বাংলাদেশ ০৮:৩২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

মিঠাপুকুর মাদক ব্যবসায় সম্পৃক্ততার অভিযোগে মৃত-ব্যক্তির জানাজা বর্জন,অন্য গ্রামে দাফন

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:৫১:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৪ মার্চ ২০২২
  • ১৭৬৫ বার পড়া হয়েছে

পেকুয়ায় এক কিশোরের লাশ উদ্ধার

 

 

 

 

রুবেল হোসাইন সংগ্রাম-
মিঠাপুকুর উপজেলার ০৩ নং-পায়রাবন্দ ইউনিয়ন এবং ০২ নং-রানীপুকুর ইউনিয়নের বলদীপুকুর আবাসন প্রকল্পের গুচ্ছ গ্রামে মৃত ব্যক্তির জানাজার নামাজ এবং দাফন কার্য সম্পন্ন করেনি অত্র এলাকার মুসল্লীরা।দিনভর আলাপ আলোচনা করার পর মসজিদের ঈমাম,মুয়াজ্জিন এবং মসজিদ কমিটি কেউ সম্মতি জ্ঞাপন না করায় শেষে অন্য গ্রামে দাফন কার্য সম্পন্ন করা হয়েছে। মৃত ব্যক্তির নাম মোঃ সাইদুল ইসলাম (৫২) তার বাবার নাম মৃত- মঈনুদ্দিন।
এলাকাবাসী ও স্হানীয়রা জানান, ৩ মার্চ বৃহস্পতিবার সকাল আনুমানিক ৬ ঘটিকার সময় সাইদুল ইসলাম কয়েকদিন থেকে অসুস্থ থাকার পর নিজ বাড়িতে মৃত্যু বরণ করেন। মৃত্যুর পর সাইদুলের দাফনকাজ সম্পন্ন করার প্রস্তুতি নেন তার স্বজনরা। সে অনুযায়ী অত্র সমাজের বিভিন্ন লোকজনের সহিত দাফনের সময়সূচী এবং কবরস্থানের জায়গা নির্বাচনে মসজিদ কমিটির সিধান্ত নিতে গেলে কমিটির লোকজন মাদক ব্যবসায় সম্পৃক্ততা থাকায় তার জানাজা করবেনা বলে জানিয়ে পূর্বের সিদ্ধান্তে অনড় থাকে। এরপর সারাদিন চলে দফায় দফায় আলোচনা।
লহনী কোনাপাড়া জামে মসজিদের সভাপতি তোজাম্মল হোসেন, মিজানুর রহমান (ঈমাম) মোসলেম উদ্দিন (মোয়াজ্জিন) সহ কয়েকজন জানান, মসজিদের আশেপাশে কয়েকজন চোলাইমদ তৈরি এবং বিক্রি করে আসছিলো। বেশ কিছুদিন আগে মসজিদে নামাজরত কয়েকজন ব্যক্তি দেখতে পান মসজিদ ঘরের ভিতরে চোলাই মদের কয়েকটি বোতল পড়ে রয়েছে। পরে তারা জানতে পারেন মাদক ব্যবসায়ীরা  পুলিশের হাত