বাংলাদেশ ০৪:৩৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

শীতের আগমনে লালমোহন ফুটপাতে পিঠা বিক্রির ধুম

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:০৩:১৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০২৩
  • ১৬৭৮ বার পড়া হয়েছে

শীতের আগমনে লালমোহন ফুটপাতে পিঠা বিক্রির ধুম

 

 

 

 

মনজুরুল আলম লালমোহন (ভোলা) প্রতিনিধি:
ভোলার লালমোহন উপজেলার বিভিন্ন ফুটপাতের ওলি-গলিতে শীতের শুরুতে জমে উঠেছে ভাপা ও চিতই পিঠা বিক্রির ধুম। দেখা যায় উপজেলার ফুটপাতে সন্ধ্যার পর পর’ই ভাপা ও চিতাই পিঠা বিক্রির দোকান গুলোতে পিঠার স্বাদ নিতে ভিড় জমান বিভিন্ন বয়সের ও নানা শ্রেণী পেশার মানুষ।

 

 

 

 

 

সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার চৌরাস্তার উত্তর ও পূর্ব পাশসহ উত্তর বাজার অটোস্ট্যান্ডের ফুটপাতের ওলি-গলিতে চলছে শীতের পিঠা ভাপা ও চিতই পিঠা বিক্রির ধুম। বিশেষ করে সন্ধ্যার পরেই জমে উঠে পিঠা বিক্রির দোকান গুলো।

 

 

 

 

 

এদের মধ্যে অনেকে’ই পিঠা বিক্রি করে পরিবারে অর্থ যোগান দিয়ে থাকে। অসচ্ছল পরিবারের মাঝে কিছুটা আর্থিক সচ্ছলতা আনার জন্য ফুটপাতে পিঠা তৈরি করছেন। আবার পরিবারে কোনো উপার্জনকারী না থাকায় বাধ্য হয়ে এই ব্যবসা করে চলছে।

 

 

 

 

 

বাংলাদেশে শতাধিক ধরনের পিঠার প্রচলন রয়েছে। কালের গভীরে কিছু হারিয়েও গেছে। তবে রাস্তার পাশের পিঠার এই দোকানগুলোতে কয়েক ধরনের পিঠা পাওয়া যায়। ভাপা পিঠা, চিতই পিঠা, ডিম চিতই, পাটিসাপটা পিঠা তৈরি করতে দেখা যায়।

 

 

 

 

 

একেক ধরনের পিঠার একেক রকম দাম, সাধারণত চিতই পিঠা, ভাপা পিঠা ৫ টাকা, নকশি পিঠা, ডিম চিতই পিঠা বিক্রি হচ্ছে ১০ টাকায়।

 

 

 

 

দেখা যায়, চালের গুঁড়া, নারকেল, খেজুরের গুড় দিয়ে বানানো হয় ভাপা পিঠা। গোল আকারের এ পিঠা পাতলা কাপড় দিয়ে পেঁচিয়ে ঢাকনা দেয়া হাঁড়ির ফুটন্ত পানিতে ভাপ দিয়ে তৈরি করা হয়। এ কারণেই এর নাম ভাপা পিঠা। চালের গুঁড়া পানিতে গুলিয়ে মাটির হাঁড়িতে বিশেষ উপায়ে তৈরি করা হয় চিতই পিঠা। অতি সাধারণ এই পিঠাটি গুড় বা ঝাল শুঁটকি ভর্তা দিয়ে খেতে খুব’ই মজা।

 

 

 

 

 

এক পিঠা বিক্রেতা জানান, আমরা সারাদিন বিভিন্ন কাজে ব্যাস্ত থাকি, অবসর সময় বাড়তি আয়ের জন্য বিকাল বেলা পিঠা বানানো নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পড়ি। শীত আসতেই দোকানে কাজের চাপ অনেক। পিঠা বানানো থেকে শুরু করে ক্রেতাদের চাহিদা মেটাতে ব্যাস্ত সময় পার করতে হয়। প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলে পিঠা বানানো ও বিক্রি।

