করতে বলেন। থানায় জিডি করার পর দুপুরে আবার যশোরে যাই। এরপর রাত একটার দিকে পুলিশ বাড়ি থেকে প্রথমে আমিনুরকে আটক করে। পরে কামরুল ও মেহেদীকে আটক করে তিনজনকে নিয়ে যায়।
আসাদুজ্জামান বলেন, ওয়াজ মাহফিলে যাওয়ার আগে এলাকার একটি সাঁকোর ওপরে আমার সাথে ইকরামুলের দেখা হয়। সেখানে থেকে মেহেদীর মোটরসাইকেলে করে মাহফিলে যাওয়ার কথা ছিলো ইকরামুলের। তিনি বলেন, এক বছর আগে কেরাম খেলা নিয়ে আমিনুরের সাথে গণ্ডগোল হয় ইকরামুলের। সে সূত্র ধরে আমিনুর, কামরুল ও মেহেদী সোমবার রাতে তুলে নিয়ে ৯টার দিকে বাড়ি থেকে ৮-১০ কিলোমিটার দূরে হত্যা করে লাশ বস্তায় ভরে পুঁতে রাখে।
আসাদুজ্জামান আরও বলেন, ইকরামুলকে পিটিয়ে ও গলায় বিদ্যুতের তার পেঁচিয়ে তারা খুন করেছে। তার মোবাইলের সিমকার্ড খুলে তাতে নিজের সিমকার্ড ঢোকায় আমিনুর। সে সূত্র ধরে আমিনুরকে আটক করে পিবিআই। ইকরামুলের মা রেশমা খাতুন বলেন, পুলিশ আমিনুর, কামরুল আর মেহেদীকে ধরেছে। ওরা আমার ছেলেকে খুন করেছে। আমি ওদের ফাঁসি চাই।
যশোরের পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) পরিদর্শক হিরন্ময় সরকার ঘটনাস্থল থেকে বলেন, নিখোঁজ কলেজ ছাত্র ইকরামুলের মা জিডি করার পর আমরা ছায়া তদন্ত শুরু করি। প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমিনুরকে আটক করি। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ইকরামুলের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। তিনি আরও বলেন কি কারণে হত্যাকাণ্ড তা পরে জানাতে পারবো। মণিরামপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গাজী মাহবুবুর রহমান লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বুধবার (৩০ মার্চ) থানায় জিডি হয়েছে। আটকের বিষয়টি পিবিআই বলতে পারবে।