বাংলাদেশ ০৫:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থ ৩ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলেন সমাজ সেবক মিঠু মিয়া বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। বুড়িচং ফজলুর রহমান মেমোরিয়াল কলেজ অব টেকনোলজির শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মাদক সাপ্লাইয়ের অভিযোগ  পেকুয়ায় ইভটিজিংয়ের দায়ে ২ জনকে কারাদণ্ড পীরগঞ্জ মহিলা কলেজে মেহেদী উৎসব অনুষ্ঠিত। পীরগঞ্জে ডিজিটাল প্রযুক্তি ও জীবন জীবীকা বিষয়ক প্রশিক্ষণ চলছে পাঠক শূন্য রাজশাহীর পুঠিয়ার সাধারণ পাঠাগার হত্যা মামলার পলাতক অন্যতম আসামী নুরুলকে র‍্যাব কর্তৃক গ্রেফতার। রাজশাহীর পুঠিয়ায় যাবজ্জাীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেপ্তার কলাপাড়ায় জেলেদের জালে শিকার হলো জীবিত এক ডলফিন। দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত রাজশাহী মহানগরীতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার মির্জাগঞ্জে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ শেখ কামাল আইটি ট্রেনিংয়ে সারাদেশের মধ্যে প্রথম হয়েছে রাজাপুরের মশিউর রহমান তামিম ত্রিশালে রেইজ’র অভিবাসী বিষয়ক ওরিয়েন্টেশন

বালিয়াডাঙ্গী কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির ৩৯শতক জমি ও বিলাশবহুল ভবনটি বেলাল কৃর্তক আত্মসাৎ করার চেস্টা!

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:৪০:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ মে ২০২৪
  • ১৬৭৩ বার পড়া হয়েছে

বালিয়াডাঙ্গী কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির ৩৯শতক জমি ও বিলাশবহুল ভবনটি বেলাল কৃর্তক আত্মসাৎ করার চেস্টা!

 

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বাবা সমবায় সমিতির সভাপতি হয়েই বেলাল স্থায়ীভাবে জমি দখলসহ সমবায় অধিদপ্তরের কাছে স্বল্পমূল্য জমি কিনে নেওয়া নতুন কৌশল শুরু করেছে বলে জানাগেছে। এর আগেও বালিয়াডাঙ্গী গণউন্নয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতির পরিচালকের স্ত্রী জেমি আক্তার নামে বালিয়াডাঙ্গী কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির ৩৯ শতক জমি আত্মসাৎ করার চস্টা করলে এলাকাবাসীর চাপে পিছু হটতে বাধ্য হয় সে সময়। কিন্তু বেলাল অনেক আগেই বলেছিল সে বা তার বাবা বাবর আলী কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হলেই সমিতির জমি বিক্রির প্রস্তাবনা পাঠাবেন সংশ্লিষ্ট দপ্তরে।

আরো জানা য়ায়, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে গণউন্নয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতির বেলালউদ্দীন হুক্কার দিয়ে বলেছিলো আমার কাংঙ্খিত লোকটি এমপি হলে ছলে – বলে -কৌশলে কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির জমিটি তার স্ত্রীর নামে করবেই করবে এমন দাম্ভিকতা প্রকাশ করেন।তবে তার কাংঙ্খিত লোকটি এমপি হয়েছে কিনা এখনো জানা যায়নি।

প্রবীণ ব্যক্তিদের সংগে কথা বলে জানাগেছে, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বালিয়াডাঙ্গী থানার সকল গভীর নলকুপ ও ললিত পাম্পের (এলপি)’র আওতাধীন চাষীদের নিয়ে একটি সমবায় সমিতি গঠিত হয়। তখন নাম দেওয়া হয় বালিয়াডাঙ্গী কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি। ওই সমিতির ঘর করার জন্য ১৯৬৮ সালে ৩৯ শতক জমি মধ্যে স্বপ্লমূল্যে কিছু জমি ক্রয় করেন এবং কিছু জমি অধিগ্রহন করেন।  শাহনেওয়াজ ওরফে নইমুলসহ অনেকেই অধিগ্রহনের টাকা এখনো গ্রহণই করেন নি বলে নইমুলের পরিবার সুত্রে জানাগেছে। ওই জমিতে পরে সমিতির চাষীদের সুবিধা ও চাষী পর্যায়ে ঠিক সময়ে বীজ সরবরাহ করার জন্য একটি বীজ ঘুদামঘর ও বীজ শুকানোর চাতাল নির্মাণ করেন।

