বাংলাদেশ ০৩:০১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

হোসেনপুরে বিলুপ্তির পথে গাব

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:৫৯:৫০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • ১৭০১ বার পড়া হয়েছে

হোসেনপুরে বিলুপ্তির পথে গাব

মাহফুজ রাজা, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ;
কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের প্রতিটি গ্রাম  সন্ধান করলে মেলে, অনেক  স্থানের নাম করণ করা হয়েছে  গাবতলী,কোনো না কোনো গাব গাছকে কেন্দ্র করেই স্ববলে প্রতিষ্ঠিত নাম গাবতলী।যদিও কোথাও কোথাও গাব গাছের অস্তিত্বও নেই বর্তমানে। এক সময় শিশু-কিশোরের মুখে শোনা যেত, `গাব খাব না খাব কি? গাবের মতো মিষ্টি কি?’ এমন ছড়া এখন আর শোনা যায় না। উপজেলার গ্রামের রাস্তার ধারে ঝোপ-ঝাড়ে জন্মে, একাকী বেড়ে ওঠা গাব গাছের অভাব ছিল না একটি সময়।
গাছগুলোতে শত শত গাব পাকলেই গ্রামের শিশু-কিশোররা ভিড় জমাতো গাছ তলাতে। সবার হাতে থাকত মিষ্টি পাকা গাব। হোসেনপুর  উপজেলার কয়েকটি গ্রাম ঘুরেও আগের মত গাব গাছের দেখা মেলেনি। উপজেলার সাহেবেরচর গ্রামে বহু পুরোনো একটি গাব গাছকে ঘিরে ওই স্থানটি গাবতলী নামে পরিচিতি পেয়েছে। দেশি ফলের গাছগুলো দিনে দিনে সময়ের স্রোতে হারিয়ে যাচ্ছে। হারিয়ে যাচ্ছে বাহারি ফল-ফলাদির নাম পর্যন্ত।
হোসেনপুরের মৎস্য শিকারীদের কাছেও গাব অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ফল।কারণ গাবের কষ ব্যবহার হয়
মাছ ধরার জালের সুতুই।
সখের বসে মৎস্য শিকারী মোন্তু মিয়া জানান, “নদীতে, খালে-বিলে মাছ মাইর হরলে মাছ মারা যাই,তবে আমরার আইত্তের (জাল)লাগে মজমুদ,জালে গাব লাগাইলে হুতা শক্ত হয়,হুতাটা কালা অয়া যায়,যারফলে মাছ মারতারি বেশি”
 দেশি ফলের উৎপাদন ও সংরক্ষণে বাস্তবসম্মত কোনো পরিকল্পনা না থাকায় ফলের বাজার আজ হুমকির সম্মুখীন। অথচ সঠিক ও বাস্তবসম্মত পরিকল্পনার মাধ্যমে দেশীয় ফল রপ্তানি করে বিপুল বিদেশি মুদ্রা উপার্জন সম্ভব।
একটি গাব সুস্বাদু ও মিষ্টি, একে বিলাতি গাব বলা হয়। পাকলে এর রং হয় গাঢ় লাল। খোসার ওপরটা মখমলের মত। ফলের ভেতরটা সাদা।
অন্যটিকে দেশি গাব বলা হয়। এটি খেতে হালকা মিষ্টি ও কষযুক্ত। কাঁচা ফল সবুজ এবং পাকলে হলুদ হয়ে যায়। পাকা ফলের ভেতরটা আঠালো। এটি সাধারণত খাওয়া হয় না, ভেষজ চিকিৎসায় এর কিছু ব্যবহার আছে। এই গাব হতে আঠা প্রস্তুত করা হয় যা মৎস্যজীবীরা তাদের জালে ব্যবহার করেন। দেশি গাবের প্রধান ব্যবহার এটাই।
 কৃষি কর্মকর্তারা মনে করেন , গাবগাছ আগে বসতবাড়ির আঙিনায় বেশি দেখা যেত। বর্তমানে জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে বেশি করে বসতঘর নির্মাণ করায় এবং গাব ফলের ভালো বাজার না থাকায় গাবগাছগুলো এখন বিলুপ্তির পথে।
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

