বাংলাদেশ ০৭:৪০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

পেকুয়ায় থাই পেয়ারা চাষে সফলতা খোঁজছেন কৃষক নবী হোছাইন

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১০:৩৯:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • ১৭৭১ বার পড়া হয়েছে

পেকুয়ায় থাই পেয়ারা চাষে সফলতা খোঁজছেন কৃষক নবী হোছাইন

পেকুয়া প্রতিনিধি :-

কক্সবাজারের পেকুয়ার টইটং ইউনিয়নের সোনাইছড়ি এলাকার  নবী হোছাইনের থাই পেয়ারা চাষ করে সফলতা অর্জনে ছুটে চলছে।

সেই সফলতা অর্জন করতে ও দিন বদলের স্বপ্ন বাস্তবায়নে ৬০ হাজার টাকা দিয়ে তিন একর জমি বর্গা নিয়ে গত বছরের সেপ্টেম্বরে সেই জমিতে লাগান ৫ শতটি থাই পেয়ারার চারা। সেই চারা ২২৫ টাকা করে চুয়াডাঙ্গা থেকে কিনে এনেছিলেন। বর্তমানে সেই পেয়ারা বাগানে থাই পেয়ারা গাছে গাছে ফুটেছে অনেক ফুল ও আবার দেখা মেলে অনেক গাছে গাছভর্তি পেয়ারা। প্রতিটি পেয়ারার ওজন ৩০০ থেকে ৬০০ গ্রাম।

বাগানে ঘুরে দেখা যায় শ্রমিকরা গাছের পরিচর্যা করছেন। এসময় কথা হয় বাগানের শ্রমিক মোহাম্মদ ইউনুসের সঙ্গে। সে বলেন, জানুয়ারির মাঝামাঝি সময় থেকে পেয়ারা বিক্রি শুরু করা হয়েছে। ইতিমধ্যে দুই লক্ষাধিক টাকার পেয়ারা বিক্রি হয়েছে। তাঁর মতো আরও ৮-১০ জন এই বাগানে কাজ করেন। এখানে কাজ করে পরিবারের খরচ যোগান দেন তাঁরা।

কৃষক নবী হোছাইন বলেন, পেকুয়ায় প্রথম আমি থাই পেয়ারার চাষ করেছি। উপকূলীয় এই পরিবেশে এই জাত খাপ খাবে কি না, তা নিয়ে শঙ্কায় ছিলাম। ঝুঁকি নিয়ে সফল হয়েছি। তিন মাসের মধ্যে প্রতিটি গাছে ফলন আসতে শুরু করে। এখন প্রতি কেজি পেয়ারা ৬০ থেকে ৭০ টাকা করে পাইকারি বিক্রি করছি। আমি অত্যন্ত খুশি।

তিনি আরও বলেন, আশা করি আগামী তিন মাসের মধ্যে মূলধন উঠে আসবে। বাগানে এ পর্যন্ত ১০ লাখ টাকা খরচ হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা আকবর হোছাইন ছিদ্দিকী বলেন, কৃষক নবী হোছাইনকে মাঠ প্রস্তুত থেকে শুরু করে সব সহায়তা আমরা করেছি। সঠিক পরিচর্যা পেলে তাঁর গাছগুলো অন্তত ১০-১২ বছর ফলন দেবে। এই থাই পেয়ারা খেতে অত্যন্ত সুস্বাদু। বাজারমূল্যও ভালো।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তপন কুমার রায় বলেন, উপকূলীয় এলাকার লবণাক্ত পরিবেশে নতুন জাতের চাষ কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ। তবে থাই পেয়ারা চাষে কৃষক নবী হোছাইনের সফলতা অন্য কৃষকদের মুগ্ধ করেছে। এই চাষে আগ্রহী হয়ে অনেকেই আমাদের কাছে আসছেন।

জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

পেকুয়ায় থাই পেয়ারা চাষে সফলতা খোঁজছেন কৃষক নবী হোছাইন

আপডেট সময় ১০:৩৯:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২২
পেকুয়া প্রতিনিধি :-

কক্সবাজারের পেকুয়ার টইটং ইউনিয়নের সোনাইছড়ি এলাকার  নবী হোছাইনের থাই পেয়ারা চাষ করে সফলতা অর্জনে ছুটে চলছে।

সেই সফলতা অর্জন করতে ও দিন বদলের স্বপ্ন বাস্তবায়নে ৬০ হাজার টাকা দিয়ে তিন একর জমি বর্গা নিয়ে গত বছরের সেপ্টেম্বরে সেই জমিতে লাগান ৫ শতটি থাই পেয়ারার চারা। সেই চারা ২২৫ টাকা করে চুয়াডাঙ্গা থেকে কিনে এনেছিলেন। বর্তমানে সেই পেয়ারা বাগানে থাই পেয়ারা গাছে গাছে ফুটেছে অনেক ফুল ও আবার দেখা মেলে অনেক গাছে গাছভর্তি পেয়ারা। প্রতিটি পেয়ারার ওজন ৩০০ থেকে ৬০০ গ্রাম।

বাগানে ঘুরে দেখা যায় শ্রমিকরা গাছের পরিচর্যা করছেন। এসময় কথা হয় বাগানের শ্রমিক মোহাম্মদ ইউনুসের সঙ্গে। সে বলেন, জানুয়ারির মাঝামাঝি সময় থেকে পেয়ারা বিক্রি শুরু করা হয়েছে। ইতিমধ্যে দুই লক্ষাধিক টাকার পেয়ারা বিক্রি হয়েছে। তাঁর মতো আরও ৮-১০ জন এই বাগানে কাজ করেন। এখানে কাজ করে পরিবারের খরচ যোগান দেন তাঁরা।

কৃষক নবী হোছাইন বলেন, পেকুয়ায় প্রথম আমি থাই পেয়ারার চাষ করেছি। উপকূলীয় এই পরিবেশে এই জাত খাপ খাবে কি না, তা নিয়ে শঙ্কায় ছিলাম। ঝুঁকি নিয়ে সফল হয়েছি। তিন মাসের মধ্যে প্রতিটি গাছে ফলন আসতে শুরু করে। এখন প্রতি কেজি পেয়ারা ৬০ থেকে ৭০ টাকা করে পাইকারি বিক্রি করছি। আমি অত্যন্ত খুশি।

তিনি আরও বলেন, আশা করি আগামী তিন মাসের মধ্যে মূলধন উঠে আসবে। বাগানে এ পর্যন্ত ১০ লাখ টাকা খরচ হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা আকবর হোছাইন ছিদ্দিকী বলেন, কৃষক নবী হোছাইনকে মাঠ প্রস্তুত থেকে শুরু করে সব সহায়তা আমরা করেছি। সঠিক পরিচর্যা পেলে তাঁর গাছগুলো অন্তত ১০-১২ বছর ফলন দেবে। এই থাই পেয়ারা খেতে অত্যন্ত সুস্বাদু। বাজারমূল্যও ভালো।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তপন কুমার রায় বলেন, উপকূলীয় এলাকার লবণাক্ত পরিবেশে নতুন জাতের চাষ কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ। তবে থাই পেয়ারা চাষে কৃষক নবী হোছাইনের সফলতা অন্য কৃষকদের মুগ্ধ করেছে। এই চাষে আগ্রহী হয়ে অনেকেই আমাদের কাছে আসছেন।