বাংলাদেশ ১০:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে প্রাথমিক সেবা চলমান রেখেছে ব্যবস্থাপনা কমিটি এবং প.প. বিভাগ

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৫:১৭:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০২৩
  • ১৬৭২ বার পড়া হয়েছে

মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে প্রাথমিক সেবা চলমান রেখেছে ব্যবস্থাপনা কমিটি এবং প.প. বিভাগ

মোঃ কামাল উদ্দিন, মাদারগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি: 
জামালপুরের মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে নেই জনবল, তবুও প্রাথমিক সেবা কার্যক্রম চলমান রেখেছেন ব্যবস্থাপনা কমিটি ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রটি ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হয় ১৯ এপ্রিল ২০১৪ এবং নির্মাণ কাজ এর শুভ উদ্বোধন করা হয় ০৩ জানুয়ারি ২০১৬। এখানে একজন ফার্মাসিস্ট মা ও শিশুদের প্রাথমিক বিবরণ শ্রবণ করে প্রয়োজনীয় ঔষধ দিয়ে সেবা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। ফার্মাসিস্ট হেলাল আহম্মেদ তিনি ওই কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করেন সপ্তাহে ৬ দিন৷ মঙ্গলবার, বুধবার ও বৃহস্পতিবার সপ্তাহে ৩ দিন মা ও শিশুদের সেবা প্রদানের লক্ষে দায়িত্ব পালন করেন পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকা মৌসুমি আক্তার।
গাবের গ্রামের মনোয়ারা বেগম (৬২) ও বিউটি আক্তার (২৫) জানান, আমরা এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এসে দায়িত্বরতদের অসুখের কথা বলি তারা ঔষধ দেয় এবং নিয়ম বলে দেয় আমরা নিয়ে চলে যাই। বালিজুড়ী পশ্চিম পাড়ার বিলকিছ ও মজিরন জানান আমরা এসে ডাইরিয়া, জ্বর ও গ্যাসের ঔষধ নিলাম মেয়ে ও আমাদের জন্য। আমরা এখান থেকে ভালো সেবা পাই, সরকার এই হাসপাতালে যন্ত্রপাতি ও ডাক্তর দিলে জামালপুর বা কোন ক্লিনিকে পরিক্ষা নিরিক্ষা করার জন্য  যেতে হবে না এখান থেকেই সম্পুর্ণ সেবা পাবো।
এ ব্যাপারে মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে দায়িত্বরত ফার্মাসিস্ট হেলাল আহম্মেদ জানান, এই স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে দৈনিক ১৫ থেকে ৪০ জন রোগী সেবা গ্রহণ করে তাদেরকে ১৯ প্রকারের ঔষধ দেওয়া হয় এবং ওজন,প্রেসার ও উচ্চতা মাপা হয়।
এ ব্যাপারে মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা মোসুমী আক্তার এর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও ব্যাবহত নম্বরে রিং না হওয়ায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। 
মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র তদারকি দায়িত্বে রয়েছেন পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সুস্মিতা দত্ত তিনি জানান, মাননীয় সংসদ সদস্য মির্জা আজম এমপি স্যার মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রটির ভবন শুভ উদ্বোধন করেন ২০১৬ সালে। এই সেবা কেন্দ্রে সরকারিভাবে এখন পর্যন্ত কোন জনবল নিয়োগ না হওয়া এবং প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি না থাকায় পরিপূর্ণ সেবা দেওয়া যাচ্ছে না। ভবন শুভ উদ্বোধন এর পর থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান ওবায়দুর রহমান বেলাল স্যারের নির্দেশনায় আমাদের সহযোগিতায় একটি উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা ও একজন ফার্মাসিস্ট দিয়ে মা ও শিশুদের  প্রাথমিক সেবা কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।
অন্তত্য প্রাথমিক সেবা টা যেন চলমান থাকে প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা সেবা প্রার্থীরা কোন প্রকার হয়রানি ছাড়াই সেবা পায় এ লক্ষ্যেই ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্দেশনায় সেবা কার্যক্রম চলছে। কেন্দ্র টি আমি নিয়মিত পরিদর্শন করি এবং মা ও শিশুদের মধ্যে জটিল কোন রোগী থাকলে আমি নিজে চিকিৎসা দিয়ে থাকি এ ক্ষেত্রে আমার আন্তরিকতার কোন কমতি নেই।
এ ব্যাপারে মাদারগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ ওবায়দুর রহমান বেলাল জানান, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রটি উদ্বোধন হওয়ার পর  সরকারিভাবে কোন জনবল নিয়োগ হয়নি। নিয়োগ না হলেও স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি যেন চলমান থাকে অন্তত্য প্রাথমিক সেবা গুলো যেন পায় সেবা প্রার্থীরা এ লক্ষে আমরা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সাথে কথা বলে অতিরিক্ত দায়িত্বে ২ জন কে দিয়ে আপাতত প্রাথমিক সেবা কার্যক্রম চলমান রেখেছি। আশা করছি সরকারিভাবে ঐ মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি আসবে এবং ডাঃ সহ জনবল নিয়োগ হবে।
আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে প্রাথমিক সেবা চলমান রেখেছে ব্যবস্থাপনা কমিটি এবং প.প. বিভাগ

