বাংলাদেশ ১০:৩৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

মাদক ব্যবসায় বাধা দেয়ায় যুবক হত্যার পরিকল্পনাকারী কামরুলসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব -১।

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:৪৭:৩৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০২৩
  • ১৬৪৬ বার পড়া হয়েছে

মাদক ব্যবসায় বাধা দেয়ায় যুবক হত্যার পরিকল্পনাকারী কামরুলসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব -১।

 

 

 

 

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

মাদক ব্যবসায় বাধা দেয়ায় রাজধানীর বড় বেরাইদ এলাকায় মোঃ মনর হোসেন @ মনা নামক এক যুবক হত্যার ঘটনায় হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী কামরুলসহ তিনজনকে রাজধানীর বাড্ডা এলাকা হতে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব -১।

 

 

 

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সবসময় বিভিন্ন ধরণের অপরাধীদের গ্রেফতার এবং হত্যার রহস্য উদঘাটনে অত্যন্ত অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। এছাড়াও র‌্যাবের সৃষ্টিকাল থেকে এ পর্যন্ত অপহরণকারী, সন্ত্রাসী, এজাহারনামীয় আসামী, ছিনতাই কারী, চাঁদাবাজ, প্রতারকচক্র, ধর্ষণকারী, পর্ণোগ্রাফি বিস্তারকারী, চোরাকারবারীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। বিশেষত সাম্প্রতিক সময়ে অনেকগুলো ক্লুলেস ও চাঞ্চল্যকর হত্যা ঘটনার দ্রুততম সময়ে নিষ্পত্তি করে র‌্যাব সাধারণ জনগণের মনে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

 

 

 

 

গত ১২ নভেম্বর ২০২৩ তারিখ রাত হতে বাড্ডা থানাধীন বড় বেরাইদ বাজারের মোঃ মনর হোসেন @ মনা (৩১) নামক এক যুবক নিখোজ হয়। অনেক খোজাখুজি করেও তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। ইতোমধ্যে গত ১৪ নভেম্বর ২০২৩ তারিখ আনুমানিক ১৩.৩০ ঘটিকায় ডিএমপির খিলগাঁও থানাধীন গৌরনগর এলাকার জনৈক মোক্তার হোসেনের বাড়ির উত্তর পাশে নড়াই নদীর কিনারায় একটি অজ্ঞাত লাশ ভেসে আছে মর্মে লোক মারফত রাজাখালী নৌ পুলিশ জানতে পারে।

 

 

 

 

পরবর্তীতে রাজাখালী নৌ পুলিশ ফাঁড়ি এবং খিলগাঁও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পায় লাশটির পেট এবং গলা কাটা অবস্থায় নদীর কিনারায় ভেসে আছে। পুলিশ কর্তৃক উক্ত অজ্ঞাত লাশটি সুরতহাল প্রস্তুত শেষে উদ্ধার করে মৃত পুরুষ ব্যক্তির মারা যাওয়ার কারণ নির্ণয়ের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়।

 

 

 

 

উক্ত ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে ডিএমপির খিলগাঁও থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে যার নম্বর ২২/২৭৯ তারিখ ১৫/১১/২০২৩। নদী থেকে অজ্ঞাতনামা লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে ১৬/১১/২০২৩ তারিখে মনার পরিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে গিয়ে লাশটি মোঃ মনর হোসেন @ মনার বলে সনাক্ত করে এবং নিয়ে এসে জানাযা ও দাফন সম্পন্ন করে।

 

 

 

 

 

উক্ত হত্যাকান্ডটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে এবং বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রচারিত হলে দেশব্যাপী ব্যাপক আলোচিত হয়। এ রকম নিষ্ঠুর, নৃশংস হত্যাকান্ডে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার জন্ম দেয় এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। র‌্যাব পরবর্তীতে এই ক্লুলেস হত্যাকান্ডের ঘটনার সহিত জড়িত আসামীদের গ্রেফতারের জন্য ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।

 

 

 

এরই ধারাবাহিকতায় আজ ২৩ নভেম্বর ২০২৩ তারিখ ভোর রাতে আনুমানিক ০৪.০০ ঘটিকার সময় র‌্যাব-১, এর আভিযানিক দল তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে জানতে পারে যে, ক্লুলেস হত্যা মামলার মূল পরিকল্পনাকারী ডিএমপি, বাড্ডা থানাধীন মেরুল বাড্ডা এলাকায় আত্মগোপনে আছে।

 

 

 

 

