বাংলাদেশ ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

নাটোরে জমেছে ঈদের বাজার, ব্যস্ত ক্রেতা-বিক্রেতা

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০২:৫৬:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৩ এপ্রিল ২০২২
  • ১৬৮৯ বার পড়া হয়েছে

নাটোরে জমেছে ঈদের বাজার, ব্যস্ত ক্রেতা-বিক্রেতা

 

আমিরুল ইসলাম, নাটোর সদর প্রতিনিধিঃ নাটোরে জমে উঠেছে ঈদের বাজার। ঈদের দিন যত ঘনিয়ে আসছে, ক্রেতাদের ভিড় তত বাড়ছে। করোনার কারণে দুই বছর ঈদে তেমন বেচাকেনা হয়নি, সেই ক্ষতি এবার পুষিয়ে নিতে চান ব্যবসায়ীরা। তাই সাধ্যমতো ছোট-বড়-মাঝারি ব্যবসায় পুঁজি খাটিয়েছেন তারা।

রমজানের শুরু থেকে মার্কেট আর বিপণি বিতানগুলোতে তেমন ক্রেতাদের ভিড় না থাকলেও শেষের দিকে কেনাকাটা জমজমাট হয়ে উঠেছে। প্রতিটি মার্কেটে আর বিপণি বিতানগুলোতে নতুন নতুন পোশাকে সেজেছে। অপরদিকে দোকানে দোকানে অতিরিক্ত কর্মচারীও রাখা হয়েছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, শহরের উত্তরা সুপার মার্কেট, মন্দির মার্কেট, রোজী মার্কেট, সাদেক কমপ্লেক্সে, জয়া মার্কেট, মনসুর রহমান মার্কেট, বিসমিল্লাহ বস্ত্রালয়, মওলা বস্ত্রালয়সহ বিভিন্ন বিপণিবিতান, শপিংমল আর ছোট-বড় সব ধরণের দোকানেগুলো সকাল থেকে শুরু হয়ে মধ্য রাত পর্যন্ত চলছে কেনাবেচা।

মার্কেট আর বিপণি বিতানগুলোতে শিশু থেকে শুরু করে সব বয়সী ক্রেতাদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। অন্যদিকে বাহারি কারুকাজ, হাতের নকশা এবং নানা রঙের কাপড়সহ বিভিন্ন নতুন পোশাকে সেজেছে বিপনী বিতানগুলো। এসেছে নতুন নতুন কালেকশনও। দেশি কাপড়ের পাশাপাশি বিদেশি কাপড়ও বিক্রি হচ্ছে। তবে গরমকে প্রাধান্য দিতে আনা হয়েছে নতুনত্ব ডিজাইন। আর বেশিরভাগ পোশাকই রাখা হয়েছে সুতি কাপড়। ছেলে-মেয়ে ও শিশুসহ সকলের জন্যই রয়েছে সব ধরনের পোশাক। তবে সব ধরনের পোশাকের দাম কিছুটা বেশি বলে অভিযোগ করেছেন ক্রেতারা।

রোজী মার্কেটের রুবেল গার্মেন্টসের সত্ত্বাধিকার মো. রুবেল হোসেন বলেন,  প্রতিবারের মতো এবারও ক্রেতাদের কথা বিবেচনায় রেখে ঈদে বাহারি ও নান্দনিক ডিজাইনের পোশাক এনেছি। বিশেষ করে ছেলেদের পাঞ্জাবি, শার্ট, টি-শার্ট, ইজি কেয়ার শার্ট, জিন্স প্যান্ট এবং মেয়েদের থ্রি পিস, টু-পিস, কাজ করা জর্জেট কামিজ কালেকশন রয়েছে।

উত্তরা সুপার মার্কেটের মিজান গার্মেন্টসের সত্বাধিকার মিজানুর রহমান মিজান বলেন, এবার ছেলেদের জিন্স, টিশার্ট এবং গেঞ্জিতে নতুনত্ব এসেছে। দামটা সব শ্রেণির ক্রেতাদের কথা চিন্তা করে স্বল্প লাভে বিক্রি করছি। ক্রেতাদের বেশ সাড়া পাচ্ছি।

নিউ কালেকশনের বিক্রেতা হাবিব রহমান বলেন, করোনার দুই বছরের লোকেশান কাটিয়ে নিতে এ বছর বেশ নতুন কালেকশন আনা হয়েছে। রমজানের শুরুতে ক্রেতাদের ভিড় কম থাকলেও শেষের দিকে ক্রেতাদের ভিড় পর্যাপ্ত।

ফরহাদ হোসেন নামে এক ক্রেতা বলেন, এবার পাঞ্জাবির ডিজাইনের ভিন্নতা রয়েছে। তবে পাঞ্জাবির দাম অনেক বেশি। তাই পাঞ্জাবি না কিনে ফতুয়া কিনেছি।

বৃষ্টি আক্তার নামে এক নারী ক্রেতা বলেন, অনেক ঘুরে ঘুরে কিছু পোশাক কিনলাম। ঈদ উপলক্ষে দাম একটু বেশি, তবে পোশাকের মান ভালো। অন্য বছরের তুলনায় ডিজাইনেও বৈচিত্র্য আছে। তবে এবার সুতি কাপুড়ের ডিজাইন করা থ্রি-পিস বেশ পাওয়া যাচ্ছে।

স্বপ্না খাতুন নামের এক গৃহবধূ বলেন, বাচ্চাদের নিয়ে কেনাকাটা করতে মার্কেটে এসেছি। এ বছর কাপড়ের দামটা একটু বেশি বলে মনে হচ্ছে। তবুও বাচ্চাদের পচ্ছন্দের পোশাক কিনেছি।

রোজী মার্কেট দোকান মালিক সমিতির সভাপতি রানা হোসেন বলেন, রোজার শেষের দিকে ক্রেতাদের ভিড় বেড়েছে। গত দুই বছর করোনায় মানুষ ঘরবন্দি থাকার কারণে বেশি কেনাকাটা করতে পারেনি। এবার ঈদের মার্কেট ও বিপণি বিতানগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় বেড়েছে। আশা করছি এ ঈদে বেচা-কেনা বেশ ভাল হবে। ব্যবসায়ীরা দুই বছরের লোকশান কিছুটা পুষিয়ে নিতে পাবে বলে তিনি মনে করেন।

আপলোডকারীর তথ্য

Banglar Alo News

hello
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

নাটোরে জমেছে ঈদের বাজার, ব্যস্ত ক্রেতা-বিক্রেতা

আপডেট সময় ০২:৫৬:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৩ এপ্রিল ২০২২

 

আমিরুল ইসলাম, নাটোর সদর প্রতিনিধিঃ নাটোরে জমে উঠেছে ঈদের বাজার। ঈদের দিন যত ঘনিয়ে আসছে, ক্রেতাদের ভিড় তত বাড়ছে। করোনার কারণে দুই বছর ঈদে তেমন বেচাকেনা হয়নি, সেই ক্ষতি এবার পুষিয়ে নিতে চান ব্যবসায়ীরা। তাই সাধ্যমতো ছোট-বড়-মাঝারি ব্যবসায় পুঁজি খাটিয়েছেন তারা।

রমজানের শুরু থেকে মার্কেট আর বিপণি বিতানগুলোতে তেমন ক্রেতাদের ভিড় না থাকলেও শেষের দিকে কেনাকাটা জমজমাট হয়ে উঠেছে। প্রতিটি মার্কেটে আর বিপণি বিতানগুলোতে নতুন নতুন পোশাকে সেজেছে। অপরদিকে দোকানে দোকানে অতিরিক্ত কর্মচারীও রাখা হয়েছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, শহরের উত্তরা সুপার মার্কেট, মন্দির মার্কেট, রোজী মার্কেট, সাদেক কমপ্লেক্সে, জয়া মার্কেট, মনসুর রহমান মার্কেট, বিসমিল্লাহ বস্ত্রালয়, মওলা বস্ত্রালয়সহ বিভিন্ন বিপণিবিতান, শপিংমল আর ছোট-বড় সব ধরণের দোকানেগুলো সকাল থেকে শুরু হয়ে মধ্য রাত পর্যন্ত চলছে কেনাবেচা।