হোসেনপুরে বিলুপ্তির পথে গাব

আপডেট সময় ০৩:৫৯:৫০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২
মাহফুজ রাজা, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ;
কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের প্রতিটি গ্রাম  সন্ধান করলে মেলে, অনেক  স্থানের নাম করণ করা হয়েছে  গাবতলী,কোনো না কোনো গাব গাছকে কেন্দ্র করেই স্ববলে প্রতিষ্ঠিত নাম গাবতলী।যদিও কোথাও কোথাও গাব গাছের অস্তিত্বও নেই বর্তমানে। এক সময় শিশু-কিশোরের মুখে শোনা যেত, `গাব খাব না খাব কি? গাবের মতো মিষ্টি কি?’ এমন ছড়া এখন আর শোনা যায় না। উপজেলার গ্রামের রাস্তার ধারে ঝোপ-ঝাড়ে জন্মে, একাকী বেড়ে ওঠা গাব গাছের অভাব ছিল না একটি সময়।
গাছগুলোতে শত শত গাব পাকলেই গ্রামের শিশু-কিশোররা ভিড় জমাতো গাছ তলাতে। সবার হাতে থাকত মিষ্টি পাকা গাব। হোসেনপুর  উপজেলার কয়েকটি গ্রাম ঘুরেও আগের মত গাব গাছের দেখা মেলেনি। উপজেলার সাহেবেরচর গ্রামে বহু পুরোনো একটি গাব গাছকে ঘিরে ওই স্থানটি গাবতলী নামে পরিচিতি পেয়েছে। দেশি ফলের গাছগুলো দিনে দিনে সময়ের স্রোতে হারিয়ে যাচ্ছে। হারিয়ে যাচ্ছে বাহারি ফল-ফলাদির নাম পর্যন্ত।
হোসেনপুরের মৎস্য শিকারীদের কাছেও গাব অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ফল।কারণ গাবের কষ ব্যবহার হয়
মাছ ধরার জালের সুতুই।
সখের বসে মৎস্য শিকারী মোন্তু মিয়া জানান, “নদীতে, খালে-বিলে মাছ মাইর হরলে মাছ মারা যাই,তবে আমরার আইত্তের (জাল)লাগে মজমুদ,জালে গাব লাগাইলে হুতা শক্ত হয়,হুতাটা কালা অয়া যায়,যারফলে মাছ মারতারি বেশি”
 দেশি ফলের উৎপাদন ও সংরক্ষণে বাস্তবসম্মত কোনো পরিকল্পনা না থাকায় ফলের বাজার আজ হুমকির সম্মুখীন। অথচ সঠিক ও বাস্তবসম্মত পরিকল্পনার মাধ্যমে দেশীয় ফল রপ্তানি করে বিপুল বিদেশি মুদ্রা উপার্জন সম্ভব।
একটি গাব সুস্বাদু ও মিষ্টি, একে বিলাতি গাব বলা হয়। পাকলে এর রং হয় গাঢ় লাল। খোসার ওপরটা মখমলের মত। ফলের ভেতরটা সাদা।
অন্যটিকে দেশি গাব বলা হয়। এটি খেতে হালকা মিষ্টি ও কষযুক্ত। কাঁচা ফল সবুজ এবং পাকলে হলুদ হয়ে যায়। পাকা ফলের ভেতরটা আঠালো। এটি সাধারণত খাওয়া হয় না, ভেষজ চিকিৎসায় এর কিছু ব্যবহার আছে। এই গাব হতে আঠা প্রস্তুত করা হয় যা মৎস্যজীবীরা তাদের জালে ব্যবহার করেন। দেশি গাবের প্রধান ব্যবহার এটাই।
 কৃষি কর্মকর্তারা মনে করেন , গাবগাছ আগে বসতবাড়ির আঙিনায় বেশি দেখা যেত। বর্তমানে জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে বেশি করে বসতঘর নির্মাণ করায় এবং গাব ফলের ভালো বাজার না থাকায় গাবগাছগুলো এখন বিলুপ্তির পথে।