বাংলাদেশ ০৭:২২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
বেইলী রোডের কাচ্চিভাই নামক রেস্টুরেন্টে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় সাহসী ভূমিকা পালন করছে র‌্যাব-৩। অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা মিজানুর রহমানকে জনতা ব্যাংকের নির্বাহী কর্মকর্তা হওয়ায় বেইলি রোডে একটি রেস্টুরেন্টে লাগা আগুন ফায়ার সার্ভিসের ১৩ টি ইউনিটের চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে। বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এপর্যন্ত ৬৮ জন জীবিত উদ্ধার, বদলগাছী উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  ভোটের সার্বিক কার্যক্রম কমিশন থেকে মনিটরিং ইসি সচিব জাহাঙ্গীর আলম কিশোর গ্যাং আমির গ্রুপের লীডার আমির সহ ০৯ সদস্য গ্রেফতার। নলছিটি তালতলা বাজার থেকে ৫ কেজি গাজা সহ গোশত ব্যবসায়ি ফারুক আটক বঙ্গবন্ধু মুক্তির সংগ্রাম বলতে অর্থনৈতিক মুক্তি বুঝিয়েছেন: কাজী খলীকুজ্জমান প্রায় অর্ধ কোটি টাকার অবৈধ মাদকদ্রব্য উদ্ধার: বিপুল পরিমান ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০৩ জন বড় মাদক ব্যবসায়ী আটক এবং মাদক পরিবহনকারী গাড়ী জব্দ। জবিতে ‘আমরা তোমাদের ভুলবো না’ শীর্ষক অনুষ্ঠান আয়োজিত  রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক পেলেন মাধবপুর থানার ওসি মোঃ রকিবুল খান দুই মামলা থেকেই অব্যাহতি পেলেন খাদিজা পৌরবাসীর ক্ষোভের মুখে সাবমার্সিবল বিল বাতিল ঘোষণা  জবিতে ক্যান্সার আক্রান্ত শিক্ষার্থীর জন্য ‘কনসার্ট ফর জহির’  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শিশু নাট্যমের ৯ম আর্ট ক্যাম্প আয়োজন।

বরগুনার বেতাগীতে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন।

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:০৭:১৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ মার্চ ২০২২
  • ১৬৮৮ বার পড়া হয়েছে

বরগুনার বেতাগীতে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন।

ইলিয়াসুর রহমান বরগুনা প্রতিনিধি। 
বরগুনার বেতাগীতে স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় স্বামীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা অর্থদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার (২৩ মার্চ) বরগুনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোঃ হাফিজুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। একই সঙ্গে বরগুনা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আগামী এক সপ্তাহের মধ্য অর্থ আদায় করে বাদীকে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি জাহাঙ্গীর আলম বেতাগী উপজেলার তালগাছিয়া দেশান্তরকাঠী গ্রামের মৃত মুনসুর আলীর ছেলে। রায় ঘোষণার সময় তিনি পলাতক ছিলেন। মামলা সূত্রে জানা যায়, জাহাঙ্গীর আলমের শ্বশুর বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ উপজেলার সন্যাসী গ্রামের মজিবর রহমান ২০০৯ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি বেতাগী থানায় জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন।
মামলায় বাদী অভিযোগ করেন, ১৯৮৭ সালে মেয়ে আসমা বেগমকে জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে বিয়ে দেন। তাদের চারটি সন্তান রয়েছে। জাহাঙ্গীর যৌতুক লোভী হওয়ায় প্রায়ই তার মেয়েকে নির্যাতন করতেন। এছাড়া জাহাঙ্গীর একই গ্রামের এক বিধবা নারীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন।
২০০৯ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় জাহাঙ্গীর ঘরের আড়ালে বসে ওই নারীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলেন। তার স্ত্রী আসমা তা দেখে প্রতিবাদ করলে জাহাঙ্গীর চড়াও হন। ঘরের পেছনের বারান্দায় নিয়ে তাকে বেদম মারধর করে মুখমণ্ডলসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে রক্তাক্ত জখম করেন। একপর্যায়ে ঘর থেকে কেরোসিন এনে আসমার কাপড় ও শরীরে তা ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন। আসমার ছোট মেয়ে এই দৃশ্য দেখে চিৎকার করতে থাকে। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন জড়ো হয়। এই ফাঁকে জাহাঙ্গীর পালিয়ে যান।
আগুনে আসমার ডান বাহু, বুকের নিম্নভাগসহ শরীরের নিম্নাংশ পুড়ে যায়। তাকে প্রথমে বরিশাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। এরপর সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২০০৯ সালের ৫ মার্চ মারা যান তিনি।
এ ঘটনায় মামলার পর তদন্ত করে এসআই জসিম উদ্দিন ওই বছরের ২০ জুন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাড. মো. নুরুল আমীন জাগো নিউজকে বলেন, আসামি আট বছর জেলহাজতে ছিল। হাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে পলাতক হয়েছে। আপিল করতে হলে তাকে ট্রাইব্যুনালে আত্মসমর্পণ করতে হবে। আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল বলেন, এ রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। আমরা দ্রুত আসামিকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি।