সে সময় বালিয়াডাঙ্গীর সকল শিক্ষিত ও সমাজের ভদ্র ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত এটিই সবচেয়ে বড় সমিতি বা সংগঠন। এই সমিতির মাধ্যমে তখন ব্যাংকের কাছে লোন নিয়ে সমিতির সদস্যদের মাঝে লোন কার্যক্রম চলাতো তাঁরা।কোন এক সময় সমিতির সদস্যদের মৃত্যুসহ বিভিন্ন কারণে সমবায় সমিতির কার্যক্রম থেমে গেলে অফিস, গুদামঘর ও বীজ শুকানোর চাতালটি পরে থাকে। এসময় পরিত্যাক্ত থাকাবস্থায় গুদামের পাশে থাকা ঘরটি সাংবাদিকদের সংগঠন বালিয়াডাঙ্গী প্রেসক্লাবের অফিস হিসেবে ভাড়া নিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

পরে গণউন্নয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি চতুর বেলালউদ্দিন এটি ভাড়া হিসেবে নিয়ে গুদামঘরটি দখলে নেন। ভাড়ার কিছুদিন পরে চাতালের ইটগুলো তুলে ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করেন। এর পরে শুরু হয় সমিতির ৩৯ শতক জমির অংশীদার খোজার পালা। এক পর্যায়ে তার (বেলালের) নানা শ্বশুরের মা পাখালিকে অংশীদার বানীয়ে সমিতির ওই জমি তার স্ত্রী জেমি আকতারের নামে গোপনে রেজিষ্ট্রি করে নেন।

জমি রেজিষ্ট্রি করেই বহুতল ভবন নির্মানের কার্যক্রম শুরু করলে সমিতির লোকজনকে বেলাল বলেন, এটি সমিতির ভবন। অন্যদিকে কার্যক্রম চলে স্ত্রী জেমী আকতারের নামে কয়েক কোটি টাকা ব্যায়ে বহুতল ভবন তৈরীর কার্যক্রম।এটি প্রকাশ হলে স্থানীয় এলাকার লোকজন সমবায় অফিসসহ জেলা প্রশাসক ও অন্যান্য দপ্তরে অভিযোগ দিলে বেলাল পিছু হটেন।
সমবায় সমিতিসহ বিভিন্ন দপ্তরে বলতে বাধ্য হন এটি সমিতির সরকারী ভবন। “সমবায়ের ভবন বিনা বরাদ্দে কয়েক কোটি টাকায় কেন বেলাল নির্মাণ করেন, কোন স্বার্থে? এমন প্রশ্ন এখন এলাকার সকল সচেতন মহলের। বেলাল এটি নিজ অর্থে করলেও সমবায় অধিদপ্তরকে ভবন নির্মাণের টাকা হাওলাত হিসেবে দিয়েছেন বলে জানান বেলাল। অনেকেই এটিকে শাক দিয়ে মাছ ঢাকার মতো গল্প বলে মনে করেন।

পরে সমবায় সমিতির জমির সকল কাগজ পত্র হাতিয়ে নিয়ে ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠাতাকালীন সদস্যদের বাদ দিয়ে চতুর বেলাল, বেলালের বাবা বাবর আলীকে সদস্য বানিয়ে সমিতিকে দখলে নেন। এখন কোন সময় তার বাবা বাবর আলী সভাপতি হয় আবার কখনো সে (বেলাল উদ্দীন) নিজে নিজে সভাপতি বনে যান। কারণ এখন যে সদস্য গুলো তার কাছের লোক তাদেরকেই কমিটিতে রাখা হয়। যারা সব সময় বেলালের কথায় উঠাবসা করেন শুরু তাদেরই কমিটিতে রাখা হয়। এমনকি তার সমিতির কর্মচারী মকবুল হোসেনও সমবায় সমিতির সদস্যসহ তার পরিবারের সদস্যদেরকেও ওই সমিতির বিভিন্ন নলকুপের সদস্য প্রতিনিধি বানিয়ে রাখা হয়।