আপডেট সময় ০৫:১৭:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০২৩
মোঃ কামাল উদ্দিন, মাদারগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি: 
জামালপুরের মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে নেই জনবল, তবুও প্রাথমিক সেবা কার্যক্রম চলমান রেখেছেন ব্যবস্থাপনা কমিটি ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রটি ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হয় ১৯ এপ্রিল ২০১৪ এবং নির্মাণ কাজ এর শুভ উদ্বোধন করা হয় ০৩ জানুয়ারি ২০১৬। এখানে একজন ফার্মাসিস্ট মা ও শিশুদের প্রাথমিক বিবরণ শ্রবণ করে প্রয়োজনীয় ঔষধ দিয়ে সেবা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। ফার্মাসিস্ট হেলাল আহম্মেদ তিনি ওই কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করেন সপ্তাহে ৬ দিন৷ মঙ্গলবার, বুধবার ও বৃহস্পতিবার সপ্তাহে ৩ দিন মা ও শিশুদের সেবা প্রদানের লক্ষে দায়িত্ব পালন করেন পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকা মৌসুমি আক্তার।
গাবের গ্রামের মনোয়ারা বেগম (৬২) ও বিউটি আক্তার (২৫) জানান, আমরা এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এসে দায়িত্বরতদের অসুখের কথা বলি তারা ঔষধ দেয় এবং নিয়ম বলে দেয় আমরা নিয়ে চলে যাই। বালিজুড়ী পশ্চিম পাড়ার বিলকিছ ও মজিরন জানান আমরা এসে ডাইরিয়া, জ্বর ও গ্যাসের ঔষধ নিলাম মেয়ে ও আমাদের জন্য। আমরা এখান থেকে ভালো সেবা পাই, সরকার এই হাসপাতালে যন্ত্রপাতি ও ডাক্তর দিলে জামালপুর বা কোন ক্লিনিকে পরিক্ষা নিরিক্ষা করার জন্য  যেতে হবে না এখান থেকেই সম্পুর্ণ সেবা পাবো।
এ ব্যাপারে মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে দায়িত্বরত ফার্মাসিস্ট হেলাল আহম্মেদ জানান, এই স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে দৈনিক ১৫ থেকে ৪০ জন রোগী সেবা গ্রহণ করে তাদেরকে ১৯ প্রকারের ঔষধ দেওয়া হয় এবং ওজন,প্রেসার ও উচ্চতা মাপা হয়।
এ ব্যাপারে মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা মোসুমী আক্তার এর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও ব্যাবহত নম্বরে রিং না হওয়ায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। 
মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র তদারকি দায়িত্বে রয়েছেন পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সুস্মিতা দত্ত তিনি জানান, মাননীয় সংসদ সদস্য মির্জা আজম এমপি স্যার মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রটির ভবন শুভ উদ্বোধন করেন ২০১৬ সালে। এই সেবা কেন্দ্রে সরকারিভাবে এখন পর্যন্ত কোন জনবল নিয়োগ না হওয়া এবং প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি না থাকায় পরিপূর্ণ সেবা দেওয়া যাচ্ছে না। ভবন শুভ উদ্বোধন এর পর থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান ওবায়দুর রহমান বেলাল স্যারের নির্দেশনায় আমাদের সহযোগিতায় একটি উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা ও একজন ফার্মাসিস্ট দিয়ে মা ও শিশুদের  প্রাথমিক সেবা কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।
অন্তত্য প্রাথমিক সেবা টা যেন চলমান থাকে প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা সেবা প্রার্থীরা কোন প্রকার হয়রানি ছাড়াই সেবা পায় এ লক্ষ্যেই ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্দেশনায় সেবা কার্যক্রম চলছে। কেন্দ্র টি আমি নিয়মিত পরিদর্শন করি এবং মা ও শিশুদের মধ্যে জটিল কোন রোগী থাকলে আমি নিজে চিকিৎসা দিয়ে থাকি এ ক্ষেত্রে আমার আন্তরিকতার কোন কমতি নেই।
এ ব্যাপারে মাদারগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মাদারগঞ্জ ১০ শয্যা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ ওবায়দুর রহমান বেলাল জানান, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রটি উদ্বোধন হওয়ার পর  সরকারিভাবে কোন জনবল নিয়োগ হয়নি। নিয়োগ না হলেও স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি যেন চলমান থাকে অন্তত্য প্রাথমিক সেবা গুলো যেন পায় সেবা প্রার্থীরা এ লক্ষে আমরা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সাথে কথা বলে অতিরিক্ত দায়িত্বে ২ জন কে দিয়ে আপাতত প্রাথমিক সেবা কার্যক্রম চলমান রেখেছি। আশা করছি সরকারিভাবে ঐ মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি আসবে এবং ডাঃ সহ জনবল নিয়োগ হবে।