থেকে বাঁচার জন্য কৌশলে মসজিদ ঘরের বারান্দায় টাইগারের বোতলে মদ রেখে বিক্রি করতেন। মাদক ব্যবসায়ীরা ফজরের নামাজের সময় চোলাইমদ তৈরি করার কারনে চোলাইমদের গন্ধে মসজিদে নামাজরত মুসল্লিদের সমস্যা হতো। বিভিন্ন সময়ে তাদের সচেতন করার পরেও তারা চোলাই মদ উৎপন্ন ও বিক্রি বন্ধ করেনি। থানায় অভিযোগ দিয়েও মসজিদ সংলগ্ন মাদক ব্যবসা বন্ধ করা যায়নি। বরং মসজিদ কমিটির লোকজনকে মাদক ব্যবসায়ীরা হেনস্তা করতেন।
মাদক ব্যবসার হাত থেকে সমাজ রক্ষা এবং মসজিদ সংলগ্ন বাড়ি গুলোতে চোলাইমদ বন্ধে মসজিদ কমিটি, গ্রামবাসী সমাজ সবার সিদ্ধান্ত মোতাবেক মাদক কারবারিদেরকে জানিয়ে দেয়া হয়, কেউ মাদক ব্যবসা বন্ধ না করে মাদক ব্যবসা চলমান রাখলে বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান,মিলাদ মাহফিল,এমনকি কেউ মাদক ব্যবসা চলাকালীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করলে তাদের জানাজা বর্জন করা হবে। এতেও কেউ কেউ চলমান রাখে মাদক ব্যবসা।
মৃত-সাইদুল ইসলামের ছেলে ওয়াজেদ আলী জানান, বারবার অনুরোধ করেও বাবার জানাজা এবং দাফনকার্যে কেউ এগিয়ে আসেনি। শেষে মাগরিবের নামাজের পর রাতে আমার বাবার গ্রামের বাড়ি উপজেলার লতিবপুর ইউনিয়নের মামুদপুর গ্রামে রাত আনুমানিক ৯ টায় কবরস্থ করা হয়। সে জানায়, আমার বাবা আগে মাদক ব্যবসা করলেও এখন আর করতো না। তিনি সামাজিক ব্যবস্হার উপর খোভ ঝাড়েন। এবং ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে ব্যাখ্যা চান। তার মা ওয়ারেছা বেগম জানান, সুদখোর, ঘুসখোর, জেনাকারী এদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্হা নিয়েছিলো সমাজ।তার স্বামী মাদক ব্যবসায়ি ছিলোনা।
এ বিষয়ে ইউপি-চেয়ারম্যান ফয়জার রহমান (খাঁন) জানান, এ বিষয়ে আমার জানা নেই। কেউ আমাকে কোন অভিযোগ করেনি। তাই আমি কিছু বলতে পারবোনা।
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