তার বাবা বাবর আলী কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হলে বিভিন্ন কৌশলে সমবায়ের সকল ঘরভাড়াটিয়াদের বের করে দেওয়ার কৌশল শুরু করেন।তার কথায় শুর না মিলালে ঘরভাড়াও দেওয়া হয় না। বেলাল ও তার বাবা বাবর আলীর সংগে দ্বিমত দেখা দিলে সমবায়ের জমিতে দোকান ভাড়াটিয়া আব্দুল, হামিদ, হাফিজুল ও গোলজারসহ কয়েক জনকে বের করে দিয়ে নিজ দখলে নেন। বর্তমানে ১ তলায় তার নিজস্ব সমিতি গণউন্নয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতি ও তার বাবার একটি ফিড এর দোকান ছাড়া আর কাউকে ভাড়া দেওয়া হয় নি।

সমিতির ভবনটি এখনো অনিশ্চিত। অনেকের প্রশ্ন ভবনটি সমিতির নাকি বেলালের স্ত্রী জেমি আকতারের নির্মানাধীন বিলাশ বহুল ভবনটি!

 

 

 

 

আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থ ৩ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলেন সমাজ সেবক মিঠু মিয়া

বালিয়াডাঙ্গী কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির ৩৯শতক জমি ও বিলাশবহুল ভবনটি বেলাল কৃর্তক আত্মসাৎ করার চেস্টা!

আপডেট সময় ০৪:৪০:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ মে ২০২৪

 

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বাবা সমবায় সমিতির সভাপতি হয়েই বেলাল স্থায়ীভাবে জমি দখলসহ সমবায় অধিদপ্তরের কাছে স্বল্পমূল্য জমি কিনে নেওয়া নতুন কৌশল শুরু করেছে বলে জানাগেছে। এর আগেও বালিয়াডাঙ্গী গণউন্নয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতির পরিচালকের স্ত্রী জেমি আক্তার নামে বালিয়াডাঙ্গী কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির ৩৯ শতক জমি আত্মসাৎ করার চস্টা করলে এলাকাবাসীর চাপে পিছু হটতে বাধ্য হয় সে সময়। কিন্তু বেলাল অনেক আগেই বলেছিল সে বা তার বাবা বাবর আলী কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হলেই সমিতির জমি বিক্রির প্রস্তাবনা পাঠাবেন সংশ্লিষ্ট দপ্তরে।

আরো জানা য়ায়, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে গণউন্নয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতির বেলালউদ্দীন হুক্কার দিয়ে বলেছিলো আমার কাংঙ্খিত লোকটি এমপি হলে ছলে – বলে -কৌশলে কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির জমিটি তার স্ত্রীর নামে করবেই করবে এমন দাম্ভিকতা প্রকাশ করেন।তবে তার কাংঙ্খিত লোকটি এমপি হয়েছে কিনা এখনো জানা যায়নি।

প্রবীণ ব্যক্তিদের সংগে কথা বলে জানাগেছে, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বালিয়াডাঙ্গী থানার সকল গভীর নলকুপ ও ললিত পাম্পের (এলপি)’র আওতাধীন চাষীদের নিয়ে একটি সমবায় সমিতি গঠিত হয়। তখন নাম দেওয়া হয় বালিয়াডাঙ্গী কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি। ওই সমিতির ঘর করার জন্য ১৯৬৮ সালে ৩৯ শতক জমি মধ্যে স্বপ্লমূল্যে কিছু জমি ক্রয় করেন এবং কিছু জমি অধিগ্রহন করেন।  শাহনেওয়াজ ওরফে নইমুলসহ অনেকেই অধিগ্রহনের টাকা এখনো গ্রহণই করেন নি বলে নইমুলের পরিবার সুত্রে জানাগেছে। ওই জমিতে পরে সমিতির চাষীদের সুবিধা ও চাষী পর্যায়ে ঠিক সময়ে বীজ সরবরাহ করার জন্য একটি বীজ ঘুদামঘর ও বীজ শুকানোর চাতাল নির্মাণ করেন।

সে সময় বালিয়াডাঙ্গীর সকল শিক্ষিত ও সমাজের ভদ্র ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত এটিই সবচেয়ে বড় সমিতি বা সংগঠন। এই সমিতির মাধ্যমে তখন ব্যাংকের কাছে লোন নিয়ে সমিতির সদস্যদের মাঝে লোন কার্যক্রম চলাতো তাঁরা।কোন এক সময় সমিতির সদস্যদের মৃত্যুসহ বিভিন্ন কারণে সমবায় সমিতির কার্যক্রম থেমে গেলে অফিস, গুদামঘর ও বীজ শুকানোর চাতালটি পরে থাকে। এসময় পরিত্যাক্ত থাকাবস্থায় গুদামের পাশে থাকা ঘরটি সাংবাদিকদের সংগঠন বালিয়াডাঙ্গী প্রেসক্লাবের অফিস হিসেবে ভাড়া নিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

পরে গণউন্নয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি চতুর বেলালউদ্দিন এটি ভাড়া হিসেবে নিয়ে গুদামঘরটি দখলে নেন। ভাড়ার কিছুদিন পরে চাতালের ইটগুলো তুলে ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করেন। এর পরে শুরু হয় সমিতির ৩৯ শতক জমির অংশীদার খোজার পালা। এক পর্যায়ে তার (বেলালের) নানা শ্বশুরের মা পাখালিকে অংশীদার বানীয়ে সমিতির ওই জমি তার স্ত্রী জেমি আকতারের নামে গোপনে রেজিষ্ট্রি করে নেন।

জমি রেজিষ্ট্রি করেই বহুতল ভবন নির্মানের কার্যক্রম শুরু করলে সমিতির লোকজনকে বেলাল বলেন, এটি সমিতির ভবন। অন্যদিকে কার্যক্রম চলে স্ত্রী জেমী আকতারের নামে কয়েক কোটি টাকা ব্যায়ে বহুতল ভবন তৈরীর কার্যক্রম।এটি প্রকাশ হলে স্থানীয় এলাকার লোকজন সমবায় অফিসসহ জেলা প্রশাসক ও অন্যান্য দপ্তরে অভিযোগ দিলে বেলাল পিছু হটেন।
সমবায় সমিতিসহ বিভিন্ন দপ্তরে বলতে বাধ্য হন এটি সমিতির সরকারী ভবন। “সমবায়ের ভবন বিনা বরাদ্দে কয়েক কোটি টাকায় কেন বেলাল নির্মাণ করেন, কোন স্বার্থে? এমন প্রশ্ন এখন এলাকার সকল সচেতন মহলের। বেলাল এটি নিজ অর্থে করলেও সমবায় অধিদপ্তরকে ভবন নির্মাণের টাকা হাওলাত হিসেবে দিয়েছেন বলে জানান বেলাল। অনেকেই এটিকে শাক দিয়ে মাছ ঢাকার মতো গল্প বলে মনে করেন।

পরে সমবায় সমিতির জমির সকল কাগজ পত্র হাতিয়ে নিয়ে ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠাতাকালীন সদস্যদের বাদ দিয়ে চতুর বেলাল, বেলালের বাবা বাবর আলীকে সদস্য বানিয়ে সমিতিকে দখলে নেন। এখন কোন সময় তার বাবা বাবর আলী সভাপতি হয় আবার কখনো সে (বেলাল উদ্দীন) নিজে নিজে সভাপতি বনে যান। কারণ এখন যে সদস্য গুলো তার কাছের লোক তাদেরকেই কমিটিতে রাখা হয়। যারা সব সময় বেলালের কথায় উঠাবসা করেন শুরু তাদেরই কমিটিতে রাখা হয়। এমনকি তার সমিতির কর্মচারী মকবুল হোসেনও সমবায় সমিতির সদস্যসহ তার পরিবারের সদস্যদেরকেও ওই সমিতির বিভিন্ন নলকুপের সদস্য প্রতিনিধি বানিয়ে রাখা হয়।

তার বাবা বাবর আলী কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হলে বিভিন্ন কৌশলে সমবায়ের সকল ঘরভাড়াটিয়াদের বের করে দেওয়ার কৌশল শুরু করেন।তার কথায় শুর না মিলালে ঘরভাড়াও দেওয়া হয় না। বেলাল ও তার বাবা বাবর আলীর সংগে দ্বিমত দেখা দিলে সমবায়ের জমিতে দোকান ভাড়াটিয়া আব্দুল, হামিদ, হাফিজুল ও গোলজারসহ কয়েক জনকে বের করে দিয়ে নিজ দখলে নেন। বর্তমানে ১ তলায় তার নিজস্ব সমিতি গণউন্নয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতি ও তার বাবার একটি ফিড এর দোকান ছাড়া আর কাউকে ভাড়া দেওয়া হয় নি।

সমিতির ভবনটি এখনো অনিশ্চিত। অনেকের প্রশ্ন ভবনটি সমিতির নাকি বেলালের স্ত্রী জেমি আকতারের নির্মানাধীন বিলাশ বহুল ভবনটি!