প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১, আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ক্লুলেস হত্যা মামলার আসামী ১) মোঃ কামরুল ইসলাম (৩৬), পিতা-ওকুালদ্দীন, থানা-বাড্ডা, ডিএমপি এবং কামরুলের দেওয়া তথ্য মতে তার অন্যতম সহযোগী ২) আকরাম হোসেন @ গুলফাম (২৭), পিতা- মোঃ হারুন মিয়া, থানা-বাড্ডা, ডিএমপি, ঢাকা ও ৩) মোঃ আবুল বাশার (৪৪), পিতা- মোঃ আবুল হোসেন, থানা- বাড্ডা, ডিএমপি, ঢাকাদের’কে বড় বেরাইদ বাজারস্থ ৩০ ফিট রাস্তার উপর হতে গ্রেফতার করা হয়। এসময় ধৃত আসামীদের নিকট হতে ০৩টি মোবাইল ফোন এবং নগদ ২১০০/- টাকা উদ্ধার করা হয়। র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধৃত আসামী মোঃ কামরুল ইসলামের (৩৬) ও তার দুই সহযোগী এই ঘটনার সহিত জড়িত মর্মে স্বীকার করে।

 

 

 

 

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ধৃত আসামীগণ এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী যাদের নামে থানায় একাধিক মাদক মামলা চলমান রয়েছে। নিহত যুবক মনর হোসেন @ মনা বিভিন্ন সময় অনৈতিক ও আইন শৃংখলা পরিপন্থী কর্মকান্ডে এবং মাদক ব্যবসায় বাধা প্রদান করলে এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী কামরুল, গুলফাম, বাশার এবং আরো কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী মনার উপর ক্ষিপ্ত হয়। একপর্যায়ে তারা তাকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয় এবং হত্যাকান্ডের পরিকল্পনা করে।

 

 

 

 

 

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কামরুল, গুলফাম এবং বাশার হত্যাকান্ডের সাথে তাদের সম্পৃক্ততা স্বীকার করে এবং নৃশংস হত্যাকান্ডের বর্ণনা দেয়। ঘটনার রাতে, মাছ ধরার কথা বলে কামরুল ভিকটিমকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে আসে। কামরুল সম্পর্কে ভিকটিমের চাচাতো দুলাভাই হওয়ায় সে কোন রকম সন্দেহ ছাড়াই গভীর রাতে তার সাথে বের হয়। বড় বেরাইদ বাজারস্থ ৩০ ফিট রাস্তার পাশে নদীর ঢালে পূর্ব থেকেই ধৃত আসামী বাশার, গুলফাম ও অন্য আরেকজন ওঁত পেতে ছিল। তারা চারজন মিলে ভিকটিমকে নদীর মধ্যে নিয়ে যায় এবং গুলফাম পেটে এবং গলায় ছুরি চালায়। মৃত্যু নিশ্চিত করে লাশটি নদীতে ভাসিয়ে দেয় এবং হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি নদীতে ছুড়ে ফেলে দেয়। এই হত্যাকান্ডে জড়িত অন্য আসামিকে গ্রেফতারের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

 

 

 

 

 

 

ধৃত আসামী মোঃ কামরুল ইসলাম এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার নামে বাড্ডা থানার মামলা নং ৩৩ তারিখঃ ২৬ জানুয়ারি ২০২৩ সহ একাধিক মামলা চলমান রয়েছে। ভিকটিম মনা সম্পর্কে তার চাচাতো শ্যালক। ভিকটিম ইতোপূর্বে দুই তিনবার আইন শৃংখলা বাহিনীর হাতে মাদকসহ তাকে ধরিয়ে দেওয়ায় তার মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয় এবং এরই একপর্যায়ে তাকে হত্যা করে।

 

 

 

 

 

 

ধৃত আসামী আকরাম হোসেন @ গুলফাম পেশায় একজন কসাই। এই পেশার আড়ালে সে মূলত চুরি এবং মাদক ব্যবসায় জড়িত। তার নামে বাড্ডা থানার মামলা নং ২১/৬৮ তারিখঃ ২২ মার্চ ২০১৮ এবং বাড্ডা থানার মামলা নং ১৯ তারিখঃ ১৫ অক্টোবর ২০২২ সহ আরো মামলা চলমান রয়েছে বলে জানা যায়।

 

 

 

 

 

ধৃত আসামী মোঃ আবুল বাশার পেশায় একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার নামে বাড্ডা থানার মামলা নং ৫৪ তারিখঃ ২৩ ডিসেম্বর ২০১৯ এবং বাড্ডা থানার মামলা নং ৪৯ তারিখঃ ২৮ আগস্ট ২০২১ সহ আরো মামলা চলমান রয়েছে বলে জানা যায়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

 

 

 