বেইলী রোডের কাচ্চিভাই নামক রেস্টুরেন্টে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় সাহসী ভূমিকা পালন করছে র‌্যাব-৩।

বরগুনার বেতাগীতে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন।

আপডেট সময় ০৪:০৭:১৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ মার্চ ২০২২
ইলিয়াসুর রহমান বরগুনা প্রতিনিধি। 
বরগুনার বেতাগীতে স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় স্বামীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা অর্থদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার (২৩ মার্চ) বরগুনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোঃ হাফিজুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। একই সঙ্গে বরগুনা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আগামী এক সপ্তাহের মধ্য অর্থ আদায় করে বাদীকে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি জাহাঙ্গীর আলম বেতাগী উপজেলার তালগাছিয়া দেশান্তরকাঠী গ্রামের মৃত মুনসুর আলীর ছেলে। রায় ঘোষণার সময় তিনি পলাতক ছিলেন। মামলা সূত্রে জানা যায়, জাহাঙ্গীর আলমের শ্বশুর বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ উপজেলার সন্যাসী গ্রামের মজিবর রহমান ২০০৯ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি বেতাগী থানায় জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন।
মামলায় বাদী অভিযোগ করেন, ১৯৮৭ সালে মেয়ে আসমা বেগমকে জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে বিয়ে দেন। তাদের চারটি সন্তান রয়েছে। জাহাঙ্গীর যৌতুক লোভী হওয়ায় প্রায়ই তার মেয়েকে নির্যাতন করতেন। এছাড়া জাহাঙ্গীর একই গ্রামের এক বিধবা নারীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন।
২০০৯ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় জাহাঙ্গীর ঘরের আড়ালে বসে ওই নারীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলেন। তার স্ত্রী আসমা তা দেখে প্রতিবাদ করলে জাহাঙ্গীর চড়াও হন। ঘরের পেছনের বারান্দায় নিয়ে তাকে বেদম মারধর করে মুখমণ্ডলসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে রক্তাক্ত জখম করেন। একপর্যায়ে ঘর থেকে কেরোসিন এনে আসমার কাপড় ও শরীরে তা ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন। আসমার ছোট মেয়ে এই দৃশ্য দেখে চিৎকার করতে থাকে। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন জড়ো হয়। এই ফাঁকে জাহাঙ্গীর পালিয়ে যান।
আগুনে আসমার ডান বাহু, বুকের নিম্নভাগসহ শরীরের নিম্নাংশ পুড়ে যায়। তাকে প্রথমে বরিশাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। এরপর সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২০০৯ সালের ৫ মার্চ মারা যান তিনি।
এ ঘটনায় মামলার পর তদন্ত করে এসআই জসিম উদ্দিন ওই বছরের ২০ জুন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাড. মো. নুরুল আমীন জাগো নিউজকে বলেন, আসামি আট বছর জেলহাজতে ছিল। হাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে পলাতক হয়েছে। আপিল করতে হলে তাকে ট্রাইব্যুনালে আত্মসমর্পণ করতে হবে। আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল বলেন, এ রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। আমরা দ্রুত আসামিকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি।