বাংলাদেশ ১২:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :

সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,, সাংবাদিক নিয়োগ চলছে,,০১৯৯৯-৯৫৩৯৭০, ০১৭১২-৪৪৬৩০৬,০১৭১১-০০৬২১৪ সম্পাদক

     
ব্রেকিং নিউজ ::
মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন সন্ধ্যার মধ্যে উপাচার্য, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন ছাড়ার আল্টিমেটাম কুবি শিক্ষার্থীদের রাবিতে জড়ো হওয়া আন্দোলনকারীদের পুলিশ-বিজিবির ধাওয়া মেহেন্দিগঞ্জে অজ্ঞাতনামা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার। মুন্সীগঞ্জে গায়েবানা জানাযা থেকে ঈমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেলো পুলিশ কোটা আন্দোলনের পক্ষে সংহতি জানিয়ে ফেনী ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের বিবৃতি চলমান পরিস্থিতিতে রাবি ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি আপাতত স্থগিত: উপাচার্য বিদেশের পাঠানো টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে প্রবাসী স্বামী রাজশাহীতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র আশুরা পালিত চট্রগ্রামের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ওয়াসিমের জানাজায় মানুষের ঢল পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তায় সমবায় সমিতি ভবনের ট্যাংকির ময়লা: জনদুর্ভোগ মুন্সীগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, আহত ৫ হরিপুরে, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পক্ষ থেকে কর্মী মিটিং ও গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত। গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর স্ত্রীর যৌতুক মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কারাগারে

বেনাপোল বন্দরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০২:৩৫:১৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ এপ্রিল ২০২২
  • ১৬৮০ বার পড়া হয়েছে