মোঃ পারভেজ রানা
সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার
সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া অফিসার)
অধিনায়কের পক্ষে
ফোনঃ ৪৮৯৬৩১৫২।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

মাদক ব্যবসায় বাধা দেয়ায় যুবক হত্যার পরিকল্পনাকারী কামরুলসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব -১।

আপডেট সময় ০৬:৪৭:৩৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০২৩

 

 

 

 

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

মাদক ব্যবসায় বাধা দেয়ায় রাজধানীর বড় বেরাইদ এলাকায় মোঃ মনর হোসেন @ মনা নামক এক যুবক হত্যার ঘটনায় হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী কামরুলসহ তিনজনকে রাজধানীর বাড্ডা এলাকা হতে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব -১।

 

 

 

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সবসময় বিভিন্ন ধরণের অপরাধীদের গ্রেফতার এবং হত্যার রহস্য উদঘাটনে অত্যন্ত অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। এছাড়াও র‌্যাবের সৃষ্টিকাল থেকে এ পর্যন্ত অপহরণকারী, সন্ত্রাসী, এজাহারনামীয় আসামী, ছিনতাই কারী, চাঁদাবাজ, প্রতারকচক্র, ধর্ষণকারী, পর্ণোগ্রাফি বিস্তারকারী, চোরাকারবারীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। বিশেষত সাম্প্রতিক সময়ে অনেকগুলো ক্লুলেস ও চাঞ্চল্যকর হত্যা ঘটনার দ্রুততম সময়ে নিষ্পত্তি করে র‌্যাব সাধারণ জনগণের মনে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

 

 

 

 

গত ১২ নভেম্বর ২০২৩ তারিখ রাত হতে বাড্ডা থানাধীন বড় বেরাইদ বাজারের মোঃ মনর হোসেন @ মনা (৩১) নামক এক যুবক নিখোজ হয়। অনেক খোজাখুজি করেও তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। ইতোমধ্যে গত ১৪ নভেম্বর ২০২৩ তারিখ আনুমানিক ১৩.৩০ ঘটিকায় ডিএমপির খিলগাঁও থানাধীন গৌরনগর এলাকার জনৈক মোক্তার হোসেনের বাড়ির উত্তর পাশে নড়াই নদীর কিনারায় একটি অজ্ঞাত লাশ ভেসে আছে মর্মে লোক মারফত রাজাখালী নৌ পুলিশ জানতে পারে।

 

 

 

 

পরবর্তীতে রাজাখালী নৌ পুলিশ ফাঁড়ি এবং খিলগাঁও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পায় লাশটির পেট এবং গলা কাটা অবস্থায় নদীর কিনারায় ভেসে আছে। পুলিশ কর্তৃক উক্ত অজ্ঞাত লাশটি সুরতহাল প্রস্তুত শেষে উদ্ধার করে মৃত পুরুষ ব্যক্তির মারা যাওয়ার কারণ নির্ণয়ের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়।

 

 

 

 

উক্ত ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে ডিএমপির খিলগাঁও থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে যার নম্বর ২২/২৭৯ তারিখ ১৫/১১/২০২৩। নদী থেকে অজ্ঞাতনামা লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে ১৬/১১/২০২৩ তারিখে মনার পরিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে গিয়ে লাশটি মোঃ মনর হোসেন @ মনার বলে সনাক্ত করে এবং নিয়ে এসে জানাযা ও দাফন সম্পন্ন করে।

 

 

 

 

 

উক্ত হত্যাকান্ডটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে এবং বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রচারিত হলে দেশব্যাপী ব্যাপক আলোচিত হয়। এ রকম নিষ্ঠুর, নৃশংস হত্যাকান্ডে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার জন্ম দেয় এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। র‌্যাব পরবর্তীতে এই ক্লুলেস হত্যাকান্ডের ঘটনার সহিত জড়িত আসামীদের গ্রেফতারের জন্য ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।

 

 

 

এরই ধারাবাহিকতায় আজ ২৩ নভেম্বর ২০২৩ তারিখ ভোর রাতে আনুমানিক ০৪.০০ ঘটিকার সময় র‌্যাব-১, এর আভিযানিক দল তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে জানতে পারে যে, ক্লুলেস হত্যা মামলার মূল পরিকল্পনাকারী ডিএমপি, বাড্ডা থানাধীন মেরুল বাড্ডা এলাকায় আত্মগোপনে আছে।

 

 

 

 