মিঠাপুকুর মাদক ব্যবসায় সম্পৃক্ততার অভিযোগে মৃত-ব্যক্তির জানাজা বর্জন,অন্য গ্রামে দাফন

আপডেট সময় ০৩:৫১:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৪ মার্চ ২০২২

 

 

 

 

রুবেল হোসাইন সংগ্রাম-
মিঠাপুকুর উপজেলার ০৩ নং-পায়রাবন্দ ইউনিয়ন এবং ০২ নং-রানীপুকুর ইউনিয়নের বলদীপুকুর আবাসন প্রকল্পের গুচ্ছ গ্রামে মৃত ব্যক্তির জানাজার নামাজ এবং দাফন কার্য সম্পন্ন করেনি অত্র এলাকার মুসল্লীরা।দিনভর আলাপ আলোচনা করার পর মসজিদের ঈমাম,মুয়াজ্জিন এবং মসজিদ কমিটি কেউ সম্মতি জ্ঞাপন না করায় শেষে অন্য গ্রামে দাফন কার্য সম্পন্ন করা হয়েছে। মৃত ব্যক্তির নাম মোঃ সাইদুল ইসলাম (৫২) তার বাবার নাম মৃত- মঈনুদ্দিন।
এলাকাবাসী ও স্হানীয়রা জানান, ৩ মার্চ বৃহস্পতিবার সকাল আনুমানিক ৬ ঘটিকার সময় সাইদুল ইসলাম কয়েকদিন থেকে অসুস্থ থাকার পর নিজ বাড়িতে মৃত্যু বরণ করেন। মৃত্যুর পর সাইদুলের দাফনকাজ সম্পন্ন করার প্রস্তুতি নেন তার স্বজনরা। সে অনুযায়ী অত্র সমাজের বিভিন্ন লোকজনের সহিত দাফনের সময়সূচী এবং কবরস্থানের জায়গা নির্বাচনে মসজিদ কমিটির সিধান্ত নিতে গেলে কমিটির লোকজন মাদক ব্যবসায় সম্পৃক্ততা থাকায় তার জানাজা করবেনা বলে জানিয়ে পূর্বের সিদ্ধান্তে অনড় থাকে। এরপর সারাদিন চলে দফায় দফায় আলোচনা।
লহনী কোনাপাড়া জামে মসজিদের সভাপতি তোজাম্মল হোসেন, মিজানুর রহমান (ঈমাম) মোসলেম উদ্দিন (মোয়াজ্জিন) সহ কয়েকজন জানান, মসজিদের আশেপাশে কয়েকজন চোলাইমদ তৈরি এবং বিক্রি করে আসছিলো। বেশ কিছুদিন আগে মসজিদে নামাজরত কয়েকজন ব্যক্তি দেখতে পান মসজিদ ঘরের ভিতরে চোলাই মদের কয়েকটি বোতল পড়ে রয়েছে। পরে তারা জানতে পারেন মাদক ব্যবসায়ীরা  পুলিশের হাত থেকে বাঁচার জন্য কৌশলে মসজিদ ঘরের বারান্দায় টাইগারের বোতলে মদ রেখে বিক্রি করতেন। মাদক ব্যবসায়ীরা ফজরের নামাজের সময় চোলাইমদ তৈরি করার কারনে চোলাইমদের গন্ধে মসজিদে নামাজরত মুসল্লিদের সমস্যা হতো। বিভিন্ন সময়ে তাদের সচেতন করার পরেও তারা চোলাই মদ উৎপন্ন ও বিক্রি বন্ধ করেনি। থানায় অভিযোগ দিয়েও মসজিদ সংলগ্ন মাদক ব্যবসা বন্ধ করা যায়নি। বরং মসজিদ কমিটির লোকজনকে মাদক ব্যবসায়ীরা হেনস্তা করতেন।
মাদক ব্যবসার হাত থেকে সমাজ রক্ষা এবং মসজিদ সংলগ্ন বাড়ি গুলোতে চোলাইমদ বন্ধে মসজিদ কমিটি, গ্রামবাসী সমাজ সবার সিদ্ধান্ত মোতাবেক মাদক কারবারিদেরকে জানিয়ে দেয়া হয়, কেউ মাদক ব্যবসা বন্ধ না করে মাদক ব্যবসা চলমান রাখলে বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান,মিলাদ মাহফিল,এমনকি কেউ মাদক ব্যবসা চলাকালীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করলে তাদের জানাজা বর্জন করা হবে। এতেও কেউ কেউ চলমান রাখে মাদক ব্যবসা।
মৃত-সাইদুল ইসলামের ছেলে ওয়াজেদ আলী জানান, বারবার অনুরোধ করেও বাবার জানাজা এবং দাফনকার্যে কেউ এগিয়ে আসেনি। শেষে মাগরিবের নামাজের পর রাতে আমার বাবার গ্রামের বাড়ি উপজেলার লতিবপুর ইউনিয়নের মামুদপুর গ্রামে রাত আনুমানিক ৯ টায় কবরস্থ করা হয়। সে জানায়, আমার বাবা আগে মাদক ব্যবসা করলেও এখন আর করতো না। তিনি সামাজিক ব্যবস্হার উপর খোভ ঝাড়েন। এবং ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে ব্যাখ্যা চান। তার মা ওয়ারেছা বেগম জানান, সুদখোর, ঘুসখোর, জেনাকারী এদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্হা নিয়েছিলো সমাজ।তার স্বামী মাদক ব্যবসায়ি ছিলোনা।
এ বিষয়ে ইউপি-চেয়ারম্যান ফয়জার রহমান (খাঁন) জানান, এ বিষয়ে আমার জানা নেই। কেউ আমাকে কোন অভিযোগ করেনি। তাই আমি কিছু বলতে পারবোনা।