বেনাপোল বন্দরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড

কামাল হোসেন, বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
বেনাপোল স্থল বন্দরের ভারতীয় ট্রাক টার্মিনালে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড সংঘটিত হয়েছে। এতে ৬ টি ভারতীয় ট্রাক আমাদানিকৃত পণ্য সহ ভস্মিভুত ও এক প্যাকেজ আমদানিকৃত ম্যাশিনারী কার্টনে আগুন লেগে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ওই ট্রাকে দাহ্য পদার্থ ব্লিচিং পাউডার ছিল। প্রায় দুই ঘন্টা ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট কাজ করে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। অনিয়ম অব্যবস্থাপনার কারনে এরকম অগ্নিকান্ড সংটিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেন একাধিক বন্দর ব্যবসায়িরা। শুক্রবার ভোর ৫.০৪ টার সময় বেনাপোল স্থল বন্দরের ভারতীয়  ট্রাক টার্মিনালের মধ্যে এ অগ্নিকান্ড ঘটে। ঘটনাস্থলে বেনাপোল স্থল বন্দরের কর্মকর্তাগন ও পোর্ট থানা ওসি কামাল হোসেন ভুইয়া পরিদর্শন করেন।
বেনাপোল সিএন্ড এফ এজেন্ড মুক্তা ট্রেুিডং এর সত্বাধিকারী আব্দুল মুন্নাফ বলেন, খামখেয়ালী পনা ও অব্যবস্থার কারনে এরকম অগ্নিকান্ড সংঘটিত হয়েছে। যেখানে অগ্নিকান্ড ঘটেছে সেই স্থানটি একটি টার্মিনাল। এখানে ভারতীয় গাড়ি রাখা হয় বলে নাম হয়েছে ভারতীয় ট্রাক টার্মিনাল। টার্মিনালের মধ্যে রয়েছে আমদানিকৃত অন্যান্য পণ্য। যা রাখার কথা নয়। আবার এসব দাহ্যপণ্য ফাঁকা জায়গায় রাখার কথা থাকলেও তারা এই টার্মিনালের মধ্যে রেখেছে। তিনি আরো বলেন, বেনাপোল স্থল বন্দরের একটি নিজস্ব ফায়ার সার্ভিস টিম রয়েছে। তারা অগ্নি নির্বাপকের কোন কাজ করে নাই। খোজ নিয়ে জানা গেছে তাদের গাড়িতে পানি নেই। এরা আবার বছরের পর বছর বন্দর থেকে বেতন ভাতা ও গাড়ির তেল খরছ নিচ্ছে প্রতনিয়ত।
তৌহিদুজ্জামান নামে একজন সিএন্ডএফ কর্মচারী বলেন, যতবার এই বন্দরে অগ্নিকান্ড সংঘটিত হয়েছে ততবারই ছুটির  দিনে। আজ ও ছুটির দিন। এছাড়া এসব দাহ্যপদার্থ জাতিয় পণ্য কেনই বা এই টার্মিনালে রাখা হয়েছে তাও ক্ষতিয়ে দেখার বিষয়। স্থানীয় একাধিক সিএন্ডএফ কর্মচারীরা বলেন, ভারতীয় যে সব ট্রাকে এজাতিয় পণ্য আসে তা একদিনের মধ্যে বন্দর থেকে খালাস করে নিয়ে যাওয়ার কথা। তারপরও ওই ট্রাকগুলো প্রায় ১৫ দিন এই টার্মিনালের মধ্যে অবস্থান করছে। ট্রাকের চালক ও হেলপাররা ট্রাকের মধ্যে বসে ধুমপান করে থাকে এবং ট্রাকের নীচে রান্নার কাজ করে। সেখানে থেকে আগুন লাগতে পারে বলে তারা মন্তব্য করেন।
ফায়ার কর্মী রইজ উদ্দিন বলেন কি ভাবে অগ্নিকান্ড ঘটেছে তা এখন বলা সম্ভব না। এটা তদন্ত সাপেক্ষে বলা যেতে পারে। বেনাপোল বন্দরের ট্রাফিক পরিদর্শক জাহিদুল ইসলাম বলেন,  এগুলো দাহ্য পদার্থ । এতে পানি লাগলে আগুন ধরে যায় । তবে বৃষ্টি হয়নি । অতিরিক্ত  তাপমাত্রার কারনে এরকম অগ্নিকান্ড সংঘটিত হতেও পারে।
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি কামাল হোসেন ভুইয়া বলেন স্থল বন্দরে অগ্নিকান্ড সংঘটিত হওয়ার পর  ফায়ার সার্ভিসের পাশাপাশি পুলিশ ও অগ্নিনির্বাপক এর কাজ করছে।
বেনাপোল স্থল বন্দও এর উপ-পরিচালক মামুন কবির তরফদার বলেন, কি ভাবে এই দাহ্য পদার্থে আগুন লেগেছে তা তদন্ত করা হবে। তবে এগুলো যেহেতু  দাহ্য পদার্থ অতিরিক্ত তাপমাত্রার কারনেও আগুন লাগতে  পারে। এর আগেও এরকম ঘটনা ঘটেছে বন্দর এলাকায়।
জনপ্রিয় সংবাদ

মুন্সীগঞ্জ সদর ইউএনওর চরডুমুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন

বেনাপোল বন্দরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড

আপডেট সময় ০২:৩৫:১৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ এপ্রিল ২০২২
কামাল হোসেন, বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
বেনাপোল স্থল বন্দরের ভারতীয় ট্রাক টার্মিনালে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড সংঘটিত হয়েছে। এতে ৬ টি ভারতীয় ট্রাক আমাদানিকৃত পণ্য সহ ভস্মিভুত ও এক প্যাকেজ আমদানিকৃত ম্যাশিনারী কার্টনে আগুন লেগে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ওই ট্রাকে দাহ্য পদার্থ ব্লিচিং পাউডার ছিল। প্রায় দুই ঘন্টা ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট কাজ করে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। অনিয়ম অব্যবস্থাপনার কারনে এরকম অগ্নিকান্ড সংটিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেন একাধিক বন্দর ব্যবসায়িরা। শুক্রবার ভোর ৫.০৪ টার সময় বেনাপোল স্থল বন্দরের ভারতীয়  ট্রাক টার্মিনালের মধ্যে এ অগ্নিকান্ড ঘটে। ঘটনাস্থলে বেনাপোল স্থল বন্দরের কর্মকর্তাগন ও পোর্ট থানা ওসি কামাল হোসেন ভুইয়া পরিদর্শন করেন।
বেনাপোল সিএন্ড এফ এজেন্ড মুক্তা ট্রেুিডং এর সত্বাধিকারী আব্দুল মুন্নাফ বলেন, খামখেয়ালী পনা ও অব্যবস্থার কারনে এরকম অগ্নিকান্ড সংঘটিত হয়েছে। যেখানে অগ্নিকান্ড ঘটেছে সেই স্থানটি একটি টার্মিনাল। এখানে ভারতীয় গাড়ি রাখা হয় বলে নাম হয়েছে ভারতীয় ট্রাক টার্মিনাল। টার্মিনালের মধ্যে রয়েছে আমদানিকৃত অন্যান্য পণ্য। যা রাখার কথা নয়। আবার এসব দাহ্যপণ্য ফাঁকা জায়গায় রাখার কথা থাকলেও তারা এই টার্মিনালের মধ্যে রেখেছে। তিনি আরো বলেন, বেনাপোল স্থল বন্দরের একটি নিজস্ব ফায়ার সার্ভিস টিম রয়েছে। তারা অগ্নি নির্বাপকের কোন কাজ করে নাই। খোজ নিয়ে জানা গেছে তাদের গাড়িতে পানি নেই। এরা আবার বছরের পর বছর বন্দর থেকে বেতন ভাতা ও গাড়ির তেল খরছ নিচ্ছে প্রতনিয়ত।
তৌহিদুজ্জামান নামে একজন সিএন্ডএফ কর্মচারী বলেন, যতবার এই বন্দরে অগ্নিকান্ড সংঘটিত হয়েছে ততবারই ছুটির  দিনে। আজ ও ছুটির দিন। এছাড়া এসব দাহ্যপদার্থ জাতিয় পণ্য কেনই বা এই টার্মিনালে রাখা হয়েছে তাও ক্ষতিয়ে দেখার বিষয়। স্থানীয় একাধিক সিএন্ডএফ কর্মচারীরা বলেন, ভারতীয় যে সব ট্রাকে এজাতিয় পণ্য আসে তা একদিনের মধ্যে বন্দর থেকে খালাস করে নিয়ে যাওয়ার কথা। তারপরও ওই ট্রাকগুলো প্রায় ১৫ দিন এই টার্মিনালের মধ্যে অবস্থান করছে। ট্রাকের চালক ও হেলপাররা ট্রাকের মধ্যে বসে ধুমপান করে থাকে এবং ট্রাকের নীচে রান্নার কাজ করে। সেখানে থেকে আগুন লাগতে পারে বলে তারা মন্তব্য করেন।
ফায়ার কর্মী রইজ উদ্দিন বলেন কি ভাবে অগ্নিকান্ড ঘটেছে তা এখন বলা সম্ভব না। এটা তদন্ত সাপেক্ষে বলা যেতে পারে। বেনাপোল বন্দরের ট্রাফিক পরিদর্শক জাহিদুল ইসলাম বলেন,  এগুলো দাহ্য পদার্থ । এতে পানি লাগলে আগুন ধরে যায় । তবে বৃষ্টি হয়নি । অতিরিক্ত  তাপমাত্রার কারনে এরকম অগ্নিকান্ড সংঘটিত হতেও পারে।
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি কামাল হোসেন ভুইয়া বলেন স্থল বন্দরে অগ্নিকান্ড সংঘটিত হওয়ার পর  ফায়ার সার্ভিসের পাশাপাশি পুলিশ ও অগ্নিনির্বাপক এর কাজ করছে।
বেনাপোল স্থল বন্দও এর উপ-পরিচালক মামুন কবির তরফদার বলেন, কি ভাবে এই দাহ্য পদার্থে আগুন লেগেছে তা তদন্ত করা হবে। তবে এগুলো যেহেতু  দাহ্য পদার্থ অতিরিক্ত তাপমাত্রার কারনেও আগুন লাগতে  পারে। এর আগেও এরকম ঘটনা ঘটেছে বন্দর এলাকায়।