 

 

 

 

 

 

 

 

আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

শীতের আগমনে লালমোহন ফুটপাতে পিঠা বিক্রির ধুম

আপডেট সময় ০৬:০৩:১৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০২৩

 

 

 

 

মনজুরুল আলম লালমোহন (ভোলা) প্রতিনিধি:
ভোলার লালমোহন উপজেলার বিভিন্ন ফুটপাতের ওলি-গলিতে শীতের শুরুতে জমে উঠেছে ভাপা ও চিতই পিঠা বিক্রির ধুম। দেখা যায় উপজেলার ফুটপাতে সন্ধ্যার পর পর’ই ভাপা ও চিতাই পিঠা বিক্রির দোকান গুলোতে পিঠার স্বাদ নিতে ভিড় জমান বিভিন্ন বয়সের ও নানা শ্রেণী পেশার মানুষ।

 

 

 

 

 

সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার চৌরাস্তার উত্তর ও পূর্ব পাশসহ উত্তর বাজার অটোস্ট্যান্ডের ফুটপাতের ওলি-গলিতে চলছে শীতের পিঠা ভাপা ও চিতই পিঠা বিক্রির ধুম। বিশেষ করে সন্ধ্যার পরেই জমে উঠে পিঠা বিক্রির দোকান গুলো।

 

 

 

 

 

এদের মধ্যে অনেকে’ই পিঠা বিক্রি করে পরিবারে অর্থ যোগান দিয়ে থাকে। অসচ্ছল পরিবারের মাঝে কিছুটা আর্থিক সচ্ছলতা আনার জন্য ফুটপাতে পিঠা তৈরি করছেন। আবার পরিবারে কোনো উপার্জনকারী না থাকায় বাধ্য হয়ে এই ব্যবসা করে চলছে।

 

 

 

 

 

বাংলাদেশে শতাধিক ধরনের পিঠার প্রচলন রয়েছে। কালের গভীরে কিছু হারিয়েও গেছে। তবে রাস্তার পাশের পিঠার এই দোকানগুলোতে কয়েক ধরনের পিঠা পাওয়া যায়। ভাপা পিঠা, চিতই পিঠা, ডিম চিতই, পাটিসাপটা পিঠা তৈরি করতে দেখা যায়।

 

 

 

 

 

একেক ধরনের পিঠার একেক রকম দাম, সাধারণত চিতই পিঠা, ভাপা পিঠা ৫ টাকা, নকশি পিঠা, ডিম চিতই পিঠা বিক্রি হচ্ছে ১০ টাকায়।

 

 

 

 

দেখা যায়, চালের গুঁড়া, নারকেল, খেজুরের গুড় দিয়ে বানানো হয় ভাপা পিঠা। গোল আকারের এ পিঠা পাতলা কাপড় দিয়ে পেঁচিয়ে ঢাকনা দেয়া হাঁড়ির ফুটন্ত পানিতে ভাপ দিয়ে তৈরি করা হয়। এ কারণেই এর নাম ভাপা পিঠা। চালের গুঁড়া পানিতে গুলিয়ে মাটির হাঁড়িতে বিশেষ উপায়ে তৈরি করা হয় চিতই পিঠা। অতি সাধারণ এই পিঠাটি গুড় বা ঝাল শুঁটকি ভর্তা দিয়ে খেতে খুব’ই মজা।

 

 

 

 

 

এক পিঠা বিক্রেতা জানান, আমরা সারাদিন বিভিন্ন কাজে ব্যাস্ত থাকি, অবসর সময় বাড়তি আয়ের জন্য বিকাল বেলা পিঠা বানানো নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পড়ি। শীত আসতেই দোকানে কাজের চাপ অনেক। পিঠা বানানো থেকে শুরু করে ক্রেতাদের চাহিদা মেটাতে ব্যাস্ত সময় পার করতে হয়। প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলে পিঠা বানানো ও বিক্রি।