প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১, আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ক্লুলেস হত্যা মামলার আসামী ১) মোঃ কামরুল ইসলাম (৩৬), পিতা-ওকুালদ্দীন, থানা-বাড্ডা, ডিএমপি এবং কামরুলের দেওয়া তথ্য মতে তার অন্যতম সহযোগী ২) আকরাম হোসেন @ গুলফাম (২৭), পিতা- মোঃ হারুন মিয়া, থানা-বাড্ডা, ডিএমপি, ঢাকা ও ৩) মোঃ আবুল বাশার (৪৪), পিতা- মোঃ আবুল হোসেন, থানা- বাড্ডা, ডিএমপি, ঢাকাদের’কে বড় বেরাইদ বাজারস্থ ৩০ ফিট রাস্তার উপর হতে গ্রেফতার করা হয়। এসময় ধৃত আসামীদের নিকট হতে ০৩টি মোবাইল ফোন এবং নগদ ২১০০/- টাকা উদ্ধার করা হয়। র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধৃত আসামী মোঃ কামরুল ইসলামের (৩৬) ও তার দুই সহযোগী এই ঘটনার সহিত জড়িত মর্মে স্বীকার করে।

 

 

 

 

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ধৃত আসামীগণ এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী যাদের নামে থানায় একাধিক মাদক মামলা চলমান রয়েছে। নিহত যুবক মনর হোসেন @ মনা বিভিন্ন সময় অনৈতিক ও আইন শৃংখলা পরিপন্থী কর্মকান্ডে এবং মাদক ব্যবসায় বাধা প্রদান করলে এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী কামরুল, গুলফাম, বাশার এবং আরো কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী মনার উপর ক্ষিপ্ত হয়। একপর্যায়ে তারা তাকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয় এবং হত্যাকান্ডের পরিকল্পনা করে।

 

 

 

 

 

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কামরুল, গুলফাম এবং বাশার হত্যাকান্ডের সাথে তাদের সম্পৃক্ততা স্বীকার করে এবং নৃশংস হত্যাকান্ডের বর্ণনা দেয়। ঘটনার রাতে, মাছ ধরার কথা বলে কামরুল ভিকটিমকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে আসে। কামরুল সম্পর্কে ভিকটিমের চাচাতো দুলাভাই হওয়ায় সে কোন রকম সন্দেহ ছাড়াই গভীর রাতে তার সাথে বের হয়। বড় বেরাইদ বাজারস্থ ৩০ ফিট রাস্তার পাশে নদীর ঢালে পূর্ব থেকেই ধৃত আসামী বাশার, গুলফাম ও অন্য আরেকজন ওঁত পেতে ছিল। তারা চারজন মিলে ভিকটিমকে নদীর মধ্যে নিয়ে যায় এবং গুলফাম পেটে এবং গলায় ছুরি চালায়। মৃত্যু নিশ্চিত করে লাশটি নদীতে ভাসিয়ে দেয় এবং হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি নদীতে ছুড়ে ফেলে দেয়। এই হত্যাকান্ডে জড়িত অন্য আসামিকে গ্রেফতারের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

 

 

 

 

 

 

ধৃত আসামী মোঃ কামরুল ইসলাম এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার নামে বাড্ডা থানার মামলা নং ৩৩ তারিখঃ ২৬ জানুয়ারি ২০২৩ সহ একাধিক মামলা চলমান রয়েছে। ভিকটিম মনা সম্পর্কে তার চাচাতো শ্যালক। ভিকটিম ইতোপূর্বে দুই তিনবার আইন শৃংখলা বাহিনীর হাতে মাদকসহ তাকে ধরিয়ে দেওয়ায় তার মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয় এবং এরই একপর্যায়ে তাকে হত্যা করে।

 

 

 

 

 

 

ধৃত আসামী আকরাম হোসেন @ গুলফাম পেশায় একজন কসাই। এই পেশার আড়ালে সে মূলত চুরি এবং মাদক ব্যবসায় জড়িত। তার নামে বাড্ডা থানার মামলা নং ২১/৬৮ তারিখঃ ২২ মার্চ ২০১৮ এবং বাড্ডা থানার মামলা নং ১৯ তারিখঃ ১৫ অক্টোবর ২০২২ সহ আরো মামলা চলমান রয়েছে বলে জানা যায়।

 

 

 

 

 

ধৃত আসামী মোঃ আবুল বাশার পেশায় একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার নামে বাড্ডা থানার মামলা নং ৫৪ তারিখঃ ২৩ ডিসেম্বর ২০১৯ এবং বাড্ডা থানার মামলা নং ৪৯ তারিখঃ ২৮ আগস্ট ২০২১ সহ আরো মামলা চলমান রয়েছে বলে জানা যায়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

 

 

 

মোঃ পারভেজ রানা
সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার
সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া অফিসার)
অধিনায়কের পক্ষে
ফোনঃ ৪৮৯৬৩১৫২।