মার্কেট আর বিপণি বিতানগুলোতে শিশু থেকে শুরু করে সব বয়সী ক্রেতাদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। অন্যদিকে বাহারি কারুকাজ, হাতের নকশা এবং নানা রঙের কাপড়সহ বিভিন্ন নতুন পোশাকে সেজেছে বিপনী বিতানগুলো। এসেছে নতুন নতুন কালেকশনও। দেশি কাপড়ের পাশাপাশি বিদেশি কাপড়ও বিক্রি হচ্ছে। তবে গরমকে প্রাধান্য দিতে আনা হয়েছে নতুনত্ব ডিজাইন। আর বেশিরভাগ পোশাকই রাখা হয়েছে সুতি কাপড়। ছেলে-মেয়ে ও শিশুসহ সকলের জন্যই রয়েছে সব ধরনের পোশাক। তবে সব ধরনের পোশাকের দাম কিছুটা বেশি বলে অভিযোগ করেছেন ক্রেতারা।

রোজী মার্কেটের রুবেল গার্মেন্টসের সত্ত্বাধিকার মো. রুবেল হোসেন বলেন,  প্রতিবারের মতো এবারও ক্রেতাদের কথা বিবেচনায় রেখে ঈদে বাহারি ও নান্দনিক ডিজাইনের পোশাক এনেছি। বিশেষ করে ছেলেদের পাঞ্জাবি, শার্ট, টি-শার্ট, ইজি কেয়ার শার্ট, জিন্স প্যান্ট এবং মেয়েদের থ্রি পিস, টু-পিস, কাজ করা জর্জেট কামিজ কালেকশন রয়েছে।

উত্তরা সুপার মার্কেটের মিজান গার্মেন্টসের সত্বাধিকার মিজানুর রহমান মিজান বলেন, এবার ছেলেদের জিন্স, টিশার্ট এবং গেঞ্জিতে নতুনত্ব এসেছে। দামটা সব শ্রেণির ক্রেতাদের কথা চিন্তা করে স্বল্প লাভে বিক্রি করছি। ক্রেতাদের বেশ সাড়া পাচ্ছি।

নিউ কালেকশনের বিক্রেতা হাবিব রহমান বলেন, করোনার দুই বছরের লোকেশান কাটিয়ে নিতে এ বছর বেশ নতুন কালেকশন আনা হয়েছে। রমজানের শুরুতে ক্রেতাদের ভিড় কম থাকলেও শেষের দিকে ক্রেতাদের ভিড় পর্যাপ্ত।

ফরহাদ হোসেন নামে এক ক্রেতা বলেন, এবার পাঞ্জাবির ডিজাইনের ভিন্নতা রয়েছে। তবে পাঞ্জাবির দাম অনেক বেশি। তাই পাঞ্জাবি না কিনে ফতুয়া কিনেছি।

বৃষ্টি আক্তার নামে এক নারী ক্রেতা বলেন, অনেক ঘুরে ঘুরে কিছু পোশাক কিনলাম। ঈদ উপলক্ষে দাম একটু বেশি, তবে পোশাকের মান ভালো। অন্য বছরের তুলনায় ডিজাইনেও বৈচিত্র্য আছে। তবে এবার সুতি কাপুড়ের ডিজাইন করা থ্রি-পিস বেশ পাওয়া যাচ্ছে।

স্বপ্না খাতুন নামের এক গৃহবধূ বলেন, বাচ্চাদের নিয়ে কেনাকাটা করতে মার্কেটে এসেছি। এ বছর কাপড়ের দামটা একটু বেশি বলে মনে হচ্ছে। তবুও বাচ্চাদের পচ্ছন্দের পোশাক কিনেছি।

রোজী মার্কেট দোকান মালিক সমিতির সভাপতি রানা হোসেন বলেন, রোজার শেষের দিকে ক্রেতাদের ভিড় বেড়েছে। গত দুই বছর করোনায় মানুষ ঘরবন্দি থাকার কারণে বেশি কেনাকাটা করতে পারেনি। এবার ঈদের মার্কেট ও বিপণি বিতানগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় বেড়েছে। আশা করছি এ ঈদে বেচা-কেনা বেশ ভাল হবে। ব্যবসায়ীরা দুই বছরের লোকশান কিছুটা পুষিয়ে নিতে পাবে বলে তিনি মনে করেন।